ঢাকা, ১৮ আগস্ট ২০২২, বৃহস্পতিবার, ৩ ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৯ মহরম ১৪৪৪ হিঃ

অনলাইন

ভারতে ধানের ফলন কম, বিশ্বের খাদ্য সরবরাহ নতুন হুমকির সম্মুখীন

মানবজমিন ডিজিটাল

(২ সপ্তাহ আগে) ৪ আগস্ট ২০২২, বৃহস্পতিবার, ৩:৩৪ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ১১:০২ পূর্বাহ্ন

গম, ভোজ্য তেলের পর এবার বিশ্বে চালের আকাল দেখা দিতে পারে।  কারণ চলতি মরশুমে ভারতে বর্ষার আগমন ঘটলেও বৃষ্টির ঘাটতি দেখা গিয়েছে ভারতের বিভিন্ন অংশে। এদিকে ভারত চালের সবচেয়ে বড় রফতানিকারক দেশ। এই আবহে ভারতে ধানের ফলন কম হলে তা বিশ্বের খাদ্য সরবরাহকে নতুন হুমকির মুখে ফেলতে পারে। 

ঘটনাটি এমন এক সময়ে ঘটলো যখন একাধিক দেশ ক্রমবর্ধমান খাদ্য খরচ এবং ব্যাপক মুদ্রাস্ফীতির সঙ্গে লড়াই করছে। পশ্চিমবঙ্গ এবং উত্তর প্রদেশ সহ কিছু এলাকায় বৃষ্টিপাতের অভাবের কারণে এই মরশুমে এ পর্যন্ত মোট ধান রোপিত এলাকা ১৩ % কমেছে, যা ভারতের উৎপাদনের এক চতুর্থাংশের জন্য দায়ী। ব্যবসায়ীরা উদ্বিগ্ন যে চালের উৎপাদন কমে যাওয়া ভারতের মুদ্রাস্ফীতির লড়াইকে জটিল করে তুলবে এবং রপ্তানিতে বিধিনিষেধ আরোপ করবে। এই ধরনের পদক্ষেপ কোটি কোটি মানুষের ওপর সুদূরপ্রসারী প্রভাব ফেলবে । ভারত বিশ্বব্যাপী চালের  বাণিজ্যের ৪০% অংশ এবং খাদ্য নিরাপত্তা ও  স্থানীয় মূল্য নিয়ন্ত্রণের জন্য গম এবং চিনি রপ্তানি রোধ করেছে। স্পঞ্জ এন্টারপ্রাইজ প্রাইভেট লিমিটেডের একজন পরিচালক মুকেশ জৈন বলেছেন, বৃষ্টির ঘাটতি এবং বাংলাদেশের চাহিদা বৃদ্ধির কারণে পশ্চিমবঙ্গ, ওড়িশা এবং ছত্তিশগড়ের মতো প্রধান বর্ধনশীল রাজ্যগুলিতে গত দুই সপ্তাহে কিছু চালের জাতের দাম ১০% এরও বেশি বেড়েছে।

তিনি বলেন, রপ্তানি মূল্য সেপ্টেম্বরের মধ্যে প্রতি টন ৪০০ ডলারে উঠতে পারে। বিশ্বের বেশিরভাগ চাল এশিয়ায় উৎপাদন হয়  এবং খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করা হয় যা  এই অঞ্চলে রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ।

বিজ্ঞাপন
ভারত ১০০ টিরও বেশি দেশে চাল সরবরাহ করে, যার মধ্যে বাংলাদেশ, চীন, নেপাল এবং মধ্যপ্রাচ্যের কিছু দেশ উল্লেখযোগ্য। 

ভারতের কৃষি মন্ত্রকের প্রাক্তন সচিব সিরাজ হুসেনের মতে, বেশ কয়েকটি রাজ্যে ভারতের ধানের উৎপাদন হ্রাস পাওয়ার সাথে সাথে, সরকারের ইথানল উৎপাদনের জন্য চাল বরাদ্দের নীতি পর্যালোচনা করা উচিত। কারণ ভারত তার জ্বালানি খরচ কমানোর প্রচেষ্টার অংশ হিসাবে উদ্বৃত্ত চিনি এবং চাল ব্যবহার করে ইথানল উৎপাদন বাড়াতে চায়। 

ইউক্রেনের যুদ্ধের পরে খাদ্যের দাম বৃদ্ধি ক্ষুধার ঝুঁকি বাড়িয়েছে এবং এটি "খাদ্য বনাম জ্বালানি" বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের পর গম এবং ভুট্টার দামের ঊর্ধ্বগতির বিপরীতে, প্রচুর পরিমাণে চাল উৎপাদন এবং মজুত থাকার কারণে একটি বৃহত্তর খাদ্য সংকট দূর করা গেছে । ভারতে ধানের ফসল বর্ষার অগ্রগতির উপর অনেকটাই নির্ভর করছে। কৃষি বিজ্ঞানীরা আশাবাদী যে এখনও কিছু ঘাটতি পূরণ করার সময় আছে। আগস্ট থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বৃষ্টি স্বাভাবিক হওয়ার পূর্বাভাস রয়েছে, যা ফসলের উৎপাদন বাড়াতে পারে। যদিও কৃষকরা খুব একটা নিশ্চিন্ত হতে পারছেন না। রাজেশ কুমার সিং নামে উত্তর প্রদেশের একজন কৃষক বলেছেন, জুন এবং জুলাই মাসে বৃষ্টি না হওয়ায় তিনি তার সাত একর জমির মাত্র অর্ধেক জমিতে ধান রোপণ করেছিলেন। 

ভারতের মুদ্রাস্ফীতির লড়াইয়ে চাল নতুন চ্যালেঞ্জ উপস্থাপন করতে পারে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক এই সপ্তাহে ঋণ নেওয়ার খরচ আরও বাড়াতে পারে কারণ রুপির দুর্বলতা জ্বালানি এবং উদ্ভিজ্জ তেলের মতো পণ্যের মূল্য হ্রাসের প্রভাবকে অফসেট করে। নোমুরা হোল্ডিংস ইনকর্পোরেটেডের অর্থনীতিবিদ সোনাল ভার্মার মতে, বৃষ্টিপাতের ভৌগলিক বৈষম্য যদি অব্যাহত থাকে, তাহলে তা ফসল উৎপাদনে ক্ষতিকর প্রভাব ফেলতে পারে। সেইসঙ্গে  অর্থনৈতিক বৃদ্ধি এবং মুদ্রাস্ফীতিকে নেতিবাচকভাবে দিকে নিয়ে যেতে পারে।

সূত্র :  business-standard.com

অনলাইন থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

অনলাইন থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status