ঢাকা, ৪ অক্টোবর ২০২২, মঙ্গলবার, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিঃ

প্রথম পাতা

‘যুক্তরাষ্ট্রের দৃষ্টিভঙ্গির কারণে চীন থেকে কিছুটা সরে আসছি’

স্টাফ রিপোর্টার
১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, রবিবার

যুক্তরাষ্ট্রের দৃষ্টিভঙ্গির কারণে চীন থেকে বাংলাদেশ কিছুটা সরে এসেছে বলে মন্তব্য করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত ‘মিট দ্য ওকাব উইথ টিপু মুনশি’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে তিনি এমন মন্তব্য করেন। বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, তারপরও আমাদের আমদানিতে চীন-ভারতের ওপর নির্ভরতা আছে। মূলত আমাদের ইন্ডাস্ট্রি তৈরি না হওয়া পর্যন্ত এই নির্ভরশীলতা থাকবে। বৈশ্বিক চাওয়া ম্যান মেইড  ফাইবার আমাদের নেই। তাই বিদেশ থেকে আনতে হচ্ছে। সক্ষমতা বাড়ানোর চেষ্টা চলছে। প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরে অ্যান্টি ডাম্পিং ট্যারিফ নিয়ে আলোচনার বিষয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, দুই দেশের সরকার প্রধানের মধ্যে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। আন্তর্জাতিক নিয়ম অনুযায়ী ভারত অ্যান্টি ডাম্পিং ট্যারিফ বসাতে পারে না। আন্তর্জাতিক আদালতে না গিয়ে আমরা চাই আলাপ আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টির সুরাহা করার।

বিজ্ঞাপন
ভারতের প্রধানমন্ত্রী আশ্বাস দেন বিষয়টি সমাধানের। ২০১৫ সালের চুক্তি অনুযায়ী ভারত হয়ে নেপাল, ভুটানের ট্রানজিট বিষয়ে কী হয়েছে, জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিবিআইএন’র আওতায় ভারত সেটা দিতে রাজি। তবে ভুটান এখনো রাজি হচ্ছে না। 

তারা বলছে, আমাদের একটু সময়ের প্রয়োজন। কারণ আমাদের অবকাঠামো সে রকম নয়। আর নেপাল খুবই পজেটিভ। ভুটান আরও বলেছে যে, তাদের সেখান থেকে পণ্য পরিবহনে ভারত রাজি আছে। ভারতে ৪ বিলিয়ন ডলারের পণ্য রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সে দেশে গত বছর আমরা ২ বিলিয়ন ডলারের পণ্য রপ্তানি করেছি। ফলে ৪ বিলিয়ন খুব বেশি না, এটা সম্ভব। কেননা, আমরা যখন সার্বিকভাবে ৫১ বিলিয়ন ডলার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছিলাম, তখন আমার মন্ত্রণালয় বলেছিল ৪৫/৪৬ বিলিয়ন হবে। কিন্তু ৫১ বিলিয়ন ডলারের বেশি হয়েছে। আগামী চার বছরে, প্রতিবছর হাফ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি বাড়ানো সম্ভব বলে আমি মনে করি। ডিমের বাজার নিয়ন্ত্রণে আমদানি করা হবে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, কৃষি মন্ত্রণালয় পজিটিভ হলে ডিম আমদানি করা হবে। দাম নির্ধারণ হবে আলোচনার মাধ্যমে। ভারত থেকে ডিম আমদানি করে কমমূল্যে ভোক্তাদের দেয়ার পক্ষে আমি। আজই কৃষি মন্ত্রণালয়ে বিভিন্ন পণ্যের দাম নির্ধারণ বিষয়ে কাগজ পাঠাবো। 

তবে কৃষকদের স্বার্থের বিষয়টিও দেখতে হবে। মন্ত্রী বলেন, আমি অতি উৎসাহিত হয়ে বলেছিলাম ডিমসহ কিছু পণ্যের দাম আমরা ঠিক করে দেবো। বিশেষ করে তেল, চিনিসহ কিছু পণ্যের দাম আমরা ঠিক করি। সম্প্রতি দেখা যাচ্ছে সে প্রাইসিং (মূল্য নির্ধারণ) করে দেবে কৃষি মন্ত্রণালয়। এ সংক্রান্ত একটি চিঠি কৃষি মন্ত্রণালয়কে দেয়া হবে। দাম বেঁধে দেয়ার ঘোষণা কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে আসতে হবে।  টিপু মুনশি বলেন, ভারত সফরের সময় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন তোমরা যে হঠাৎ করে রপ্তানি বন্ধ করে দাও এটা ঠিক না। অন্তত এক মাস আগে আমাদের নোটিশ দিয়ে জানানো উচিত। এসব বিষয়েও আলোচনা হয়েছে।  সেপা চুক্তির ফলে বাংলাদেশ কী সুবিধা পেতে পারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এলডিসি গ্রাজুয়েশনের পর আমরা আরও তিন বছর বিভিন্ন সুবিধা পাবো। এরপর কিন্তু আমাদের বিপদ আছে। সে কথা মাথায় রেখেই চেষ্টা করা হচ্ছে পিটিএ, এফটিএ, সেপা’র মতো চুক্তি করার। তবে আমরা যদি এখনই পিটিএ এবং এফটিএ চুক্তিতে সই করি তাহলে আমরা উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে যে সুবিধাটা পাই সেটার ওপর চাপ পড়বে।

