ঢাকা, ২৩ জুন ২০২৪, রবিবার, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৬ জিলহজ্জ ১৪৪৫ হিঃ

ঈদ সংখ্যা ২০২৪

নেশার ছোবল

আলী ইদ্‌রিস

(২ মাস আগে) ১৮ এপ্রিল ২০২৪, বৃহস্পতিবার, ৩:৫০ অপরাহ্ন

mzamin

নিশি রাতে গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন পড়শিদের অতর্কিতে জাগিয়ে দিয়ে কাল বৈশাখীর মতো আগমন ঘটে সেলিমের। একতলা বাড়ির সীমানা প্রাচীরের শিটের ফটকে গায়ের সর্বশক্তি দিয়ে একসঙ্গে বার কয়েক লাথি মারলে যে শব্দ হয়, সেই শব্দে পড়শিরা গভীর ঘুম থেকে জেগে বুঝতে পারে যে রাত দুটো বেজেছে। দিনের পর দিন একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি এখন তাদের গা-সহা হয়ে গিয়েছে। উঠতি বয়সের ছেলে মেয়েদের ঘুমের অতোটা ব্যাঘাত হয় না যতটা বয়স্কদের হয়। সেটা সেলিমের সৌভাগ্যই বলতে হবে। নতুবা জোয়ান ছেলেরা এতটা ধৈর্য দেখাতো না, নেশাখোরকে উত্তম-মধ্যম দিয়ে নেশামুক্ত করতো। অভ্যেসবশত পড়শিরা ঘুমিয়ে পড়লেও সেলিমের মা ও বোনকে রাত দুটো পর্যন্ত জেগে থাকতে হয়। নেশার  বিষাক্ত উত্তেজনায় রাজা উজির মেরে, হৈ চৈ সহকারে রাস্তা কাঁপিয়ে শেষে বাসার ফটকে জোরে জোরে লাথি মেরে সেলিম তার কর্মকাণ্ডের প্রথম পর্ব সমাপ্ত করে। দ্বিতীয় পর্বে যা ঘটে সেটা বাইরের কেউ জানে না, কিন্তু মা-বোনের সারা রাতের ঘুম হারাম করে দিয়ে ঘরটাকে দোজখে রূপান্তরিত করে। প্রথমইে খাবার টেবিলে বসে দু’একটি খাবার পাতে তুলে নেয়।

বিজ্ঞাপন
খেতে যদি সুস্বাদু না হয় তৎক্ষণাৎ সে খাবারের বাটি ধাক্কা দিয়ে টেবিল থেকে মাটিতে ফেলে দেয়, পরক্ষণেই গ্লাস, জগ, প্লেট ভাঙার তাণ্ডব শুরু হয়। সেলিমের প্রতিদিনের ভাঙচুর-তাণ্ডবে ঘরের প্লেট-গ্লাসের স্টক প্রায় নিঃশেষ হয়ে গিয়েছে। জমানো অর্থ থেকে প্রতিদিন সেলিমের হাতে পাঁচশ’ টাকা ধরিয়ে দিতে হয়, নতুবা সে মা-বোনের ওপর আক্রমণ চালায়। রাত তিনটা নাগাদ সেলিম ক্লান্ত হয়ে বিছানা নিলে মা ও বোন ঘুমোবার সুযোগ পায়। চার সদস্যের সুখী, ধনবান পরিবারের কর্তা ইমরান সা’বের মৃত্যুর পূর্বে পরিবারে সুখের বন্যা বইতো। তখন সেলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। 

