ঢাকা, ১৪ জুলাই ২০২৪, রবিবার, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৭ মহরম ১৪৪৬ হিঃ

নির্বাচিত কলাম

সাগর-রুনি হত্যা

সাড়ে ১১ বছরে তদন্তই শেষ হয়নি, বিচার শুরু হবে কবে?

রাশিম মোল্লা
৮ আগস্ট ২০২৩, মঙ্গলবারmzamin

মামলার তদন্তকারী যেমন বদলি হয় তেমনি জিআরও বদলি হয় বার বার। তদন্তকারী নিয়মিত আদালতেও যান না। জিআরও সময় নিতে বলে দেন। জিআরও একটি মুখস্থ মৌখিক আবেদন করেন। বিচারকও নতুন সময় ধার্য করেন। এভাবে একের পর এক মামলার ধার্য তারিখ পড়ে। যদিও আইনে ১২০ দিনের মধ্যে তদন্ত শেষ করতে বলা হয়েছে। তবে এটি নির্দেশনামূলক, বাধ্যতামূলক নয়। এই সুযোগেই বছরের পর বছর সময় নিচ্ছেন তদন্ত কর্মকর্তারা। এ ব্যাপারে সুপ্রিম কোর্টের এডভোকেট সাইফুল ইসলাম সোহেল মানবজমিনকে বলেন, ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৭ ধারা অনুযায়ী একটি হত্যা মামলা ১২০ দিনের মধ্যে শেষ করার কথা বলা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
তবে এটি বাধ্যতামূলক নয়। যে কারণে একটি মামলার তদন্ত শেষ করতে বছরের পর বছর সময় পান তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা

২০১২ সালের ১১ই ফেব্রুয়ারি ঢাকার পশ্চিম রাজাবাজারের ভাড়া বাসায় সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনি নৃশংসভাবে খুন হন। কিন্তু ১১ বছর ৬ মাস পার হলেও এখনো তদন্ত শেষ হয়নি। গতকাল মামলার তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার তারিখ ধার্য ছিল। কিন্তু র‌্যাবের পক্ষ থেকে আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়া হয়নি। এ নিয়ে এই মামলায় তদন্ত প্রতিবেদন জমার সময় ১০০ বারের মতো পেছালো। ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট রাশিদুল আলম আগামী ১১ই সেপ্টেম্বর এই মামলার তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার নতুন তারিখ নির্ধারণ করেছেন। ঢাকা মহানগর পুলিশের অপরাধ ও তথ্য বিভাগের উপ-পরিদর্শক (এসআই) আলমগীর হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, র‌্যাবের পক্ষ থেকে কোনো অগ্রগতি প্রতিবেদন জমা দেয়া হয়নি। তদন্ত কর্মকর্তা আদালতে উপস্থিত ছিলেন না।

আদালতের নথিপত্রের তথ্য অনুযায়ী, এ নিয়ে এই মামলার তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার জন্য আদালত ১০০তম বার সময় দিলেন। ২০১২ সালের ১১ই ফেব্রুয়ারি রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারের ভাড়া বাসায় সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনি নৃশংসভাবে খুন হন। সাগর মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক ছিলেন। মেহেরুন রুনি ছিলেন এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক। সাগর-রুনি হত্যার ঘটনায় রুনির ভাই নওশের আলম বাদী হয়ে রাজধানীর শেরেবাংলা নগর থানায় মামলা করেন। প্রথমে এই মামলা তদন্ত করছিল শেরেবাংলা নগর থানার পুলিশ। চারদিন পর মামলার তদন্তভার ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা বিভাগের (ডিবি) কাছে হস্তান্তর করা হয়। তদন্তের দায়িত্ব পাওয়ার ৬২ দিনের মাথায় ২০১২ সালের ১৮ই এপ্রিল হাইকোর্টে ব্যর্থতা স্বীকার করে ডিবি। এরপর আদালত র‌্যাবকে মামলা তদন্তের নির্দেশ দেন। তখন থেকে মামলাটির তদন্ত করছে র‌্যাব।

