ঢাকা, ২২ মে ২০২৪, বুধবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৩ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিঃ

শেষের পাতা

যুক্তরাষ্ট্রে পোশাক রপ্তানি কমলো

অর্থনৈতিক রিপোর্টার
৯ এপ্রিল ২০২৪, মঙ্গলবার
mzamin

চলতি বছরের প্রথম দুই মাস জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশ ১১৮ কোটি ৬২ লাখ ডলারেরও বেশি পোশাক রপ্তানি করেছে, যা ২০২৩ সালের প্রথম দুই মাসের তুলনায় ১৯.২৪ শতাংশ কম। সম্প্রতি প্রকাশিত যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য বিভাগের অধীন অফিস অব টেক্সটাইলস অ্যান্ড অ্যাপারেলসের (ওটেক্সা) পরিসংখ্যানে এই তথ্য উঠে এসেছে। ওটিইএক্স-এর দেশভিত্তিক পরিসংখ্যানে দেখা যায়, আলোচ্য দুই মাসে প্রতিযোগী দেশগুলোর তুলনায় বাংলাদেশ পিছিয়েছে। একক বাজার হিসেবে বাংলাদেশের তৈরি পোশাকের সবচেয়ে বড় গন্তব্য যুক্তরাষ্ট্র। ২০২৩ সালে যুক্তরাষ্ট্রে পোশাক রপ্তানি কমেছে ২৫ শতাংশ। বাংলাদেশ তৈরি পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সাবেক সভাপতি ফারুক হাসান মনে করেন, আগামী মাসগুলোতে যুক্তরাষ্ট্রে তৈরি পোশাক রপ্তানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকবে। 

পোশাক রপ্তানিকারকরা বলছেন, ব্যবসার খরচ বেড়ে যাওয়া, পোশাকের বৈচিত্র্যহীনতাসহ একাধিক অভ্যন্তরীণ কারণে যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানিতে বাংলাদেশের অংশগ্রহণ কমছে। যদিও যুক্তরাষ্ট্রে পোশাকের চাহিদা বেড়েছে, কিন্তু চীন ও ভিয়েতনামের চেয়ে তুলনামূলক পিছিয়েছে বাংলাদেশ, যা উদ্বেগের। 

করোনা মহামারির সময় যুক্তরাষ্ট্রের ক্রেতারা কম খরচ করায় অনেক পোশাক অবিক্রীত থেকে যায়। ফলে সেখানকার ব্র্যান্ডগুলো গত দুই বছরে বিশ্ব থেকে কম পোশাক আমদানি করে। গত বছরও এমন পরিস্থিতি অব্যাহত ছিল। মহামারির বিপর্যয়ের পর পর রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে মূল্যস্ফীতি বহু দশকের মধ্যে সর্বোচ্চ পৌঁছে যায়।

বিজ্ঞাপন
এটি ক্রেতাদের ক্রয়ক্ষমতা কমিয়ে দেয়। গত বছরের নভেম্বরে বিক্রি বাড়তে শুরু করলে পণ্যের মজুত কমে আসে। এমন পরিস্থিতিতে বাংলাদেশসহ অন্যান্য দেশ থেকে পোশাকের কার্যাদেশ বাড়তে থাকে। ফারুক হাসান বলেন, গত বছর প্রায় প্রতি মাসেই যুক্তরাষ্ট্রে পোশাক রপ্তানি কমেছিল। এ বছর শুরু থেকেই তা বাড়ছে। 

ওটেক্সা’র পরিসংখ্যান অনুযায়ী, চলতি বছরের প্রথম দুই মাসে চীন থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানির অর্থমূল্যে বেড়েছে ০.৪৮ শতাংশ আর পরিমাণে বেড়েছে ১৪.৯৪ শতাংশ। একই সময়ে ভিয়েতনাম থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানির অর্থমূল্যে বেড়েছে ০.১৪ শতাংশ আর পরিমাণে বেড়েছে ৪.৮১ শতাংশ। পরিসংখ্যানে দেখা যায়, ২০২৩ সালের জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানির অর্থমূল্য ছিল ১৪৭ কোটি ডলার। ২০২৪ সালের জানুয়ারি- ফেব্রুয়ারিতে আমদানি হয়েছে ১১৮ কোটি ৬২ লাখ ডলারের কিছু বেশি।

