ঢাকা, ১৫ জুন ২০২৪, শনিবার, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৮ জিলহজ্জ ১৪৪৫ হিঃ

মত-মতান্তর

মুজিবের দৃষ্টিতে মুজিবীয় দর্শন

কৃষ্ণ কান্ত বিশ্বাস

(৯ মাস আগে) ১৫ আগস্ট ২০২৩, মঙ্গলবার, ৩:৪২ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ৩:৪২ অপরাহ্ন

mzamin

হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তাঁর সারা জীবনের চিন্তা-চেতনা, কর্ম, ভালোলাগা, ভালোবাসা সব কিছুই ছিল বাঙালিকেন্দ্রিক। তিনি ছোট বেলা থেকেই মানুষের প্রতি সহানুভূতি ও মমত্ব দেখিয়েছেন এবং মানুষকে ভালোবেসে মানুষের কল্যাণ ও মঙ্গলের জন্য কাজ করেছেন সারা জীবন। সর্বোপরি বাঙালি জাতিকে দারিদ্র্য ও শোষণমুক্ত করার জন্য বরণ করেছেন জেল, জুলুম, অত্যাচার ও নিপীড়ন। তাঁর আজীবন সংগ্রামের সার্থক রূপায়ণ একটি স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। ছোটবেলা থেকে মাঝ বয়স পর্যন্ত ঘটনাবলী লিপিবদ্ধ করেছেন তাঁর আত্মজীবনী মূলক গ্রন্থ- অসমাপ্ত আত্মজীবনীতে। সে গ্রন্থেই ফুটে উঠেছে তাঁর বিশ্বাস, আদর্শ, কর্ম ও দর্শনের কথা।  সেখান থেকেই এ প্রবন্ধে  তুলে ধরার চেষ্টা করেছি মুজিবের দৃষ্টিতে মুজিবীয় দর্শনের কথা।

অসমাপ্ত আত্মজীবনী গ্রন্থের ভূমিকায় তাঁর সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা লিখেছেন, “এই মহান নেতা নিজের হাতে স্মৃতিকথা লিখে গেছেন যা তার মহাপ্রয়াণের ঊনত্রিশ বছর পর হাতে পেয়েছি। সে লেখা তাঁর ছোটবেলা থেকে বড় হওয়া, পরিবারের কথা, ছাত্র জীবনের আন্দোলন, সংগ্রামসহ তাঁর জীবনের অনেক অজানা ঘটনা জানার সুযোগ এনে দেবে। তাঁর বিশাল রাজনৈতিক জীবনের এক বিচিত্র অভিজ্ঞতা এই গ্রন্থে তাঁর লেখনীর ভাষায় আমরা পাই”। 

প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী এক বনেদি মুসলিম পরিবারে শেখ মুজিবের জন্ম টুঙ্গিপাড়ায় ১৯২০ সালের ১৭ই মার্চ।

বিজ্ঞাপন
তিনি নিজেই জানিয়েছেন ছোট সময় তিনি খুব দুষ্ট প্রকৃতির ছিলেন। খেলাধুলা করতেন, গান গাইতেন ও খুব ভালো ব্রতচারী করতে পারতেন। তাঁর গৃহশিক্ষক কাজী আব্দুল হামিদ প্রতিষ্ঠিত ‘মুসলিম সেবা সমিতি’র সদস্য হিসেবে থলি নিয়ে বাড়ি বাড়ি থেকে চাল উঠিয়ে আনতেন এবং এই চাল বিক্রি করে গরিব ছেলেদের বই এবং পরীক্ষার অন্যান্য খরচ দিতেন। ঘুরে ঘুরে জায়গিরও ঠিক করে দিতেন। হঠাৎ যক্ষ্মা রোগে আক্রান্ত হয়ে সেই শিক্ষক মারা যান। তখন তিনি এই সেবা সমিতির ভার নেন এবং অনেকদিন পরিচালনা করেন।