বাবার পাজেরো গাড়ি চড়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে যেতো-আসতো। পকেট ভরা টাকা। আড্ডাবাজিতে অগ্রগামী। কথায় কথায় বাজি ধরে এবং বাজিতে হেরে বন্ধু-বান্ধবদের নিয়ে শহরের অভিজাত রেস্তরাঁয় ডিনার খেতো, সঙ্গে মদ্য জাতীয় পানীয় আর সিগারেট। পানীয় পান করতে করতে নেশা ধরে যেতো, সিগারেটের শেষাংশ জমে ছাইদানী উপচে পড়তো। এরপর ওরা বেরিয়ে পড়তো জনশূন্য রাজপথে গভীর রাতে। মোটর গাড়ি ছেড়ে ওরা মোটরসাইকেলে দাবড়ে বেড়াতো এক পাড়া থেকে আর এক পাড়ায়। ঘুমন্ত কাকগুলো মোটর বাইকের গর্জনে ডালে ডালে ডেকে উঠতো। অট্টালিকার দারোয়ানরা হুইসেল বাজিয়ে সতর্কতা জারি করতো, কিন্তু এক দঙ্গল ধাবমান জোয়ানকে দেখে চুপসে লুকিয়ে পড়তো। পুলিশকে ওরা পাত্তাই দিতো না, শুধু র‌্যাব পুলিশের গাড়ি দেখলে মোটর বাইকের গতি শ্লথ করে ভদ্র ছেলেদের মতো আচরণ করতো। ওরা ছড়িয়ে পড়তো রাজপথের এক একটি দূরত্বে যাতে র‌্যাব তাদেরকে একই দলের সদস্য বলে সন্দেহ না করে। এরপর এরা একত্রিত হতো একটি নির্দিষ্ট গলিতে। ঝুপড়িতে ফেনসিডিল, হেরোইন নিয়ে বসে আছে কমলা, বকুল আরও অনেকে। মোটর বাইক থেকে নেমে ওরা আড্ডা বসাতো ঝুপড়িতে। ধনবান অভিজাত মা-বাবার ছেলেরা বিলাসবহুল প্রাসাদ ছেড়ে টিনশেডের ঝুপড়িতে কি মজা পেতো কে জানে। প্রাসাদোপম বাড়ির শীতাতপ-নিয়ন্ত্রিত শীতল কক্ষ ছেড়ে  নেশার টানে ঝুপড়ির ভ্যাপসা গরমে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কীভাবে কাটাতো ভাবতে আশ্চর্য লাগে। 

নেশাখোররা কি অমৃত রেখে বিষও পান করতে পারে, বেহেশত ছেড়ে দোজখেও ঠাঁই নিতে পারে? ধনীর দুলাল সেলিমের বাবার মৃত্যুর পূর্বে মাদকের নেশায় যে মওতার কুঅভ্যাস গড়ে উঠেছিল বাবার মৃত্যুর পর যেন সেই নেশা আরও জেঁকে বসলো। ইমরান সা’বের স্বপ্ন ছিল ছেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ চুকিয়ে বাবার প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ে যোগ দেবে এবং তিনি একমাত্র ছেলেকে মনের মতো করে ব্যবসাটা শিখিয়ে পড়িয়ে নেবেন। দু’যুগের সাধনায় অংশীদার বন্ধুর সঙ্গে মাথার ঘাম পায়ে প্রবাহিত করে পোশাক-শিল্পের কারখানাটি নিজে দাঁড় করিয়েছেন। স্বভাবতই তাকে নিয়ে সাধ-আহ্লাদ থাকতে পারে। কিন্তু ইমরান সা’ব জানতেন না যে নিজের ছেলেটি বখে গিয়ে নেশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছে। অর্থের চাহিদা থাকলেও বাবার মতো ছেলের অর্থোপার্জনের আকাঙ্ক্ষা নেই, বাবার কেনা পাজেরো জিপ থাকলেও নিজের উপার্জনে একটি ছোট গাড়ি কেনারও ইচ্ছা নেই। ইমরান সা’ব ভেবে পান না তারই ছেলে তার মতো অধ্যবসায়ী না হয়ে কর্মবিমুখ হলো কেন। অর্থ-বিত্তের আধিক্যই কি তার কারণ? ইমরান সা’ব ভাবছিলেন ছেলে ব্যবসাতে যোগ দিলে তার পরিশ্রমের ভগ্নাংশ ছেলের কাঁধে তুলে দেবেন, কিন্তু তার আশা পূরণ হলো না।

