ঢাকা, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বুধবার, ৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১০ শাবান ১৪৪৫ হিঃ

নির্বাচিত কলাম

আন্তর্জাতিক

পাকিস্তানে ড্রয়িং রুম পলিটিক্স!

মোহাম্মদ আবুল হোসেন
২০ ডিসেম্বর ২০২৩, বুধবার
mzamin

নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিয়ে অভিযোগ আছে পিপিপি’র। তা সত্ত্বেও তারা শনিবার ঘোষণা দিয়েছে ২৭শে ডিসেম্বর থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করবে। এটা হলো সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় নেত্রী বেনজির ভুট্টোর ১৬তম মৃত্যুবার্ষিকী। শনিবার বিলাওয়াল হাউসে এক মিটিংয়ে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। মিটিংয়ে পিপিপি’র চেয়ারম্যান বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন।  সেখান থেকে সব পর্যায়ের নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দেন তিনি। এতে ভিডিও লিংকের মাধ্যমে যোগ দেন সিনিয়র সব নেতারা। দলটির মেনিফেস্টোতে কি থাকবে সে বিষয়ে চূড়ান্ত মতামত দেন তারা। এই মেনিফেস্টো শিগগিরই ঘোষণা করা হবে। মিটিং শেষে পিপিপি’র সিনিয়র নেতা সিনেটর শেরি রেহমান বলেন, সিরিয়াস রিজার্ভেশন এবং সিনিয়র নেতাদের কাছ থেকে আগের নির্বাচনে ত্রুটি থাকা নিয়ে আপত্তি থাকলেও পিপিপি লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড থাক বা না থাক, পূর্ণ শক্তি নিয়ে নির্বাচনের মাঠে থাকবে।

বিজ্ঞাপন
৮ই ফেব্রুয়ারি জাতীয় নির্বাচন নিশ্চিত করার জন্য সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তকে তিনি স্বাগত জানান


ড্রয়িং রুম পলিটিক্স চলছে পাকিস্তানে। যে জাতীয় জবাবদিহিতা বিষয়ক ব্যুরো (এনএবি) সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফকে আজিজিয়া, অ্যাভেনফিল্ড মামলায় জেল ও জরিমানা করেছিল, তারাই এখন সেই মামলা থেকে তাকে বেকসুর খালাস দিয়েছে। তবে কি এস্টাবলিশমেন্টের সঙ্গে তার দল পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজের (পিএমএলএন) তলে তলে সব দেন-দরবার হয়ে গেছে! ওই মামলায় সাজা হওয়ার পর নওয়াজ শরীফ চিকিৎসার নামে নির্বাসনে চার বছর কাটাতে বাধ্য হন। অবশেষে তিনি যেভাবে দেশে ফিরেছেন, তাতে এস্টাবলিশমেন্টের সঙ্গে তার বা তার দলের হিসাবনিকাশ হয়ে থাকতে পারে। এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) তথ্য সচিব ফয়সাল করিম কুণ্ডি। নওয়াজ শরীফকে দুর্নীতির মামলা থেকে মুক্তি দেয়া নিয়ে সমালোচনা করে তিনি বলেন, নির্বাচনকে কারসাজি করতে ঐতিহাসিকভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে জাতীয় জবাবদিহিতা বিষয়ক ব্যুরো। এনএবি’র কাছে এর জন্য জবাব চেয়েছেন তিনি। বলেছেন, এনএবি’কে পরিষ্কার করতে হবে যে, তারা অতীতে ভুল করেছিল অথবা এখন ভুল করেছে। তার মতে এনএবি একটি প্রতিষ্ঠান। এটা কারও ব্যক্তিগত সম্পত্তি নয়। শুধু ফয়সাল করিম কুণ্ডিই এ নিয়ে প্রশ্ন তোলেন নি। ভেতরে গুমোট ক্ষোভ দেখা দিয়েছে পিপিপি’র সভাপতি ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারির মধ্যে। সেই গুমোট ভাবটাকে তিনি আটকে রাখতে পারেননি।

