ঢাকা, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বুধবার, ৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১০ শাবান ১৪৪৫ হিঃ

বাংলারজমিন

খুলনায় ৮ বিয়ে করা কোটিপতি নীলার বিরুদ্ধে সমন জারি

স্টাফ রিপোর্টার, খুলনা থেকে
৭ ডিসেম্বর ২০২৩, বৃহস্পতিবার

খুলনার বহুল আলোচিত সুলতানা পারভীন নীলা ওরফে বৃষ্টির বিরুদ্ধে সমন জারি করেছেন আদালত। অভিযোগ রয়েছে, প্রতারণার মাধ্যমে নাম পাল্টে এবং কুমারী পরিচয় দিয়ে আটটি বিয়ে করেছেন তিনি। সব বিয়েই তিনি ছাড়াছাড়ি করেছেন মোটা টাকার বিনিময়ে। প্রতারণার দায়ে জেলও খেটেছেন। প্রতারণার শিকার সাবেক স্বামী ঠিকাদার মইনুল আরেফিন বনির মামলায় সমপ্রতি খুলনার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত এ সমন জারি করেন। এ তথ্য জানিয়েছেন আইনজীবী মো. আসাদুল আলম। মামলার এজাহার এবং স্থানীয়রা জানান, জাতীয় পরিচয়পত্র অনুযায়ী ওই নারীর নাম সুলতানা পারভীন ওরফে নীলা। তিনি প্রতারণার জন্য কখনো নিজেকে সুমাইয়া আক্তার বৃষ্টি, কখনো রুমাইনা ইয়াসমিন রুপা, নাজিয়া শিরিন শিলা, স্নিগ্ধা আকতার নামেও পরিচয় দেন। নিজের সৌন্দর্য এবং কথার জালে আটকান প্রবাসী, ধনী এবং ব্যবসায়ীদের। নিজেকে কুমারী পরিচয় দিয়ে তার আটটি বিয়ে করার প্রমাণ পাওয়া গেছে।