তদন্ত এখন আর দেশে নেই। তদন্ত কর্মকর্তা অজ্ঞাতনামা দুই পুরুষ ব্যক্তিকে চিহ্নিত করার প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে ইউএসএ’র একটি ডিএনএ ল্যাবের সঙ্গে কাজ করছেন। এই প্রতিষ্ঠানটির ডিএনএ থেকে অপরাধী/জড়িত ব্যক্তির ছবি প্রস্তুত করার সক্ষমতা রয়েছে। এজন্য ওই প্রতিষ্ঠানকে সার্ভিস চার্জ হিসেবে এক হাজার দুই শত ডলার ফিও ব্যাকিং চ্যানেলের মাধ্যমে পরিশোধ করা হয়েছে বলে অগ্রগতি প্রতিবেদন সূত্রে জানা গেছে। সর্বশেষ ২০২০ সালের ২৯শে আগস্ট উল্লিখিত পরীক্ষার অগ্রগতি বিষয়ে মতামত প্রদানের জন্য ই-মেইল করেন তদন্ত কর্মকর্তা। বলা চলে তদন্ত ঝুলে আছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। সেখান থেকে কবে ফরেনসিক ও ডিএনএ প্রতিবেদন আসবে তা কেউ বলতে পারছেন না। এই মামলার যেহেতু এখনো কোনো চার্জশিট হয়নি তাই আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো পিপিও নিয়োগ দেয়া হয়নি। আদালতে মামলাটি দেখছেন জেনারেল রেকর্ড অফিসার (জিআরও)।

মামলার তদন্তকারী যেমন বদলি হয় তেমনি জিআরও বদলি হয় বার বার। তদন্তকারী নিয়মিত আদালতেও যান না। জিআরও সময় নিতে বলে দেন। জিআরও একটি মুখস্থ মৌখিক আবেদন করেন। বিচারকও নতুন সময় ধার্য করেন। এভাবে একের পর এক মামলার ধার্য তারিখ পড়ে। 

যদিও আইনে ১২০ দিনের মধ্যে তদন্ত শেষ করতে বলা হয়েছে। তবে এটি নির্দেশনামূলক, বাধ্যতামূলক নয়। এই সুযোগেই বছরের পর বছর সময় নিচ্ছেন তদন্ত কর্মকর্তারা। এ ব্যাপারে সুপ্রিম কোর্টের এডভোকেট সাইফুল ইসলাম সোহেল মানবজমিনকে বলেন, ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৭ ধারা অনুযায়ী একটি হত্যা মামলা ১২০ দিনের মধ্যে শেষ করার কথা বলা হয়েছে। তবে এটি বাধ্যতামূলক নয়। যে কারণে একটি মামলার তদন্ত শেষ করতে বছরের পর বছর সময় পান তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। সুপ্রিম কোর্টের আরেক আইনজীবী মো. ফারুক হোসেন ৩৮ ডিএলআর ১৫২ পৃষ্ঠার উদ্ধৃতি দিয়ে মানবজমিনকে বলেন, তদন্ত শেষ করার সময়সীমা এজাহার প্রাপ্তির তারিখ থেকে ১৮০ দিনের মধ্যে সীমাবদ্ধ বলে জানান। অথচ ১০ বছরেও এ মামলার তদন্ত শেষ হয়নি। তিনি বলেন, দায়রা জজ, অতিরিক্ত দায়রা জজ বা সহকারী দায়রা জজ বিচারের জন্য মোকদ্দমা প্রাপ্ত হওয়ার ৩৬০ দিনের মধ্যে বিচার সম্পন্ন করার কথা বলা হয়েছে। তদন্তই শেষ হয়নি বিচার শুরু হবে কবে তা কেউ বলতে পারে না। 