 সম্প্রতি এক মিটিংয়ে বলেই দিয়েছেন, নওয়াজ শরীফকে ইলেকশন নয়, সিলেকশনের মাধ্যমে বিজয়ী করার চেষ্টা চলছে। যদি তাকে সিলেকশন করা হয়, তাহলে নির্বাচনের ফল বিলাওয়াল মেনে নেবেন না। এমনকি দেশবাসীও মেনে নেবে না। নওয়াজ শরীফ আগামীর প্রধানমন্ত্রী হবেন এ আলোচনা অনেকদিন আগে থেকেই চলমান। বিশেষ করে তিনি যখন দেশে ফিরবেন বলে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়, তখন থেকেই পাকিস্তানে আলোচনা শুরু হয় যে, তিনিই হবেন পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী। তার দল পিএমএলএনের সভাপতি ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী শেহবাজ শরীফ এবং দলের অন্য নেতারাও এমন ঘোষণা দেন। এতেই বিলাওয়াল ভুট্টোর মনঃক্ষুণ্ন হয়। তিনি চাইছেন প্রধানমন্ত্রী হতে। তার সম্ভাবনাও প্রবল। কারণ, আরেক সাবেক প্রধানমন্ত্রী পাকিস্তান তেহরিকে ইনসাফের প্রধান ইমরান খান কারারুদ্ধ। তিনি নির্বাচনে অযোগ্য হয়েছেন। ফলে সামনে পথ অনেকটা পরিষ্কার। কিন্তু নওয়াজ শরীফ দেশে ফেরার আগে থেকেই বিলাওয়ালকে এ জন্য আরও একটু অপেক্ষা করার অনুরোধ জানান জারদারি। 

সর্বশেষ এক অনুষ্ঠানে তিনি বিলাওয়ালকে রাজনীতিতে অনভিজ্ঞ, আরও অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করার পরামর্শ দেন। কিন্তু যে বিলাওয়াল প্রধানমন্ত্রীর মসনদে বসার স্বপ্ন দেখছেন, তিনি পিতার এমন পরামর্শে রেগে তাৎক্ষণিকভাবে চলে যান দুবাই। পিতা-পুত্রের মধ্যে এ নিয়ে মনোমালিন্য থেকেই যে বিলাওয়াল দুবাই গিয়েছেন, তার সাক্ষ্য দেয় পাকিস্তানি পত্রিকাগুলো। দলের সম্ভাবনাময় নেতা ও ছেলে এভাবে দুবাই চলে যাওয়ার পর আসিফ আলি জারদারিও দৌড় দেন সেদিকে। তারপর দু’জনেই ফিরেছেন পাকিস্তানে।  ১৪ই ডিসেম্বর পিপিপি’র তথ্য সচিব ফয়সাল করিম কুণ্ডি জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রী পদে প্রার্থী হবেন বিলাওয়াল ভুট্টো। প্রেসিডেন্ট পদে প্রার্থী হবেন তার পিতা ও সাবেক প্রেসিডেন্ট আসিফ আলি জারদারি। সম্প্রতি জারদারি ইঙ্গিত দেন যে, প্রধানমন্ত্রী পদে কাকে প্রার্থী করা হবে তা দল চূড়ান্ত করবে। তারপরই এমন তথ্য দিলেন কুণ্ডি। 