বিজ্ঞাপন
সব বিয়েই ছাড়াছাড়ি হয়েছে বিয়ের কিছুদিনের মধ্যে। মামলার ভয় দেখানোসহ বিভিন্ন হুমকি-ধমকি দিয়ে কৌশলে টাকা, বাড়ি নিয়েছেন নিজের করে। 
এসব বিয়ের ফাঁদে পড়া ব্যক্তিদের করেছেন সর্বস্বান্ত। বারবার বিয়ে করা এবং অর্থ-সম্পদ নিয়ে ছাড়াছাড়ির মতো প্রতারণাই এই নারীর মূল পেশা। নীলার এই প্রতারণা পেশার প্রধান সহকারী তার ভাই এবং তার পরিবার। গত বছর এমন প্রতারণা করতে গিয়ে এক মামলায় জেলও খেটেছেন তিনি। এ ছাড়াও তার রয়েছে অসংখ্য প্রেমিক। সরকারি আমলা, রাজনৈতিক প্রভাবশালী নেতাদের সঙ্গেও ওঠা-বসা রয়েছে তার।
এজাহার থেকে জানা যায়, ১৯৯৯ সালে মাত্র ১৫ বছর বয়সে সুলতানা পারভীন ওরফে নীলার প্রথম বিয়ে হয় মাদারীপুর জেলার হরিকুমারিয়া গ্রামের আব্দুল হাকিম শিকদারের জাপান প্রবাসী ছেলে শাহাবউদ্দিন সিকদারের সঙ্গে। তার উচ্ছৃঙ্খল জীবনযাপন ও মালামাল চুরির ঘটনায় মাদারীপুর সদর থানায় একটি জিডি করেন শাহাবউদ্দিন। পরে ২০০১ সালে শাহাবউদ্দিনের সঙ্গে বৃষ্টির বিচ্ছেদ হয়।  
দ্বিতীয় বিয়ে হয় ২০০৫ সালে এসএম মুনির হোসেনের সঙ্গে। ২০০৮ সালের এপ্রিলে বিয়ে করেন খুলনা মহানগরীর খালিশপুর এলাকার আব্দুল মান্নানের ছেলে ঠিকাদার মইনুল আরেফিন বনিকে। নিজেকে কুমারী পরিচয় দিয়ে প্রতারণার আশ্রয় নেয়ায় বৃষ্টির বিরুদ্ধে মামলা করেন বনি। ২০২০ সালের ডিসেম্বরে খুলনার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে মামলাটি করা হয়। মামলাটি বর্তমানে তদন্তাধীন। তবে টাকা আদায় করতে বনির বিরুদ্ধেও খুলনার বিভিন্ন আদালতে একাধিক মামলা করেন বৃষ্টি।  
বনির সঙ্গে মামলা চললেও ২০১১ সালে নারায়ণগঞ্জের ইফতিখার নামে আরেকজনকে বিয়ে করেন। এরপর ২০১২ সালে বিয়ে করেন বাগেরহাটের বাসিন্দা কামাল  হোসেনকে। ২০১৭ সালে ইতালি প্রবাসী মাদারীপুরের মোহাম্মদ আজিমকে, ২০১৮ সালে খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার মোহাম্মদ রহমানকে এবং ২০১৯ সালে খুলনা মহানগরীর নাজির ঘাট এলাকার  মো. আব্দুল বাকীকে বিয়ে করেন। আট নম্বর স্বামী মো. আব্দুল বাকীর সঙ্গে প্রতারণা করায় নীলার বিরুদ্ধে ঢাকার আদালতে চেক ও টাকা-পয়সা চুরির অভিযোগে মামলা করা হয়। মামলাটি বর্তমানে পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) ঢাকা মেট্রো দক্ষিণ কার্যালয়ে তদন্তাধীন। এ ছাড়া সিরাজগঞ্জে থাকার সময় ঢাকার একটি ফ্ল্যাট নিজের নামে লিখে না  দেয়ায় আরও এক স্বামীকে নারী নির্যাতন মামলায় ফাঁসানো হয়। ওই ঘটনায় নীলার বিরুদ্ধে ২০১৯ সালের ২রা মে সিরাজগঞ্জ সদর থানায় জিডি করা হয়।
২০২১ সালের জানুয়ারিতে খুলনা মহানগরীর খালিশপুরে আফরীন আহমেদ নামে এক আত্মীয়ের বাসায় কিছুদিন থাকেন সুলতানা পারভীন ওরফে নীলা। ওই সুযোগে আত্মীয়ের বাসা থেকে একটি  চেকের পাতা চুরি করে একাউন্ট  থেকে ১০ লাখ টাকা তুলে নেন তিনি। ওই ঘটনায় তার বিরুদ্ধে জালিয়াতি ও চুরির অভিযোগে মামলা করা হয়। মামলাটি বর্তমানে পিবিআই খুলনা কার্যালয়ে তদন্তাধীন।
প্রতারণার শিকার ব্যক্তিদের অভিযোগ, নীলা এভাবে প্রতিটি বিয়ে করেছেন নিজেকে কুমারী পরিচয় দিয়ে। বিয়ের পর মিথ্যা মামলার ভয় দেখিয়ে স্বামীদের কাছ  থেকে নিয়েছেন মোটা অঙ্কের টাকা। বৃষ্টির অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে দুই স্বামী মারাও গেছেন। 
যে মামলায় নীলার বিরুদ্ধে সমন জারি হয়েছে, সেটি ২০২০ সালের ডিসেম্বরে খুলনার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে করেছিলেন প্রতারণার শিকার স্বামী মইনুল আরেফিন বনি। মামলাটি তদন্তাধীন ছিল। এর মধ্যে মামলার তদন্ত প্রতিবেদন জমা পড়ে আদালতে। কিন্তু নীলা আদালতে হাজির না হওয়ায় তার বিরুদ্ধে সমন জারি করলেন আদালত।
এই মামলার আইনজীবী মো. আসাদুল আলম জানান, আসামিপক্ষকে আদালতে হাজির হতে সমন জারি করেছেন আদালত। নির্দিষ্ট তারিখে আদালতে হাজির না হলে ওয়ারেন্ট জারি হয়ে যেতে পারে।
 

পাঠকের মতামত

প্রতারণা করে এবং কুমারি পরিচয় দিয়ে ৮টি বিয়ে করার জন্য নীলার ২৪ বছরের কারাদন্ড ও একই সাথে ৮০ লক্ষ টাকা জরিমানা করে সাজা দেয়া উচিত।

মো. অলীউর রহমান
১০ ডিসেম্বর ২০২৩, রবিবার, ১২:৪৫ পূর্বাহ্ন

বাংলারজমিন থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

বাংলারজমিন সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2023
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status