ঢাকা, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, শুক্রবার, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিঃ

অনলাইন

চীনের বিআরআই ঋণ নিয়ে সতর্ক করলেন বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী, উদাহরণ টানলেন শ্রীলঙ্কার

মানবজমিন ডিজিটাল

(১ মাস আগে) ১০ আগস্ট ২০২২, বুধবার, ১:৫৭ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ১০:৫৮ পূর্বাহ্ন

বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী এএইচএম মুস্তফা কামাল সতর্ক করেছেন উন্নয়নশীল দেশগুলিকে। বলেছেন, চীনের বেল্ট অ্যান্ড রোড (বিআরআই) ইনিশিয়েটিভের মাধ্যমে আরও ঋণ নেওয়ার বিষয়ে দুবার ভাবতে হবে। কারণ বৈশ্বিক মুদ্রাস্ফীতি এবং প্রবৃদ্ধি ঋণগ্রস্ত উদীয়মান বাজারগুলিতে চাপ বাড়ায়। ফাইন্যান্সিয়াল টাইমসকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে কামাল আরও বলেন, যে চীনকে তার ঋণের মূল্যায়নে আরও কঠোর হতে হবে। কারণ দুর্বল ঋণের সিদ্ধান্ত দেশগুলিকে সঙ্কটে ঠেলে দেওয়ার ঝুঁকি তৈরি করে। বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী শ্রীলঙ্কার দিকে ইঙ্গিত করে বলেন, সেখানে  চীনা-সমর্থিত অবকাঠামো প্রকল্পগুলি রিটার্ন জেনারেট করতে ব্যর্থ হয়েছিল এবং দ্বীপরাষ্ট্রকে একটি গুরুতর অর্থনৈতিক সঙ্কটের দিকে ঠেলে দিয়েছিলো। কামালের সতর্কবাণী বিশ্বব্যাপী পরিস্থিতি যাই হোক না কেন, সবাইকে বিআরআই প্রকল্পে সম্মত হওয়ার আগে দুবার ভাবতে হবে। সেইসঙ্গে তিনি যোগ করেন, “সবাই চীনকে দোষারোপ করছে। কিন্তু  চীনের থেকে ঋণ নেবার পর তার দায়িত্ব নিজেদেরই নিতে হবে ”। কামালের মতে, ''শ্রীলঙ্কার সংকট থেকে একটি বিষয় স্পষ্ট যে কোন প্রকল্পগুলির ক্ষেত্রে ঋণ দেয়া হবে সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে চীন যথেষ্ট কঠোর ছিল না।

বিজ্ঞাপন
একটি প্রকল্পে ঋণ দেওয়ার আগে সেটিকে "পুঙ্খানুপুঙ্খ অধ্যয়ন" করতে হবে। শ্রীলঙ্কার পর আমরা অনুভব করেছি যে চীনা কর্তৃপক্ষ এই বিশেষ দিকটির দিকে নজর দিচ্ছে না, যা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ''গত মাসে, রাশিয়ার ইউক্রেনে পূর্ণ মাত্রায় আগ্রাসনের ফলে তার বৈদেশিক রিজার্ভের উপর চাপের পর পণ্যের দাম বৃদ্ধির কারণে বাংলাদেশ আইএমএফের কাছে সাহায্য চেয়েছে। চীনের বিআরআই-তে অংশগ্রহণকারী দেশটির বেইজিংয়ের কাছে প্রায় ৪ বিলিয়ন ডলার পাওনা রয়েছে যা তার মোট বৈদেশিক ঋণের ৬ শতাংশ। অর্থমন্ত্রী  বলেন, বিশ্বব্যাংক, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক, এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক এবং জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি সহ অন্যান্য বহুপাক্ষিক ও দ্বিপাক্ষিক ঋণদাতাদের কাছ থেকে বাংলাদেশ আরও ৪ বিলিয়ন ডলার চেয়েছে। তিনি আশাবাদী যে দেশ তাদের কাছ থেকে ঋণ পাবে। 

