ঢাকা, ২২ মে ২০২৪, বুধবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৩ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিঃ

নির্বাচিত কলাম

হালফিল বৃত্তান্ত

জাতিগত সংঘাতের আঞ্চলিক ভূগোল

ড. মাহফুজ পারভেজ
১৭ এপ্রিল ২০২৪, বুধবার
mzamin

পাহাড়ের সকল রাজনৈতিক নেতৃত্বের দৃঢ় অবস্থান, সামাজিক প্রতিরোধ ও সরকারি-বেসরকারি ঐক্য সশস্ত্র কর্মকাণ্ড প্রতিরোধে সহায়ক ভূমিকা রাখতে পারবে। পাহাড়ি-বাঙালি নির্বিশেষে সকল পার্বত্যবাসীর মধ্যে সশস্ত্র সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে  জোরালো ঐকমত্য সংঘাতের আশঙ্কাকে শান্তির সম্ভাবনায় রূপান্তরিত করতে সক্ষম হতে পারে। উপরন্তু, আঞ্চলিক রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক পন্থাকেও কাজে লাগাতে হবে সশস্ত্র সংঘাত মোকাবিলার কাজে। মোদ্দা কথায়, সামগ্রিক প্রচেষ্টার মাধ্যমে কেএনএফ কর্তৃক সৃষ্ট সমস্যাগুলোকে বিবেচনা করে দেখা দরকার এবং তারই ভিত্তিতে তাদের প্রতিহত ও নির্মূল করার সর্বাত্মক পরিকল্পনা ও কর্মসূচি প্রণীত হওয়া আবশ্যক

 

এপাশে বান্দরবানে সন্ত্রাসী ঘটনার পর পরই খবর পাওয়া গেল যে, মধ্য এপ্রিলে ভারতের মণিপুর রাজ্যে গোষ্ঠী সংঘর্ষের জেরে ঘরছাড়া ৫,০০০ ভোটারের জন্য সেই রাজ্যে ২৯টি বিশেষ নির্বাচন কেন্দ্রের ব্যবস্থা করতে হয়েছে। তখন সীমান্তের অপর পার্শ্বে বাংলাদেশের বান্দরবান প্রান্তে এপ্রিলের প্রথম দিকের  সশস্ত্র মহড়ার মাধ্যমে আতঙ্ক ও তাণ্ডব সৃষ্টি করার পরিপ্রেক্ষিতে অব্যাহত রয়েছে নাশকতাকারীদের আইনের আওতায় আনার সর্বাত্মক অভিযান। পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তির (১৯৯৭) পর সবচেয়ে বড় আকারের  সশস্ত্র শোডাউনের প্রতিক্রিয়ায় বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের পাহাড়ে যে অস্থিরতা বিরাজমান, অনুরূপ সংঘাতের বিচ্ছিন্ন প্রভাব ছড়িয়েছে বৃহত্তর এলাকায়। জাতিগত সংঘাতের ভূগোল বান্দরবান থেকে ভারতের মণিপুর-মিজোরাম, নাগাল্যান্ড হয়ে মিয়ানমারের চিন প্রদেশ পর্যন্ত আতঙ্কজনকভাবে প্রসারিত।

বাংলাদেশ ও ভারতের পরিস্থিতি তুলনামূলক আলোচনা করা হলে কিছু মিল খুঁজে পাওয়া যায়। সামনে আসে বিশেষ বিশেষ জাতিগোষ্ঠীগত অসন্তোষ ও সশস্ত্র প্রতিরোধের ঘটনাগুলো। দ্বন্দ্ব ও সংঘাতের ধারাবাহিক চিত্রও দেখা যায় দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার এই পার্বত্য জনপদসমূহে। যেহেতু ভৌগোলিক দিক থেকে বাংলাদেশের বান্দরবান ও ভারতের মিজোরাম-মণিপুর সন্নিকটবর্তী, সেহেতু সংঘাতের প্রভাব ও বিপদ উভয় দিকেই বিরাজমান।

বিজ্ঞাপন
আরও বিরাজমান ভারতের সংলগ্ন রাজ্য নাগাল্যান্ডে এবং ভারত-বাংলাদেশ সংযুক্ত মিয়ানমারের চিন-আরাকান/রাখাইন প্রদেশেও। ফলে বাংলাদেশ বা ভারতে বা মিয়ানমারে বিচ্ছিন্নভাবে জাতিগত সংঘাতের ‘একটি খণ্ডিত অংশ‘ দেখা গেলেও মূল সামগ্রিক চিত্রটি দেখতে পাওয়া যায় বৃহত্তর ক্যানভাসে তথা আঞ্চলিক পরিসরে ও পরিপ্রেক্ষিতে।    

