ঢাকা, ১৮ মে ২০২৪, শনিবার, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৯ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিঃ

ভারত

'মায়ের উচ্চাশার বলি রাহুল গান্ধী'

মানবজমিন ডিজিটাল

(১ মাস আগে) ৪ এপ্রিল ২০২৪, বৃহস্পতিবার, ৯:০৯ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ১২:০২ পূর্বাহ্ন

mzamin

‘মায়ের উচ্চাশার বলি রাহুল গান্ধী ও বড্ড একা'। ইন্ডিয়া টুডে টিভির সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে একথা বললেন বলিউড অভিনেত্রী তথা হিমাচল প্রদেশের মান্ডি থেকে বিজেপির লোকসভা প্রার্থী কঙ্গনা রানাউত। কঙ্গনার দাবি, রাহুল গান্ধী এবং তার বোন প্রিয়াঙ্কা উভয়েই সোনিয়া গান্ধীর চাপে পড়ে রাজনীতিতে আসতে বাধ্য হন। অভিনেত্রী ইন্ডিয়া টুডে-কে বলেন -'রাহুল গান্ধী মায়ের উচ্চাশার শিকার। যেমনটি আমরা 'থ্রি ইডিয়টস' ছবিতে দেখেছি, শিশুরা নিজেরাই পরিবারবাদের শিকার হয়। রাহুল গান্ধীর ক্ষেত্রেও একই অবস্থা।   

সোনিয়া গান্ধীর অত্যাচারেই রাহুল ও প্রিয়াঙ্কা দুই ভাইবোনকে রাজনীতিতে আসতে হয়েছে। মায়ের কথা শুনেই টিকে থাকতে হয়েছে রাজনীতির ময়দানে।” ক্যুইন অভিনেত্রীর কথায়, নিজেদের মতো করে জীবন কাটানোর স্বাধীনতা থাকা উচিত ছিল রাহুল-প্রিয়াঙ্কার। কঙ্গনা মনে করেন, ‘৫০ বছরের বেশি বয়স হওয়া সত্ত্বেও, রাহুল গান্ধীকে সর্বদা যুব নেতা হিসাবে "লঞ্চ" করা হয়েছে। আমি অনুভব করি যে তাকে চাপ দেওয়া হয়েছে এবং তিনি খুব একাকী ’।

রাজনীতি না করে অন্য ক্যারিয়ার গড়তে পারতেন রাহুল গান্ধী, এমনটাই মনে করেন বিজেপি প্রার্থী।

বিজ্ঞাপন
তাঁর মতে, “অভিনয়ের চেষ্টাও করতে পারতেন রাহুল। হয়ত ভালো অভিনেতা হতেন। তার মা বিশ্বের অন্যতম ধনী নারী। সম্পদের অভাব নেই। গুজব রয়েছে যে রাহুলের সাথে একজন নারীর সম্পর্ক রয়েছে, কিন্তু তিনি বিয়ে করছেন না। কংগ্রেসকে "ঘোটালেবাজো কি দল" (দুর্নীতিবাজের দল) বলে অভিহিত করেছেন রানাউত।   

এদিন তাঁর মুখে নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর প্রশংসাও শোনা যায়। বিজেপির নব্য নেত্রীর কথায় - 'আমি ২০ বছর ধরে ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে রয়েছি এবং আমার জীবন বিলাসবহুল। আমি নিজেকে একজন নেতা (রাজনীতিবিদ) হিসাবে দেখি না। আমি জনগণের সেবা করার জন্য বিজেপিতে এসেছি।"

সূত্র : ইন্ডিয়া টুডে

ভারত থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

ভারত সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status