ঢাকা, ৪ মার্চ ২০২৪, সোমবার, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ২২ শাবান ১৪৪৫ হিঃ

শরীর ও মন

মলত্যাগের পর মলদ্বারে জ্বালা বা রক্ত পড়লে

ডা. মোহাম্মদ তানভীর জালাল
৯ ডিসেম্বর ২০২৩, শনিবার

মলদ্বার রক্তপাত নিজেই কোনো রোগ নয়, এটি অন্য কোনো রোগের লক্ষণ মাত্র। যেহেতু মলদ্বারে রক্ত প্রবাহিত হওয়া অস্বাভাবিক নয়, তাই বয়স নির্বিশেষে এটি খুব গুরুত্ব সহকারে নেয়া গুরুত্বপূর্ণ। রক্তক্ষরণ সাধারণ রোগ থেকে শুরু করে গুরুতর ক্যান্সার পর্যন্ত হতে পারে। মলদ্বারে রক্তক্ষরণের সাধারণ কারণসমূহ:
*  ইন্টাস সাসসেপশন। 
*  পাইলস বা হেমরয়েড। 
* এনালফিসার।
 * ফিস্টুলা ইন এনো ।
 * পায়ুপথ, রেক্টাম বা কলোনে ক্যাপার। 
 * রেক্টাল আলসার। 
 * আঘাতজনিত। 
 * ডাইভার্টিকুলার ডিজিজ। 
 * এনজিও ডিস্লাসিয়া। 
 * রেক্টাল পলিপ। 
এ ছাড়াও অন্যান্য যেসব কারণে পায়ুপথে রক্তক্ষরণ হয় ক্রনস ডিজিজ, আলসারেটিভ কোলাইটিস, বেসিলারি ডিসেন্ট্রি, অধিক রক্ত পড়ার প্রবণতা। যতগুলো কারণ দেয়া হলো তার কিছু কারণ আমাদের দেশে বিরল আবার কিছু বয়সভেদে তারতম্য লেখা যেতে পারে।
পায়ুপথ বা রেক্টামে ক্যান্সার
এই রোগটি সাধারণত ৪০ বছর বা তারও বেশি পরে ঘটে তবে তা আগেও হতে পারে। এই রোগটি পায়ু রক্তক্ষরণের অন্যতম কারণ। অনেক ক্ষেত্রে পাইলসগুলো স্ক্রাব এবং অন্যান্য চিকিৎসার সাহায্যে এই রোগটিকে জটিল করে তোলে। মলদ্বার বা মলদ্বারে ক্যান্সার থাকলে, মলদ্বারে তাজা রক্তে আমের যাওয়ার পাশাপাশি মলত্যাগের পরে আরও মলত্যাগ করার ইচ্ছা থাকে। কখনো কখনো ডায়রিয়া হতে পারে এবং কখনো কখনো কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে। 
সঠিক সময়ে চিকিৎসা না করা হলে পরের সময়ে মলদ্বারে ব্যথা হতে পারে, মল ধরে রাখতে অক্ষম হয়, মলদ্বার বা মলদ্বার ফোটে, ফোলা ফোটে, বমি হয় ইত্যাদি এ ছাড়াও রোগী অত্যন্ত দুর্বল বোধ করতে পারে। মলদ্বারে ক্যান্সারের কারণে অনেক সময় পাইলস দেখা দিতে পারে।

বিজ্ঞাপন
তাই মলদ্বারে রক্ত থাকলে বা পাইলস অনুভব করলে তা কখনই হালকাভাবে নেয়া উচিত নয়। 

এনালফিসার  
এই ক্ষেত্রে রক্তক্ষরণ ছাড়াও মলত্যাগের সময় এবং পরে ব্যথা হতে পারে।

পাইলস বা হেমরয়েড
পাইলস বা হেমরয়েডস মধ্য বয়সে তাজা মলদ্বারের রক্তপাতের অন্যতম কারণ। এক্ষেত্রে, প্রথম অন্ত্রের গতিবিধির পরে, তাজা রক্ত ফোঁটাতে বা পড়তে পারে, কিছুক্ষণ পরে, এটি মলের সঙ্গে গোলাকার গলদা বা মাংস হিসেবে বেরিয়ে আসতে পারে, যা প্রথমে অন্ত্রের গতিবিধির পরে ভেতরে যেতে পারে, বা এটি হতে পারে আঙ্গুল দিয়ে ঠেলা। 