মণিপুরের সমস্যাটি হলো এই রকম যে, গত বছরের ৩রা মে জনজাতি ছাত্র সংগঠন ‘অল ট্রাইবাল স্টুডেন্টস ইউনিয়ন অফ মণিপুর’ (এটিএসইউএম)-এর কর্মসূচি ঘিরে মণিপুরে অশান্তির সূচনা হয়। এরপর থেকে অন্তত কয়েক হাজার মানুষ প্রাণের ভয়ে ঘরবাড়ি ছেড়েছেন বলে অভিযোগ। মণিপুরের বিভিন্ন জেলার পাশাপাশি ঘরছাড়াদের বড় অংশ, বিশেষত কুকি-জো জনগোষ্ঠীর নাগরিকেরা পড়শি রাজ্য মিজোরামের বিভিন্ন শরণার্থী শিবিরে রয়েছেন। একই রকম চেহারা হওয়ায় নজরদারি এড়িয়ে গহীন অরণ্য পথে বাংলাদেশের বান্দরবানের নিভৃত অংশে এসে স্থানীয় স্বজাতিদের মধ্যে আশ্রয় নেয়াও তাদের পক্ষে অসম্ভব নয়। বাংলাদেশ, ভারত ও মিয়ানমারের সীমান্তের এই উপজাতিগুলোর আন্তদেশীয় চলাচল পাসপোর্ট বা আইনের মাধ্যমে নির্ধারণ করাও কষ্টসাধ্য।
প্রসঙ্গত, গত মে মাসের গোড়ায় মণিপুর হাইকোর্ট মেইতেইদের তফসিলি জনজাতির মর্যাদা দেয়ার বিষয়টি নিয়ে রাজ্য সরকারকে বিবেচনা করার নির্দেশ দিয়েছিল। এরপরেই জনজাতি সংগঠনগুলো তার বিরোধিতায় পথে নামে। আর সেই ঘটনা থেকেই সংঘাতের সূচনা হয় সেখানে। মণিপুরের আদি বাসিন্দা হিন্দু ধর্মাবলম্বী মেইতেই জনগোষ্ঠীর সঙ্গে কুকি-জোসহ কয়েকটি তফসিলি জনজাতি সম্প্রদায়ের (যাদের অধিকাংশই খ্রিস্টান) সংঘর্ষে এখনো পর্যন্ত প্রায় দুইশ’ জনের মৃত্যু হয়েছে। ঘরছাড়ার সংখ্যা প্রায় ৬০ হাজার। পরে মণিপুর হাইকোর্ট সেই বিতর্কিত নির্দেশ প্রত্যাহার করে নিলেও মণিপুর স্বাভাবিক হয়নি এখনো।

বাংলাদেশেও কুকি-চিন-জো উপজাতি সম্প্রদায়ের অধিকাংশই নব্যদীক্ষিত খ্রিস্টান এবং এদের অবস্থান রাঙ্গামাটি-বান্দরবান জেলার ভারত ও মিয়ানমার সীমান্তবর্তী এলাকায়। যে এলাকায়, সীমান্তের উভয় পাশে বাংলাদেশে, ভারতে ও মিয়ানমারে তাদের স্বজাতি ও স্বধর্মের বিপুলসংখ্যক মানুষের বাস। কেএনএফ বা কুকি-চিন গোষ্ঠী পার্বত্য চট্টগ্রামের ছোট-বড় ১৩টি উপজাতি বা ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর মধ্যে যারা অধিকতর ক্ষুদ্রতর তাদের সমন্বয়ে এবং প্রধানত কুকি-চিন-উপজাতিদের দ্বারা গঠিত। অতীতে, পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি ও শান্তি বাহিনীর সশস্ত্র কাঠামোতে পাহাড়ের প্রধান উপজাতি গোষ্ঠী চাকমা-মারমা-এিপুরা ছাড়া বাকি অন্যান্য ক্ষুদ্রতর নৃগোষ্ঠীর তেমন কোনো অংশগ্রহণই ছিল না। নেতৃত্ব পর্যায়েও তারা স্থান পায়নি। দৃষ্টান্তস্বরূপ, ১৯৭৫ সাল থেকে ১৯৮৩ সালের ১৪ই জুন পর্যন্ত শান্তি বাহিনীর ১২ জনের যে নেতৃত্বের প্যানেল ছিল, তার কোনো স্থানেই কুকি-জো তথা বম, লুসাই, পাংখো, খুমি, খেয়াং, মুরং ইত্যাদি উপজাতি গোষ্ঠীর কোনোই প্রতিনিধিত্ব ছিল না।

