ঢাকা, ২৩ জুন ২০২৪, রবিবার, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৬ জিলহজ্জ ১৪৪৫ হিঃ

শেষের পাতা

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় জবি শিক্ষার্থী তিথির কারাদণ্ড

স্টাফ রিপোর্টার
১৪ মে ২০২৪, মঙ্গলবারmzamin

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) বহিষ্কৃত শিক্ষার্থী তিথি সরকারকে পাঁচ বছর কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। তবে এক বছরের জন্য তাকে প্রবেশনে রাখা হবে। সোমবার ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহাম্মদ আসসামছ জগলুল হোসেন এ রায় দেন। ট্রাইব্যুনালের স্টেনোগ্রাফার মামুন শিকদার বলেন, আসামি তিথি সরকার দোষ স্বীকার করে প্রবেশনে দেয়ার জন্য আদালতের কাছে আবেদন করেন। আদালত তার আবেদন মঞ্জুর করে এক বছরের জন্য প্রবেশনে দেয়ার সিদ্ধান্ত দেন। তিথি সরকারকে প্রবেশনে দেয়ার আদেশে বলা হয়েছে, ট্রাইব্যুনাল একজন প্রবেশন কর্মকর্তার অধীনে তিথি সরকার এক বছর নিজ বাড়িতে প্রবেশনে থাকবেন। এই সময়ে তাকে আদালতের দেয়া আটটি শর্ত পালন করতে হবে এবং একজন প্রবেশন কর্মকর্তা তার তত্ত্বাবধান করবেন। প্রবেশন অফিস তিথি সরকারের বিষয়ে সন্তোষজনক প্রতিবেদন দিলে আদালত তার শাস্তি পুনর্বিবেচনা করবেন। ২০২০ সালের ২রা নভেম্বর নিরঞ্জনসহ অজ্ঞাত আরও কয়েকজনের বিরুদ্ধে পল্টন থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা হয়।

 মামলার অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ২০২০ সালের ৩১শে অক্টোবর সিআইডি’র সাইবার মনিটরিং টিম দেখতে পায়, সিআইডি’র মালিবাগ কার্যালয়ের চারতলা থেকে তিথি সরকারকে ‘হাত-পা বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে’ বলে একটি মিথ্যা পোস্ট সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শেয়ার করা হয়। সে সময় এটি ব্যাপক আলোড়ন তোলে।

বিজ্ঞাপন
প্রকৃতপক্ষে সিআইডিতে এ রকম কোনো ঘটনা ঘটেনি। এ ঘটনার তদন্তে নেমে গুজব রটনাকারী নিরঞ্জন বড়াল নামের একজনকে রামপুরার বনশ্রী এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। নিরঞ্জনসহ অজ্ঞাত আরও কয়েকজনের বিরুদ্ধে একই বছর ২রা নভেম্বর পল্টন থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা হয়। ২০২১ সালের ১৯শে মে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডি পুলিশের উপ-পরিদর্শক মেহেদী হাসান তাদের দু’জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করেন। 

একই বছরের ৪ঠা নভেম্বর ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক আসসামছ জগলুল হোসেন তিথির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। অন্যদিকে তিথি সরকারের স্বামী শিপলু মল্লিককে মামলা থেকে অব্যাহতি দেন। জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে ফেসবুকে ও বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ধর্ম বিরূপ মন্তব্য করে আসছিলেন তিথি সরকার। পরে ধর্ম অবমাননার অভিযোগে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংগঠন ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা তিথি সরকারের বহিষ্কার দাবিতে মানববন্ধন এবং প্রতিবাদ সমাবেশ করেন। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে তিথিকে সাময়িক বহিষ্কার করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। সে সময় তার পরিবার থেকে অভিযোগ করা হয়েছিল তিনি নিখোঁজ। এরপর ২০২০ সালের ১১ই নভেম্বর নরসিংদীতে তিথির স্বামী শিপলু মল্লিকের দূর-সম্পর্কীয় চাচা দেবাশীষ রায়ের বাসা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

পাঠকের মতামত

আর খাদিজাতুল কুবরার বিরুদ্ধে রায় হবার আগে তাকে কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি কারাগারে ১ বছরের বেশি সময় কাটাতে হয়।

ইমন
১৫ মে ২০২৪, বুধবার, ৫:২২ অপরাহ্ন

শেষের পাতা থেকে আরও পড়ুন

   

শেষের পাতা সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status