ঢাকা, ১৮ মে ২০২৪, শনিবার, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৯ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিঃ

অনলাইন

কেন মার্কিন ডলার এশিয়াজুড়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে

মানবজমিন ডিজিটাল

(৪ সপ্তাহ আগে) ১৮ এপ্রিল ২০২৪, বৃহস্পতিবার, ২:৩৮ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ১২:১৯ পূর্বাহ্ন

mzamin

ডলার আরও শক্তিশালী হয়ে যাওয়ায় এ বছর উদীয়মান বাজারে মুদ্রাগুলোর মূল্য কমে গেছে। তাইওয়ানের মুদ্রা এই সপ্তাহে প্রায় আট বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন স্তরে নেমে গেছে। ভারতের রুপির রেকর্ড পতন হয়েছে। পাশাপাশি এশিয়ায় আর্থিক সংকটের পর মালয়েশিয়ার মুদ্রা রিঙ্গিত ১৯৯৮ সালের পর সবচেয়ে দুর্বল জায়গায় দাঁড়িয়ে আছে। ব্লুমবার্গের ট্র্যাক করা ২৩টি প্রধান উন্নয়নশীল জাতীয় মুদ্রার একটি বাদে বাকি সবই এ বছর ‘গ্রিনব্যাকের’ বিপরীতে রয়েছে।

এ বছর ডলারের দরপতনের পেছনে কী আছে?
ডলারের এই অবস্থানকে ব্যতিক্রম হিসেবে দেখা হচ্ছে। যদিও বিশ্বের অর্থনীতির বেশিরভাগ অংশই কেবল মাঝারি প্রবৃদ্ধি দেখছে, আমেরিকান কর্মসংস্থান থেকে খুচরা বিক্রয় এবং মুদ্রাস্ফীতি পর্যন্ত প্রায়শই বিশ্লেষকদের পূর্বাভাসকে হার মানিয়েছে। এটি ব্যবসায়ীদের ফেডারেল রিজার্ভের সুদের হার কমানোর দিকে পরিচালিত করেছে, যা গ্রিনব্যাকে জ্বালানি লাভে সহায়তা করেছে। ব্লুমবার্গ ডলার স্পট সূচক, যা মার্কিন মুদ্রার ১২টি প্রধান সমকক্ষের বিপরীতে ট্র্যাক করে, এই বছর শতকরা ৪ ভাগের বেশি বেড়েছে।

কেন উদীয়মান বাজারে মুদ্রা পতন হচ্ছে?
ক্রমবর্ধমান ডলার এবং দীর্ঘ সময়ের জন্য মার্কিন সুদের হারের সম্ভাবনা এর প্রধান চালক। ফেডের বেঞ্চমার্কের ঊর্ধ্বসীমা বর্তমানে ৫.৫%, যার অর্থ বিনিয়োগকারীরা উদীয়মান বাজারে তহবিল সরবরাহে বিনিময় হারের ঝুঁকি না নিয়েই ডলার ধরে রেখে আকর্ষণীয় রিটার্ন পেতে পারেন। যদিও অনেক উন্নয়নশীল দেশ যুক্তরাষ্ট্রের তুলনায় সুবিধা ভোগ করলেও অনেক ক্ষেত্রে এটি সঙ্কুচিত হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
গত বছরের শুরুতে ব্রাজিলের পলিসি রেট ছিল ১৩.৭৫%, চিলির ১১.২৫% এবং হাঙ্গেরির ১৩%। তারপর থেকে তিনটি অর্থনীতির কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো সম্মিলিতভাবে তাদের মূল হারগুলো ১২ শতাংশেরও বেশি পয়েন্ট কমিয়েছে।

কেন এশিয়ান মুদ্রা বিশেষভাবে দুর্বল হয়েছে?
এশিয়ান মুদ্রাগুলো এ বছর সবচেয়ে বড় পতনের শিকার হয়েছে। কারণ এ অঞ্চলে কেন্দ্রীয়-ব্যাংকের হার অন্যান্য উদীয়মান বাজারের তুলনায় কম। উদাহরণস্বরূপ, মালয়েশিয়ার মুদ্রা ফেডের তুলনায় ২.৫ শতাংশ কম, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশটির জন্য একটি রেকর্ড ঘাটতি। থাইল্যান্ড, দক্ষিণ কোরিয়া, তাইওয়ান এবং চীনের সমতুল্য হারও যুক্তরাষ্ট্রের চেয়ে কম। যখন মার্কিন নীতিনির্ধারকরা দুই বছর ধরে ঋণের খরচ বাড়াচ্ছে, চীনের কেন্দ্রীয় ব্যাংক তার ভঙ্গুর অর্থনীতিকে সামলাতে নীতি সহজ করছে। বাজারের এই অবস্থার জেরে ‘ইউয়ান’ চাপের মুখে পড়েছে এবং এটি অন্যান্য এশিয়ান মুদ্রাগুলোতেও তার প্রভাব পড়েছে। বিশেষ করে দক্ষিণ কোরিয়া এবং তাইওয়ান, যেগুলোর সঙ্গে চীনের ঘনিষ্ঠ অর্থনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে।
 

এশিয়ান কেন্দ্রীয় ব্যাংক তাদের মুদ্রা বাঁচাতে কি করছে?
মার্কিন সুদ হার উচ্চ থাকবে এই অনুমান এবং সম্ভাব্য মুদ্রা দুর্বলতার আশঙ্কার কারণে এশিয়ান কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো চিন্তিত। নীতিনির্ধারকরা তাদের মুদ্রাকে শক্তিশালী করার জন্য অনেক পন্থা নিয়েছেন। চীন ইউয়ানকে সমর্থন করার জন্য তার দৈনিক মুদ্রা স্থিরকরণ ব্যবহার করেছে, যখন রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ব্যাংকগুলো ডলার বিক্রি করে মুদ্রা বাড়ানোর চেষ্টা করেছে। ব্যাংক ইন্দোনেশিয়া রুপিয়া কেনার জন্য তার বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে ভরসা রাখছে। মালয়েশিয়ার কেন্দ্রীয় ব্যাংক রাষ্ট্র-সংযুক্ত সংস্থাগুলোকে বিদেশি বিনিয়োগের আয় ফিরিয়ে আনতে এবং এটিকে রিঙ্গিতে রূপান্তর করতে উৎসাহিত করছে। কিন্তু কেন্দ্রীয় ব্যাংগুলো জানে যে তারা  যদি  খুব দ্রুত বৈদেশিক রিজার্ভ হ্রাস করে তবে এটি তাদের দীর্ঘমেয়াদি আর্থিক স্থিতিশীলতা নিয়ে উদ্বেগের কারণ হতে পারে। এমনকি ব্যাংক অব জাপান, যার ইয়েনকে রক্ষা করার জন্য প্রচুর ক্ষমতা রয়েছে, তার মুদ্রাকে সমর্থন করার জন্য ২০২২ সালে মাত্র তিনবার বাজারে সরাসরি হস্তক্ষেপ করেছিল।

সূত্র: ইকোনোমিক টাইমস

অনলাইন থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

অনলাইন সর্বাধিক পঠিত

ইউকে-বাংলাদেশ ফাস্ট ট্র্যাক রিটার্ন চুক্তিতে সম্মত / বৃটেন থেকে ফেরত পাঠানো হবে ১১ হাজার বাংলাদেশিকে

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status