পাহাড়ের বড় উপজাতি গোষ্ঠী দ্বারা বঞ্চিতরাই কেএনএফ-এর আহ্বানে সমবেত হয় এবং রাজনৈতিক পর্যায় শেষে তারা দ্রুতই সশস্ত্র অবস্থান গ্রহণ করে। দলটির উত্থানকালে পার্বত্য চট্টগ্রামে আভ্যন্তরীণ বৈষ্যমের বিরুদ্ধে কথা বলে ও প্রতিবাদ জানায়। চাকমা-মারমা-এিপুরা জাতিগোষ্ঠীর আগ্রাসন থেকে অন্যান্য ক্ষুদ্র উপজাতিদের ভাষা, সংস্কৃতি, রাজনৈতিক অধিকার রক্ষারও ডাক দেন। প্রথমে মনে করা হয়েছিল যে তারা চাকমা আধিপত্যের বিরুদ্ধে ক্ষুদ্র উপজাতিদের একটি প্রতিবাদ প্রচেষ্টার অংশ। শান্তিচুক্তি অনুযায়ী তারাও ন্যায়সঙ্গত হিস্যা ও অংশগ্রহণ চায়। যেমনটি পাহাড়ে অবস্থানরত বাঙালিরাও দাবি করে। তাদের মতে, সকল সুযোগ, সুবিধা, চাকরি, কোটা একচেটিয়াভাবে চাকমা-মারমা-এিপুরা গোষ্ঠী নিয়ে নিচ্ছে। পাহাড়ে চলছে কয়েকটি উপজাতি গোষ্ঠীর চরম একাধিপত্য। বাকি গোষ্ঠীগুলো রয়েছে বঞ্চিত, অবহেলিত ও পিছিয়ে। তাদেরই একটি প্রতিবাদের নাম ছিল কেএনএফ।  

কিন্তু কেএনএফ-এর বহুবিধ কার্যক্রমের ফলে পরিস্থিতি শুধু বঞ্চনার বিরোধিতা ও দাবি আদায়ের পর্যায়ে সীমাবদ্ধ থাকেনি। বিশেষভাবে, কেএনএফ-এর কার্যক্রম ও লক্ষ্য-উদ্দেশ্য অচিরেই ভিন্নমাত্রা লাভ করে। আত্মপ্রকাশের কিছুদিন পরই কেএনএফ বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রামের রাঙ্গামাটি জেলার বাঘাইছড়ি, বরকল, জুরাছড়ি, বিলাইছড়ি এবং বান্দরবান জেলার রুমা, রোয়াংছড়ি, থানচি, লামা ও আলীকদম-এই ৯টি উপজেলা নিয়ে পৃথক স্বায়ত্তশাসিত রাজ্যের দাবি তোলে সামাজিক মাধ্যমে ও প্রচারণায়, যার নেতৃত্বে থাকেন নাথান বম, যিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ভাস্কর্য বিভাগের স্নাতক এবং জনসংহতির ছাত্র সংগঠনের সাবেক নেতা। লক্ষ্যণীয় বিষয় হলো, মানচিত্রের দিকে তাকালে দেখা যাবে যে, কেএনএফ উত্থাপিত ৯টি উপজেলা নিয়ে পৃথক স্বায়ত্তশাসিত রাজ্যের দাবিকৃত অঞ্চল সীমান্ত-সংলগ্ন এবং সীমান্তের অপর পাশে ভারত ও মিয়ানমারের ভূখণ্ডেও তাদের শক্ত জাতিগত ও ধর্মীয় অবস্থান রয়েছে। যে কারণে, নাথান বম পালিয়ে থাকেন সেসব এলাকায়। কখন তিনি বাংলাদেশে বা ভারতে বা মিয়ানমারের অংশে থাকেন, সেটাই নিশ্চিত হওয়া যায় না।

