ঢাকা, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, বৃহস্পতিবার, ১২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ শাওয়াল ১৪৪৫ হিঃ

অনলাইন

প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম উৎপাদনে বাংলাদেশকে সহায়তায় দিবে ভারত

কূটনৈতিক রিপোর্টার

(২ মাস আগে) ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বুধবার, ৬:৫৪ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ১২:০৮ পূর্বাহ্ন

mzamin

 দুই দেশের মধ্যকার প্রতিরক্ষা সহযোগিতা পরবর্তী ধাপে উন্নীত করতে যৌথ উদ্যোগে প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম উৎপাদনের প্রস্তাব আলোচনার টেবিলে তুললেন  ঢাকায় নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার প্রণয় ভার্মা। মঙ্গলবার ঢাকায় ‘ভারতীয় প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম’ বিষয়ে এক সেমিনারে তিনি বলেন, প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম উৎপাদনের সক্ষমতার বিস্তৃত দিকগুলো বাংলাদেশের সঙ্গে ভাগাভাগি করে নিতে আগ্রহী ভারত, যার মধ্যে সবচেয়ে অত্যাধুনিক প্রযুক্তিও রয়েছে। হাই কমিশনের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম উৎপাদন খাতে যৌথ উদ্যোগ গড়ে তোলার মাধ্যমে দ্বিপক্ষীয় প্রতিরক্ষা সহযোগিতাকে ‘পরবর্তী স্তরে’ উন্নীত করার কথা বলেন হাইকমিশনার। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ এবং ‘মেক ফর দ্য ওয়ার্ল্ড’ দর্শনে গত এক দশক ধরে পরিচালিত ভারতীয় প্রতিরক্ষাশিল্পের অগ্রগতির বিভিন্ন দিক সেমিনারে তুলে ধরেন প্রণয় ভার্মা। তিনি বলেন, ওই দর্শনে পরিচালিত হওয়ায় ভারতীয় প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম উৎপাদন খাতে বিপুল বিনিয়োগ আকর্ষণের পাশাপাশি প্রতিরক্ষা রপ্তানিও বাড়িয়েছে।
ঢাকায় ভারতীয় হাইকমিশন আয়োজিত এই সেমিনারকে বাংলাদেশের সঙ্গে অংশীদারত্ব গড়ে তুলতে ভারতের প্রতিরক্ষাশিল্পের আগ্রহের প্রতিফলন এবং ভারত-বাংলাদেশ প্রতিরক্ষা সহযোগিতাকে পরবর্তী স্তরে নিয়ে যাওয়ার একটি নিদর্শন হিসেবে উল্লেখ করেন প্রণয় ভার্মা। তিনি বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের ৫০ কোটি ডলারের প্রতিরক্ষা ঋণচুক্তির বিষয়টিও প্রতিরক্ষা সহযোগিতাকে পরবর্তী ধাপে এগিয়ে নেওয়ার অংশ।

পাঠকের মতামত

আরো অনেক খবরের অপেক্ষা করতে হবে। এই অস্ত্র দিয়ে কার সাথে যুদ্ধ করবে বাংলাদেশ ? ধন্যবাদ।

SM. Rafiqul Islam
২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বৃহস্পতিবার, ৩:৩৭ পূর্বাহ্ন

Anyone but India!!

Kazi
২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বুধবার, ১০:৩১ পূর্বাহ্ন

no need.india out.

Golam kibria
২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বুধবার, ৯:৪৩ পূর্বাহ্ন

We don't need any support or technology from India because they are NOT friend of Bangladesh or its peoples.

Yousuf Ali
২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বুধবার, ২:৩০ পূর্বাহ্ন

No need. # India out.

Kirum
২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বুধবার, ২:০১ পূর্বাহ্ন

যাও একটু প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ছিল এবার সেটাও ধ্বংস করবে ভারত ! জয়বাংলা......জয় হিন্দ !

ক্ষুদিরাম
২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ১১:৩২ অপরাহ্ন

No need at all to do such agreement because India will capture our defense policy. On other hand Indian Arms are very poor quality but will take take 4/5 times more price than the market price. So Bangladesh will loose in all corners seriously.