 উপরন্তু ব্যবসার কলেবর বৃদ্ধি পাওয়াতে বয়সের অনুপাতে ইমরান সা’বের খাটুনি বেড়ে গেল। রাত দিন পরিশ্রম, বিদেশ ভ্রমণ, খদ্দেরদের সঙ্গে মিটিং, এসব করে ইমরান সা’বের শরীর অসুস্থ হয়ে পড়তো, তদুপরি একমাত্র ছেলের ব্যবসায়ে উদাসীনতা তাকে প্রায়ই ভাবিয়ে তুলতো। শরীর ও মনের ওপর পারিবারিক অশান্তির প্রভাবে অজান্তেই ইমরান সা’বের রক্তচাপ বৃদ্ধি পেয়েছিল, কিন্তু ডাক্তার দেখানোর ফুরসত পান নি। এরমধ্যেই তার মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের ঘটনা ঘটলো। হাসপাতালে নেয়ার পথে ইমরান সা’ব শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন।  আপন হাতে গড়া প্রতিষ্ঠিত ব্যবসাটি ইমরান সা’ব নিজেই তত্ত্বাবধান করতেন বলে পোশাক কারখানাটি দিন দিন উন্নতি করছিল। কিন্তু তার মৃত্যুর পর ছেলে, মেয়ে বা স্ত্রী কেউই ব্যবসার হাল ধরতে পারলো না। স্ত্রী ভেবেছিলেন ওটা ছেলের কাজ, ছেলেই সামলাবে, কিন্তু অন্য নেশায় বুঁদ হয়ে থাকা ছেলের যে ব্যবসার প্রতি বিন্দুমাত্রও আকর্ষণ ছিল না, জননীর ব্যাপারটি অনুধাবন করতে সময় লাগলো। ইতোমধ্যে অর্ধ বছর পার হয়ে গেছে। স্বামীর জীবদ্দশায় স্ত্রী ভুলেও কোনো দিন পোশাক কারখানায় যান নি, ইমরান সা’বও সে সম্পর্কে স্ত্রীকে অবহিত করেন নি। ফলে যা হওয়ার কথা তাই হলো, সুযোগ বুঝে অংশীদার  বন্ধু ব্যবসাটি পুরোপুরি কব্জা করে ফেললো। এদিকে ব্যবসা থেকে কোনো মুনাফার অংশ না পাওয়াতে ইমরান পরিবারের সংসার চালানো কষ্টকর হয়ে পড়লো। এতদিন চাওয়ার পর মুহূর্তেই টাকার বান্ডিলগুলো বেগম ইমরানের হাতে এসে পৌঁঁছতো। সেই স্বপ্নের দিনগুলোর অবসান হয়ে গিয়েছে। ছ’মাস যাবৎ বেগম ইমরান ঘরে জমানো টাকা দিয়ে সংসার চালাচ্ছিলেন। এখন সে জমানো টাকা নিঃশেষ হয়ে যাওয়াতে মহিলার টনক নড়লো। 

এবার তিনি কারখানায় ইমরানের অংশীদার বন্ধুর কাছে নিজের মুনাফার হিস্যা চাইলেন। কিন্তু অংশীদার বন্ধু ব্যবসাতে লোকসান হচ্ছে বলে মিথ্যা তথ্য দিয়ে বন্ধুর স্ত্রীকে ফিরিয়ে দিলেন এবং বলে দিলেন যে ভবিষ্যতে মুনাফা হলে মুনাফার অংশ নিজেই গিয়ে দিয়ে আসবেন। বেগম ইমরান এবার সত্যিকারের ভাবনায় পড়লেন। কারখানা ও বাড়ি ছাড়া ইমরানের অন্য কোনো সম্পত্তি বা ব্যাংক ব্যালেন্স আছে কিনা মৃত্যুর পূর্বে তা ইমরান স্ত্রীকে জানিয়ে যায়নি। থাকলে নিশ্চয়ই জানিয়ে যেতেন এ বিশ্বাসে মহিলা এখন রেখে যাওয়া একমাত্র সম্পত্তি নিজের বাড়ি ছাড়া  আয়ের  অন্য কোনো উৎস  খুঁজে পেলেন না।  ইতিমধ্যে সেলিমের নেশার মওতা  আরও প্রকট, আরও শক্তিশালী হলো। সেলিমের নেশাগ্রস্ততা এমন পর্যায়ে পৌঁছলো যে এখন সে মা-বোনকে শুধু মানসিকভাবে নয়, শারীরিকভাবেও অত্যাচার করতে লাগলো। ঘুম থেকে উঠেই সে প্রাতঃরাশ সেরে নেশা দ্রব্য কেনার অর্থ চায়, পুরো পাঁচশ’ টাকা। না দিতে পারলে মাকে প্রথমে বকুনি, পরে গায়ে হাত তুলতে লাগলো। নিরুপায় মা নিজের গয়না বেচার অর্থ থেকে ছেলের দাবি মেটান। টাকা না দিলে সেলিম মায়ের গায়ে হাত উঠায়। বোন সেটা সহ্য করতে না পেরে ভাইকে শাসন করলে সে আরও হিংস্র হয়ে বোনের গায়ে হাত তুলে। ছেলের শারীরিক অত্যচার মা মুখ বুজে সহ্য করলেও বোন তা করে না, চিৎকার করে সাড়া বাড়ি কাঁপিয়ে তোলে, পাল্টা আঘাত করার চেষ্টা করে।