শ্রীলঙ্কা, মে মাসে ঋণ খেলাপির মুখে পড়ে একটি জরুরি বেলআউটের জন্য আইএমএফের সাথে আলোচনা করছে।পাকিস্তানের বৈদেশিক রিজার্ভও  যথেষ্ট কমে গেছে। গত মাসে ৭ বিলিয়ন সহায়তা প্যাকেজের অংশ হিসাবে ১.৩ বিলিয়ন ডলার মুক্তির জন্য আন্তর্জাতিক তহবিলের সাথে একটি প্রাথমিক চুক্তিতে পৌঁছেছে পাকিস্তান। জ্বালানি ঘাটতির কারণে দৈনিক বহু-ঘণ্টা বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ায় বাংলাদেশ মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। দেশের বৈদেশিক রিজার্ভও এক বছর আগের ৪৫ বিলিয়ন ডলার থেকে ৪০ বিলিয়ন ডলারের নিচে নেমে এসেছে। বিশ্লেষকরা বলছেন যে দেশের শক্তিশালী রপ্তানি খাত, বিশেষ করে এর পোশাক বাণিজ্য, সাম্প্রতিক অর্থনৈতিক ধাক্কা থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করেছে এবং এর রিজার্ভ এখনও প্রায় পাঁচ মাসের মূল্যের আমদানির জন্য যথেষ্ট। তবে কামাল একটি বিষয়ে আশ্বস্ত করেছেন, '' বাংলাদেশ চাপের মধ্যে থাকলেও শ্রীলঙ্কার মতো খেলাপি হওয়ার ঝুঁকিতে ছিল না। ''

সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস

পাঠকের মতামত

ঋণ করে '' ঘি '' খাওয়া জাতি এখন বুঝ ঠেলা ।

Nizam
১১ আগস্ট ২০২২, বৃহস্পতিবার, ৭:৪০ অপরাহ্ন

When the international financial experts are having full confidence on Bangladesh abilities to handle the current global financial meltdown a section of our so called BUDDHIJIBI is making every possible prayers to Almighty so that Bangladesh fails and they cam have a great laugh and grab the 'KOICHILAM NA' moment! This is sad but the reality of Bangladeshi BUDDHIJOBI and like minded followers.

Shamim Chowdhury
১১ আগস্ট ২০২২, বৃহস্পতিবার, ৭:৩০ পূর্বাহ্ন

BRI ভোগ করবে চীন সহ বিদশী রাষ্ট্র। তাদের কাছ থেকে ঋণ নিয়ে তাদের জন্য আমাদের নাক কেটে রাস্তা করে দিচ্ছি । ৫০০ কিমি রাস্তা ব্যবহার করার সুযোগ দিয়ে আমরা ১৫ ,কিমি ব্যবহার করার সুবিধা দিচ্ছে না ভারত । কেন ? আমাদের রাস্তা সড়কের উন্নয়ন কি তাদের জন্য। প্রায়ই পত্রিকায় পড়ি ভারত যেতে বা আসতে চার ঘন্টা পাঁচ ঘন্টা সময় বাঁচবে উল্লেখ করা হয়। তাল মানে কি এই সব রাস্তাঘাট তাদের জন্য ?

Kazi
১০ আগস্ট ২০২২, বুধবার, ৬:১৪ অপরাহ্ন

Really surprised at the uncalled for remarks about friendly country China by our Foreign Minister. Is he pitching in for the Indian propaganda media for reasons known only to himself and does he realise what serious impact his such ill researched and ill motivated statement may cause to the friendly relations between Bangladesh and China? Hopefully, the top brass will take him to task for such unprecedented and folly remarks.

Rozario
১০ আগস্ট ২০২২, বুধবার, ৯:০৭ পূর্বাহ্ন

চীন কাউকে জোর করে ঋণ চাপিয়ে দেয় না। উন্নয়নশীল দেশগুলোর সরকার এই ঋণ নেয়, চুরি করতে সুবিধা হয় বলে।

আজিজ
১০ আগস্ট ২০২২, বুধবার, ৭:০৫ পূর্বাহ্ন

চীন থেকে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার লোন নিয়ে দেশকে সঙ্কটের মধ্যে ফেলে এখন আপনি বিআরআই নিয়ে কাকে সতর্ক করছেন ? সবাই আপনাদের সতর্ক করেছিল কিন্তু আপনারা শুনেন নি ।‌‌ উন্নয়নের বড় বড় বুলি আউরেছিলেন ।

Andalib
১০ আগস্ট ২০২২, বুধবার, ৬:৪৬ পূর্বাহ্ন

২০২১সাল পর্যন্ত শ্রীলঙ্কার জি,ডিপি, বাংলাদেশের চেয়ে, উন্নত ছিল। কিন্তু মাত্র ২০২২সালেই, শ্রীলঙ্কা দেউলিয়া হয়ে গেছে। বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কার মতো হবে না। একথা হলফ করে বলা যাবে না।তাই অনেক কিছু ভাবতে হবে।

মাছরুর
১০ আগস্ট ২০২২, বুধবার, ১:১০ পূর্বাহ্ন

অনলাইন থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

অনলাইন থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রায়শই মিলত ধর্ষণের হুমকি/ ‘গেট খুলে দেখি মেয়ে অর্ধ-উলঙ্গ এবং গলা কাটা’

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং স্কাইব্রীজ প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং লিমিটেড, ৭/এ/১ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status