ঢাকা, ২৩ জুলাই ২০২৪, মঙ্গলবার, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৬ মহরম ১৪৪৬ হিঃ

খেলা

অজানা রোগে আক্রান্ত টাইগারদের ব্যাটিং জানেন না শান্ত, তাহলে জানে কে!

ইশতিয়াক পারভেজ অ্যান্টিগা (ওয়েস্ট ইন্ডিজ) থেকে
২২ জুন ২০২৪, শনিবারmzamin

‘আমরা মনে হয় একটু বেশি আশা করে ফেলেছিলাম। মাঠে ওরা যেভাবে খেললো দেখে মনে হয়েছে যা পাওয়ার তা হয়ে গেছে এবার বাড়ি যাই’- যুক্তরাষ্ট্র থেকে অ্যান্টিগায় বাংলাদেশের খেলা দেখতে আসা এক ভক্ত এই ভাবেই আক্ষেপ ঝাড়লেন। চোখে মুখে যতটা না হতাশা তারচেয়ে বেশি রাগ-অভিমান। অস্ট্রেলিয়ার মতো বড় দলের বিপক্ষে হেরেছে তা নিয়ে ভাবনা নেই। অভিযোগটা শুধু টাইগারদের ঝিমিয়ে পড়া শরীরী ভাষা নিয়ে। দারুণ ব্যাটিং উইকেটে দলের দুই ওপেনার যা করলেন তা ক্ষমার অযোগ্য। দিনের মাত্র তৃতীয় বলে আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন তানজিদ হাসান তামিম। এরপর অ্যাডাম জ্যাম্পার বলে বোল্ড হন অপর ওপেনার লিটন কুমার দাস। ২ চারে ১৬ রান করতে ২৫ বল খেলেন তিনি। যেখানে দৃষ্টিকটু ডট বলের ছড়াছড়ি।

