ঢাকা, ২৫ জুন ২০২২, শনিবার, ১১ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৪ জিলক্বদ ১৪৪৩ হিঃ

অনলাইন

নজরুলকে ‘জাতীয় কবি’ ঘোষণার গেজেট প্রকাশ চেয়ে রিট

স্টাফ রিপোর্টার

(৩ দিন আগে) ২২ জুন ২০২২, বুধবার, ৬:২৯ অপরাহ্ন

কবি কাজী নজরুল ইসলামকে জাতীয় কবি ঘোষণা করে গেজেট প্রকাশের নির্দেশনা চেয়ে রিট করেছেন সুপ্রিম কোর্টের ১০ আইনজীবী। আজ হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ রিট করেন তারা। বিচারপতি ফারাহ মাহবুব এবং বিচারপতি এস এম মনিরুজ্জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চে এ রিটের ওপর শুনানি হতে পারে। রিট আবেদনে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সচিব, বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক এবং নজরুল ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালককে বিবাদী করা হয়েছে।
১০ আইনজীবী হলেন- আসাদ উদ্দিন, মোহাম্মদ মিসবাহ উদ্দিন, মো. জোবায়দুর রহমান, আল রেজা মো. আমির, মো. রেজাউল ইসলাম, কে এম মামুনুর রশিদ, মো. আশরাফুল ইসলাম, শাহীনুর রহমান, মো. রেজাউল করিম এবং মো. আলাউদ্দিন। পরে রিট আবেদনকারী আইনজীবী মো. আসাদ উদ্দিন সাংবাদিকদের জানান, স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালের ২৪শে মে বঙ্গবন্ধুর উদ্যোগে কবিকে বাংলাদেশে আনা হয়। বসবাসের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে ধানমণ্ডিতে তাকে একটি বাড়ি দেয়া হয়। বাংলা সাহিত্য ও সংস্কৃতিতে অবদানের জন্য ১৯৭৪ সালের ৯ই ডিসেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তাকে ডি-লিট উপাধিতে ভূষিত করা হয়। এরপর ১৯৭৬ সালে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব দিয়ে সরকারি আদেশ জারি করা হয়। ১৯৭৬ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারি তাকে ‘একুশে পদক’ দেয়া হয়। কিন্তু স্বাধীনতার ৫০ বছর এবং কবির মৃত্যুর ৪৫ বছর পেরিয়ে গেলেও জাতীয় কবির রাষ্ট্রীয় আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতির বিষয়ে কোনো যথাযথ পদক্ষেপ নেয়া হয়নি।

বিজ্ঞাপন
যদিও ইতিপূর্বে নজরুল ইনস্টিটিউটের পক্ষ থেকে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ে দুই-একবার চিঠি পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু সেটি কোনো আলোর মুখ দেখেনি। তাই দেশের সচেতন নাগরিক এবং উচ্চ আদালতের আইনজীবী হিসেবে রিট আবেদন দায়ের করা হয়েছে বলে জানান আইনজীবী মো. আসাদ উদ্দিন।
আইনজীবী আরও জানান, দেশের আপামর জনগণ জানে বাংলাদেশের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম। কিন্তু বাস্তবে এটির কোনো দালিলিক ভিত্তি নেই। মৌখিকভাবে তিনি জাতীয় কবি হিসেবে পরিচিত হলেও লিখিতভাবে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি নেই। বলা হয়ে থাকে, ১৯২৯ সালের ১৫ই ডিসেম্বর কলকাতার আলবার্ট হলে একটি সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সেখানে সর্বভারতীয় বাঙালিদের পক্ষ থেকে কবিকে জাতীয় সংবর্ধনা দেয়া হয়। অনুষ্ঠানে নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসু, শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হকসহ গুরুত্বপূর্ণ অনেকে উপস্থিত ছিলেন। ওই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে নজরুলকে ‘জাতীয় কবি’ ঘোষণা করা হয়। সেই থেকে মুখে মুখে তিনি জাতীয় কবি হয়ে আছেন। কিন্তু আজ পর্যন্ত সরকারিভাবে তাকে জাতীয় কবি হিসেবে ঘোষণা করে কোনো প্রজ্ঞাপন বা গেজেট প্রকাশ করা হয়নি।

 

পাঠকের মতামত

কাজী নজরুল ইসলামকে এখনো জাতীয় কবি হিসেবে দালিলিক স্বীকৃতি না দেওয়ার কারণ হলো কর্তাব্যক্তিদের ইসলামবিদ্বেষ মনোভাব। রিট করেছে ভালো কথা কিন্ত রিটের শুনানীতে কি হয় তা দেখার অপেক্ষায়। নজরুল যদি পশ্চিমা দেশের কবি হতেন তাহলে তারা তাকে যথার্থ মূল্যায়ন করতে পারতো। আফসোস এ দেশেরে শিল্প সাহিত্যের মোড়লগিরি কলকাতাপন্থী বামদের হাতে। তারা মূলত ইসলাম বিদ্বেষী এবং নজরুলকে তারা প্রমোট করতে চায় না। তবে আশাবাদী নজরুল এদেশে এবং বিশ্বে একদিন যথার্থ মূল্যায়িত হবেন।

নুরুদ্দিন পরদেশী
২২ জুন ২০২২, বুধবার, ১০:১৫ অপরাহ্ন

এই দেশে সর্বত্র অযোগ্যদের দৌরাত্য, গুণীর কদর এই দেশ করতে জানে না । আর রাজনৈতিক মূর্খতা তো বলা বাহুল্য এখনো আমরা এই কালজয়ী'কে তার প্রাপ্য সন্মান দিতে পারলাম না ।

রফিকুল ইসলাম
২২ জুন ২০২২, বুধবার, ৯:২৬ অপরাহ্ন

হবেও না..কারন কবির নাম কাজী নজরুল ইসলাম! রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর না!!

মোহাম্মদ আলী রিফাই
২২ জুন ২০২২, বুধবার, ১১:০৩ পূর্বাহ্ন

অনলাইন থেকে আরও পড়ুন

অনলাইন থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com