তিনি কিশোর বেলায় অনেকগুলো খবরের কাগজ পড়তেন। তাঁর আব্বা খবরের কাগজ রাখতেন। আনন্দবাজার, বসুমতী, আজাদ, মাসিক মোহাম্মদী ও সওগাত। তিনি জানান “ছোটকাল থেকে আমি সকল কাগজই পড়তাম”। গোপালগঞ্জে এক বন্ধুকে মারপিট করছে শুনে কয়েকজন ছাত্রকে নিয়ে বন্ধুকে উদ্ধার করতে মারামারি করায় থানায় মামলা হয়। জীবনে প্রথম গ্রেপ্তার হন এবং জেল হাজতে যান। সাতদিন পর জামিন পান। পরে দুই পক্ষের মধ্যে আলোচনাক্রমে পনের শত টাকা ক্ষতিপূরণ দিয়ে মামলা তুলে নেয়া হয়েছিল। বন্ধুর জন্য শেখ মুজিবের ভালোবাসার নিদর্শন এতে পাওয়া যায়। 
১৯৪১ সালে ম্যাট্রিক পরীক্ষা দেয়ার পর ভীষণভাবে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড শুরু করেন। সভা করেন, বক্তৃতা করেন। পাকিস্তান আনতেই হবে, নতুবা মুসলমানদের বাঁচার উপায় নাই। ১৯৪৩ সালে দুর্ভিক্ষ হয়। গ্রাম থেকে লাখ লাখ লোক শহরে চলে আসে। খাবার নাই, কাপড় নাই। এমন দিন নাই রাস্তায় লোক মরে পড়ে থাকতে দেখা যায় না। শেখ মুজিব তখন সিভিল সাপ্লাই মন্ত্রী সোহরাওয়ার্দীর কাছে গিয়ে বললেন, “কিছুতেই জনসাধারণকে বাঁচাতে পারবেন না, মিছামিছি বদনাম নেবেন”। তিনি বললেন দেখি চেষ্টা করে কিছু করা যায় কিনা, কিছু লোক তো বাঁচাতে চেষ্টা করবো”। 

দুর্ভিক্ষ মোকাবিলায় মানুষকে সহায়তার জন্য হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, তমিজুদ্দিন খান, মাওলানা আব্দুর রশিদ তর্কবাগীশ, মোয়াজেম হোসেন চৌধুরী (লাল মিয়া) প্রমুখের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত কনফারেন্স আয়োজনের মূল ভূমিকা শেখ মুজিব পালন করেন। দেশের মানুষকে সহায়তার জন্য শেখ মুজিবের আন্তরিকতা তখনই বোঝা গেছে।

পাকিস্তান সৃষ্টির পেছনে শেখ মুজিবের দর্শন তাঁর নিজের লেখনীতে, “অখণ্ড ভারতে যে মুসলমানদের অস্তিত্ব থাকবে না এটা আমি মন-প্রাণ দিয়ে বিশ্বাস করতাম। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে হিন্দু নেতারা ক্ষেপে গেছেন কেন? ভারতবর্ষেও মুসলমান থাকবে এবং পাকিস্তানেও হিন্দুরা থাকবে। সকলেই শাসন অধিকার পাবে। পাকিস্তানের হিন্দুরাও স্বাধীন নাগরিক হিসেবে বাস করবে। ভারতবর্ষের মুসলমানরাও সমান অধিকার পাবে। পাকিস্তানে মুসলমানরা যেমন হিন্দুদের ভাই হিসেবে গ্রহণ করবে, ভারতবর্ষের হিন্দুরাও মুসলমানদের ভাই হিসেবে গ্রহণ করবে”। 

বাঙালিদের মানসিকতা শেখ মুজিবের দৃষ্টিতে ফুটে উঠেছে তার নিজের জবানিতে, “আমাদের বাঙালির মধ্যে দুইটা দিক আছে। একটা হলো আমরা মুসলমান, আর একটা হলো- আমরা বাঙালি”। পরশ্রীকাতরতা এবং বিশ্বাসঘাতকতা আমাদের রক্তের মধ্যে রয়েছে। বোধ হয় দুনিয়ার কোনো ভাষায়ই এই কথাটা পাওয়া যাবে না, ঈর্ষা-দ্বেষ সকল ভাষায়ই পাবেন, সকল জাতির মধ্যেই কিছু কিছু আছে কিন্তু বাঙালিদের মধ্যে আছে পরশ্রীকাতরতা। ভাই ভাইয়ের উন্নতি দেখলে খুশি হয় না। এই জন্যই বাঙালি জাতির সকল রকম গুণ থাকা সত্ত্বেও জীবনভর অন্যায় অত্যাচার সহ্য করতে হয়েছে। সুজলা সুফলা বাংলাদেশ সম্পদে ভর্তি। এমন উর্বর ভূমি দুনিয়ার খুব অল্প দেশেই আছে। তবুও এরা গরিব। কারণ যুগ যুগ এরা শোষিত হয়েছে নিজের দেশে। নিজকে এরা চেনে না আর যতদিন চিনবে না এবং বুঝবে না ততদিন এদের মুক্তি আসবে না”। 