বিজ্ঞাপন
দলের সিনিয়র ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান যেভাবে আউট হলেন তাতে মনে হয়েছে বাড়ি ফেরার খুব তাড়া। যা অর্জন হয়েছে তাতেই যথেষ্ট। শেষ পর্যন্ত অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্তর ৪১, আর তাওহীদ হৃদয়ের ৪০ রানে ভর করে দলের স্কোর ১৪০ স্পর্শ করে। জবাবে ১১.২ ওভারে মাত্র ২ উইকেট হারিয়ে অস্ট্রেলিয়া সংগ্রহ ১০০ রান। তখনই বৃষ্টিতে থেমে যায় খেলা। শেষ পর্যন্ত বৃষ্টি আইনে ২৮ রানে হার বাংলাদেশের। প্রশ্ন হচ্ছে কত হলে জিততো বাংলাদেশ! টাইগার অধিনায়ক অবশ্য বলেছেন ১৭০! ম্যাচ শেষে শান্ত বলেন, ‘আমার মতে, উইকেট খুব খুব ভালো। কিছুটা মন্থর। তবে আমাদের অন্তত ১৭০ রান করা উচিত ছিল। আমাদের এটাই মনে হয়েছে।’ তবে এমন ব্যাটিংয়ের কারণ জানেন না টাইগার অধিনায়ক নিজেও! এ যেন অজানা রোগ।
ক্যারিবিয়ান দ্বীপগুলোতে জীবনধারণ মোটেও সহজ নয়। বিশেষ করে বাইরে থেকে সাধারণ মানুষ যারা আসেন তাদের জন্য। মিলিয়নিয়ার, বিলিয়নিয়াররা এখানে এসে হিমশিম খান লম্বা সময় থাকতে। সেখানে দেশ থেকে ১৬ হাজার কিলোমিটার দূরে ছুটে এসেছেন বেশ কয়েকজন দর্শক। কানাডা আর যুক্তরাষ্ট্র কিছুটা কাছে হওয়াতে সেখান থেকেও বেশ কয়েকজন ভক্ত এসেছেন অ্যান্টিগায়। সুপার এইটে ওঠা দলকে সমর্থন জানাতে হবে, তাদের পাশে থাকতে হবে সেই চিন্তা থেকে পকেটের টাকার কথাও ভাবেননি তারা। দফায় দফায় বৃষ্টিতে খোলা গ্যালারিতে ভিজে ভিজে ‘বাংলাদেশ বাংলাদেশ’ স্লোগানে দলকে সমর্থন জানিয়ে গেছেন। কিন্তু তাদের এমন আবেগ ভালবাসাতেও যেন লিটন দাস, তানজিদ তামিম, সাকিব আল হাসানদের ব্যাটিংয়ের ঘুম ভাঙেনি। অন্যদের ব্যর্থতার দিনে তিন নম্বরে নেমে শান্ত খেলেন ৩৬ বলে ৪১ রানের ইনিংস। দ্বিতীয় উইকেটে লিটনের সঙ্গে গড়েন ৫৮ রানের জুটি। আর পাঁচে নামা তাওহিদ হৃদয়ের ব্যাট থেকে আসে ২৮ বলে ৪০ রান। ম্যাচ হারলেও ব্যাটিংয়ের এসব ছোট ছোট বিষয়ে উন্নতি দেখেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। তিনি বলেন, ‘আজ টপ-অর্ডারের সবাই রান পেয়েছে, এটি গুরুত্বপূর্ণ ছিল। গত কয়েক দিনে আমরা এই জায়গায় ভুগছিলাম। তো আজকে আমরা ভালো শুরু পেয়েছি। বোলিং বিভাগ সবশেষ ২-৩ সিরিজ ধরে খুব ভালো করছে। এই বিশ্বকাপেও তারা ভালো করেছে। আমি আশা করি তারা এই ছন্দ ধরে রাখবে এবং ভারতের বিপক্ষে আমরা ভালো ম্যাচ খেলব।’ তার মানে অধিনায়ক ফের দলের ব্যর্থদের পাশে দাঁড়ালেন।
চলতি বিশ^কাপের প্রতিটি ম্যাচে ব্যাট হাতে ব্যর্থতা এখন ধারাবাহিক বিষয় হয়ে গেছে। নেপালের বিপক্ষে সুপার এইটে ওঠার ম্যাচে সংগ্রহ ছিল মাত্র ১০৬ রান। এমন পুঁজি নিয়েও বোলাররা জয় এনে দিয়েছে। সব মিলিয়ে ৫ ম্যাচের ৪টিতেই দলের সংগ্রহ ১৫০-এর নিচে।  গেল এক বছর ধরেই দলকে ভোগাচ্ছে টপ অর্ডার। বিশ্বকাপেও তার ব্যতিক্রম নয়। কিন্তু কেন পারছেন না ব্যাটাররা! প্রায় প্রতিটি সংবাদ সম্মেলনেই শান্ত বলেছেন এই কারণ জানা নেই। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হারের পরও তার একই বক্তব্য। তিনি বলেন,  ‘কেন পারছি না (ভালো খেলতে) এটা বলা মুশকিল। আমার মনে হয় সবার ওই সামর্থ্য আছে। সবাই অতীতে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন জায়গায় করে দেখিয়েছে। কিন্তু কেন হচ্ছে না এ প্রশ্নের উত্তর আমার কাছেও নাই। সবাইকে ওই স্বাধীনতাটা দেওয়া আছে যে যার যে ন্যাচারাল খেলাটা খেলার চেষ্টা করবে। কিন্তু কোনো কারণে হচ্ছে না।’ ব্যর্থতার কারণটা জানা নেই শান্তর, যে কারণে হয়তো সমাধানও খুঁজে পাচ্ছেন না। কিন্ত প্রশ্ন হচ্ছে তাহলে সমস্যাটা জানে কে! সেটি না জানলে সমাধানই বা হবে কী করে?

 

 

 

 

খেলা থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

খেলা সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status