 ইমরান ভিলায় তখন কুরুক্ষেত্র, পড়শিরা এসে ভিড় জমায় এবং তাদের সক্রিয় বাধা দানে হাতাহাতি বন্ধ হয়।  নিত্যদিন একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি। রাত তিনটায় নেশাগ্রস্ত হয়ে বাসায় ফিরে শিটের ফটকে লাথি মেরে বিকট আওয়াজ সৃষ্টি, এরপর বাসার ভেতরে আসবাবপত্র ছোড়াছুড়ি, চিৎকার করে গালি-গালাজ করা, আবার কখনো মা-বোনের গায়ে হাত তোলা এবং এক সময় নিস্তেজ হয়ে ঘুমিয়ে পড়া। দিনের বেলা দুটোয় ঘুম ভাঙলে খেয়ে দেয়ে আবার আস্তানার উদ্দেশে যাত্রা। তখন নেশার জন্য হাতে কমপক্ষে পাঁচশ’ টাকা চাই, মা টাকা দিতে না পারলে আবার গায়ে হাত তোলা। তাই মা টাকাটা আগে থেকেই যোগাড় করে রাখেন। পড়শিরাও সেলিমের অনাচারে অভ্যস্ত ও সহিষ্ণু হয়ে উঠেছে। তারা আর দৌড়ে আসে না। এদিকে মা-বোনের ধৈর্য্যের পরীক্ষা চলতেই থাকে। এ যেন এক দোজখে বসবাস। নিজের ঔরসজাত সন্তানের হাতে প্রতিদিন মার খাওয়া, আপন ভাই কর্তৃক বোনের গায়ে প্রত্যহ হাত তোলা, এ অত্যাচার কতোদিন চলবে। মা-মেয়ের একই প্রশ্ন, আর কতদিন? সংসারে এক টাকাও আয় নেই, মার গয়না বিক্রির টাকায় বাজার খরচ চলছে, সেই কৃচ্ছ্ব অর্থ থেকে প্রতিদিন পাঁচশ’ টাকা নেশার জন্য ছেলের হাতে তুলে দেয়া, তাতেও রক্ষে নেই। নেশাগ্রস্ত হয়ে রাত দু’টোয় বাড়ি ফিরে  মা-বোনের ওপর অত্যাচার। ‘হারামজাদাকে কি যমেও ভয় পায়, তাই তো ওর মরণ হয় না। মরলে তো কিছুটা দিন শান্তিতে বাঁচতে পারতাম, হাতে একটা বন্দুক থাকলে ওর বুকে গুলি করতাম।’ ভুক্তভোগী মা প্রায়ই খেদোক্তি করতেন আর দীর্ঘশ্বাস ছাড়তেন। একদিন এক অপ্রত্যাশিত ঘটনা ঘটলো। 

মা গিয়েছিলেন কিছু বাজার-সওদা করতে, ঘরে খাবার-দাবার ছিল না। বোনটি একা কলেজের পাঠ সম্পাদন করছিল। সেলিম ঘুম থেকে উঠে দুপুরের খাবার চাইলো। বোন খাবার দিলো। সেলিম নেশার টাকা চাইলো। বোনের হাতে কোনো টাকা পয়সা ছিল না, সে দিতে অপরাগতা প্রকাশ করলো। আর যায় কোথায়। অমনি অসহায় মেয়েটিকে টেনেহেঁচড়ে, লাথি মেরে মেঝেতে ধরাশায়ী করলো। মেয়ের করুন চিৎকারে এবার পড়শিরাও নির্বিকার থাকতে পারলো না, তারা এসে নেশাখোর ভাইয়ের ছোবল থেকে বোনকে মুক্ত করলো। ঠিক সে মুহূর্তে মা ফিরে এসে প্রতিবেশীদের মুখে ঘটনা শুনলেন। পুত্রের অত্যাচারে অতিষ্ঠ মা ধৈর্য ধরে রাখতে পারলো না। পড়শিদের জটলা ডিঙ্গিয়ে ঘরের ভেতরে থেকে একটি লাঠি হাতে নিলেন এবং ইচ্ছামতো ডান হাতের সমস্ত শক্তি প্রয়োগ করে ছেলেকে পেটালেন। নেশাখোর সেলিম এমন পিটুনি কোনো দিন খায় নি, বিশেষ করে মাটির মতো ধৈর্যশীল সর্বংসহা মার হাতে এমন পিটুনি খাওয়া তাকে স্তম্ভিত করলো। এরপর একে একে পড়শিরা প্রস্থান করলে সেলিম নিঃশব্দে, বিনা প্রতিবাদে  বিছানায় শুয়ে পড়লো। ঝড়ের তাণ্ডব থেমে গেলে যেমন স্বস্তি নেমে আসে বিছানায় সেলিমের নিঃশব্দ অবস্থান কিছুক্ষণের জন্য হলেও পরিবারে শান্তির হাওয়া বইয়ে দিলো। মা-বোন যেন স্বর্গের সুখ পেলেন। হৈ-হল্লা, চিল্লাচিল্লি, জিনিসপত্র ছোড়াছুড়ি, অশ্রাব্য গালিগালাজ, মা-বোনের গায়ে হাত তোলা কিছুক্ষণের জন্য বন্ধ থাকায় ঘরটাকে বেহেশতের মতো মনে হচ্ছিল।

