ঢাকা, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, সোমবার, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১৫ শাবান ১৪৪৫ হিঃ

বাংলারজমিন

কাজ দেয়ার কথা বলে জিম্মি, কিশোরকে বৈদ্যুতিক শক, গ্রেপ্তার ১

দেবীগঞ্জ (পঞ্চগড়) প্রতিনিধি
৪ ডিসেম্বর ২০২৩, সোমবার

পূর্ব পরিচিত হওয়ায় কাজের কথা বলে হোসেন আলী ওরফে সজীব (১৪)কে নিয়ে যাওয়া হয় সিরাজগঞ্জে। এরপর কোমল পানীয়র সঙ্গে ঘুমের ওষুধ খাওয়ালে সজীব অজ্ঞান হয়ে যায়। পরে তাকে জিম্মি করে মুক্তিপণ আদায়ের চেষ্টা করে অপহরণকারীরা। দেয়া হয় বৈদ্যুতিক শক। বর্তমানে সজীব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন আছে। এই ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করেছে দেবীগঞ্জ থানা পুলিশ। সজীব দেবীগঞ্জ উপজেলার দণ্ডপাল ইউনিয়নের খারিজা গুয়াগ্রাম উনিশ ঘর এলাকার কবাদ আলীর ছেলে। সে ফুলবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র। ভুক্তভোগী ও দেবীগঞ্জ থানা সূত্র জানায়, গত ২৭শে নভেম্বর সজীবের প্রতিবেশী শামসুল হকের ছেলে গোলাম মোস্তফা সজীবকে কাজ দেয়ার কথা বলে সিরাজগঞ্জ নিয়ে যায়। এরপর উল্লাপাড়া উপজেলার নতুন দাউদপুর এলাকার হযরত আলীর ছেলে ইসমাইল হোসেনের বাড়িতে আটকে রেখে সজীবের কাছে থাকা ১০ হাজার টাকা নিয়ে নেয় মোস্তফা ও ইসমাইল।

বিজ্ঞাপন
পরে আবারো ৩ লাখ টাকা মুক্তিপণ দেয়ার জন্য বাবা-মার সঙ্গে কথা বলতে চাপ দেয় সজীবকে। তবে দরিদ্র পরিবারের সন্তান হওয়ায় সজীব তার বাবা-মাকে মুক্তিপণের টাকার কথা জানায়নি।

 এরমধ্যে সজীব দুই তিনবার বাসায় কথা বললেও জিম্মি হওয়ার কথা জানায়নি। গত শুক্রবার রাতে সুযোগ বুঝে সজীব ইসমাইলের বাড়ি থেকে কৌশলে পালিয়ে এসে বাস এবং ট্রেনযোগে শনিবার বাসায় ফেরে। এই সময় সজীবের ঘাড় ও বাম হাতে বৈদ্যুতিক শকে ঝলসে যাওয়া অবস্থায় দেখতে পান তার বাবা-মা। যদিও সজীব বলছে জ্ঞান থাকা অবস্থায় তাকে বৈদ্যুতিক শক দেয়া হয়নি। এইদিকে ইসমাইল সজীবের পিছু নিয়ে শনিবার কালীগঞ্জ বাজার পর্যন্ত আসলে তাকে স্থানীয়রা আটক করে পুলিশে খবর দেয়। পরে ইসমাইলকে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়। ধারণা করা হচ্ছে, কোমল পানীয়তে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে অজ্ঞান হওয়ার পর সজীবের জ্ঞান ফিরতে দেরি হয়। দ্রুত জ্ঞান ফেরানোর জন্য তার বাম হাতে ও ঘাড়ে তার পেঁচিয়ে বৈদ্যুতিক শক দেয়া হয়। এই কারণে সজীব বৈদ্যুতিক শকের ব্যাপারে কিছু বলতে পারছে না। এই ঘটনায় সজীবের বাবা বাদী হয়ে শনিবার রাতে দুইজনের নাম উল্লেখ করে দেবীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। দেবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সরকাত ইফতেখারুল মোকাদ্দেম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, একজন আসামিকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। অপর আসামিকে গ্রেপ্তারে আমরা কাজ করছি।

বাংলারজমিন থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

বাংলারজমিন সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2023
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status