ইন্টাস সাসসেপশান 
এই রোগটি সাধারণত ৫-১০ মাস বয়সে ঘটে, যখন শিশুকে বুকের দুধসহ অন্যান্য খাবার দিয়ে শুরু করা হয়। এই রোগে শিশুটি ব্যথায় কাঁদে। ব্যথা ঘন ঘন হয়। দুটি ব্যথার মধ্যে শিশু সুস্থ বোধ করে। শিশু রক্ত এবং অ্যামনিয়োটিক তরল দিয়ে মলত্যাগ করে এবং তাকে রেড ব্রেন্ট জেলি বলে। পরে শিশুর ফোলাভাব, বমিভাব ইত্যাদি হতে পারে। 

রেক্টাল পলিপ  
এই রোগে, তাজা রক্ত মলদ্বারে যায়, যদি এটি মলদ্বার দিয়ে যায় তবে এটি গলির মতো বেরিয়ে আসতে পারে, যা মলদ্বারের পরে ভেতরে যেতে পারে বা আঙ্গুল দিয়ে ঠেলা যায়। এই রোগটি যে কোনো বয়সে দেখা দিতে পারে তবে শিশুদের মধ্যে এটি বেশি দেখা যায়।

অন্যান্য ও পরীক্ষা-নিরীক্ষা  
উপরোক্ত কারণগুলো ছাড়াও আমাদের দেশে কম হলেও ডাইভারটিকুলাইটিস, আলসারেটিভ কলাইটিস, ক্রনেস ডিজিজ, ইত্যাদি রোগ রয়েছে। তবে মলদ্বারে রক্তক্ষরণের ক্ষেত্রে এই রোগগুলো মাথায় রাখা উচিত। রোগ নির্ণয় করার জন্য রোগীর বা রোগীর স্বজনদের সময়ের সঙ্গে সঙ্গে রোগের পুরো বিবরণ শুনুন, যেমন রোগীর বয়স, রক্তপাতের কারণ, রক্তক্ষরণের ধরন, এটি অন্ত্রের গতিবিধি আগে বা পরে নয় কিনা অন্ত্রের গতিবিধি চলাকালীন বা পরে ব্যথা হয়। এটি এক বা একাধিক গোলপিণ্ডের মতোই বেরিয়ে আসুক না কেন, মলত্যাগের অভ্যাসগুলো পরিবর্তিত হয়েছে যেমন মাঝেমধ্যে ডায়রিয়া এবং মাঝে মাঝে কোষ্ঠকাঠিন্য, মলত্যাগের পরে আরও মলত্যাগের ইচ্ছা ইত্যাদি। 
উপযুক্ত জায়গায়, অন্যের কাছ থেকে লুকিয়ে থাকা মহিলাদের ক্ষেত্রে অবশ্যই মহিলার উপস্থিতিতে মলদ্বার এবং মলদ্বারের চারটি দিক অবশ্যই দেখতে হবে। মলদ্বারে গ্লাভস পরা আঙ্গুল ঢুকিয়ে ডিআরই পরীক্ষা করা উচিত। তা ছাড়া মালামবাগের অভ্যন্তর ও মলদ্বার দেখতে প্রলোস্কোপি এবং সিগময়েডস্কোপি প্রয়োজন হতে পারে। কিছু ক্ষেত্রে কোলনোস্কোপি বা বেরিয়াম এনিমা এক্স-রে প্রয়োজন হতে পারে।

চিকিৎসা  
যখন এটি চিকিৎসার ক্ষেত্রে আসে তখন চিকিৎসা বা কারণগুলো প্রথমে শুরু করা উচিত
কিছু ক্ষেত্রে পরামর্শ এবং ওষুধই পর্যাপ্ত পর্যায়ে থাকে, যেমন প্রাথমিক পর্যায়ে পাইলস, ডাইভার্টিকুলার ডিজিজ, তীব্র পায়ুপথ ফিশার ইত্যাদি। 

কিছু ক্ষেত্রে অপারেশন বেশি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, যেমন- ইনটাসাস সাসপেনশন, থার্ড ডিজাইন হেমরয়েডস ইত্যাদি। কিছু ক্ষেত্রে রেকটাল পলিপ, অ্যানিতে ফিস্টুলা, চতুর্থ ডিগ্রি হেমরয়েড এনাল ক্যানাল, মলদ্বার বা কোলন ক্যান্সারের মতো সার্জারি ছাড়া আর কোনো বিকল্প নেই।

লেখক: সহযোগী অধ্যাপক (কলোরেক্টাল সার্জারি বিভাগ) কলোরেক্টাল, লেপারোস্কপিক ও জেনারেল সার্জন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা। 

চেম্বার: ১৯ গ্রিন রোড, এ. কে. কমপ্লেক্স, লিফট-৪, ঢাকা। 
ফোন-০১৭১২৯৬৫০০৯

শরীর ও মন থেকে আরও পড়ুন

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2023
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status