 তারপরও ২০২৬ থেকে ২০২৯ সালের বিষয়টি মাথায় রেখেই এখন থেকেই পিটিএ, এফটিএ চুক্তি করা দরকার। ইতিমধ্যে কয়েকটি দেশের সঙ্গে কথা হচ্ছে। ইন্দোনেশিয়া থেকে একটি প্রতিনিধিদল আসবে এ বিষয়ে কথা বলার জন্য। এতে আমাদের সক্ষমতা বাড়বে। নিজেদের শক্তিশালী করার জন্য এখন থেকেই কাজ করতে হবে। সেপা হচ্ছে সে রকমই একটি চুক্তি। ভারতের সঙ্গে সেপা এখনই হয়ে যাবে তা কিন্তু নয়। ডিসেম্বরের মধ্যে দুই পক্ষ বসে ঠিক করে নেবো। রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের ব্যাপারে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গারা যে যাবে না, তা এখন বোঝা যাচ্ছে। যদিও প্রথমে তাদের মানবিক কারণে জায়গা দেয়া হয়েছিল। রোহিঙ্গাদের ফেরত নেয়ার মাধ্যমেই মিয়ানমারের সঙ্গে বাণিজ্যিক সম্পর্ক স্বাভাবিক হবে। মিয়ানমারে কিছু গার্মেন্টস বন্ধ হওয়ায় আমাদের রপ্তানি বৃদ্ধি পেয়েছে।

পাঠকের মতামত

"শ্যাম রাখি না কূল রাখি" বিষয়টি এমনই। এই দ্বৈরথ এর জন্যই হয়তো আজ আমরা "গরীবের বউ সবার ভাবী" র মতো। যার ফলশ্রুতিতে আজ মিয়ানমারও আমাদের ধমকের উপর রাখছে।

Mir Milon
২২ সেপ্টেম্বর ২০২২, বৃহস্পতিবার, ৭:২২ অপরাহ্ন

তার এই দায়িত্বহীন মন্তব্য চীনের সাথে সম্পর্ক অবনতি ঘটাতে যথেষ্ঠ। মন্ত্রী হতে হলে সাবালক হওয়াটা জরুরি।

Andalib
১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, শনিবার, ১১:২৯ অপরাহ্ন

যুক্তরাষ্ট্রের দৃষ্টিভঙ্গির কারণে চীন থেকে বাংলাদেশ কিছুটা সরে এসেছে বলে মন্তব্য করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।----পররাষ্ট্র বিষয় সম্পর্কে মন্তব্য করতে আপনাকে সরকারের তরফ থেকে সর্বসম্মতভাবে দায়িত্ব অর্পণ করা হয়েছে কি? আপনি কার সাথে আলাপ করে খোলাখুলিভাবে এই মন্তব্য করলেন ?ঐ যে কথায় বলে না "যার যেখানে মানায় না সেইখানে দেয় চৌদ্দ হাত"!

Amir
১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, শনিবার, ৯:২০ অপরাহ্ন

Mr trade minister, how come you talk or comment & act as foreign minister, i think you should know what is your job descriptions ?

Nannu chowhan
১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, শনিবার, ৭:৪০ অপরাহ্ন

কিছু সরে আসলেই কি যুক্তরাষ্ট্র খুশি হবে ? যুক্তরাষ্ট্র ঠিকই চীনের সঙ্গেও তাদের জরুরি পণ্যের বাণিজ্য করছে । তবে চীন যেভাবে মাত্রাতিরিক্ত দাম চার্জ করে কন্স্ট্রাকশন কাজের সরে আসা খারাপ নয়। দ্রব্যের বাণিজ্য চালু রাখা যায়। যুক্তরাষ্ট্র ও বাণিজ্য করছে আগেই উল্লেখ করেছি ।

Kazi
১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, শনিবার, ৬:৪৫ অপরাহ্ন

কিছু সরে আসলেই কি যুক্তরাষ্ট্র খুশি হবে ? যুক্তরাষ্ট্র ঠিকই চীনের সঙ্গেও তাদের জরুরি পণ্যের বাণিজ্য করছে । তবে চীন যেভাবে মাত্রাতিরিক্ত দাম চার্জ করে কন্স্ট্রাকশন কাজের সরে আসা খারাপ নয়। দ্রব্যের বাণিজ্য চালু রাখা যায়। যুক্তরাষ্ট্র ও বাণিজ্য করছে আগেই উল্লেখ করেছি ।

Kazi
১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, শনিবার, ৬:৪৫ অপরাহ্ন

প্রথম পাতা থেকে আরও পড়ুন

প্রথম পাতা থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং স্কাইব্রীজ প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং লিমিটেড, ৭/এ/১ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status