আরও উল্লেখযোগ্য বিষয় হলো, বিশ্লেষকরা মনে করছেন, বাংলাদেশের ৯টির সঙ্গে ভারত ও মিয়ানমার সংলগ্ন কিছু কিছু অংশ নিয়ে আরও বড় পরিসরে পৃথক স্বায়ত্তশাসিত রাজ্যের দাবির পথে কুকি-চিন-জো জনগোষ্ঠীর ত্রিদেশীয় নেতৃত্ব অগ্রসর হচ্ছে। তাদের সংগঠনে ও বাহিনীতে তিন দেশেরই কুকি-চিন-জো-উপজাতি সম্প্রদায়ের সদস্যরা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। জাতিগত একতা ও খ্রিস্টান ধর্মগত ঐক্য তাদেরকে সংঘবদ্ধভাবে একত্রিত করেছে। এদের প্রতি আমেরিকা ও ইউরোপীয় তথা পশ্চিমা খ্রিস্টান জগতের গভীর মনোযোগ, তীব্র সহানুভূতি ও নজরকাড়া সংবেদনশীলতা রয়েছে। আন্তর্জাতিক সংস্থা ও এনজিও’র মাধ্যমে তাদের মধ্যে শিক্ষা ও ধর্ম বিস্তার করা হয়েছে সুপরিকল্পিতভাবে। বলা যায়, বাংলাদেশ, ভারত ও মিয়ানমারের তথা দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের একাধিক উপজাতির মধ্যে এদেরকে যোগ্য ও শক্তিশালীভাবে প্রস্তুত করা হয়েছে, যারা রাজনৈতিকভাবে স্বায়ত্তশাসিত রাজ্যের দাবির পাশাপাশি নিজস্ব দাবি আদায়ে সামরিক দক্ষতা অর্জনেরও প্রমাণ রাখছে।

বিশ্লেষকরা আরও মনে করেন, ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চল হলো বর্তমান বিশ্ব ব্যবস্থায় গুরুত্বপূর্ণ ভূ-রাজনৈতিক এলাকা। কৌশলগত কারণে বিশ্ব শক্তিগুলো এখানে নিজের অবস্থান শক্ত করতে ও আধিপত্য বিস্তারে বিশেষভাবে আগ্রহী। যদি বাংলাদেশ-ভারত-মিয়ানমারের অংশ বিশেষ নিয়ে একটি খ্রিস্টান রাষ্ট্র গঠন করা যায়, তাহলে দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া এবং বঙ্গোপসাগর হয়ে বৃহত্তর ইন্দো-প্যাসিফিকে কর্তৃত্ব করা সহজতর হবে পশ্চিমা শক্তিবর্গের পক্ষে। তারা সেখানে নিজস্ব সমর্থক গোষ্ঠীর সাহায্যে প্রভাব বলয় বিস্তার ও স্বীয় স্বার্থ সুরক্ষিত রাখতে পারবে। ফলে মিয়ানমারের খ্রিস্টান অধ্যুষিত চিন প্রদেশ ও পাশের মিজোরাম, মণিপুর, নাগাল্যাণ্ডের খ্রিস্টান জনগোষ্ঠী এবং বাংলাদেশের কুকি-চিনের এলাকাগুলোর খ্রিস্টান উপজাতিদের নিয়ে বিশ্বের বড় শক্তিগুলোর সুদূরপ্রসারী রাজনৈতিক পরিকল্পনা থাকা অস্বাভাবিক নয়। যেমনভাবে, চীন সজাগ আছে মিয়ানমারের বৌদ্ধ জনগোষ্ঠীকে সাহায্য করার ক্ষেত্রে। অতএব, কুকি-চিন সমস্যাটি বহুমাত্রিক ও বহুস্তরে বিভক্ত, যার সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষাভাবে আঞ্চলিক ও বিশ্ব শক্তিসমূহের স্বার্থগত সংযোগের বিষয়গুলো উড়িয়ে দেয়া যায় না।

