ঢাকা, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বুধবার, ৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১০ শাবান ১৪৪৫ হিঃ

নির্বাচিত কলাম

আন্তর্জাতিক

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তায় নগ্নতা, বিভ্রান্তি উদ্বিগ্ন হোয়াইট হাউসও

মোহাম্মদ আবুল হোসেন
২৯ জানুয়ারি ২০২৪, সোমবার
mzamin

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভুয়া ছবি, ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে। এতে যেকোনো মানুষ বিভ্রান্ত হতে পারেন। কারণ, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে তৈরি করা এসব ছবি, ভিডিও হুবহু সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির মতোই দেখতে। যুক্তরাষ্ট্রে এ বছর প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। সেই নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনেরও কণ্ঠ নকল করা হয়েছে। মার্কিন জনপ্রিয় গায়িকা টেইলর সুইফটের পর্নোগ্রাফিক ছবি ছড়িয়ে দেয়ার পর বাইডেনের কণ্ঠ এভাবে নকল করা হয়। এতে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে হোয়াইট হাউসে। বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে এমন অপপ্রচার হতে পারে বলে এ উদ্বেগ। এমনও ভিডিও আছে যেখানে শিশু ও টিনেজাররা তাদের নিজেদের মৃত্যু হচ্ছে, এ বিষয়ে বিস্তারিত বর্ণনা দিয়েছে। এসব ভিডিও ভাইরাল হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন
কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে অডিও ও ভিডিও তৈরি করে মানুষকে বিভ্রান্ত করা এটাই নতুন নয়। সম্প্রতি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে বিভিন্ন দেশে তৈরি করা হচ্ছে এমন সব বিষয়। ফলে কোনটা সত্য আর কোনটা মিথ্যা তা বোঝা সহজ কাজ নয়। সাধারণ মানুষ তো বটেই, সেই সঙ্গে প্রথম সারির সুপরিচিত নেতারা এখন উদ্বিগ্ন।

 ২০২৪ সালে এই ধারাটির বিস্তার ঘটতে পারে। এরই প্রেক্ষিতে শুক্রবার হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি জ্যাঁ-পিয়েরে বলেছেন, ভুয়া ছবি ছড়িয়ে পড়ার রিপোর্টে আমরা এলার্মড। এ ইস্যু নিয়ে কী করা যায়, আমরা সেটা করার চেষ্টা করছি।  সম্প্রতি ভারতের জনপ্রিয় অভিনেত্রী রশ্মিকা মন্দনার রগরগে একটি ভিডিও ভাইরাল হয় নেট দুনিয়ায়। কয়েক সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে তাকে দেখা যায় বাথরুম থেকে বেরিয়ে আসছেন হাসতে হাসতে, নাচতে নাচতে। এতে তার শরীরের উপরের অংশ অনেকটাই অনাবৃত অবস্থায় উপস্থাপন করা হয়। এ নিয়ে রশ্মিকা হতাশা প্রকাশের পর আত্মপক্ষ সমর্থন করেছেন। বলেছেন, এটা তার ভিডিও নয়। এটা কৃত্রিমভাবে বানানো হয়েছে। একই ঘটনা ঘটছে ইউরোপের অনেক দেশে। সম্প্রতি স্কুলের শিক্ষার্থী, বিশেষ করে মেয়েদের ছবি নিয়ে পর্নোগ্রাফি বানানো হয়। এমন ঘটনা ঘটেছে স্পেনে। ফলে অভিভাবকদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। 

গত বুধবার টেইলর সুইফটের পর্নোগ্রাফিক ছবি ছড়িয়ে পড়ে সারা দুনিয়ায়। এক্সে এসব ছবি দেখেছেন লাখ লাখ মানুষ। প্রকৃতপক্ষে টেইলর সুইফটের এ ছবিগুলো বানানো হয়েছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে। আর তা ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে সাবেক টুইটার, বর্তমানের এক্সে, যার মালিক ইলন মাস্ক। যদিও এক্সের মতো সাইটগুলোর বানোয়াট কন্টেন্ট, অশ্লীল ছবি প্রকাশের ক্ষেত্রে কিছু বিধিনিষেধ আছে, তা সত্ত্বেও টেইলর সুইফটের ওই ছবিগুলো এক্স থেকে সরিয়ে নেয়া হয় বেশ কয়েক ঘণ্টা পরে। একটি ছবি ওই সাইটে থেকে যায় প্রায় ১৭ ঘণ্টা। এ সময়ে তা ভিউ হয়েছে ৪ কোটি ৫০ লাখ বারের বেশি।  

