ঢাকা, ২৩ মে ২০২৪, বৃহস্পতিবার, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিঃ

নির্বাচিত কলাম

আন্তর্জাতিক

লোকসভা নির্বাচন: কাশ্মীরে কেন বিজেপি’র প্রার্থী নেই

মোহাম্মদ আবুল হোসেন
১৩ মে ২০২৪, সোমবার
mzamin

বিজেপি’র এই সিদ্ধান্ত বিস্মিত করেছে সবাইকে। কারণ, ১৯৯৬ সালের পর এই প্রথম ওই অঞ্চলে জাতীয় নির্বাচনে প্রথম প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে না বিজেপি। কারণ, দলটির যথেষ্ট সমর্থন নেই সেখানে। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলেন, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সেখানে ক্যাডারভিত্তিক উপস্থিতি বৃদ্ধি পেয়েছে। তাদের সবচেয়ে ভালো পারফরমেন্স ছিল ২০১৮ সালে বিধানসভা নির্বাচনে। ওই সময় তারা সেখানে দ্বিতীয় বৃহৎ দল হিসেবে আবির্ভূত হয়। পিডিপি’র সঙ্গে গঠন করে সরকার। জম্মুতে মোট ৮৭ আসনের মধ্যে বিজেপি পেয়েছিল ২৫ আসন। ওদিকে ওই জোট ভেঙে যায় ২০১৮ সালে। ফলে নরেন্দ্র মোদির সরকার ওই অঞ্চলে সরাসরি শাসন জারি করেন।

বিজ্ঞাপন
দলটি ২০২০ সালে সমৃদ্ধি লাভ করে।  তখন স্থানীয় নির্বাচনে জয়ী হয়। কাশ্মীরে তিনটি আসন পায়। এর দু’বছর পরে সরকার বিধানসভার সীমানা পুনঃনির্ধারণ করে। এতে জম্মু অতিরিক্ত ৬টি আসন পায়। অন্যদিকে কাশ্মীর পায় অতিরিক্ত একটি আসন।


ভা  রতে চলছে লোকসভা নির্বাচন। এ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নানা বিতর্ক। অভিযোগ আছে, ক্ষমতাসীন বিজেপি এবং এ দল থেকে নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ভারত ধর্মনিরপেক্ষ দেশ হওয়া সত্ত্বেও সেখানে ধর্মীয় কার্ড ব্যবহার করছেন। বিশেষ করে মুসলিম ইস্যুতে তারা প্রচারণায় জোর দিয়েছেন। অভিযোগ করছেন, কংগ্রেস ক্ষমতায় এলে সব সম্পদ মুসলিমদের দিয়ে দেবে। স্বর্ণালংকার সব দিয়ে দেবে মুসলিমদের। তাদের বিরুদ্ধে মোদির আরও অভিযোগ, কংগ্রেস আদানি, আম্বানিদের কাছ থেকে ট্রাক ট্রাক টাকা পেয়েছে। এ কারণে কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী আদানি, আম্বানিদের নাম প্রচারণায় উচ্চারণ করছেন না। জবাবে রাহুল গান্ধী এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট বা ইডি দিয়ে এ বিষয়ে তদন্তের আহ্বান জানিয়েছেন। উল্লেখ্য, এই ইডির মামলায় দীর্ঘ সময় জেল খেটে জামিনে মুক্ত হয়েছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী ও আম আদমি পার্টির নেতা অরবিন্দ কেজরিওয়াল। তার বিরুদ্ধে মাদক বিষয়ক দুর্নীতির অভিযোগ থাকলেও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আসল উদ্দেশ্য রাজনীতি। এরই শিকার হয়েছেন কেজরিওয়াল। বিতর্ক আরও আছে। ক্ষমতাসীন ভারতীয় জনতা পার্টি বিজেপি চার বছরেরও বেশি সময় আগে ভারতশাসিত জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করে। এর ফলে তারা ওই অঞ্চলকে সরাসরি কেন্দ্রীয় শাসনের অধীনে আনে। এরপর দুটি টেরিটোরি সৃষ্টি করে। একটির নাম দেয়া হয় লাদাখ। অন্যটি জম্মু ও কাশ্মীর। এই কৃতিত্বের দাবি করে বিজেপি। জম্মু-কাশ্মীরের ওই অধিকার বাতিল করার পর এবারই প্রথম সেখানে লোকসভা নির্বাচন হচ্ছে। কিন্তু সেই নির্বাচনে কাশ্মীরে কোনোই প্রার্থী দেয়নি বিজেপি। কিন্তু কেন? এ প্রশ্ন এখন জনে জনে। সংবিধানের ৩৭০ ধারা ২০১৯ সালের ৫ই আগস্ট বাতিল করার পর এবারই প্রথম নির্বাচন হচ্ছে। 

