ঢাকা, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, সোমবার, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১৫ শাবান ১৪৪৫ হিঃ

নির্বাচিত কলাম

সাম্প্রতিক

জাতির বিবেক ব্যালটে আবদ্ধ

এম সিরাজুল ইসলাম
২৮ নভেম্বর ২০২৩, মঙ্গলবার
mzamin

বিএনপি এবং তার মিত্রদের  নির্বাচনে যোগ  না দেয়ার সিদ্ধান্ত  নিশ্চিত করে নির্বাচন কমিশন জাতির বিবেককে ব্যালটে আটকে রেখেছে। কমিশন নিজের এবং দেশের জন্য ভালো কাজ করতো যদি তারা ফরাসি ইরানি গ্রাফিক, ঔপন্যাসিক, কার্টুনিস্ট, চিত্রকর মারজানে সত্রাপীর উপন্যাস ‘পার্সেপোলিস’ পড়তো। যেখানে তিনি বলেছিলেন যে- ‘ভয়ে  আমাদের বিবেকবুদ্ধি লোপ পায়... এটি আমাদের কাপুরুষে রূপান্তরিত করে।’ কমিশন আগামী সাধারণ নির্বাচন থেকে বিএনপি ও তার মিত্রদের দূরে রেখে সরকারের ভয়কে সমর্থন করেছে। বাহ্যিক পরিবেশ বাংলাদেশের ভবিষ্যতের জন্য অনেক খারাপ ও বিপজ্জনক। স্প্যানিশ ঔপন্যাসিক মিগুয়েল ডি সারভান্তেসের মহাকাব্যের চরিত্র ডন কুইক্সোটের মতো বাংলাদেশের শাসক দল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে লড়াই শুরু করেছে। ফলাফল অনিবার্য


আওয়ামী লীগ ইতিহাসকে অস্বীকার করছে। ১৯৭০ সালের ডিসেম্বরে, পাকিস্তানের ৩০০ সদস্যের জাতীয় পরিষদে তারা পূর্ব পাকিস্তানের ১৬৯টি আসনের মধ্যে ১৬৭টি জিতেছিল এবং ইসলামাবাদে সরকার গঠনের জন্য নির্ধারক ভূমিকা পালন করেছিল। পাকিস্তানের সামরিক শাসন আওয়ামী লীগকে ক্ষমতা দিতে চায়নি। পরিবর্তে,  পাকিস্তানের সব সাধারণ নির্বাচনের মধ্যে সবচেয়ে সুষ্ঠু নির্বাচনকে তারা বাতিল ঘোষণা করে যা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সূচনা করেছিল। বাকিটা ইতিহাস...
বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ করেছে এবং জয়ী হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
গণতন্ত্র এবং মানবাধিকারের প্রতি শ্রদ্ধার ভিত্তিতে একটি নতুন জাতির জন্ম হয়েছিল।

একই আওয়ামী লীগ যে বাংলাদেশের ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দিয়েছিল, সেই আওয়ামী লীগই সবচেয়ে বিতর্কিত দুটি সাধারণ নির্বাচন করেছে।  ২০১৪ এবং ২০১৮ সালের সাধারণ নির্বাচন- যা চিরকাল বাংলাদেশের নির্বাচনী ইতিহাসে অন্ধকার অধ্যায় হয়ে থাকবে। ২০১৪ সালের নির্বাচনে সংসদের ৩০০টি আসনের মধ্যে ১৫৪টিতে আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগীদের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের বিরুদ্ধে কোনো ভোট পড়েনি। কারণ তাদের বিরুদ্ধে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী ছিল না। ২০১৮ সালে, আওয়ামী লীগ এবং এর নেতাকর্মীরা নির্বাচন কমিশন এবং আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার সহায়তায় ভোটের দিনের আগে মধ্যরাতে আওয়ামী লীগ এবং এর সহযোগী প্রার্থীদের জন্য ভোট দেয়ার সুযোগ পায়। ২০১৮ সালের সাধারণ নির্বাচন তাই ‘মধ্যরাতের নির্বাচন’ নামে পরিচিত হয়ে আছে।

