ঢাকা, ২৩ মে ২০২৪, বৃহস্পতিবার, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিঃ

শেষের পাতা

প্রতীক্ষার অবসান অবশেষে ঘরে ফিরেছেন তারা

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে
১৫ মে ২০২৪, বুধবার
mzamin

কুতুবদিয়া থেকে  নাবিকদের নিয়ে আসা ছোট লাইটারেজ জাহাজে মঙ্গলবার বিকাল ৪টার দিকে ফেরার কথা ছিল। আর তাদের পরিবারের সদস্যদের প্রতি মালিকপক্ষের নির্দেশনা ছিল ৩টার পর বন্দরে আসতে। তবে দুপুর হওয়ার আগেই হাজির হন স্বজনরা। তাদের হাসি, কোলাহলে মুখরিত হয়ে উঠে চারপাশ। এরমধ্যে ঠিক ৪টায় নাবিকদের বহনকারী ‘জাহাজ মণি-৩’ নামের লাইটারেজটি জেটিতে এসে ভিড়ে। এসময় মুহুর্মুহু করতালিতে তাদেরকে স্বাগত জানানো হয়। তারাও হাত নেড়ে সবাইকে সালাম দেন। উপস্থিত  নাবিক ও স্বজনদের কয়েকজনকে এসময় খুশিতে কান্নায় ভেঙে পড়তে দেখা যায়।

অবশেষে সোমালিয়ার জলদস্যুদের হাত থেকে মুক্তি পাওয়ার একমাস পর চট্টগ্রাম বন্দর জেটিতে ফিরেছেন এমভি আবদুল্লাহ জাহাজের ২৩ নাবিক। মঙ্গলবার বিকাল ৪টায় এমভি জাহান মণি-৩ লাইটার জাহাজে করে বন্দরের নিউমুরিং টার্মিনালে পৌঁছেছেন নাবিকেরা। সেখানে তাদের লালগালিচা সংবর্ধনা দেয়া হয় চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে।

বিজ্ঞাপন
নাবিকদের স্বাগত জানাতে সেখানে অন্যদের মধ্যে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. রেজাউল করিম চৌধুরী, চট্টগ্রাম বন্দরের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ সোহায়েল ও সচিব ওমর ফারুক, কবির গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে ভার্চ্যুয়ালি যুক্ত হন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। 

ফিরে আসা এই ২৩ নাবিক হলেন- এমভি আব্দুল্লাহ জাহাজের মাস্টার মোহাম্মদ আবদুর রশিদ, চিফ অফিসার মো. আতিক উল্লাহ খান, সেকেন্ড অফিসার মোজাহেরুল ইসলাম চৌধুরী, থার্ড অফিসার এন মোহাম্মদ তারেকুল ইসলাম, ডেক ক্যাডেট মো. সাব্বির হোসাইন, চিফ ইঞ্জিনিয়ার এএসএম সাইদুজ্জামান, সেকেন্ড ইঞ্জিনিয়ার মো. তৌফিকুল ইসলাম, থার্ড ইঞ্জিনিয়ার মো. রোকন উদ্দিন, ফোর্থ ইঞ্জিনিয়ার তানভীর আহমেদ, ইঞ্জিন ক্যাডেট আইয়ুব খান, ইলেকট্রিশিয়ান ইব্রাহীম খলিল উল্লাহ, এবি পদের মোহাম্মদ আনোয়ারুল হক, মো. আসিফুর রহমান, মো. সাজ্জাদ হোসাইন, জয় মাহমুদ, ওএস পদের মো. নাজমুল হক, অয়েলার পদের আইনুল হক, মোহাম্মদ শামসুদ্দিন, মো. আলী হোসেন, ফায়ারম্যান মোশাররফ হোসেন শাকিল, চিফ কুক মো. শফিকুল ইসলাম, জিএস পদের মোহাম্মদ নুর উদ্দিন ও ফিটার মোহাম্মদ সালেহ আহমদ।

এমভি আবদুল্লাহর ফোর্থ ইঞ্জিনিয়ার মো. তানভীর আহমেদের মা জোৎস্না বেগম মানবজমিনকে বলেন, ‘আমাদেরকে বলা হয়েছিল বিকাল ৩টার দিকে আসতে। তবে আমি ছেলের বউকে নিয়ে দুপুরেই চলে এসেছি। নিজেকে আর ধরে রাখতে পারিনি। আজকেই যেন আমাদের ঈদের দিন। আল্লাহ আমার বাবাকে আমাদের মাঝে ফিরিয়ে দিয়েছেন। আল্লাহর দরবারে হাজারো শোকরিয়া।’

‘বাবার জন্য পুরো ঘর খালি ছিল। ঈদটাও ভালোভাবে কাটাতে পারিনি। ঘুমাতে পারিনি। কখন বাবা আসবে, বাবাকে দেখতে পাবো; মায়ের কাছে সবসময় এসবই জিজ্ঞেস করতাম। আজ ঠিকই বাবার কাছে। বাবার পাশে। সামনে পরীক্ষা আছে, সেগুলো শেষ করে বাবাকে নিয়ে বেড়াবো আর ঘুরবো।’ দীর্ঘ দুই মাস পর বাবাকে কাছে পেয়ে উপস্থিত সাংবাদিকদের এসব বলছিল এমভি আবদুল্লাহর চিফ অফিসার ক্যাপ্টেন মো. আতিক উল্লাহ খানের বড় মেয়ে ইয়াশরা। তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ুয়া ইয়াশরা জাহাজ থেকে নামার সঙ্গে সঙ্গেই ছোট বোন উনাইজাকে নিয়ে বাবার কাছে দৌড়ে গিয়ে জড়িয়ে ধরে। ইয়াশরা আরও বলেছে, ‘আমি আমার আরেক বোন এখানে এসেছি। আমার ছোট বোন বাসায়। তার এখনো দুই বছর বয়স। তাই তাকে এখানে আনা হয়নি।’