ভ্রমণের মাধ্যমে ঐতিহাসিক ও ধর্মীয় স্থান দর্শন, জনগণের সঙ্গে আলাপের মাধ্যমে তাদের অবস্থা ইত্যাদি জানা বঙ্গবন্ধুর শখের মধ্যে অন্যতম ছিল। তিনি জিন্নাহ সাহেবের আহ্বানে ভারতবর্ষের মুসলিম লীগপন্থি কেন্দ্রীয় ও প্রাদেশিক পরিষদের সদস্যদের কনভেনশনে দিল্লিতে অন্যান্য নেতাদের  সঙ্গে যোগদান করেন। আগ্রা থেকে ট্রেনে উঠার সময় অনেক ভিড়ের মধ্যে তাড়াহুড়া করতে গিয়ে ট্রেনে উঠতে না পেরে এক ফার্স্ট ক্লাসের দরোজার হাতল ধরে দাঁড়ালেন। সাথে আরেক বন্ধু ছিল। অনেক ধাক্কাধাক্কি করলেও প্রথম শ্রেণির ভদ্রলোক দরজা খোলেননি। ট্রেন ভীষণ জোরে চলেছে, তাদের ভয় হতে লাগলো, একবার হাত ছুটে গেলে আর উপায় নাই। তিনি দুই হাতলের মধ্যে দুই হাত ভরে দিলেন, আর তার বন্ধুকে বুকের কাছে রাখলেন। এভাবে বিপদের সময় অসহায় মানুষকে বুকে আগলে রাখা তার মানসিকতা- এটাই বঙ্গবন্ধুর দর্শন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারীরা তাদের বিভিন্ন দাবি-দাওয়া নিয়ে ধর্মঘট করেছে। শেখ মুজিব কয়েকজন ছাত্র নেতাকে নিয়ে ভাইস চ্যান্সেলরের সঙ্গে দেখা করে অনুরোধ করে যাতে কর্মচারীদের চাকরিচ্যুত না করা হয় এবং কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে তাদের ন্যায্য দাবি পূরণের জন্য। তাদের আন্দোলনে সমর্থন দেয়ায় শেখ মুজিবসহ সাতাশ ছাত্রকে বিভিন্ন মেয়াদে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করেছে। তবে চারজন ছাড়া বন্ড ও জরিমানা দিলে লেখাপড়া করতে পারবে। শেখ মুজিব এই চারজনের মধ্যে ছিলেন না। ছাত্রনেতাদের বহিষ্কারের প্রতিবাদে আন্দোলন করায় শেখ মুজিবসহ আট জনকে গ্রেপ্তার করে। শেখ মুজিব নতি স্বীকারও করেননি, বন্ডও দেননি। আন্দোলন চালিয়ে গেছেন। 

কারাগারের জীবন সম্পর্কে শেখ মুজিবের অনুভূতি শেখ মুজিবের বয়ানে, “সূর্য অস্ত যাওয়ার সাথে সাথে সমস্ত কয়েদির কামরায় বাহির থেকে তালা বন্ধ করে দেয়া হয় গণনার পর। আমি কয়েদিদের কাছে বসে তাঁদের জীবনের ইতিহাস ও সুখ-দুঃখের কথা শুনতে ভালোবাসতাম”।

১৯৪৯ সালের ২৩শে জুন কর্মী সম্মেলনে পুরাতন মুসলিম লীগকে বাদ দিয়ে নতুন রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান গঠন করা হলো পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ। সভাপতি মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী, সাধারণ সম্পাদক জনাব শামসুল হক এবং শেখ মুজিব জয়েন্ট সেক্রেটারি। তিনি তখন কারাগারে। তাঁর ভাবনা ছিল একটা অসাম্প্রদায়িক রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান হবে। তিনি জানান, “ভাবলাম সময় এখনো আসে নাই, তাই যাঁরা বাইরে আছেন চিন্তা-ভাবনা করেই করেছেন”।

