ঢাকা, ২৮ মে ২০২৪, মঙ্গলবার, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৯ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিঃ

শেষের পাতা

ইমরান খানকে ফিরে যেতে বললেন বিচারক, শুনানির তারিখ পরে

মানবজমিন ডেস্ক
১৯ মার্চ ২০২৩, রবিবার
mzamin

তোশাখানা মামলায় আদালতে হাজির হতে গিয়েও পারলেন না পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। কিন্তু বিশৃঙ্খল এক অবস্থায় তিনি আদালতে উপস্থিত হতে পারলেন না। বিচারক তাকে তার গাড়ির ভেতর থেকে উপস্থিতি নিশ্চিত করে ফিরে যাওয়ার নির্দেশ দেন। ইসলামাবাদে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ জাফর ইকবাল এ নির্দেশ দেন। ইমরান খান শনিবার লাহোরে জামান পার্কের বাসা থেকে ইসলামাবাদের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়ার পর তার বাড়িতে পুলিশ তল্লাশি অভিযান চালায়। এ সময় একে-৪৭ রাইফেল সহ   গোলাবারুদ, হাতবোমা তৈরির সরঞ্জামসহ বেশ কিছু জিনিস উদ্ধারের দাবি করেছে পুলিশ। ওদিকে ইমরান খান প্রায় ৫ ঘণ্টার পথ পাড়ি দিয়ে ইসলামাবাদ আদালতের কাছে উপস্থিত হন গাড়িবহর নিয়ে। সেখানে এক ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি হয়। তার সমর্থকরা পথ আটকে ধরেন। তারা ইমরানকে আদালতে উপস্থিত হতে দেবেন না।

বিজ্ঞাপন
এক পর্যায়ে তারা আদালত ভবনের দিকে ইটপাটকেল ছুড়তে থাকেন। জবাবে পুলিশ তাদের ওপর ভারী কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে। এর ফলে আদালত ভবন কাঁদানে গ্যাসে আচ্ছন্ন হয়ে পড়ে। এমন অবস্থায় বিচারক বলেছেন, পরিস্থিতি যা, তাতে এই মামলার শুনানি এবং কার্যক্রম চালানো সম্ভব না। কোনো গোলা বা ইটপাথর নিক্ষেপের প্রয়োজন নেই। কারণ, শনিবার শুনানি হচ্ছে না। তিনি আরও বলেন, পিটিআই চেয়ারম্যান ইমরান খানের স্বাক্ষর পাওয়ার পর আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে পরে আবার কবে ইমরান খানকে আদালতে হাজিরা দিতে হবে। 
ঘটনাস্থল থেকে সাংবাদিকরা জানান, সত্যিই কাঁদানে গ্যাসে আদালত ভবনের ভেতরে যারা ছিলেন, তাদের অবস্থা শোচনীয়। ভবনটির জানালা ভেঙে গেছে। এর আগে যখন গাড়িবহর নিয়ে ইমরান খান ইসলামাবাদ জুডিশিয়াল কমপ্লেক্সে উপস্থিত হন, তখন তিনি অভিযোগ করেন- তাকে আদালত চত্বরে প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না। তিনি মিডিয়ার কাছে একটি অডিও বার্তা পৌঁছে দেন। বলেন, ১৫ মিনিট ধরে আদালত ভবনের দরজার বাইরে অপেক্ষা করছি। প্রবেশের চেষ্টা করছি। কিন্তু তারা কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করেছে। চেকপয়েন্ট বসিয়েছে। দেখে মনে হচ্ছে আমি আদালতে প্রবেশ করি, তারা তা চায় না। তিনি আরও জানান, আদালতের বাইরে অপেক্ষা এবং ভেতরে প্রবেশের চেষ্টা করছেন। ডন নিউজ টিভির তথ্য মতে, ইমরান খানের সঙ্গে ছিলেন বিপুল সংখ্যক দলীয় নেতাকর্মী। তারা তাকে নিয়ে আদালত চত্বরে প্রবেশের চেষ্টা করছিলেন। কিন্তু নিরাপত্তার কারণে তাদেরকে  ভেতরে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। 

তোষাখানা বা রাষ্ট্রীয় সম্পদ তিনি উপহার হিসেবে বিদেশ থেকে যা পেয়েছেন, সে সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য দিতে পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশন ইমরানের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিয়েছে। সেই মামলায় শনিবার আদালতে উপস্থিত হওয়ার কথা ছিল তার। তিনি গিয়েছিলেনও। স্থানীয় সময় সকাল ৮টার সামান্য পরে তিনি জামান পার্কের বাড়ি থেকে বের হন। ভিডিও বার্তা দিয়ে সতর্কতা জানান দেন। বলেন, মনে করছেন তাকে গ্রেপ্তার করা হতে পারে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত তিনি আদালতে প্রবেশ করতে পারেননি। তবে ইসলামাবাদ পুলিশ টুইটে বলেছে, ইমরানের গাড়িবহর জুডিশিয়াল কমপ্লেক্সের ঠিক সামনে রয়েছে। তার দলের নেতাকর্মীদের প্রতি অনুরোধ জানানো হয়েছে পথ ফাঁকা করে দিতে, যাতে ইমরান আদালতে পৌঁছাতে পারেন। কিন্তু দীর্ঘ সময়েও ইমরান খান আদালতে উপস্থিত হতে না পারায় তাকে ছাড়াই বিচারক জাফর ইকবাল শুনানি শুরু করেন। 