Imtiaz
২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ১১:০৪ অপরাহ্ন

এক প্রতিবেশী আরেক প্রতিবেশী দেশ থেকে তার প্রতিরক্ষার জন্য অস্ত্র কিনে এমন কোন আছে কিনা আমার জানা নেই। তবে যদি ক্রেতাদেশ বিক্রেতা দেশের করদ রাজ্য না হয়ে থাকে। আমাদের বিজিবির কর্মকর্তারা চড়ে টাটা সুমো এসইউভিতে।

Abul Kashem chowdhur
২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ১০:৪৪ অপরাহ্ন

দরকার নাই।

হাসান
২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ১০:৪১ অপরাহ্ন

ওরা বাংলাদেশ শিক্ষা সামাজিক অর্থনীতিক বাবস্থাকে দুর্বল করে রেখেছে এখন তারা উঠে পড়ে লেগেছে পতিরক্ষা ব্যবস্তা দংশ করে দিতে, কারন ভারতীয়দের সাথে প্রতিবেশী কেউ নেই ! ওরা নেপাল শ্রীলংকা মালদ্বীপ ভুটান আপগানিস্থান থেকে বিতাড়িত হয়েছে এখন শুদু বেছে আছে বাংলাদেশে আও্যামিলিগের সাথে পুরা দেশ ও জাতী তাদের গ্রিনা করে। আশা নয় বিশ্বাস আছে আমাদের পতিরক্ষা বাহিনী সেই শুজুগ দিবেনা ইনশাল্লাহ।

Imran
২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ১০:০১ অপরাহ্ন

সুদূর প্রসারী ষড়যন্ত্র। এতে কোন সন্দেহ নেই। ভারত কখনোই তাদের স্বার্থের বাহিরে চিন্তা করে না। ডাল মে কুচ কালা হায়।

Rafiqul Islam
২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ৯:৫৪ অপরাহ্ন

তাই নাকি? সন্দেহ প্রতিষ্ঠিত হয় এই কারণে কেন হিন্দু স্থান সরকার আমাদের সরকারকে টিকিয়ে রাখার জন্য এতো ব্যাকুল।

আশরাফ
২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ৯:১৩ অপরাহ্ন

তাই নাকি? তা বাংলাদেশকে কি পরিমান ব্যয় করতে হবে? বর্তমান বাজার দরের সমান নাকি এর থেকে ৫-৭ গুন বেশি? যেমনটা রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র, আদানির সাথে চুক্তি ও অন্যান্য ক্ষেত্রে হয়েছে।

AA
২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ৮:২৮ অপরাহ্ন

বাহ্ চমৎকার!

Nur Abser
২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ৭:৫১ অপরাহ্ন

বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম এর প্রয়োজনীয়তা রয়েছে কি? আমাদের বৃহৎ প্রতিবেশী ভারত । ভারতের তুলনায় অত্যন্ত ছোট একটি সীমান্ত রয়েছে মিয়ানমারের সঙ্গে । শুনেছি আর্মিতে এক সময় ট্রেনিং দেওয়ার সময় ভারতকে কল্পিত প্রতিপক্ষ হিসেবে রাখা হতো। এখন ভারতের সাথে সুসম্পর্কের কারনে সেই পদ্ধতি বিলুপ্ত হয়েছে। ভারতের সাথে সম্পর্ক আমাদের স্বামী স্ত্রী বা রক্তের সম্পর্কের মতই। সুতরাং বৈদেশিক কোনো থ্রেট আমাদের জন্য নাই। তাই প্রতিরক্ষা খাতে এক টাকা ব্যয় করার অর্থ হচ্ছে অপচয় করা। আমাদের দাদাদের স্বার্থে প্রতিরক্ষা সামগ্রী ক্রয় করে তাদের বাজার বৃদ্ধিতে সহায়তা করার মহৎ মানসিকতা থাকলে ভিন্ন কথা। ভারতকে সহযোগিতা করতে আমরা অর্থনৈতিকভাবে,নৈতিকভাবে ,কৌশলগতভাবে ,রাজনৈতিকভাবে এবং আঞ্চলিকভাবে কার্যত বাধ্য। কারণ দাদাদের সাথে আমাদের রক্তের সম্পর্ক স্বামী স্ত্রীর সম্পর্ক...!!!

আদিল
২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ৭:৪৫ অপরাহ্ন

ভারত মান্ধাতা আমলের অস্ত্র তৈরি করতে জানে । দুনিয়া অনেক এগিয়েছে । আধুনিক অস্ত্র নিজের বুদ্ধি ও দক্ষতা দিয়ে তৈরী করে প্রতিযোগিতায় এগিয়ে থাকতে হবে । যদি ভারত আধুনিক অস্ত্র তৈরিতে দক্ষ হত তাহলে বিদেশ থেকে তাদের জন্য অস্ত্র আমদানি করত না ।

Kazi
২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ৭:৩৭ অপরাহ্ন

ভারতীয় সহযোগিতায় নিন্মমানের প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম উৎপাদন করে আমাদের টাকা নষ্ট করার কোন মানে হয় না।

Siddiq
২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ৭:৩৬ অপরাহ্ন

ইন্ডিয়া বয়কট করুন।

Mohiuddin molla
২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ৬:৪৪ অপরাহ্ন

India is not supporting, India is doing business,

Habib
২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ৬:১৪ অপরাহ্ন

অনলাইন থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

অনলাইন সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status