ঢাকা জেলখানায় ফুলের বাগান করেছিলেন শেখ মুজিব। জেলখানার পাশে সরকারি প্রেস ছিল। তার মত প্রকাশে স্বাধীনতা ছিল না। তাই শেখ মুজিব বলেন ওদের দেখলেই আমার মনে হতো যে ওরা বড় জেলে আর আমরা ছোট জেলে আছি। স্বাধীন দেশের মানুষের ব্যক্তি ও মত প্রকাশের স্বাধীনতা নাই, এরচেয়ে দুঃখের বিষয় আর কি হতে পারে?

১৯৫২ সালের অক্টোবরে চীনে শান্তি সম্মেলনে শেখ মুজিবুর রহমান বাংলায় ভাষণ দিয়ে ছিলেন। বাংলায় ভাষণ দেয়ার পক্ষে তিনি বলেন- “ কেন বাংলায় বক্তৃতা করবো না? ভারত থেকে মনোজ বসু বাংলায় বক্তৃতা করেছেন। পূর্ব বাংলার ছাত্ররা জীবন দিয়েছে মাতৃভাষার জন্য। বাংলা পাকিস্তানের সংখ্যাগুরুর ভাষা। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথকে না জানে এমন শিক্ষিত লোক চীন কেন দুনিয়ার অন্যান্য দেশেও আমি খুব কম দেখেছি। আমি ইংরেজিতে বক্তৃতা করতে পারি। তবু আমার মাতৃভাষায় বলা কর্তব্য”। 

১৯৫২ সালে চীন দেশে ভ্রমণের সময় শেখ মুজিব দেখেছেন কমিউনিস্ট সরকার জমিদারি বাজেয়াপ্ত করে চাষিদের মধ্যে জমি বিলি-বন্দোবস্ত করে দিয়েছেন। ফলে ভূমিহীন কৃষক জমির অধিকার পেয়েছে। চেষ্টা করে ফসল উৎপাদন করছে, সরকার সাহায্য করছে। ফসল উৎপাদন করে এখন আর অকর্মণ্য জমিদারদের ভাগ দিতে হয় না। শেখ মুজিবের এসব দেখে বাংলাদেশের কৃষকদের প্রতিও তাঁর অনুভূতি গভীর হয়েছে। 

চীন দেশে ভ্রমণের সময় বিভিন্ন জায়গা ঘুরে দেখেন। তিনি জানান, “দলনেতা পীর সাহেবকে নিয়ে এক বিপদই হলো, তিনি ধর্ম মন্দির, প্যাগোডা আর মসজিদ এইসব দেখতেই বেশি আগ্রহশীল। আমরা শিল্প-কারখানা, কৃষকদের অবস্থা, সাংস্কৃতিক মিলনের জায়গা ও মিউজিয়াম দেখার জন্য ব্যস্ত। তিনি আমাদের দলের নেতা, আমাদের তাঁর প্রোগ্রামই মানতে হয়। তবুও ফাঁকে ফাঁকে আমরা দুইজন এদিক ওদিক বেড়াতে বের হতাম”। চীন দেশে যে জিনিস তৈরি হয় না তা লোকে ব্যবহার করবে না। পুরনো আমলের ক্ষুর দিয়ে দাড়ি কাটা হয়। এরা শিল্প- কারখানা বানানোর জন্যই শুধু বৈদেশিক মুদ্রা ব্যয় করে। আমাদের দেশে সেই সময়ে কোরিয়ার যুদ্ধের ফলস্বরূপ যে বৈদেশিক মুদ্রা আয় হয়েছিল তার অধিকাংশ ব্যয় হয় জাপানি পুতুল, আর শৌখিন দ্রব্য কিনতে। দৃষ্টিভঙ্গির কতো তফাৎ আমাদের সরকার আর চীন সরকারের মধ্যে”। এ রকম রাষ্ট্রীয় দর্শন তিনি মনে মনে পোষণ করে নিজ দেশেও প্রয়োগের জন্য প্রস্তুত হচ্ছিলেন। 