ওদিকে শনিবার দিনের শুরুতে পাঞ্জাব পুলিশের বিশাল এক বহর জামান পার্কের বাড়িতে অভিযান চালায়। এ সময় তারা শক্তি প্রয়োগ করে ওই বাড়ির প্রধান ফটক খুলে ফেলে। বেশ কিছু অবকাঠামো নষ্ট করে। ব্যারিকেড নষ্ট করে। একে লন্ডন পরিকল্পনা বলে অভিযোগ করেন ইমরান খান। তিনি বলেন, বাড়িতে শুধু আমার স্ত্রী বুশরা বেগম একা উপস্থিত। এ অবস্থায় আমার বাড়িতে তাকে অবমাননা করেছে পাঞ্জাব পুলিশ। তারা কোন আইনের অধীনে এটা করছে। এটা হলো লন্ডন পরিকল্পনার অংশ। এই পরিকল্পনায় পলাতক নওয়াজ শরীফকে ক্ষমতায় আনার প্রতিশ্রুতি আছে। 

ইমরান খান যখন ইসলামাবাদে তখন তার অনুপস্থিতিতেই লাহোরে জামান পার্কে তার বাসভবনে তল্লাশি চালিয়ে পুলিশ দাবি করেছে, ওই বাসভবন থেকে একে-৪৭সহ অ্যাসল্ট রাইফেল, এক কেস বুলেট উদ্ধার করেছে। আইনপ্রয়োগকারীদের বিরুদ্ধে সহিংস প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির অভিযোগে গ্রেপ্তার করেছে  দলীয় কমপক্ষে ৬০ নেতাকর্মীকে। শনিবার তোষাখানা মামলার শুনানিতে ইসলামাবাদ রওনা হন ইমরান খান। এরপরই পাঞ্জাব পুলিশ জোর করে তার বাসভবনে প্রবেশ করে। ইমরান খানের বাসভবনের বাইরে ‘নিরাপত্তা ক্যাম্প’ স্থাপন করেছিলেন দলীয় নেতাকর্মীরা। তা পরিষ্কার করতে পুলিশ সকালে ইমরানের বাসভবনে অভিযান চালায়। এর আগে এক ঘোষণায় পুলিশ বলে, সেখানে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। সবাইকে অনুগ্রহ করে সরে যেতে বলা হয়। টেলিভিশন ফুটেজে দেখা যায়, ইমরান খানের বাসায় লোহার গেট পুলিশ ভেঙে দিচ্ছে। এক পর্যায়ে তারা পিটিআইয়ের বেশ কিছু নেতাকর্মীকে তাদের হেফাজতে নিয়েছে। আইন প্রয়োগকারীরা অভিযোগ করেন, তাদের দিকে গুলি করা হয়েছে। ইমরান খানের বাড়ির  ভেতর থেকে হাতবোমা ছোড়া হয়েছে। ওদিকে জামান পার্কে অভিযান চালানো নিয়ে প্রশাসনের সঙ্গে পিটিআইয়ের শুক্রবার একটি চুক্তি হয়। এরপরই শনিবার জামান পার্কে মোতায়েন করা হয় এক কন্টিনজেন্ট পুলিশ। তারও আগে ইমরানের বাসভবনের ভেতরে তল্লাশি অভিযান চালানোর অনুমোদন দেয় সন্ত্রাসবিরোধী একটি আদালত। অভিযান চালিয়ে পুলিশ ওই বাড়িতে হাতবোমা তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধারেরও দাবি করেছে। সংবাদ সম্মেলনে পাঞ্জাব পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল উসমান আনোয়ার বলেছেন, তল্লাশি শেষ করেছে পুলিশ। জামান পার্কে অপারেশন সম্পন্ন হয়েছে। তারা একে-৪৭ উদ্ধার করেছেন। পাওয়া গেছে ৫টি কালাশনিকভ। এসব অস্ত্রের আইনগত অবস্থা মূল্যায়ন করা হচ্ছে। তল্লাশি চালানোর আগে ওই পার্ক এলাকার চারদিক শিপিং কন্টেইনার দিয়ে ব্লক করে দেয়া হয়।

শেষের পাতা থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

শেষের পাতা সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status