গণতন্ত্র ও মানবাধিকারভিত্তিক সার্বভৌম রাষ্ট্রের জন্য লক্ষাধিক প্রাণের আত্মত্যাগের মধ্যদিয়ে যে দেশটি স্বাধীনতা অর্জন করেছিল, ২০০৯ সালের জানুয়ারিতে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর থেকে কোনো অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হয়নি। যে নাগরিকরা ২০০৯-এর পরে ভোট দেয়ার অধিকার পেয়েছেন তারা এখনো সাধারণ নির্বাচনে ভোট দেয়ার জন্য অপেক্ষা করছেন। এদিকে ১৪ বছর কেটে গেছে। কাজী হাবিবুল আউয়ালের নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশন বিগত দুটি নির্বাচনের মতো আরেকটি নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে, তবে  এই নির্বাচনটি আরও খারাপ, জাতির জন্য আরও লজ্জাজনক এবং বিপজ্জনক হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

নির্বাচন কমিশন একটি অত্যন্ত শক্তিশালী সাংবিধানিক সংস্থা কিন্তু শুধুমাত্র ক্ষমতাসীন দলের স্বার্থে কাজ করে। এইভাবে, আওয়ামী লীগ  যেভাবে ২৮শে অক্টোবর বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের শান্তিপূর্ণ মহাসমাবেশ বানচাল করেছিল, কমিশন নাকি সে  সম্পর্কে কিছুই দেখেনি এবং কিছুই শুনেনি। তারা  উটপাখির মানসিকতা বেছে নিয়েছে। পুলিশ বিএনপি’র মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ বিএনপি’র বেশির ভাগ সিনিয়র নেতাদের গ্রেপ্তার করেছে,  দলের  তৃণমূল স্তরের  নেতাকর্মী ও সমর্থকরা নির্বিচারে গ্রেপ্তারের ভয়ে কাঁপছে   এবং এর প্রধান কার্যালয়ে তালা ঝুলছে। ১৯৭১ সালের ২৬শে মার্চের পর পাকিস্তান যা করেছিল বিএনপি নেতৃত্বাধীন বিরোধীদের মধ্যে ভয় ছড়ানোর জন্য ঠিক একইভাবে প্রতিটি প্রবেশপথে পুলিশ ব্যারিকেড করে দিয়েছে।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার আগামী সাধারণ নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে রাজনৈতিক দলগুলোকে ৪ঠা নভেম্বর নির্বাচন কমিশনের সদর দপ্তরে সংলাপের আমন্ত্রণ জানান। কিন্তু  বিএনপি’র প্রধান কার্যালয়ের বাইরে তার চিঠি ‘ডেলিভারি’ করা হয়। কমিশনের দুর্ভাগ্য হলো- ২৮শে অক্টোবর বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের ওপর ক্র্যাকডাউন এবং এর পরের ঘটনার অডিও ও ভিডিও ফুটেজ হোয়াটসঅ্যাপ, ফেসবুক এবং ইউটিউবে ছড়িয়ে পড়ে। যা  ২৬শে মার্চ, ১৯৭১ এর ঘটনাবলীর সময় অনুপলব্ধ ছিল। এই ভিডিও, অডিও টেপ এবং অন্যান্য বাস্তব প্রমাণ থেকে স্পষ্ট যে, ২৮শে অক্টোবর যে সহিংসতা ও বিশৃঙ্খলা হয়েছিল তা প্রায় সম্পূর্ণ পরিকল্পিতভাবে আওয়ামী লীগ শাসন, তার সমর্থক এবং আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা দ্বারা সৃষ্ট হয়েছিল। এগুলো আরও প্রমাণ  করে যে, আওয়ামী লীগ একই দিনে অর্থাৎ ২৮শে অক্টোবর অনুষ্ঠিত ‘শান্তি সমাবেশে’ তার কর্মীদের বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের ওপর সহিংসতার জন্য প্রস্তুত থাকতে বলেছিল।