একটা জাতীয়করণকৃত টেক্সটাইল মিল তাদের দেখাতে নিয়ে গিয়েছিল। তার নিজের জবানিতে, “আমরা স্বাধীন হয়েছি ১৯৪৭ সালে আর চীন স্বাধীন হয়েছে ১৯৪৯ সালে। যে মনোভাব পাকিস্তানের জনগণের ছিল, স্বাধীনতা পাওয়ার সাথে সাথে আজ যেন তা ঝিমিয়ে গেছে। সরকার তার জনগণকে ব্যবহার না করে তাকে চেপে মারার চেষ্টা করছে। আর চীনের সরকার জনগণকে ব্যবহার করছে তাদের দেশের উন্নয়নমূলক কাজে। তাদের সাথে আমাদের পার্থক্য হলো তাদের জনগণ জানতে পারলো ও অনুভব করতে পারলো এই দেশ এবং এদেশের সম্পদ তাদের। আর আমাদের জনগণ বুঝতে আরম্ভ করলো, জাতীয় সম্পদ বিশেষ গোষ্ঠীর আর তারা যেন কেউই নয়। ফলে দেশের জনগণের মধ্যে ও রাজনৈতিক কর্মীদের মধ্যে হতাশা দেখা দিয়েছে। একটা মাত্র পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছিল সাদা চামড়ার জায়গায় কালো চামড়ার আমদানি হয়েছে”। 

তিনি আরো উল্লেখ করেছেন, “আমি নিজে কমিউনিস্ট নই। তবে সমাজতন্ত্রে বিশ্বাস করি এবং পুঁজিবাদী অর্থনীতিতে বিশ্বাস করি 

না। একে আমি শোষণের যন্ত্র হিসেবে মনে করি। এই পুঁজিপতি সৃষ্টির অর্থনীতি যতদিন দুনিয়ায় থাকবে ততদিন দুনিয়ায় মানুষের উপর থেকে শোষণ বন্ধ হতে পারে না। যুগ যুগ ধরে পরাধীনতার শৃঙ্খলে যারা আবদ্ধ ছিল সাম্রাজ্যবাদী শক্তি যাদের সর্বস্ব লুট করেছে তাদের প্রয়োজন নিজের দেশকে গড়া ও জনগণের অর্থনৈতিক এবং রাজনৈতিক পুঁজির দিকে সর্বশক্তি নিয়োগ করা। বিশ্ব শান্তির জন্য জনমত সৃষ্টি করা তাই প্রয়োজন হয়ে পড়েছে।

পশ্চিম পাকিস্তান ও পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের রাজনৈতিক চেতনার পার্থক্য তিনি নিজের জবানিতে বলেছেন “পশ্চিম পাকিস্তান ও পূর্ব পাকিস্তানের রাজনীতিতে বিরাট প্রভেদ রয়েছে। সেখানে রাজনীতি করে সময় নষ্ট করার জন্য জমিদার জায়গিরদার ও বড় বড় ব্যবসায়ীরা। আর পূর্ব পাকিস্তানে রাজনীতি করে মধ্যবিত্ত সম্প্রদায়। পশ্চিম পাকিস্তানে শক্তিশালী মধ্যবিত্ত না থাকার জন্য জনগণ রাজনীতি সম্বন্ধে বা দেশ সম্বন্ধে কোনো চিন্তাও করে না। জমিদার বা জায়গিরদার বা তাদের পীর সাহেবরা যা বলেন, সাধারণ মানুষ তাই বিশ্বাস করে।” 

