ঢাকা, ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, বুধবার, ২৫ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৬ রজব ১৪৪৪ হিঃ

শেষের পাতা

স্বল্পোন্নত দেশের তালিকা থেকে উত্তরণের চ্যালেঞ্জ আছে, সুযোগও আছে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার
২৮ নভেম্বর ২০২২, সোমবারmzamin

স্বল্পোন্নত দেশের তালিকা থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের কারণে বাংলাদেশকে অনেক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হবে। একইসঙ্গে আরও অনেক সুযোগ তৈরি হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান। গতকাল বাংলাদেশের লজিস্টিক খাতে বিদেশি বিনিয়োগ সংক্রান্ত একটি শ্বেতপত্রের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন। চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (এনসিসিআই) অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ, বিদেশি গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, সরকারি স্টেকহোল্ডার, নিয়ন্ত্রক সংস্থা, নীতিনির্ধারক এবং এডভোকেসি কোয়ালিশন উপস্থিত ছিলেন।  সালমান এফ রহমান বলেন, স্বল্পোন্নত দেশের তালিকা থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ হলে অনেক চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হবে বাংলাদেশ। এর একটি হচ্ছে লজিস্টিক। সরকার এই খাতকে একটি থ্রাস্ট সেক্টর হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। তবে আমরা অবকাঠামোর উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে নিরবচ্ছিন্ন কানেক্টিভিটি চাইছি। সরকার এ বিষয়ে বিভিন্ন ধরনের পদক্ষেপ নিচ্ছে।

  শ্বেতপত্রে বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্টের জন্য বিভিন্ন ধরনের সুপারিশ করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
এর মধ্যে রয়েছে- লজিস্টিককে গুরুত্বপূর্ণ খাত হিসেবে স্বীকৃতি, লাইসেন্স নবায়ন সহজীকরণ ও ডিজিটালাইজেশনসহ অন্যান্য। এতে বিনিয়োগকে সহায়তা করবে এবং দীর্ঘমেয়াদে অর্থনীতির চাহিদা পূরণ করবে বলে মনে করেন তিনি।  এনসিসিআই কর্তৃক প্রকাশিত শ্বেতপত্রের উদ্বোধনের সময় আনন্দ প্রকাশ করে তিনি বলেন, এটি নীতি প্রণয়ন এবং এর যথাযথ বাস্তবায়নে অবদান রাখার ক্ষেত্রে সমস্ত স্টেকহোল্ডারদের উপকৃত করবে। ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত উইনি এস্ট্রপ পিটারসেন বলেন, বাংলাদেশ যেহেতু অবকাঠামো উন্নয়নে মনোনিবেশ করছে, তাই এ ধরনের অবকাঠামোগত বিনিয়োগ থেকে সবচেয়ে কার্যকর উৎপাদন পেতে নীতি ও গাইডলাইন তৈরি করতে হবে।  তিনি বলেন, বাংলাদেশের অর্থনীতি শক্তিশালী এবং স্থিতিস্থাপক বলে প্রমাণিত হয়েছে। এমনকি মহামারির সময়ও যখন বিশ্বের বেশির ভাগ অর্থনীতি সংকুচিত হয়েছিল তখনও প্রবৃদ্ধি ভালো করেছে বাংলাদেশ। 

এই নিরবচ্ছিন্ন অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির গতিপথে ২০২৬ সালে বাংলাদেশ এলডিসি থেকে উত্তরণ করবে।  বৈশ্বিক মানদণ্ডের সমতুল্য হতে হলে লজিস্টিক খাতে প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগ (এফডিআই) একটি ভালো সূচনা। এটি সহজেই প্রযুক্তি, দক্ষতা সেট এবং গতিশীলতা আনতে পারে, যা দেশকে আরও উন্নত করতে সহায়তা করবে।  রাষ্ট্রদূত বলেন, প্রবৃদ্ধির গতি বজায় রাখা ও উন্নত করতে হলে সরকারের দীর্ঘমেয়াদি ভিশনের মাধ্যমে পরিচালিত বৈশ্বিক যোগাযোগ, কার্যকর ও দক্ষ সেবার মাধ্যমে লজিস্টিক খাতকে শক্তিশালী করতে হবে। তার মতে, এ ধরনের বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে হলে, বাংলাদেশে বিদেশি কোম্পানিগুলোর জন্য একটি অনুকূল ব্যবসায়িক পরিবেশ তৈরি করতে হবে। যাতে তারা এখানে বিনিয়োগ ও ব্যবসা করতে উদ্বুদ্ধ হয়।  বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) নির্বাহী সদস্য মহসীন ইয়াসমিন বলেন, ব্যবসায়িক কৌশল উন্নত করা, বর্তমান অবস্থা বোঝা এবং সম্ভাব্য প্রবৃদ্ধির ক্ষেত্র চিহ্নিত করার ক্ষেত্রে শ্বেতপত্র একটি বড় সম্পদ। তিনি এই সেক্টরকেন্দ্রিক শ্বেতপত্রটি প্রকাশের জন্য এনসিসিআই-এর প্রচেষ্টা এবং উদ্যোগের প্রশংসা করে।

শেষের পাতা থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

শেষের পাতা সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status