এতে হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠ জম্মুতে দুটি আসনে প্রার্থী দিয়েছে বিজেপি। কিন্তু মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ কাশ্মীর উপত্যকায় আছে তিনটি আসন। তাতে একজনও প্রার্থী দেয়নি বিজেপি। বিরোধীরা অভিযোগ করছেন, এই নির্বাচনকে মোদি সরকারের ২০১৯ সালের ওই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে জনগণ গণভোট হিসেবে দেখবেন- এই ভয়ে প্রার্থী দেয়া থেকে বিরত থেকেছে বিজেপি। রাজনৈতিক বিশ্লেষক এবং বিরোধীরা দাবি করছেন, জম্মু-কাশ্মীরের মর্যাদা বাতিল করার সিদ্ধান্তে ওই অঞ্চলের মানুষের মধ্যে ক্ষোভ আছে। এটা বিজেপিও জানে। তাই তারা প্রার্থী দেয়া থেকে বিরত থেকেছে। এমনিতেই কাশ্মীর এবং দিল্লির মধ্যে কয়েক দশক ধরে উত্তেজনা বিরাজমান। ভারতীয় শাসন এবং সেনাবাহিনীর অভিযানের বিরুদ্ধে সেখানে বিদ্রোহ হয়েছে। তাতে গত তিন দশকে কয়েক হাজার মানুষের প্রাণ গেছে। কিন্তু ২০১৯ সালে এসে পরিস্থিতির আরও অবনতি ঘটে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সরকার আকস্মিকভাবে পার্লামেন্টে সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করে। এতে জম্মু-কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন বাতিল হয়ে যায়। 

সেখানে যোগাযোগ ব্যবস্থায় বিধিনিষেধ আরোপ করে সরকার। কয়েকশত বিরোধী নেতাকে জেলে ভরে সরকার। এর মধ্যে আছেন সাবেক তিনজন মুখ্যমন্ত্রীও। তাদেরকে কয়েক মাস জেলে আটকে রাখা হয়। ওদিকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং তার মন্ত্রীরা ২০১৯ সালের ওই সিদ্ধান্তের বিষয়ে জোর গলায় বলতে থাকেন, এতে সেখানে শান্তি এসেছে। গত কয়েক বছরে স্থানীয় বিজেপি নেতারা কাশ্মীরে বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রচারণা চালিয়েছেন। এর মধ্যদিয়ে সেখানে সমর্থনের একটি ঘাঁটি বসাতে চেষ্টা করেছেন তারা। তারপরও দল এই নির্বাচনে কাশ্মীরে কোনো প্রার্থী দেয়নি। এ বিষয়ে বিজেপি’র জম্মু ও কাশ্মীরের প্রধান মুখপাত্র সুনীল শেঠি বলেন, নির্বাচন অগ্রাধিকার নয়। তাদের মূল লক্ষ্য হলো জনগণের হৃদয় জয় করা। তিনি আরও বলেন, দেশের বাকি অংশের সঙ্গে পুরো কাশ্মীরকে সংযুক্ত করতে আমাদের সময় লেগেছে ৭৫ বছর। আমরা এমন কোনো ভাব সৃষ্টি করতে চাই না যে, শুধু এখানে আসন জেতার জন্য আমরা এ কাজ করেছি।  কিন্তু সমালোচকরা বলেন, দল এমনই বলবে। কারণ, বিজেপি’র নেতৃত্ব অনুধাবন করতে পেরেছে যে, ওই অঞ্চলে জয় অর্জন করা খুব সহজ কাজ হবে না। রাজনৈতিক বিশ্লেষক নূর আহমেদ বাবা বলেন, এই অর্জন অন্য রাজ্যগুলোতে শোনানো যেতে পারে। কিন্তু হিমালয়ের পাদদেশের এই কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসনকে কেড়ে নেয়া এখানকার মানুষ পছন্দ করেনি। তাই এই নির্বাচনকে জনগণ ২০১৯ সালের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে গণভোট হিসেবে দেখতে পারেন। 

এ জন্য বিজেপি কাশ্মীরে নির্বাচন এড়িয়ে গেছে। ন্যাশনাল কনফারেন্স (এনসি) দলের সদস্য ও এখানকার সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাহ বলেন, যদি জনগণ অনুচ্ছেদ ৩৭০কে বাতিল করায় খুশিই হতো, তাহলে তো বিজেপি’র এখানে নির্বাচন নিয়ে দ্বিধা করার কথা নয়। পক্ষান্তরে তারা নিজেদের এখানে উন্মোচিত করতে চায় না তাদের মুখ রক্ষার জন্য। এ জন্যই প্রতিদ্বন্দ্বিতা না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।  জম্মু ও কাশ্মীরে ভোট হচ্ছে ৫ দফায়। ওমর আবদুল্লাহর এনসি ছাড়াও এখানে আছে পিপলস ডেমোক্রেটিক পার্টি (পিডিপি), পিপলস কনফারেন্স (পিসি) এবং জম্মু-কাশ্মীর আপনি পার্টি। ভারতের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসও এখানে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। এনসি এবং পিডিপি’র নেতারা বার বার দাবি জানিয়ে আসছেন যে, নির্বাচনে পিসি এবং আপনি পার্টিকে সমর্থন দিচ্ছে বিজেপি। তাদেরকে তারা প্রক্সি বলেও অভিহিত করেছে। তবে বিজেপি এখানে কোনো জোটের ঘোষণা আনুষ্ঠানিকভাবে দেয়নি। তবে বিজেপি’র সূত্র বলেছেন, কাশ্মীরের উত্তর ও কেন্দ্রীয় অঞ্চলে যেসব দলের শক্ত ঘাঁটি আছে, তাদেরকে সমর্থন দিতে পারে তারা। গত মাসে দলটির আঞ্চলিক প্রধান রবীন্দর রাইনা বলেছেন, সমমনা দলগুলোর পেছনে আছেন তারা। বিষয়টি স্থানীয় অনেকের দৃষ্টি কেড়েছে, যারা বলেছেন, ২০১৯ সাল থেকে নির্বাচনের জন্য অপেক্ষা করছেন। কাশ্মীরের কুপওয়ারা জেলার বিজেপিকর্মী শাবির আহমেদ  জারগার বলেন, আমরা মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়েছি। তাদের সঙ্গে মিটিং করেছি।

