ঢাকা, ২৭ জুন ২০২২, সোমবার, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৬ জিলক্বদ ১৪৪৩ হিঃ

কলকাতা কথকতা

ইডির জেরা

বাংলাদেশে বিপুল সম্পত্তির তথ্য দিলেন পি কে হালদার

বিশেষ সংবাদদাতা, কলকাতা

(১ মাস আগে) ১৬ মে ২০২২, সোমবার, ১১:৩৭ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ১২:৪৩ অপরাহ্ন

ভাঙছে কিন্তু মচকাচ্ছে না। কলকাতার ব্যাংকশাল কোর্ট থেকে বাংলাদেশের ব্যাংক জালিয়াত পি কে হালদারকে তিনদিনের রিমান্ডে নেয়ার পর ইডির তদন্তকারী অফিসারদের এই ধারণা। মঙ্গলবার আদালতে তোলা হবে পি কে হালদার ওরফে প্রশান্ত কুমার হালদার সহ আরও পাঁচজনকে। তার আগে লাগাতার জেরা করে যতটা সম্ভব তথ্য আহরণ করার চেষ্টা করছেন ইডির ইনভেস্টিগেশন অফিসাররা। কিন্তু, এক ইডি জেরাকারীর কথায়, পি কে হালদার এ হার্ড নাট টু ক্র্যাক অন। জেরায় ভাঙছে, কিন্তু মচকাচ্ছে না। 

 

জেরায় পি কে হালদার নাকি কবুল করেছেন তার বাংলাদেশে বিপুল সম্পদের কথা। এর মধ্যে সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারে দুশো কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হোটেল, নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে বিঘার পর বিঘা জমি, ময়মনসিংহে চার একর জমি, ঢাকার পূর্বাচলে ষাট বিঘা জমি, ১১তলা একটি মার্কেট প্লাজা, রাঙামাটিতে তিনশো কোটি টাকা ব্যয় করে নির্মিত রিসোর্ট, কয়েকটি ফ্ল্যাট যার মূল্য প্রায় ২০ কোটি টাকা। এছাড়াও ব্যাংকে একশো কোটি টাকা থাকার কথা নাকি জেরায় জানিয়েছেন পি কে হালদার।

 

নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, আটজন ইডি অফিসার পালা করে জেরা করছেন পি কে হালদারদের। কখনও একা, কখনও দুজনকে একসঙ্গে বসিয়ে অথবা মিলিতভাবে। কিন্তু, কিভাবে ভারতে ভুয়া সব পরিচয়পত্র করিয়েছিলেন পি কে হালদার তার হদিন এখনও মেলেনি।

বিজ্ঞাপন
হাওয়ালার কোটি কোটি টাকা কিভাবে বাংলাদেশ গিয়েছিলো তারও তথ্য মেলেনি। পি কে হালদারের সঙ্গে যাদের জেরা চলছে এদের মধ্যে আছে স্বপন মৈত্র ওরফে মিস্ত্রি, উত্তম মৈত্র ওরফে মিস্ত্রি, ইমাম হোসেন ওরফে ইমন হালদার, আমানা সুলতানা ওরফে শর্মি হালদার ও প্রাণেশ হালদার। ইডির সন্দেহ ধৃত নারী পি কে হালদারের স্ত্রী সুস্মিতা সাহা হতে পারে।


কি নেই পি কে হালদারের সাম্রাজ্যে


ইডি সূত্রে জানা গেছে, জেরায় ভারত, বাংলাদেশ ও কানাডার পাসপোর্ট থাকার কথা কবুল করেছেন পি কে হালদার। এটাও জানিয়েছেন যে ইন্টারপোলের রেড কর্নার অ্যালার্ট জারি হওয়ার এক ঘন্টা আগে তিনি বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে ভারতে চলে আসেন। তারপর ভারতীয় পাসপোর্টের সাহায্যে কানাডা যান। ফিরে এসে শিবশঙ্কর নামের আড়ালে অশোকনগরে জাঁকিয়ে বসেন। তার আধার, ভোটার, প্যান সব কার্ড শিবশঙ্কর নামে। জেরায় পি কে হালদার নাকি কবুল করেছেন তার বাংলাদেশে বিপুল সম্পদের কথা। 


