ঢাকা, ২৫ মে ২০২৪, শনিবার, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৬ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিঃ

বাংলারজমিন

যমুনার বুকে দৃশ্যমান বঙ্গবন্ধু রেল সেতু, ৬২ ভাগ কাজ সম্পন্ন

কামাল হোসেন, ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) থেকে

(১১ মাস আগে) ৫ জুন ২০২৩, সোমবার, ৩:৩০ অপরাহ্ন

টাঙ্গাইলে যমুনার বুকে দৃশ্যমান হয়ে উঠেছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতু। বর্তমানে সেতুর ৬২ ভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। ১৬ হাজার ৭৮০ কোটি ৯৬ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন এ রেল সেতুর দৈর্ঘ্য ৪ দশমিক ৮০ কিলোমিটার। এই রেল সেতুতে দেশি-বিদেশি প্রায় সাড়ে ৪ হাজার শ্রমিকের নিরলস শ্রম ও ঘামে দৃশ্যমান হয়ে উঠেছে রেল যোগাযোগের বৃহৎ এই রেল সেতু।

প্রকল্প সূত্রে জানা যায়, বঙ্গবন্ধু রেল সেতুর কাজ শেষ হওয়ার কথা ২০২৪ সালের আগস্ট মাসে। তবে ৩ থেকে ৪ মাস অতিরিক্ত মেয়াদ বৃদ্ধির সম্ভাবনা রয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলসেতুটি হবে সমান্তরাল ডুয়েল গেজ ডাবল ট্র্যাকে। দুই পাশে নির্মাণ করা হবে শূন্য দশমিক শূন্য ৫ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট। ৭ দশমিক ৬৭ কিলোমিটার রেলওয়ে অ্যাপ্রোচ এমব্যাংকমেন্ট এবং লুপ, সাইডিংসহ মোট ৩০ দশমিক ৭৩ কিলোমিটার সংযোগ রেললাইন। প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়নে করছে জাপানের ২টি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর অংশে ৫০ থেকে ২৪ নম্বর পিলার পর্যন্ত রেলসেতু নির্মাণ করছে।

বিজ্ঞাপন
সিরাজগঞ্জ অংশের ১ নম্বর পিলার থেকে ২৩ নম্বর পিলার পর্যন্ত কাজ করছে জাপানি আইএইচআই, এসএমসিসি নামের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। ইতিমধ্যে টাঙ্গাইল অংশে দেড় কিলোমিটার ওপরে দৃশ্যমান হয়েছে সেতু।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের একাধিক প্রকৌশলীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বঙ্গবন্ধু রেল সেতু নির্মাণে জাপান, ভিয়েতনাম, নেপাল, অস্ট্রেলিয়া, ফিলিপাইন ও বাংলাদেশের কর্মীরা কাজ করছেন। ১০৩ জন বিদেশি প্রকৌশলীসহ দেশি-বিদেশি মিলিয়ে ৭০০ জনের বেশি প্রকৌশলী কাজ করছেন।
নির্মাণ শ্রমিকরা জানান, দেশের এতবড় মেগা প্রকল্পে কাজ করতে গিয়ে নিজেদের গর্বিত মনে করছি। এছাড়া সকল ধরণের সর্বোচ্চ সুযোগ-সুবিধাও পাচ্ছেন তারা।
সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, দেশি-বিদেশি প্রকৌশলী ও নির্মাণ শ্রমিকরা সেফটি ফার্স্টের আওতায় কাজ করছেন। এরমধ্যে কেউ বালু দিয়ে জিও ব্যাগ ভর্তি করছেন, কেউ ক্রেন দিয়ে সেতুর নির্মাণ সামগ্রী ওঠা-নামা করছেন, কেউ রেললাইনে পাথর ফেলে সমান করছে, কেউ নাট-বল্টু টাইট দিচ্ছেন, কেউ স্পিড বোট দিয়ে নির্মাণ শ্রমিকদের স্থলভাগ থেকে আনা-নেওয়া করছে। সবমিলিয়ে রেল সেতু নির্মাণে এক বিশাল কর্মযজ্ঞ চলছে।
নেপালি প্রকৌশলী অমৃত তার অনুভূতি প্রকাশ করে বলেন, কাতার, ওমান, নেপালসহ বিভিন্ন দেশে কাজ করেছি। কিন্তু বাংলাদেশের এই বৃহৎ রেল সেতু নির্মাণ কাজ করে ইতিহাসের একটি অংশ হতে চলেছি। এছাড়া বাংলাদেশের মানুষের সাথে কাজ করতে পেরে খুশি ও আনন্দিত। ইতিমধ্যে টাঙ্গাইল অংশে ৫০ থেকে ৩৪ নম্বর পিলার পর্যন্ত স্পেন বসানো শেষ। ৩৪ থেকে ২৪ নম্বর পিলারের দিকে স্প্যান বসানোর কার্যক্রমও চলছে।

প্রকল্প সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এ সেতু নির্মিত হলে উত্তরাঞ্চলের ট্রেন চলাচল ও পণ্য পরিবহন সহজ হবে। এর ওপর দিয়ে চলবে ৪৪ জোড়া মানে ৮৮টি ট্রেন। সাধারণ ছাড়াও দ্রুত গতির (হাইস্পিড) ট্রেন চলাচলে সক্ষম করে সেতু নির্মাণ করা হচ্ছে। ফলে সেতুতে ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ২৫০ কিলোমিটার গতিতে ট্রেন চালানো যাবে। তবে শুরুতে (উদ্বোধনের পর ১ বছর) ঘণ্টায় ১০০-১২০ কিলোমিটার গতিতে ট্রেন চলাচল করবে।

এ ব্যাপারে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতু প্রকল্প পরিচালক ফাত্তাহ আল মো. মাসুদুর রহমান বলেন, সেতুর টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরের পূর্ব অংশের সংযোগ রেললাইন নির্মাণের কাজও শেষের দিকে। পশ্চিম অংশে আগে সংযোগ রেললাইনের কাজ দ্রুতগতিতে হচ্ছে। শত বছর পরও এই রেল সেতুর তেমন ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা নেই। এ পর্যন্ত ৬২ ভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই বাকি কাজ সম্পন্ন করার চেষ্টা করে যাচ্ছি।

 

 

বাংলারজমিন থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

বাংলারজমিন সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status