ঢাকা, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বৃহস্পতিবার, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১১ শাবান ১৪৪৫ হিঃ

অনলাইন

ভাসতে ভাসতে চলেছে বিশ্বের বৃহত্তম হিমবাহ, উদ্বিগ্ন বিজ্ঞানীরা

মানবজমিন ডিজিটাল

(২ মাস আগে) ২৮ নভেম্বর ২০২৩, মঙ্গলবার, ৪:১৬ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ১০:১৪ পূর্বাহ্ন

mzamin

বিশ্বের বৃহত্তম হিমবাহ  'A23a' । তার দীর্ঘস্থায়ী অবস্থান থেকে সরছে  এবং এখন অ্যান্টার্কটিকার বরফের পানিতে ভাসতে ভাসতে এগিয়ে চলেছে। ৩৭ বছরেরও বেশি সময় ধরে, এই বিশাল হিমবাহ  যা প্রায় ৪,০০০ বর্গ কিলোমিটার বিস্তৃত -   মুম্বাইয়ের আকারের ছয়গুণ-পশ্চিম অ্যান্টার্কটিকার ফিলচনার-রনে আইস শেল্ফ থেকে বাঁক নেয়ার পরে স্থির ছিল। হিমবাহটি একসময় সোভিয়েত গবেষণা কেন্দ্রের স্থান ছিল, ১৯৮৬ সাল থেকে ওয়েডেল সাগরের সমুদ্রতলের উপর ভিত্তি করে রাখা হয়েছিল। তবে সাম্প্রতিক উপগ্রহ চিত্রগুলি দেখায় যে, ট্রিলিয়ন-মেট্রিক-টন হিমবাহটি বেহেমথের উত্তরের প্রান্ত অতিক্রম করে একটি অপ্রত্যাশিত যাত্রা শুরু করেছে। শক্তিশালী বাতাস এবং সমুদ্রের স্রোত দ্বারা চালিত, A23a এর নতুন গতিশীলতা বৈজ্ঞানিক সম্প্রদায়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। অলিভার মার্শ, বৃটিশ অ্যান্টার্কটিক জরিপের একজন হিমবিজ্ঞানী ব্যক্ত করেছেন যে এত বিশাল হিমবাহের গতিশীলতা একটি বিরল ঘটনা। গবেষকরা তীক্ষ্ণভাবে A23a এর পথটি পর্যবেক্ষণ করছেন কারণ এটি  অ্যান্টার্কটিক সার্কামপোলার স্রোতে প্রবাহিত হতে পারে । এই শক্তিশালী পানিপথটি দক্ষিণ মহাসাগরের কুখ্যাত 'আইসবার্গ গলির' মধ্য দিয়ে আইসবার্গকে গাইড করবে বলে আশা করা হচ্ছে। A23a এর আকস্মিক নড়াচড়ার পেছনের কারণগুলি সম্পূর্ণরূপে স্পষ্ট নয়, তবে মার্শ অনুমান করেছেন যে সময়ের সাথে সাথে পাতলা হয়ে যাওয়া বরফখণ্ডটি আচমকাই বিচ্ছিন্ন হয়ে সমুদ্রের ওপর ভাসতে শুরু করেছে।

বিজ্ঞাপন
 ইতিমধ্যে নজিরবিহীন তাপমাত্র দেখা গিয়েছে দক্ষিণ মেরুর উত্তর প্রান্তের ‘এসপ্যারেঞ্জা বেসে’। সেখানে তাপমাত্রা পৌঁছায় ১৮.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস অর্থাৎ ৬৪.৯৪ ডিগ্রি ফারেনহাইটে পৌঁছে গেছে। বিজ্ঞানীদের আশঙ্কা, যে হারে গলতে শুরু করেছে অ্যান্টার্কটিকার বরফ তার পরিণতিতে আগামী ১০০ বছরে অন্তত ১০ ফুট বাড়তে পারে সমুদ্রের পানিস্তর। ফলে বহু দেশের সমুদ্র উপকূলবর্তী শহর তলিয়ে যাবে পানির নিচে। বর্তমান পরিস্থিতিটি ২০২০ সালে অনুভূত আতঙ্কের প্রতিধ্বনি করে যখন আরেকটি বিশাল হিমবাহ  A68, দক্ষিণ জর্জিয়ার সাথে সংঘর্ষের হুমকি তৈরি করে । সৌভাগ্যবশত, A68 ছোট ছোট টুকরোয় বিভক্ত হয়ে গেলে বিপর্যয় এড়ানো যায়-এখন  A23a এর জন্য কি অপেক্ষা  করছে তা সময়ই বলবে।

সূত্র :  ইন্ডিয়া টুডে

অনলাইন থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

অনলাইন সর্বাধিক পঠিত

১০

গ্রামীণ টেলিকম ভবনে প্রেস ব্রিফিংয়ে ড. ইউনূস/ দেশের মানুষের কাছে বিচারের ভার দিলাম

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2023
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status