ঢাকা, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, শুক্রবার, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৯ শাওয়াল ১৪৪৫ হিঃ

অনলাইন

আসিফের স্ত্রী যা বললেন

স্টাফ রিপোর্টার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে

(১ বছর আগে) ৩১ জানুয়ারি ২০২৩, মঙ্গলবার, ৩:৩৯ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ১০:৩২ পূর্বাহ্ন

mzamin

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ) আসনের উপ-নির্বাচনের স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু আসিফ আহমেদের খোঁজ পাওয়া যায়নি এখনো। আজ মঙ্গলবার দুুপুরে আসিফের স্ত্রী মেহেরুন নিছা মেহেরীন গণমাধ্যমকর্মীদের জানান, নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসন তাকে আশ্বস্ত করেছিলো আজ দুপুর ১২টা নাগাদ তার স্বামীকে ফিরিয়ে দেয়া হবে। তবে এ ব্যাপারে ক্যামেরার সামনে কথা বলতে আপত্তি করেন তিনি। এর আগে সোমবার মেহেরুন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক মো. শাহগীর আলমের কাছে একটি আবেদন করেন। এতে আসিফের সন্ধান এবং নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করার আবেদন জানান। এতে তিনি বলেন, তার স্বামী মোটর গাড়ি প্রতীক বরাদ্দ পাওয়ার পর নির্বাচনী এলাকার সাধারণ ভোটারদের কাছ থেকে ব্যাপক সাড়া পান। গত ২৭শে জানুয়ারি তার স্বামী বাসা থেকে বের হয়ে গিয়ে আর ফিরে আসেননি। যাওয়ার সময় বাসায় মোবাইল ফোন রেখে গেছেন। এর আগে ২৫শে জানুয়ারি আসিফের প্রচারপ্রধান আবু মুসা মিয়াকে ডিবি পুলিশ উঠিয়ে নিয়ে যায়। পরে গ্রাম্য ঝগড়ার একটি মীমাংসিত মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে জেলহাজতে পাঠায়।

বিজ্ঞাপন
ওইদিন থেকে নির্বাচনী প্রচারণার সমন্বয়ক মেহেরুনের ছোট ভাই শাফায়াত হোসেন সুমনও ভয়ভীতির কারণে নির্বাচনের মাঠ ছাড়া রয়েছেন। মেহেরুন আরো অভিযোগ করেন, তাদের বাড়িতে সাদা পোশাকে পুলিশ এসে তল্লাশি করে এবং প্রতিনিয়ত তাদের কর্মী-সমর্থকদের হয়রানি করছে। প্রচারণার ক্ষেত্রে তারা লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড পাননি। যেভাবেই হোক একজন প্রার্থীকে জিতিয়ে নেয়ার প্রোপাগান্ডা চালানো হচ্ছে। তবে আসিফের নিখোঁজের খবর প্রকাশের পর গণমাধ্যমে মেহেরুনের একটি অডিও ভাইরাল হয়। যাতে তিনি বাসার কেয়ারটেকারকে সিসি টিভি ক্যামেরা অব করে কাপড়-চোপর দিয়ে আসিফকে বাসা থেকে সরিয়ে দেয়ার কথা বলছেন। নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক মো. শাহগীর আলম জানান, তারা এব্যাপারে সোমবার নির্বাচন কমিশনে একটি গোপন প্রতিবেদন পাঠিয়েছেন। যাতে সার্বিক বিষয় তুলে ধরা হয়েছে। তাছাড়া তারা কোর কমিটির বৈঠকও করেছেন। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। জেলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাখাওয়াত হোসেনও জানিয়েছেন  এ ব্যাপারে তাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। 
 

অনলাইন থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

অনলাইন সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status