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বিষয়ক বিশেষজ্ঞ ও গবেষক হেনরি আজদার ভুয়া পর্নোগ্রাফির বিরুদ্ধে সরকারগুলোকে আইন প্রণয়নের পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, অশ্লীল ও আপত্তিকর কন্টেন্ট বন্ধ করার দায়িত্ব আছে কোম্পানিগুলোর এবং নিয়ন্ত্রকদের। কারা এসব কন্টেন্ট বানাচ্ছে এবং শেয়ার করছে তাদেরকে ধরার জন্য ব্যবস্থা নেয়া দরকার। টেইলর সুফটকে নিয়ে যে ঘটনা ঘটেছে তাতে তার ভক্ত এবং এক্সের অন্য ব্যবহারকারীদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। তারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘প্রটেক্ট টেইলর সুইফট’  ট্রেন্ড চালু করে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে টেইলর সুইফটের পর্নোগ্রাফিক ছবি এবারই প্রথম বানানো হয়েছে এমন নয়। তবে এবার প্রথমবার তার এই পর্নোগ্রাফি নিয়ে জনমনে তীব্র ক্ষোভ দেখা  গেছে। ব্লুমবার্গের এক রিভিউয়ে দেখা গেছে, ২০২৩ সালের শেষ নাগাদ ‘টেইলর সুইফট’ রেফারেন্সে প্রায় এক হাজার ভিডিও প্রকাশ করেছে ১০টি শীর্ষ ওয়েবসাইট। ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা তার মুখ কেটে নিয়ে তা পর্নোগ্রাফি পারফরমারদের শরীরে লাগিয়ে দিয়েছে। অথবা কাস্টমারদেরকে প্রস্তাব করে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে নগ্ন ছবি উপহার দেয়ার। গুগল সার্চে এসব নাম দিয়ে সার্স দিলে এমন অনেক ভিডিও পাওয়া যায়। 

প্রথমে তা ভুয়া ওয়েবসাইট ব্যবহার করে এসব ওয়েবসাইটে ছড়িয়ে পড়েছে বলে ২০২৩ সালের ব্লুমবার্গের এক রিপোর্টে বলা হয়েছে। এসব পর্নোগ্রাফির শিকারে পরিণত হন যিনি তিনি এই ভিডিও বা ছবি মুছে ফেলার জন্য আবেদন করার রীতি চালু আছে। এ জন্য ভিকটিমকে ফরম দেয় গুগল। কিন্তু অনেকে মনে করেন এটাও একটি বাজে ব্যবস্থা। গত বছর ব্লুমবার্গ রিপোর্ট করার সময় গুগলের একজন মুখপাত্র বলেছেন, মানুষ যা দেখতে চায় না, তা থেকে বিরত রাখা যায়, এমন একটি সার্স সিস্টেম ডিজাইন করেছে অ্যালফাবেট ইনকরপোরেশন কোম্পানি।  টেইলর সুইফটের বিষয়টিকে ভয়াবহ বলে মন্তব্য করেন হেনরি আজদার। তিনি আরও বলেন, এটা নিঃসন্দেহে টেইলর সুইফটের জন্য চরম হতাশাজনক। 

এ ধরনের কন্টেন্ট সৃষ্টি করা এখন অনেক সহজ হয়ে পড়ছে। তা বিতরণও সহজ হয়ে পড়ছে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে নারী ও বালিকারা। তা তারা পৃথিবীর যেখানেই থাকুন অথবা তাদের সামাজিক মর্যাদা যা-ই হোক। শুক্রবার বিকাল নাগাদ টেইলর সুইফটের নগ্ন ছবিগুলো এক্সে থেকে যায়। বিশ্বজুড়ে এখন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার বিস্তার ঘটছে। বলা যায়, ফুলেফেঁপে উঠছে। এর ফলে ২০০০ সালের পর যে অবস্থা ছিল, তা এখন কমপক্ষে ৯ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। এমন কথা বলেছে নিরপেক্ষ বিশ্লেষক জেনেভিয়েভ ওহ্‌। গত বছর শেষের দিকে, এমন ভিডিও সরবরাহ দেয় এমন শীর্ষ ১০টি ওয়েবসাইটে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দিয়ে সৃষ্টি ভিডিও ছিল এক লাখ ১৪ হাজার। তার মধ্যে অন্যতম টেইলর সুইফট। ডিজিটাল ফরেন্সিক বিষয়ক বিশেষজ্ঞ হিদার মাহালিক বার্নহার্ট বলেন, এসব ছবি বা ভিডিও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দিয়ে সৃষ্টি বা প্রকৃতও যদি হয়, তবু তা মানুষকে ক্ষতিগ্রস্ত করছে। এমনকি টেইলর সুইফটের কথাই ধরুন। তার এই ভুয়া ছবির বিষয়ে তার পিতামাতার মনের অবস্থা একবার বুঝুন।  

টেইলর সুইফটের এই নগ্ন ছবি  তৈরির কয়েকদিন আগে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের একটি বানোয়াট অডিও বার্তা নিউ হ্যাম্পশ্যায়ারে ছড়িয়ে দেয়া হয়। বৈশ্বিক ভুয়া তথ্য বিষয়ক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাইডেনের রোবট টাইপের ওই বক্তব্যে  ভোটারদেরকে প্রাইমারি নির্বাচন এড়িয়ে যেতে বলছেন। এক্ষেত্রে যারা ভুয়া এসব কন্টেন্ট বানাচ্ছে, তার মধ্যে এটা সবচেয়ে বেশি উদ্বেগজনক। যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে এমন অডিও বা ভিডিও বড় রকমের ভূমিকা রাখতে পারে। কারণ, এগুলো দ্রুততার সঙ্গে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। বাইডেনের ওই অডিওবার্তা সরাসরি জনগণের ফোনে ঢুকিয়ে দেয়া হয়। বাফেলো ইউনিভার্সিটির প্রফেসর সিউই লিউ বলেন, নিউ হ্যাম্পশায়ারের প্রাইমারি নির্বাচন আমাদেরকে এবারকার পরিবেশ সম্পর্কে একরকম ইঙ্গিত দিচ্ছে, কী হতে পারে।  

নির্বাচিত কলাম থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

নির্বাচিত কলাম সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2023
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status