এসময় ক্যাপ্টেন আতিক উল্লাহ খান বলেন, ‘বীভৎস দিন থেকে আলোর দিনে ফিরেছি। দুঃসহ সেই স্মৃতির কথা আর মনে করতে চাই না। ট্রমা কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করছি। আপনারা দোয়া করবেন। দুই সন্তানকে কাছে পেলাম। বাসায় আরেক সন্তান কান্না করছে। তার কাছে ফিরতে হবে দ্রুত।’ এর আগে দুপুর সাড়ে ১১টায়  দিকে কক্সবাজারের কুতুবদিয়া থেকে নাবিকদের নিয়ে চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে রওনা দেয় জাহাজটি।  সোমবার বিকালে নাবিকদের নিয়ে ‘এমভি আবদুল্লাহ’ জাহাজটি কুতুবদিয়া বহির্নোঙরে ভিড়ে। সেখানে চলছে চুনাপাথর খালাস কার্যক্রম। ‘এমভি আবদুল্লাহ’র দায়িত্ব নিয়েছে নতুন ২৩ নাবিক।

এদিকে নাবিকদেরকে দেয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ভার্চ্যুয়ালি যুক্ত হয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, এমভি আবদুল্লাহ এবং নাবিকদের দ্রুত মুক্ত করা গেছে। অতীতে এমন কোনো ঘটনায় এত দ্রুত উদ্ধার করা যায়নি। এই জাহাজ মুক্ত করার ক্ষেত্রে বিভিন্ন সংস্থার পক্ষ থেকে বলপ্রয়োগের পরামর্শ দেয়া হয়েছিল, বিদেশি অনেক জাহাজ বলপ্রয়োগের জন্য আশপাশে অবস্থান নিয়েছিল। কিন্তু আমরা সবসময় সরকারের পক্ষ থেকে বলপ্রয়োগের বিরুদ্ধে ছিলাম। কেএসআরএম কর্তৃপক্ষ বলপ্রয়োগের বিপক্ষে ছিল। 

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাদের নির্দেশনা দিয়েছিলেন শান্তিপূর্ণভাবে এ সমস্যার সমাধান করার জন্য। সেটি করার জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় যেমন কাজ করেছে একইসঙ্গে নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ও কাজ করেছে। নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রীও বিষয়টি নিয়ে সবসময় সচেষ্ট ছিলেন। হাসান মাহমুদ বলেন, ‘ভবিষ্যতে যাতে এ ধরনের ঘটনা না ঘটে সেজন্য আমাদের সজাগ থাকতে হবে। যে সমস্ত জায়গায় এরকম ঝুঁকিপূর্ণ আছে সেখানে আর্ম, গার্ডসহ জাহাজ যাতে যায় সেদিকে একটু দৃষ্টিপাত করতে হবে। সে কথাটি আমাদের মনে রাখতে হবে।

চসিক মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, ‘দীর্ঘ দুমাস মৃত্যুর সঙ্গে মুখোমুখি হয়ে প্রতিটি মুহূর্ত যারা মনে করেছেন এইমাত্র আমাদের জীবনপ্রদীপ শেষ হয়ে আসবে তাদেরকে আমরা ফিরে পেয়েছি। স্বাভাবিকভাবে আমরা চট্টগ্রামবাসী আজকে আনন্দিত উচ্ছ্বসিত আবেগাপ্লুত। সন্তান ফিরে আসলে মা-বাবা যেমন অশ্রু ধরে রাখতে পারে না তেমনি আমরা যারা সমবেত হয়েছি তারা আবেগ ধরে রাখতে পারিনি।’

প্রসঙ্গত, গত ১২ই মার্চ সোমালিয়ার জলদস্যুরা ভারত মহাসাগর থেকে ২৩ নাবিকসহ  চট্টগ্রামভিত্তিক শিল্পপ্রতিষ্ঠান কবির গ্রুপের মালিকানাধীন এমভি আবদুল্লাহ জাহাজকে জিম্মি করে। অনেক দেন-দরবারের পর বড় অঙ্কের মুক্তিপণ নিয়ে দস্যুরা ১৪ই এপ্রিল জাহাজটিকে ছেড়ে দেয়। এরআগে ২০১০ সালের ডিসেম্বরে আরব সাগরে সোমালি জলদস্যুদের কবলে পড়েছিল কবির গ্রুপের মালিকানাধীন আরেকটি জাহাজ।  ওই সময় ‘জাহাজ মণি’ নামে ওই  জাহাজের ২৫ নাবিক এবং প্রধান প্রকৌশলীর স্ত্রীকে জিম্মি করা হয়। নানাভাবে চেষ্টার পর ১০০ দিনের চেষ্টায় জলদস্যুদের কবল থেকে মুক্তি পান তারা।
 

শেষের পাতা থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

শেষের পাতা সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status