জারদারির কাছে সাংবাদিকরা জানতে চেয়েছিলেন, বিলাওয়ালকে কি প্রধানমন্ত্রী পদে প্রার্থী করা হবে? জবাবে জারদারি বলেন, বিলাওয়াল নিজেই অথবা খুরশিদ শাহ হতে পারেন দলের শক্তিশালী প্রার্থী। তিনি বলেন, বিলাওয়াল হতে পারে প্রার্থী। খুরশিদ শাহও প্রধানমন্ত্রী পদে প্রার্থী হতে পারেন।  রাজধানী ইসলামাবাদে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে ফয়সাল কুণ্ডি প্রধানমন্ত্রী পদে বিলাওয়ালের প্রার্থিতা নিশ্চিত করেছেন। এ সময় তিনি ২০১৮ সালের নির্বাচনের দৃশ্য সামনে আনেন। আবার আসিফ আলি জারদারি প্রেসিডেন্ট হবেন বলে তিনি মনে করেন। কুণ্ডি বলেন, আমাদের ইচ্ছা ২০১৮ সালের ঘটনা ঘটবে। আসিফ আলি জারদারিকে প্রেসিডেন্ট বানানো হবে। ওদিকে আগামী ৮ই ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠেয় জাতীয় নির্বাচন আরও বিলম্বিত হতে পারে বলে আলোচনা ছিল পাকিস্তানে। সে বিষয়ে সুপ্রিম কোর্ট সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিয়েছে। বলেছে, ৮ই ফেব্রুয়ারিই হবে নির্বাচন। পিএমএলএনের প্রার্থী নওয়াজ শরীফের দিকে ইঙ্গিত করে কুণ্ডি বলেন, সিলেকশন হওয়ার চেয়ে বিরোধী দলে যাওয়া ভালো। এ সময় তিনি পিএমএলএনের সমালোচনা করে বলেন, তারা যেটা করছে তা হলো ড্রয়িং রুম পলিটিক্স। এ সময় নওয়াজ শরীফ ও তার মেয়ে মরিয়ম নওয়াজের জনপ্রিয়তার সঙ্গে বিলাওয়ালের নেতৃত্বের জনপ্রিয়তার তুলনা করেন। তার দাবি জাতি পিপিপি’র পক্ষে আছে। 

আরও বলেন, আসন্ন নির্বাচনের জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত তার দল। নির্বাচনের সময় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো বন্ধ রাখার রিপোর্ট আছে পাকিস্তানে। এর বিরুদ্ধে মত দেন ফয়সাল কুণ্ডি। তিনি বলেন, এভাবে নিষেধাজ্ঞা দেয়ার অর্থ হলো মত প্রকাশের স্বাধীনতার বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়া। জনগণের তার অধিকার চর্চার অধিকার আছে।  এ সময়ই তিনি নওয়াজ শরীফকে একের পর এক মামলায় খালাস দেয়ার সমালোচনা করেন। যে এনএবি নওয়াজের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে তাকে সাজা দিয়েছিল, তারাই এখন তাকে একে একে মুক্ত করে দিচ্ছে। এ বিষয়টি জনগণের কাছে এনএবি’র জানানো উচিত যে, তারা আগে ভুল করেছে, নাকি এখন ভুল করছে। ওদিকে নির্বাচনের পূর্ব ঘোষিত সময় বহাল রাখায় সুপ্রিম কোর্টকে ধন্যবাদ জানিয়েছে বড় রাজনৈতিক দলগুলো। তারা বলেছে, নির্বাচন বিলম্বিত করার বড় একটি ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হয়েছে। 