মনে রাখা দরকার যে, ঐতিহ্যগতভাবে বাংলাদেশের কুকি, ভারতের মিজো ও মিয়ানমারের চিন উপজাতি নিজেদের একই নৃগোষ্ঠীর সদস্য মনে করে। নৃবিজ্ঞানিরা এই তিন জাতিগোষ্ঠীকে একত্রে ‘জো’ নামে অভিহিত করেন। অতীতের চাকমা জাতীয়তাবাদের মতোই এই ‘জো’ জাতীয়তাবাদও বর্তমানে বেশ আলোচিত। বাংলাদেশে কুকি-জো সম্প্রদায়ের বিভিন্ন শাখা বম, পাংখোয়া, লুসাই, খিয়াং, ম্রো ও খুমি নামে পরিচিত। কেএনএফ সংগঠনটি মূলত বম জনগোষ্ঠী নির্ভর (জনসংখ্যা প্রায় ১৩ হাজার) হলেও তারা পার্বত্য চট্টগ্রামের মূলত খ্রিস্ট ধর্মাবলম্বী ৬টি জাতিগোষ্ঠীর (মোট জনসংখ্যা প্রায় ৪২ হাজার) প্রতিনিধিত্ব দাবি করে। যাহোক, ধর্মীয় ও নৃতাত্ত্বিক সংযোগের জন্যই ভারতের মণিপুর, মিজোরাম ও মিয়ানমারের চিন প্রদেশের ঘটনা প্রবাহ তাদের মধ্যে বৃহত্তর ঐক্য গড়তে এবং পার্বত্য চট্টগ্রামকেও প্রভাবিত করতে পারে এবং এদের সঙ্গে আঞ্চলিক ও বিশ্ব শক্তিগুলোকেও আগ্রহী করতে পারে। কেএনএফের রাজনৈতিক শক্তি ও সশস্ত্র উত্থানের পেছনে বাংলাদেশ ছাড়াও ভারত ও মিয়ানমারের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলোর অনুপ্রেরণা ও সহানুভূতি কতোখানি এবং এদের প্রতি বৈশ্বিক  ‍মুরুব্বিদের পৃষ্ঠপোষকতা কতোখানি,  এসব বিষয়েও মনোযোগ দেয়া অপরিহার্য। বিশেষ করে, এসব সশস্ত্র গোষ্ঠী যদি অকাঠামোগতভাবে তিন দেশে সমর্থন ও বেস তৈরি করতে সক্ষম হয়, তাহলে এরা আঞ্চলিক বিপদের কারণ হবে এবং তিন দেশের প্রতিষ্ঠিত সরকারগুলোকে বিব্রত ও বিপদগ্রস্ত করবে।

আরেকটি বিষয় উল্লেখযোগ্য যে, জনসংহতি ও শান্তিবাহিনী তাদের রাজনৈতিক আন্দোলন ও সশস্ত্র অভিযানের সময় সীমান্তের অপর পাশে কিছু কৌশলগত সহযোগিতা পেলেও বিশেষ কোনো জনসমর্থন পায়নি। কারণ, সীমান্তের পাশের মানুষের ধর্ম ছিল হিন্দু বা খ্রিস্টান। ফলে বৌদ্ধ চাকমা-মারমা-ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর প্রতি তাদের শতভাগ সমর্থন ও সহানুভূতি ছিল না। কুকি-চিনের ক্ষেত্রে বিষয়টি আলাদা। কারণ, কুকি-চিন সীমান্তের অপর পার্শ্বে ভারত বা মিয়ানমারে একই জাতিগোষ্ঠী তথা  জা-জাতির এবং একই ধর্ম গোষ্ঠী তথা খ্রিস্টান জনগোষ্ঠীর অকুণ্ঠ সমর্থন পাচ্ছে বা পাবে। ভূ-রাজনৈতিক কৌশলগত দিক থেকে তারা অত্র অঞ্চলের অপরাপর উপজাতি গোষ্ঠীগুলোর চেয়ে অনেক সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে। তদুপরি, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক পরিসরে তাদের মিত্রের সংখ্যাও কম নয়। ফলে, কেএনএফ-সমস্যাকে ছোটভাবে দেখার অবকাশ নেই। কেবলমাত্র আইনশৃঙ্খলাগত দিক দিয়েই এদের প্রশমিত করা সহজ হবে না। পাহাড়ের সকল রাজনৈতিক নেতৃত্বের দৃঢ় অবস্থান, সামাজিক প্রতিরোধ ও সরকারি-বেসরকারি ঐক্য সশস্ত্র কর্মকাণ্ড প্রতিরোধে সহায়ক ভূমিকা রাখতে পারবে। পাহাড়ি-বাঙালি নির্বিশেষে সকল পার্বত্যবাসীর মধ্যে সশস্ত্র সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে  জোরালো ঐকমত্য সংঘাতের আশঙ্কাকে শান্তির সম্ভাবনায় রূপান্তরিত করতে সক্ষম হতে পারে। উপরন্তু, আঞ্চলিক রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক পন্থাকেও কাজে লাগাতে হবে সশস্ত্র সংঘাত মোকাবিলার কাজে। মোদ্দা কথায়, সামগ্রিক প্রচেষ্টার মাধ্যমে কেএনএফ কর্তৃক সৃষ্ট সমস্যাগুলোকে বিবেচনা করে দেখা দরকার এবং তারই ভিত্তিতে তাদের প্রতিহত ও নির্মূল করার সর্বাত্মক পরিকল্পনা ও কর্মসূচি প্রণীত হওয়া আবশ্যক।  

লেখক: প্রফেসর, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ও নির্বাহী পরিচালক, চট্টগ্রাম সেন্টার ফর রিজিওনাল স্টাডিজ, বাংলাদেশ (সিসিআরএসবিডি)।

নির্বাচিত কলাম থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

নির্বাচিত কলাম সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status