ঢাকা, ২৩ জুলাই ২০২৪, মঙ্গলবার, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৬ মহরম ১৪৪৬ হিঃ

শেষের পাতা

ঈদে ‘দ্বিগুণ’ খুশির অপেক্ষা

ইশতিয়াক পারভেজ, (সেন্ট ভিনসেন্ট) ওয়েস্ট ইন্ডিজ থেকে
১৬ জুন ২০২৪, রবিবারmzamin

২০০৩ সালের ১১ই ফেব্রুয়ারির কিংসমিডকে ভুলতে পারে ক’জন! রাত পোহালেই ঈদ, বাংলাদেশিদের সবচেয়ে বড় উৎসব। ওয়ানডে বিশ্বকাপে সেদিন কানাডার ছুড়ে দেয়া মাত্র ১৮০ রান তাড়া করতে মাঠে নেমেছিল টাইগাররা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত মেলে লজ্জার হার। সেটি বাংলাদেশের ইতিহাসের সবচেয়ে ‘বাজে’ বিশ্বকাপ। একমাত্র জয়হীন বিশ্বকাপ!  সেদিন রাত জেগে যারা টিভি স্ক্রিনে চোখ রেখেছিলেন, ঈদটা তাদের কেমন কেটেছিল, অনুমান করে নিতে কষ্ট করতে হয় না কারও। ঘটনার ২১ বছর কেটে গেছে। তবে খুব একটা বদলায়নি বাংলাদেশ ক্রিকেট। এখনো পচা শামুকে পা কাটার অভ্যাসটা রয়ে গেছে। কাল ঈদের দিন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নেপালের বিপক্ষে মাঠে নামবে নাজমুল হোসেন শান্তর দল। তখন দেশের কোটি মানুষ ঈদ ও সঙ্গে টাইগারদের জয়ের অপেক্ষায় বসে থাকবে।

বিজ্ঞাপন
এবার জয় দিয়ে ঈদের খুশি মিলবে তো! দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে নেপালের ম্যাচের পর ভয়টা আবারো বেড়েছে ভক্তদের মনে। প্রোটিয়ারা শেষ বলে মাত্র ১ রানে জিতলেও আইসিসি’র সহযোগী দেশটি তাদের কাঁপিয়ে দিয়েছিল। তবে এবার বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক দলের সবচেয়ে অভিজ্ঞ ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান অবশ্য আশ্বস্ত করেছেন, ম্যাচ জিতে দেশের মানুষের ঈদের খুশি বাড়িয়ে  দেবেন। তিনি বলেছেন, ‘অবশ্যই নেপালের সঙ্গে আমাদের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ। জিততে পারলে আমরা দ্বিতীয় রাউন্ডে যাবো। আমাদের জন্য অনেক বড় একটা অর্জন হবে। ঈদের দিন, মুসলমান যারা আছি তাদের জন্য আনন্দের একটা দিন। বিশেষ করে বাংলাদেশে সবাই উদ্যাপন করে। অন্য ধর্মের মানুষেরাও আসলে ঈদের দিন আনন্দ করেন। তো আশা করবো, এ রকম ঈদের একটা দিনে তাদের মুখে আরও বেশি হাসি ফোটাতে পারবো।’  নেপালকে হারালে জয়ের সঙ্গে মিলবে ২০০৭ এর পর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সুপার এইট নিশ্চিত করার আনন্দ। 

যুক্তরাষ্ট্র-ওয়েস্ট ইন্ডিজে এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দেখা যাচ্ছে চমকের পর চমক। এরই মধ্যে বিদায় নিয়েছে সাবেক চ্যাম্পিয়ন পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা ও শক্তিশালী নিউজিল্যান্ড। গতকাল নেপালের সঙ্গে প্রায় হারতে হারতে বেঁচেছে প্রোটিয়ারা। তাদের ১১৪ রানে থামিয়ে জয়ের সম্ভাবনা তৈরি করেছিল হিমালয়ের কোলের ছোট্ট দেশটি। শেষ পর্যন্ত অভিজ্ঞতার বিপক্ষে পেরে ওঠেনি তারা। শেষ বলে গিয়ে স্বপ্নভঙ্গ হয়। প্রোটিয়াদের কাছে এক রানে হেরে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিয়েছে নেপাল। প্রোটিয়াদের সঙ্গে লড়াইয়ে পর বাংলাদেশকে অদৃশ্য হুমকি দিয়ে রেখেছে তারা। কোনো সমীকরণের গ্যাঁড়াকলে পড়তে না চাইলে নেপালের বিপক্ষে জিততে হবে নাজমুল হোসেন শান্তদের। আর হেরে গেলে শ্রীলঙ্কা ও নেদারল্যান্ডস ম্যাচের দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে। যদিও ডাচ্দের জন্য কাজটা খুব কঠিনই। নেপালের বিপক্ষে বাংলাদেশের বড় ব্যবধানে হারলেই হবে না। লঙ্কানদেরকে বড় ব্যবধানে হারাতে পারলেই কেবল দ্বিতীয় দল হিসেবে সুপার এইটে যাওয়ার সুযোগ পাবে ডাচ্রা। তবে ক্রিকেট বলে কথা। যে কোনো মুহূর্তে যে কোনো কিছু হয়ে যেতে পারে। তাই জয় ছাড়া বিকল্প ভাবনা থাকার কথা নয় টাইগারদের! 