এ বিষয়ে যৌথ অভিবাদন জানাতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে পিটিআই। নির্বাচনী কর্মকর্তা হিসেবে পক্ষপাতী সরকারি ব্যক্তিদের নিয়োগ করা হবে বলে এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন দলটির নেতারা। তবে পিএমএলএনের প্রেসিডেন্ট শেহবাজ শরীফ এক্সে লিখেছেন, সুপ্রিম কোর্ট ৮ই ফেব্রুয়ারি নির্বাচনের দিন নিশ্চিত করে যে ঐতিহাসিক রায় দিয়েছে তা গণতন্ত্রকে শক্তিশালী এবং সংবিধানকে সুরক্ষিত রাখবে। তিনি দাবি করেন, গণতন্ত্র এবং সংবিধানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছিল পিটিআই। তা ভণ্ডুল করে দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। একই সুরে কথা বলেছে পিএমএলএন, পিপিপি, এমকিউএমপি সহ বিভিন্ন দল। সাবেক অর্থমন্ত্রী ও পিএমএলএন নেতা ইশহাক দার বলেন, পরিস্থিতি এবং সংবিধান সময়মতো নির্বাচন দাবি করে। এক্ষেত্রে দায়িত্ব আছে পাকিস্তান নির্বাচন কমিশনের। সময়মতো নির্বাচনের সামনে সব বাধা দূর করে দিয়েছে সুপ্রিম কোর্টের রায়- এ মন্তব্য করেছেন ইশতেহকামে পাকিস্তান পার্টির তথ্যসচিব ড. ফিরদাউস আশিক আওয়ান। তিনি এক্সে লিখেছেন, সুপ্রিম কোর্ট গণতন্ত্রকে রক্ষা করেছে। 

সংবিধানের প্রাধান্য নিশ্চিত করেছে। একই রকম মন্তব্য করেছেন অন্য দলগুলোর নেতারা। এমকিউএমপি’র আমিনুল হক বলেছেন, সময়মতো নির্বাচন করার বাধ্যবাধকতা নিয়ে যে অনিশ্চয়তা ছিল তার ইতি ঘটেছে। এখন নির্বাচনকে ঘিরে কোনো জল্পনায় কাজ হবে না। দেশ এরই মধ্যে নির্বাচনী মুডে চলে গেছে। সময়মতো অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে। পিপিপি’র পাঞ্জাব শাখার সেক্রেটারি জেনারেল হাসান মর্তুজা মনে করেন নির্বাচন নিয়ে বিরাট আকারে যে ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছিল তার ইতি ঘটেছে। তার মতে, অগণতান্ত্রিক শক্তির মুখোশ উন্মোচিত হয়েছে। যারা অন্যের (সেনাবাহিনী) সাহায্য নিয়ে ক্ষমতায় আসতে চেয়েছিল তারা নির্বাচন চায় না। যারা এমনটা করেন নির্বাচন নিয়ে স্যাবোটাজ করেন, তারা পাকিস্তানি জনগণের শত্রু।

  নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিয়ে অভিযোগ আছে পিপিপি’র। তা সত্ত্বেও তারা শনিবার ঘোষণা দিয়েছে ২৭শে ডিসেম্বর থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করবে। এটা হলো সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় নেত্রী বেনজির ভুট্টোর ১৬তম মৃত্যুবার্ষিকী। শনিবার বিলাওয়াল হাউসে এক মিটিংয়ে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। মিটিংয়ে পিপিপি’র চেয়ারম্যান বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন।  সেখান থেকে সব পর্যায়ের নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দেন তিনি। এতে ভিডিও লিংকের মাধ্যমে যোগ দেন সিনিয়র সব নেতারা। দলটির মেনিফেস্টোতে কি থাকবে সে বিষয়ে চূড়ান্ত মতামত দেন তারা। এই মেনিফেস্টো শিগগিরই ঘোষণা করা হবে। মিটিং শেষে পিপিপি’র সিনিয়র নেতা সিনেটর শেরি রেহমান বলেন, সিরিয়াস রিজার্ভেশন এবং সিনিয়র নেতাদের কাছ থেকে আগের নির্বাচনে ত্রুটি থাকা নিয়ে আপত্তি থাকলেও পিপিপি লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড থাক বা না থাক, পূর্ণ শক্তি নিয়ে নির্বাচনের মাঠে থাকবে। ৮ই ফেব্রুয়ারি জাতীয় নির্বাচন নিশ্চিত করার জন্য সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তকে তিনি স্বাগত জানান।  

নির্বাচিত কলাম থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

নির্বাচিত কলাম সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2023
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status