যুক্তফ্রন্ট নির্বাচনের সময় শেখ মুজিবের নির্বাচনী প্রচারে গোপালগঞ্জে বাড়িতে বাড়িতে ঘুরে বেড়ান। তিনি জানান, ‘আমার মনে আছে খুবই গরিব এক বৃদ্ধ মহিলা কয়েক ঘণ্টা রাস্তায় দাঁড়িয়ে আছে, শুনেছে এই পথে আমি যাবো, আমাকে দেখে আমার হাত ধরে বললো, বাবা আমার এই কুঁড়ে ঘরে তোমার একটু বসতে হবে।’ আমি তার হাত ধরেই তার বাড়িতে যাই। অনেক লোক আমার সঙ্গে, আমাকে মাটিতে একটা পাটি বিছিয়ে বসতে দিয়ে এক বাটি দুধ, একটা পান ও চার আনা পয়সা এনে আমার সামনে ধরে বললো- খাও বাবা, আর পয়সা কয়টা তুমি নেও, আমার তো কিছুই নাই।’ আমার চোখে পানি এল। আমি দুধ একটু মুখে দিয়ে সেই পয়সার সঙ্গে আরও কিছু টাকা তার হাতে দিয়ে বললাম, “তোমার দোয়া আমার জন্য যথেষ্ট, তোমার দোয়ার মূল্য টাকা দিয়ে শেষ করা যায় না।” টাকা সে নিলো না, আমার মাথায় মুখে হাত দিয়ে বললো, ‘গরিবের দোয়া তোমার জন্য আছে বাবা।’ নীরবে আমার চক্ষু দিয়ে দুই ফোঁটা পানি গড়িয়ে পড়ে ছিল, যখন তার বাড়ি থেকে বেরিয়ে আসি। সেইদিনই আমি মনে মনে প্রতিজ্ঞা করেছিলাম  ‘মানুষেরে ধোঁকা আমি দিতে পারবোনা।’ 

তিনি জানান “আমি ইলেকশনে নামার পূর্বে জানতাম না, এ দেশের লোক আমাকে কতো ভালোবাসে। আমার মনের একটা বিরাট পরিবর্তন এই সময় হয়েছিল।’ 

ক্ষমতার প্রতি শেখ মুজিবের লোভ ছিল না। তিনি জানান, তিনি যখন তার বাড়ি টুঙ্গিপাড়া থেকে নির্বাচনের পরে ফিরে আসেন শহীদ সাহেব তাকে একলা ডেকে বললেন, ‘তুমি মন্ত্রিত্ব নেবা কি না?’ আমি বললাম ‘আমি মন্ত্রিত্ব চাই না। পার্টির অনেক কাজ আছে, বহু প্রার্থী আছে দেখেশুনে তাদের করে দেন।’ ক্ষমতার প্রতি লোভ শেখ মুজিবের কখনো ছিলনা যা তিনি ৭ই মার্চের ভাষণেও বলেছিলেন। ‘আমি প্রধানমন্ত্রিত্ব চাইনা, বাংলার মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা চাই।’ 

এভাবেই বঙ্গবন্ধুর জীবন আবর্তিত হয়েছে। মানুষ, সমাজ, রাজনীতির টানে। তিনি ছিলেন এক মহামানব। যার হৃদয়ে ছিল শুধুই মানুষ, দেশ, সমাজ ও রাষ্ট্র। তার দর্শন ছিল মানবতা, আসাম্প্রদায়িকতা, মানুষের প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসা, শোষণ, বঞ্চনা ও পরাধীনতার বিরুদ্ধে সংগ্রাম। মানুষের কল্যাণ ও মুক্তির জন্য সংগ্রাম করেছেন আজীবন এবং ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার মধ্যদিয়ে তার সেই স্বপ্ন পূরণ হয়। অসমাপ্ত আত্মজীবনীতে পরতে পরতে ছড়িয়ে রয়েছে বঙ্গবন্ধুর নিজ দর্শন। তারপর শুরু হয় সোনার বাংলা গড়ার সংগ্রাম। যা পূর্ণ করার আগেই ঘাতকের বুলেট তার প্রাণ কেড়ে নেয়। বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর পর কিউবার মহান বিপ্লবী নেতা ফিদেল ক্যাস্ট্রো অনুভূতি ব্যক্ত করেন, “বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুতে পৃথিবীর শোষিত মানুষ হারালো তাদের মহান নেতাকে, আমি হারালাম বিশাল হৃদয়ের এক অকৃত্রিম বন্ধুকে।” জর দেহের মৃত্যু হলেও তিনি চেতনায় আমাদের মাঝে অমর, তার আদর্শ আমাদের পাথেয়। তিনি স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি আমাদের জাতির পিতা, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। 

লেখক-যুগ্মসচিব, অতিরিক্ত প্রকল্প পরিচালক এমআরটি লাইন-৬
E-mail: [email protected]

 

মত-মতান্তর থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

মত-মতান্তর সর্বাধিক পঠিত

নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী সবদলই সরকার সমর্থিত / ভোটের মাঠে নেই সরকারি দলের প্রতিদ্বন্দ্বী কোনো বিরোধীদল

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status