পি কে হালদারের বিষয়ে আনুষ্ঠানিক কিছু জানি না: পররাষ্ট্রমন্ত্রী


এর মধ্যে সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারে দুশো কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হোটেল, নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে বিঘার পর বিঘা জমি, ময়মনসিংহে চার একর জমি, ঢাকার পূর্বাচলে ষাট বিঘা জমি, ১১তলা একটি মার্কেট প্লাজা, রাঙামাটিতে তিনশো কোটি টাকা ব্যয় করে নির্মিত রিসোর্ট, কয়েকটি ফ্ল্যাট যার মূল্য প্রায় ২০ কোটি টাকা। এছাড়াও ব্যাংকে একশো কোটি টাকা থাকার কথা নাকি জেরায় জানিয়েছেন পি কে হালদার। এক ইডি আধিকারিকের কথায় জেরায় বারবার উঠে এসেছে অমিতাভ অধিকারী ও অতসী মিস্ত্রির নাম। ইডি বাংলাদেশ দুর্নীতি দমন কমিশনকে সবটাই জানাচ্ছে।

মঙ্গলবার কোর্টে তোলা হতে পারে পি কে হালদারদের। ভারতে ভুয়ো পরিচয়পত্র ব্যবহার, ভুয়ো কোম্পানি খোলা এবং হাওয়ালায় কোটি কোটি টাকা বাংলাদেশে পাচার করা নিয়ে ভারতে মামলা হবে। ২০১৩ সালে ভারত-বাংলাদেশ বন্দি প্রত্যর্পণ চুক্তি অনুযায়ী পি কে হালদারকে বাংলাদেশের হাতে তুলে দিতে আরও তিন থেকে ছয় মাস লাগতে পারে।    
 

পাঠকের মতামত

ভারত হয়তো বলবে পি কে হালদার ভারত থেকে টাকা লুটে বাংলাদেশে বিনিয়োগ করেছে।

Raju
১৭ মে ২০২২, মঙ্গলবার, ২:১৭ পূর্বাহ্ন

@Kazi bhai, uni 300 crore na 3000 crore lopat koresen

siddique
১৬ মে ২০২২, সোমবার, ৭:৩৫ পূর্বাহ্ন

Desh ta Luter Rajjo Hoye geche...

Md Hasan
১৬ মে ২০২২, সোমবার, ২:৫০ পূর্বাহ্ন

ভারতীয় পাসপোর্টে কানাডায় গিয়েছে সে - তার মানে সে শিবশংকর নাম ব্যবহার করে কানাডা গেছে। তাহলে তার কানাডিয়ান পাসপোর্ট তো অবশ্যই শিবশংকর নামেই। বাংলাদেশ সরকারের উচিৎ বিষয়টি অনতিবিলম্বের কানাডা সরকারকে জানানো - নাম ও নাগরিকত্ব জালিয়াতি কানাডা পছন্দ করবে না। দুই। বলা হচ্ছে ‘হাওয়ালার কোটি কোটি টাকা কিভাবে বাংলাদেশ গিয়েছিলো তারও তথ্য মেলেনি’ অথবা ‘হাওয়ালায় কোটি কোটি টাকা বাংলাদেশে পাচার করা নিয়ে ভারতে মামলা হবে’ - এর মানে কি? সে তো হাজার হাজার কোটি টাকা বাংলাদেশ থেকে ভারতে পাচার করেছে হুন্ডির (হাওয়ালা) মাধ্যমে - ভারত থেকে বাংলাদেশে কোন টাকা পাচার করেনি। তাহলে উল্টো কথা কেন বলা হচ্ছে? আর সাংবাদিকরাও কেন ঠিক তাই-ই প্রতিবাদ ছাড়া প্রকাশ করে যাচ্ছে!

Taufiqul Pius
১৬ মে ২০২২, সোমবার, ২:০৫ পূর্বাহ্ন

এখনও মিথ্যা বলছে । সে হিসেব দিচ্ছে ৩০০ কোটির স্থাবর সম্পত্তি আছে বাংলাদেশে। তিনশ কোটির প্রতারণা করে রদি বাংলাদেশে তিন শ কোটির সম্পত্তি করে থাকে তাহলে ভারতে ও কানাডার সম্পত্তি কিনল কি দিয়ে ? দুদক অনুসন্ধান করে দেখতে পারে । তবে কি সে আরও বেশি টাকা মেরেছে যার তথ্য ব্যাংকের লোক প্রকাশ করে নি, লুকিয়ে রেখেছে ?

Kazi
১৫ মে ২০২২, রবিবার, ১১:৫৭ অপরাহ্ন

কলকাতা কথকতা থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

কলকাতা কথকতা থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com