২৮শে অক্টোবর যা ঘটেছিল তার ভিডিও সকলের কাছে উপলব্ধ।  বিভিন্ন ভিডিওতে দেখা গেছে যে, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল তার সমর্থক ও কর্মীদের বারবার তত্ত্বাবধায়কের অধীনে আগামী সাধারণ নির্বাচনের দাবিতে শান্তিপূর্ণভাবে তার মহাসমাবেশে আসতে বলেছিল। আওয়ামী লীগ নেতারা তা সত্ত্বেও, ২০১৪ সালের নির্বাচনে হেফাজতের সঙ্গে তারা যা করেছে তা বিএনপি’র সঙ্গে করার হুমকি দিয়েছিল। সেই সময়ের হেফাজতের ঘটনার কথা মনে করিয়ে দিয়ে বিএনপি সমর্থকদের মনে ভীতি সঞ্চার করাই এই রেফারেন্সের উদ্দেশ্য। কমিশনের বাস্তবতা থেকে পালানোর ‘উটপাখির মানসিকতা’ শোচনীয়ভাবে ব্যর্থ হয়েছে।  এটি এখন দেশের মানুষের সামনে দাঁড়িয়ে আছে হ্যান্স ক্রিশ্চিয়ান অ্যান্ডারসেনের রূপকথা ‘দ্য এম্পেররস নিউ ক্লথস’-এর   সম্রাটের মতো- নগ্ন এবং সম্পূর্ণরূপে উন্মুক্ত। ২৮শে অক্টোবরের পর থেকে কমিশনের কর্মকাণ্ড বুঝিয়ে দিয়েছে কেন বিএনপি ৭ই জানুয়ারির  নির্বাচনে অংশ নিতে চায় না। 

চরম উত্তেজনার মুখেও, ২০২২ সালের অক্টোবর থেকে বিএনপি’র অহিংস গণআন্দোলনের  বেশির ভাগ ভিডিও এবং অডিও টেপ প্রমাণ করে বিএনপি’র বিরুদ্ধে ক্ষমতাসীন দল যে সহিংসতা ও সন্ত্রাসকে ব্যবহার করার অভিযোগ তুলেছে তা ভিত্তিহীন। ২৮শে অক্টোবরের সহিংসতার রিয়েল টাইম ভিডিও এবং অডিও রেকর্ড  ক্ষমতাসীন দলের জন্য বিশেষভাবে ক্ষতিকারক হয়েছে। ক্ষমতায় থাকার জন্য যা যা করা দরকার, এই ভিডিও টেপ এবং অডিও টেপগুলো ক্ষমতাসীন দলের সেই সংকল্পকে প্রকাশ করেছে। ক্ষমতাসীন দল যুক্তরাষ্ট্র, তার মিত্র এবং জাতিসংঘের কাছেও একইভাবে উন্মোচিত হয়েছে। তারা চায়  আওয়ামী লীগ সরকার যাতে  আগামী নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে সংঘটিত করতে পারে যাতে ভোটাররা তাদের পছন্দের সরকার নির্বাচন করতে পারে। ভারতও আগামী সাধারণ নির্বাচনে জনগণের ইচ্ছার প্রতিফলনকে সমর্থন করে। এইভাবে, কমিশন ক্ষমতাসীন দলকে টানা চতুর্থবারের মতো যে একতরফা নির্বাচন করার প্রস্তাব করেছে তা তারা চায় না।