 সরকার তাদের জন্য কি কি কাজ করেছে, তা তাদেরকে বলেছি। বারমুল্লা জেলার আরেক দলীয়কর্মী ফিদা হুসেন বলেন, আমরা হতাশ হয়েছি। কিন্তু দলের সিদ্ধান্ত মেনে নিতে হবে।  বিজেপি’র এই সিদ্ধান্ত বিস্মিত করেছে সবাইকে। কারণ, ১৯৯৬ সালের পর এই প্রথম ওই অঞ্চলে জাতীয় নির্বাচনে প্রথম প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে না বিজেপি। কারণ, দলটির যথেষ্ট সমর্থন নেই সেখানে। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলেন, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সেখানে ক্যাডারভিত্তিক উপস্থিতি বৃদ্ধি পেয়েছে। তাদের সবচেয়ে ভালো পারফরমেন্স ছিল ২০১৮ সালে বিধানসভা নির্বাচনে। ওই সময় তারা সেখানে দ্বিতীয় বৃহৎ দল হিসেবে আবির্ভূত হয়। পিডিপি’র সঙ্গে গঠন করে সরকার। জম্মুতে মোট ৮৭ আসনের মধ্যে বিজেপি পেয়েছিল ২৫ আসন। ওদিকে ওই জোট ভেঙে যায় ২০১৮ সালে। ফলে নরেন্দ্র মোদির সরকার ওই অঞ্চলে সরাসরি শাসন জারি করেন। দলটি ২০২০ সালে সমৃদ্ধি লাভ করে।

 তখন স্থানীয় নির্বাচনে জয়ী হয়। কাশ্মীরে তিনটি আসন পায়। এর দু’বছর পরে সরকার বিধানসভার সীমানা পুনঃনির্ধারণ করে। এতে জম্মু অতিরিক্ত ৬টি আসন পায়। অন্যদিকে কাশ্মীর পায় অতিরিক্ত একটি আসন। সব মিলে আসন দাঁড়ায় ৯০টি। একে দেখা হয় হিন্দু অধ্যুষিত জম্মুতে প্রভাব বিস্তারের প্রচেষ্টা হিসেবে। কিন্তু নির্বাচনী কিছু সফলতা সত্ত্বেও বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, বিজেপি মাঠপর্যায়ে এর প্রভাব সৃষ্টি করতে ব্যর্থ হয়। নূর আহমেদ বাবা বলেন, এই অঞ্চল সরাসরি দিল্লির নিয়ন্ত্রণে। কিন্তু জনগণ গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত একটি সরকারের পক্ষে। যে সরকারের নেতৃত্বের সঙ্গে তাদের যোগসূত্র থাকবে।  স্থানীয় এবং বিরোধী নেতারা বলেন, এসবের সঙ্গে আরও অনেক বিষয় আছে। এর মধ্যে আছে বেকারত্বের হার উচ্চ। রাজনীতিতে স্থানীয় প্রতিনিধিত্বের অভাব। নিরাপত্তা রক্ষাকারীদের হাতে মানবাধিকার লঙ্ঘন। পিডিপি’র মুখপাত্র মোহিত ভান বলেন, যদি আমরা দেশের বাকি অংশে সব আসনেও বিজয়ী হই, আর যদি কাশ্মীরে হেরে যাই, তাহলে তা হবে এক বড় পরাজয়। 

(তথ্যসূত্র: বিবিসি ও ইন্টারনেট)    

পাঠকের মতামত

ভারত নির্বাচনের শিক্ষা বাংলাদেশ থেকে আমদানি করছে।

MK. Mamun Mirza
১৪ মে ২০২৪, মঙ্গলবার, ৪:৪৮ অপরাহ্ন

ভারত একটি বৃহত্তর ধর্ম নিরপেক্ষ গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হয়েও তারা ব্যবহার করছে মৌলবাদের কার্ড। নির্বাচনের শিক্ষা ও যেনো বাংলাদেশ থেকে আমদানি করছে।

হোসেন মাহবুব কামাল
১৩ মে ২০২৪, সোমবার, ১:৪৮ পূর্বাহ্ন

নির্বাচিত কলাম থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

নির্বাচিত কলাম সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status