নেপাল প্রোটিয়াদের আটকে দিয়েছে ১১৪ রানে। অন্যদিকে টাইগারদের ব্যাটিং নিয়ে সংশয়ের শেষ নেই। তবে সেন্ট ভিনসেন্টে ডাচ্দের বিপক্ষে ১৫৯ রানের ইনিংসটি দলের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়েছে। সেদিন ৬৪ রানে অপরাজিত ছিলেন সাকিব। যদিও বরাবরের মতো ব্যর্থ লিটন দাস ও অধিনায়ক শান্ত। অন্যদিকে  প্রোটিয়াদের বিপক্ষে নেপালের দুর্দান্ত বোলিং চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছে বাংলাদেশের ব্যাটারদেরও। দক্ষিণ আফ্রিকা ব্যাটিংয়ে নেমে কুশাল ভুর্তেল ও দীপেন্দর সিং এইরের বোলিং তোপে দিশাহারা হয়ে পড়ে। সর্বোচ্চ ৪৯ বলে ৪৩ রানের ইনিংস খেলেন ওপেনার রেজা হেনড্রিক্স। এছাড়া ট্রিস্টান স্টাবস ১৮ বলে ২৭ রানে অপরাজিত থাকেন। নেপাল বোলারদের মধ্যে ভুর্তেল ৪ ওভারে মাত্র ১৯ রান দিয়ে ৪ উইকেট দখল করেন। এইরে ২১ রানের বিনিময়ে পান ৩ উইকেট। তাদের সবচেয়ে আলোচিত বোলার লামিছানে ৪ ওভার বল করে কোনো উইকেট না পেলেও ছিলেন ভীষণ কৃপণ। খরচ করেছেন মাত্র ১৮ রান। তাই শান্তদের সেরা ব্যাটিং ছাড়া এই ম্যাচে কঠিন চ্যালেঞ্জ এড়ানো সম্ভব নয়।

নেপালের সঙ্গে টাইগারদের প্রথম ও শেষ দেখা ২০১৪তে নিজেদের মাটিতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে। সেবার ৮ উইকেটে জিতেছিল টাইগাররা। ১০ বছরে এই দলটি বদলে গেছে অনেকটাই। যার প্রমাণ রেখেছে প্রোটিয়াদের বিপক্ষে ম্যাচে। তিন ম্যাচ হেরে চলতি আসর থেকে বিদায় নিলেও তারা শেষ বেলায় দারুণ কিছু করে নিজেদের অস্তিত্বের জানান দিতে চান। তবে  সেন্ট ভিনসেন্ট বাংলাদেশের ক্রিকেটের এক আবেগের নাম। যেখানে মিশে আছে দারুণ সব অনুভূতি, যেখানে আছে অর্জনের পাল্লা ভারী করা সুখস্মৃতি। এদেশের ক্রিকেটে প্রাপ্তি বলে যা কিছু আছে, তার একটা ছিল এই ভিনসেন্টে। ২০০৯ সালে টাইগাররা লিখেছিল সেখানে এক রূপকথার গল্প। সেবার এই মাঠেই ওয়েস্ট উন্ডিজকে টেস্টে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। যা ছিল দেশের বাইরে সাদা পোশাকে বাংলাদেশের প্রথম কোনো জয়। চলতি বিশ্বকাপেও এখানে মিলেছে ডাচ্দের হারিয়ে শেষ আটের পথ। এবার নেপালকে হারালেই ছুঁয়ে ফেলতে পারবে সেই পথের মাইলফলক!

শেষের পাতা থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

শেষের পাতা সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status