তাই আগামী সাধারণ নির্বাচনের আগে কমিশনের ঘাড়ে হিমালয় পর্বতের মতো বড় দায়িত্ব  রয়েছে। এখন সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণ বিএনপি’র রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও নির্বাচনী লড়াইকে সমর্থন করে। যাকে নৃশংস শক্তি দিয়ে দমন করতে চাইছে শাসক দল। কাজী হাবিবুল আউয়াল যে নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন সেটিকে বিশ্বাসযোগ্যতা দিতে ২০১৪ সালের জাতীয় পার্টির মতো বাংলাদেশের রাজনীতিতে তৃতীয় কোনো দল নেই। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলকে ভাঙার জন্য শাসকগোষ্ঠীর চেষ্টা শোচনীয়ভাবে ব্যর্থ হয়েছে। শাসকপক্ষ কয়েকটি নগণ্য দল এবং ব্যক্তিকে ময়দানে আকৃষ্ট করেছে যা পরবর্তী সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য  কমিশনের প্রচেষ্টাকে বিব্রতকর অবস্থার মধ্যে ফেলেছে। এই পর্যায়ে এসে কমিশন যে, বিতর্কিত ২০১৪ সালের সাধারণ নির্বাচনের মতো নির্বাচন করতে সক্ষম হবে তার সম্ভাবনা কম। 

বিএনপি এবং তার মিত্রদের  নির্বাচনে যোগ  না দেয়ার সিদ্ধান্ত  নিশ্চিত করে নির্বাচন কমিশন জাতির বিবেককে ব্যালটে আটকে রেখেছে। কমিশন নিজের এবং দেশের জন্য ভালো কাজ করতো যদি তারা ফরাসি ইরানি গ্রাফিক, ঔপন্যাসিক, কার্টুনিস্ট, চিত্রকর মারজানে সত্রাপীর উপন্যাস ‘পার্সেপোলিস’ পড়তো। যেখানে তিনি বলেছিলেন যে- ‘ভয়ে  আমাদের বিবেকবুদ্ধি লোপ পায়... এটি আমাদের কাপুরুষে রূপান্তরিত করে।’ কমিশন আগামী সাধারণ নির্বাচন থেকে বিএনপি ও তার মিত্রদের দূরে রেখে সরকারের ভয়কে সমর্থন করেছে। বাহ্যিক পরিবেশ বাংলাদেশের ভবিষ্যতের জন্য অনেক খারাপ ও বিপজ্জনক।   স্প্যানিশ ঔপন্যাসিক মিগুয়েল ডি সারভান্তেসের মহাকাব্যের চরিত্র   ডন কুইক্সোটের মতো বাংলাদেশের শাসক দল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে লড়াই শুরু করেছে। ফলাফল অনিবার্য। পশ্চিম এবং জাতিসংঘ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে অনুসরণ করবে এবং কমিশন কর্তৃক যেকোনো নির্বাচনের বৈধতা প্রত্যাখ্যান করবে। 

সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ তাদের রাজনৈতিক, মানবিক এবং অর্থনৈতিক অধিকারের জন্য গণআন্দোলনে নেমেছে এবং তাদের সমর্থন করার জন্য ইতিহাসের সঙ্গে তাদের অধিকার পুনরুদ্ধার না করে তাদের লড়াই ছেড়ে দেয়ার সম্ভাবনা নেই।  অধিকার পুনরুদ্ধার না করা পর্যন্ত  তাদের এই লড়াই ছেড়ে যাবার সম্ভাবনা নেই। বাংলাদেশের জন্য কী অপেক্ষা করছে? যদি নৃশংস শক্তি স্বল্পমেয়াদে গণতন্ত্রের উপর জয়লাভ করে, তা হবে বিপর্যয়কর, বিশেষ করে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের পর থেকে ইতিমধ্যেই দেশের অর্থনীতি ধুঁকছে। জাতির  সামনে উপস্থিত চলমান রাজনৈতিক সংকটের সমাধান ছাড়াই বাংলাদেশ এখন বন্দুকের নলের দিকে তাকিয়ে…

লেখক: সাবেক রাষ্ট্রদূত

নির্বাচিত কলাম থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

নির্বাচিত কলাম সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2023
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status