ঢাকা, ৪ অক্টোবর ২০২২, মঙ্গলবার, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিঃ

বাংলারজমিন

বাঞ্ছারামপুরে প্রবাসীর বাড়িতে তাণ্ডব

ঘটনাস্থলে আটক ৪ হামলাকারী ছাড়া পেয়েছে আধাঘণ্টার মধ্যেই বাড়িতে থাকতে পারছেন না স্মৃতি

স্টাফ রিপোর্টার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে
১৬ আগস্ট ২০২২, মঙ্গলবার

আঞ্জুমান আরা সরকার স্মৃতি এক সপ্তাহ ধরে বাড়িছাড়া। চাঁদা না পেয়ে তার বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর ও লুটপাট করা হয়েছে। এরপর প্রাণভয়ে শিশুসন্তানকে নিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন বাপের বাড়িতে। স্মৃতির স্বামী কুয়েত প্রবাসী। বাঞ্ছারামপুর পৌর শহরের মধ্যপাড়ায় গত ৯ই আগস্ট সকালে
এ হামলার ঘটনা চলাকালে  ট্রিপল নাইনে কল করে পুলিশের সহায়তা কামনা করেন ওই প্রবাসীর স্ত্রী। এরপর পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে কান্দাপাড়া গ্রামের মো. নুরুল ইসলাম, মো. বিল্লাল মিয়া, মো. আল আমিন ও মো. আরিফ নামে ৪ জনকে আটক করে। কিন্তু আধাঘণ্টা পরই আবার তাদের ছেড়ে দেয় পুলিশ। পরে প্রবাসীর স্ত্রী আঞ্জুমান আরা সরকার এ ঘটনায় ৯ জনের বিরুদ্ধে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্র্রেট আদালতে (বাঞ্ছারামপুর) একটি মামলা করেন। মামলায় অভিযোগ করা হয়, আঞ্জুমান আরা সরকার তার বাড়িতে একটি ঘর নির্মাণের কাজ শুরু করলে কান্দাপাড়া গ্রামের নুরুল ইসলাম ও তার সন্ত্রাসী দলবল ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। চাঁদা না পাওয়ায় গত ৯ই আগস্ট ওই বাড়িতে এসে স্মৃতির  দোতলা বসত বাড়ির নিচতলায় হামলা চালায়।

বিজ্ঞাপন
এ সময় হ্যামার দিয়ে বিল্ডিংয়ের নিচতলার দেয়াল ভেঙে ফেলে। ভাঙচুর করে কক্ষের দরজা ও আসবাবপত্র। রামদা, কিরিচসহ দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে আসা ১৫/১৬ জনের সন্ত্রাসী দল একঘণ্টা সময় ধরে ওই বাড়িতে তাণ্ডব চালায়। এরপর স্মৃতিকে হত্যার ভয় দেখিয়ে স্টিলের আলমারির তালা ভেড়ে তার স্বামীর পাঠানো নগদ সাড়ে ৪ লাখ টাকা ও সাড়ে ৩ লাখ টাকা মূল্যের ৫ ভরি স্বর্ণালঙ্কার লুট করে নেয়। এছাড়া কয়েক লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি করে। এ ঘটনা চলাকালে স্মৃতি ট্রিপল নাইনে কল করলে বাঞ্ছারামপুর থানার এসআই মোজাম্মেলের নেতৃত্বে ৫/৬ জন পুলিশ সদস্যের একটি দল ঘটনাস্থলে আসে এবং  সেখান থেকে হামলায় জড়িত ৪ জনকে আটক করে হাতে হ্যান্ডকাফ পরায়। কিন্তু আধঘণ্টা পর ঘটনাস্থল থেকেই তাদের ছেড়ে দেয় পুলিশ। পরে এ ঘটনায় আদালতে কান্দাপাড়া গ্রামের মো. নুরুল ইসলাম (৪৫), মধ্যপাড়ার বিল্লাল মিয়া (২৫), মো. আল আমিন (৩২), আরিফ (২০), আবদুর রউফ শুভ (২১), নমশূদ্র পাড়ার নাসির (২০),  মো. ইকবাল (২৮), মো. রিপন (২৫) ও একান্ত দাশ (২১)কে আসামি করে  মামলা দায়ের করেন স্মৃতি। আদালত মামলাটি বাঞ্ছারামপুর থানা পুলিশকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে। এদিকে ঘটনার পরপরই আতঙ্কে বাড়ি ছেড়েছেন আঞ্জুমান আরা সরকার স্মৃতি। তিনি জানান- হামলার সময় নুরুল ইসলাম তাকে দু’টুকরো করে কেটে তারে ঝুলিয়ে রাখার হুমকি  দেন। তার ছেলেকে মেরে ফেলার এবং তার স্বামী বিদেশ থেকে এলে বিমানবন্দর থেকে উঠিয়ে নিয়ে গুম করে ফেলবে বলে হুমকি দেয়। এরপরই নিরাপত্তাহীনতায় তিনি বাড়ি ছেড়ে বাপের বাড়িতে চলে যান। তাকে থানায় যেতেও বাধা দেয়া হয়। এ বিষয়ে বাঞ্ছারামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নূরে আলম বলেন-আমাদের পুলিশ গিয়েছিল। কিন্তু কাউকে ধরে আনেনি। তাছাড়া এই ঘটনার বিষয়ে আমাদের কাছে কোনো অভিযোগ নেই। তবে নবীনগর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন- ঘটনাটি আমি অবহিত নই। তবে এমন ঘটনা ঘটে থাকলে আমি ব্যবস্থা নেবো।

 

বাংলারজমিন থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

বাংলারজমিন থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং স্কাইব্রীজ প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং লিমিটেড, ৭/এ/১ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status