চলতি বছরের প্রথম দুই মাসে বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানির পরিমাণ ছিল ৩৯ কোটি ৫৬ লাখ ৯০ হাজার বর্গমিটার। ২০২৩ সালের প্রথম দুই মাসে আমদানির পরিমাণ ছিল ৪৫ কোটি ৩৭ লাখ ৩০ হাজার বর্গমিটার। দুই মাসে চীন থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানির অর্থমূল্য ছিল ২৫৪ কোটি ডলার। ২০২৩ সালের প্রথম দুই মাসে চীন থেকে যুক্তরাষ্ট্র আমদানি করে ২৫৩ কোটি ডলারের পোশাক। ২০২৪ সালের একই সময়ে ভিয়েতনাম থেকে যুক্তরাষ্ট্রের আমদানি করা পোশাকের অর্থমূল্য ছিল ২৩৬ কোটি ডলার। দেশটি থেকে ২০২৩ সালেও প্রায় একই অর্থমূল্যের পোশাক আমদানি করে যুক্তরাষ্ট্র। গোটা বিশ্ব থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানি ২০২৩ সালের প্রথম দুই মাসের তুলনায় ২০২৪ সালের প্রথম দুই মাসে কমেছে ৭.৭৭ শতাংশ।

ওটেক্সা’র তথ্য অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানির তৃতীয় সর্বোচ্চ উৎস ছিল বাংলাদেশ। মোট আমদানিতে বাংলাদেশের হিস্যা দাঁড়িয়েছে ৯.১২ শতাংশ। চীন ও ভিয়েতনামের অবদান ছিল যথাক্রমে ২১.২৬ ও ১৮.৪৬ শতাংশ। বাংলাদেশের নিট পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানিকারকদের সংগঠন বিকেএমইএ’র সাবেক সভাপতি ফজলুল হক বলেন, বাংলাদেশে ব্যবসার খরচ ক্রমেই বাড়ছে। অন্যদিকে চীন ও ভিয়েতনাম বিশ্ববাজারে নিজেদের অংশীদারিত্ব বাড়াতে পোশাকের কম দাম প্রস্তাব করছে। যুক্তরাষ্ট্রে পোশাকের চাহিদা বৃদ্ধির সুবিধা নিতে বাংলাদেশ ব্যর্থ হচ্ছে। বিষয়টিকে নীতিনির্ধারকদের বিবেচনায় নেয়া উচিত। কারণ বাংলাদেশ যদি যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে অংশীদারিত্ব বাড়াতে ব্যর্থ হয়, তা আবার পুনরুদ্ধার করা কঠিন হবে।
চলতি বছরের প্রথম দুই মাসে কম্বোডিয়া থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানির অর্থমূল্য ছিল ৫৪ কোটি ৫২ লাখ ডলার, ২০২৩ সালের একই সময়ের তুলনায় যা ১৫.৩৪ শতাংশ বেশি। এ ছাড়া ভারত থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানি কমেছে ১৩.৭৫ শতাংশ। ইন্দোনেশিয়া থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানি কমেছে ১৭.২৫ শতাংশ।

 

পাঠকের মতামত

দাদারা কিনবে বটে, কিন্তু ওরা যা কিপটে, পয়সাটা দেবে কে ?

পাঠক
৯ এপ্রিল ২০২৪, মঙ্গলবার, ১২:২৩ অপরাহ্ন

সমস্যা নাই, দাদারা কিনবে। বন্ধু বলে কথা।

BB
৯ এপ্রিল ২০২৪, মঙ্গলবার, ৯:১৮ পূর্বাহ্ন

শেষের পাতা থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

শেষের পাতা সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status