 কিন্তু বেহেশতের পরিবেশ বেশিক্ষণ স্থায়ী হলো না। ক্ষুধার্ত নেশাগ্রস্ত সেলিমের নেশাটা মাথাচাড়া দিয়ে দ্বিগুণ শক্তিতে মাঝ-রাতে জেগে উঠলো। হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে সে ঘুমন্ত মা-বোনের ওপর চড়াও হলো। দু’হাতে দু’জনের চুলের ঝুঁটি ধরে বিছানার উপর দাঁড় করিয়ে কিল, ঘুসি, লাথি, থাপ্পড় মারতে লাগলো। অত্যাচারিত নারী দু’জনকে অর্ধ-বিবস্ত্র আর নিস্তেজ করে সেলিম ক্লান্ত হয়ে ঘর থেকে বেরিয়ে গেল। এবার মধ্যরাতে নারীদ্বয়ের চিৎকারে কোনো পড়শি এগিয়ে এলো না। নেশাখোর জাতকের হাতে মা, উন্মত্ত ভাইয়ের হাতে বোন নিপীড়নের শিকার হলো। দুঃসহ, অসহনীয় অবস্থার কোনো পরিবর্তন হলো না ইমরান পরিবারে। একটি দুষ্ট সদস্যের অপকর্ম অপর দু’টি সদস্যকে ধ্বংসের দিকে ধাবিত করলো। সেলিমের নিত্যকার নির্যাতনে অতিষ্ঠ মা-বোন ধৈর্যের শেষ সীমায় পৌঁছে দিশাহারা হয়ে পড়লো। কী করে এ দুরাত্মার হাত থেকে বাঁচা যায়, যেকোনো কিছুর বিনিময়ে মা-বোন এখন পশুটার হাত থেকে মুক্তি পেতে চায়। কী করে সম্ভব? একজন নেশাগ্রস্ত পুরুষের শক্তির কাছে দু’জন নারীর শক্তিও যথেষ্ট নয়। অতিষ্ঠ, অনন্যোপায় নারীদ্বয় সৃষ্টিকর্তার নিকট প্রার্থনা করতে লাগলেন।

 এ মুক্তি কামনা খুবই কষ্টের। ঔরসজাত সন্তানের নির্যাতন থেকে মা’র চিরমুক্তি কামনা এ যেন হৃদয়ের ভেতরে রক্তক্ষরণ থেকে বাঁচার আকুতি। অবশেষে বিধাতা স্বয়ং নড়ে উঠলেন। একটি টেলিফোন কল এলো মার কাছে ‘আপনার ছেলের বাড়াবাড়ি চরমে উঠেছে, ওকে আমাদের পাওনা টাকা ফেরত দিতে বলেন, দু’দিন সময় দিলাম। নতুবা তৃতীয় দিনে ছেলের লাশ দেখবেন।’ মা-বোন তো সেলিমের লাশই নীরবে চেয়েছিলেন। পাওনা টাকা ফেরত দেবেন কোত্থেকে। নিজেরাই এখন উপোস দিচ্ছেন। তৃতীয়দিন সন্ধ্যায় বাসার সামনের রাস্তায় কয়েকটি গুলির আওয়াজ শোনা গেল। তখনই কে যেন মাকে খবর দিলো সেলিম রাস্তায় পড়ে আছে।  স্নেহসিক্ত মার মন নির্বিকার থাকতে পারলো না। মা কেঁদে উঠলেন, কিন্তু ততদিনে চোখের অশ্রু শুকিয়ে গেছে।

ঈদ সংখ্যা ২০২৪ থেকে আরও পড়ুন

   

ঈদ সংখ্যা ২০২৪ সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status