সূত্র জানায়, ২০১২ সালের ১৮ই এপ্রিল হাইকোর্ট তদন্তের ব্যর্থতায় র‌্যাবকে মামলার তদন্তের দায়িত্ব দেয়। তখন থেকে মামলাটির তদন্ত করছে র‌্যাব। এই সময়ের মধ্যে র‌্যাবের পক্ষ থেকে আদালতে মামলার ১০টি অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করেছে। 

১ম, ২য় ও ৩য় অগ্রগতি প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৪ সালের ২০শে মার্চ কুর্মিটোলা র‌্যাব সদর দপ্তরের ইনভেস্টিগেশন অ্যান্ড ফরেনসিক উইংয়ের সহকারী পরিচালক ও সহকারী পুলিশ সুপার মো. ওয়ারেছ আলী মিয়া প্রথম অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করেন। তিনি সব মিলে ৭টি অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করেছেন। প্রথম অগ্রগতি প্রতিবেদনে তিনি উল্লেখ করেন, ২০১২ সালের ১৮ই এপ্রিল হাইকোর্ট এ মামলার তদন্তভার র‌্যাবের কাছে হস্তান্তরের নির্দেশ দেন। ওই নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতে এবং আইজিপি মহোদয়ের মৌখিক নির্দেশে র‌্যাব কর্তৃপক্ষ মামলার তদন্তভার র‌্যাব সদর দপ্তরের ইনভেস্টিগেশন অ্যান্ড ফরেনসিক উইংয়ের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মো. জাফর উল্লাহর ওপর অর্পণ করে। আর মামলার তদন্ত তদারকি করতে ইন্টেলিজেন্স উইংয়ের পরিচালক, ইনভেস্টিগেশন অ্যান্ড ফরেনসিক উইংয়ের পরিচালক ও ট্রেনিং অ্যান্ড ওরিয়েন্টেশন উইং পরিচালকের সমন্বয়ে ৩ সদস্যের একটি তদন্ত তদারকি কমিটি গঠন করেন। পরে ওই বছরের ১৯শে এপ্রিল তদন্তকারী কর্মকর্তা ও তদারকি কর্মকর্তাবৃন্দ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

বাদী ও সাক্ষীদের জিজ্ঞাসাবাদসহ আলামত জব্দ করেন। মৃত্যুর পূর্বে ভিকটিমদের কোনো ওষুধ বা রাসায়নিক পদার্থ প্রয়োগ করে অবচেতন করা হয়েছিল কিনা তা জানা না থাকায় আদালতের অনুমতি সাপেক্ষে ২৬শে মে নিহতদের লাশ আজিমপুর কবরস্থান থেকে উত্তোলন করা হয়। পুনরায় সুরতহাল প্রতিবেদন প্রস্তুত করে ভিসেরা সংরক্ষণ ও অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের রাসায়নিক পরীক্ষাপূর্বক নিহতদের মৃত্যুর পূর্বে অচেতন করার কোনো দ্রব্য খাওয়ানো হয়েছিল কিনা, তাদের মলমূত্র, ফুসফুস, লিভার ও পাকস্থলীতে চেতনানাশক পদার্থের অস্তিত্ব ছিল কিনা ইত্যাদি বিষয় সম্পর্কে সুস্পষ্ট মতামতের জন্য আবেদন করেন। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২৯শে মে ভিসেরার রাসায়নিক পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়া যায়। রিপোর্ট পর্যালোচনা করে দেখা যায় ভিসেরায় কোনো প্রকার বিষাক্ত কিংবা নেশা জাতীয় পদার্থের অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। 

ঘটনাস্থল থেকে কোনো প্রকার ফুট প্রিন্ট, ফিঙ্গার প্রিন্ট সিআইডি সংগ্রহ করতে পেরেছিল কিনা তা জানার জন্য যোগাযোগ করেন। জব্দকৃত সংরক্ষিত আলামতের মধ্য হতে ছুরি, ছুরির বাঁট, বাঁটে ফিঙ্গার প্রিন্ট পাওয়া যায় কিনা তার জন্য আলামত যুক্তরাষ্ট্রের ফরেনসিক ল্যাবে প্রেরণ করেন। তাছাড়া সাগর-রুনির পরনের কাপড় এবং নিহত সাগরের হাত ও পা বাধার কাপড়, গ্রিল, ঘটনাস্থলে পাওয়া চুল, ভাঙা গ্রিলের পাশে পাওয়া মোজা, দরজার লক, দরজার চেইন, ছিটকিনি রাসায়নিক ও ডিএনএ পরীক্ষার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের ল্যাবে প্রেরণ করেন। এ ছাড়া ধৃত ৮ জন আসামি ও নিহত ভিকটিমদ্বয়ের নিকটাত্মীয়সহ সন্দিগ্ধ ২১ জনের বুকাল সোয়াব (নঁপপধষ ংধিন) সংগ্রহপূর্বক ডিএনএ পরীক্ষার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের ল্যাবে প্রেরণ করেন। প্রেরিত আলামত ও ২১ জনের বুকাল সোয়াবের ডিএনএ পরীক্ষার আংশিক প্রতিবেদন পাওয়া গেছে। তবে বিস্তারিত প্রতিবেদন এখনো পাওয়া যায়নি। মামলাটি তদন্তকালে ঘটনাস্থলের আশেপাশের লোকজন, নিহতদের আত্মীয়স্বজন, নিহতদের অফিসের সহকর্মী ও অন্যান্য সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিসহ সর্বমোট ১৪৯ জন সাক্ষীর জবানবন্দি গ্রহণ ও পর্যালোচনা করা হয়। 

১০ম অগ্রগতি প্রতিবেদনে যা বলা হয়: ২০২০ সালের ৫ই অক্টোবর কুর্মিটোলা র‌্যাব সদর দপ্তরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খন্দকার মো. শফিকুল আলম ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে ১০ম অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করেন। প্রতিবেদনে তিনি উল্লেখ করেন, ২০১৯ সালের ৭ই জুলাই থেকে আমি এ মামলার তদন্ত করে আসছি। মামলাটি তদন্তকালে পূর্ববর্তী তদন্তকারী অফিসার তদন্তের আনুষঙ্গিক কাজ করাসহ মোট ৮ জন আসামি গ্রেপ্তার করেছেন। গ্রেপ্তারকৃত আসামিদের ৬ জন বর্তমানে জেলহাজতে আছে এবং ২ জন আসামি জামিনে আছে। তদন্তকালে অজ্ঞাতনামা পুরুষ ব্যক্তিদ্বয়কে চিহ্নিত করার উদ্দেশ্যে প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে ইউএসএ’র অপর একটি ডিএনএ ল্যাবের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। ওই প্রতিষ্ঠানটির ডিএনএ থেকে অপরাধী/জড়িত ব্যক্তির ছবি প্রস্তুত করার সক্ষমতা রয়েছে। এ জন্য ওই প্রতিষ্ঠানকে সার্ভিস চার্জ হিসেবে এক হাজার দুইশ’ ডলার ফি ব্যাকিং চ্যানেলের মাধ্যমে পরিশোধ করা হয়েছে। সর্বশেষ গত ২৯শে আগস্ট উল্লিখিত পরীক্ষার অগ্রগতি বিষয়ে মতামত প্রদানের জন্য ই-মেইল প্রেরণ করেছি। কিন্তু তারা এখনো এ বিষয়ে কোনো মতামত প্রদান করেননি।

নির্বাচিত কলাম থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

নির্বাচিত কলাম সর্বাধিক পঠিত

সাম্প্রতিক প্রসঙ্গ/ তাসে কি তবে টোকা লেগেছে?

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status