ঢাকা, ১২ জুলাই ২০২৪, শুক্রবার, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৫ মহরম ১৪৪৬ হিঃ

প্রথম পাতা

ছোট গরু খুঁজে হয়রান

পিয়াস সরকার
১৫ জুন ২০২৪, শনিবারmzamin

ছুটির দিনে রাজধানীর গাবতলী হাটে গরু কিনতে এসেছেন মো. মোজাম্মেল হোসেন। সঙ্গে তার ছেলে ও ভাই। প্রায় ২৫ বছর ধরে গাবতলী হাট থেকে কোরবানির গরু কেনেন তিনি। বলেন, আমার বাজেট এক লাখ টাকা। এই বাজেটের গরু নেই বললেই চলে। ছোট গরুর দাম তুলনামূলক বেশি। বিক্রেতারা দাম কমাচ্ছেন না। আশা করি ঈদের আগে দাম কমে যাবে।
একইরকম কথা বলেন হাটে গরু কিনতে আসা অনেকেই। অধিকাংশই খুঁজছেন এক লাখ টাকার মধ্যে গরু। ক্রেতাদের অভিযোগ যেসব গরু ৮০ হাজার থেকে এক লাখ টাকায় বিক্রি হওয়ার কথা সেসব গরু ৫০ থেকে থেকে ৬০ হাজার টাকা পর্যন্ত বেশি দাম হাঁকাচ্ছেন।

বিজ্ঞাপন
এখনো ঈদের কয়েকদিন বাকি থাকায় বিক্রেতারা ছাড়ছেন না গরু। তারা বলছেন, গরু পালনে খরচ বেশি। আর ঈদের এখনো বাকি থাকায় একটু পরখ করছেন। 

রাজধানীর গাবতলীর পশুর হাটে ঢুকতেই চোখে পরে পুলিশের উপস্থিতি। নকল টাকা, মলমপার্টি, দালাল ইত্যাদি থেকে সতর্ক করে করা হচ্ছে মাইকিং। গেট পেরিয়ে ভেতরে যেতেই ছোট জটলা। ‘টাইগার’র সামনে ভিড় করে অনেক লোক। ছবি তুলছেন অনেকে। টাইগার নামের গরুটি দেখার জন্যই অনেকেই যাচ্ছেন সবুজ মিয়ার শেডে। তিনি কুষ্টিয়া থেকে এনেছেন ১২টি গরু। টাইগারের দাম হাঁকা হচ্ছে ৩৫ লাখ টাকা। বাকি গরুগুলো মাঝারি ও ছোট আকারের। সবুজ জানান, টাইগারের দাম ১৮ লাখ পর্যন্ত উঠেছে। ২৫ লাখ হলে ছেড়ে দেবেন। দু’দিন ধরে গরু নিয়ে গাবতলীতে তিনি। ১২টি গরুর মধ্যে টাইগারসহ ৪টি গরু তার পালা। বাকিগুলো কিনে এনেছেন। দু’দিনে মাত্র একটি গরু বিক্রি হলেও অসন্তোষ নেই তার। তিনি বলেন, ঈদের আগে আগে বিক্রি হয় গরু।
শুক্রবার রাজধানীর গাবতলী হাটে সরজমিন দেখা যায়, থরে থরে সাজানো কোরবানির পশু। ক্রেতা সমাগম বেশ। হাঁকডাক চলছে। কিন্তু ক্রেতা অনেক হলেও বিক্রি কম। ক্রেতারা শেষ সময়ে কিনবেন কোরবানির পশু। যাচাই করছেন বেশি। পশুর হাটে গরুর সংখ্যা বেশি। বড় গরুতে চোখ সবার। কিন্তু আগ্রহ বেশি ছোট ও মাঝারি আকারের গরুতে।

সাঈদ ইসলাম কুড়িগ্রাম থেকে গরু এনেছেন ট্রাক ভর্তি করে। তারা ৪ জন মিলে এনেছেন ২২টি গরু। সাঈদের গরু ৬টি। সারা বছরে আদরে লালিত গরু আছে ৪টি আর বাকি ২টি লালন করেছেন কয়েক মাস। তিনি বলেন, ‘এই গরুগুলা পালন করার জন্য আমার প্রায় তিন লাখ ২০ হাজার টাকা ধার আছে। এগুলা বিক্রি করে টাকা পরিশোধ করতে হবে। এরপর সারা বছরের লাভ লসের হিসাব।’  
ইতিমধ্যে ২টি গরু বিক্রি হয়েছে তার। তিনি আরও বলেন, বাজারে ছোট গরুর চাহিদা বেশি। আমার সব গরুই ছোট। একটা গরু বিক্রি করেছি ১ লাখ ৩৫ হাজার টাকায়, আরেকটা ১ লাখ ৫ হাজার টাকায়। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, সব গরুই বিক্রি হয়ে যাবে।
গতকাল গাবতলীতে গরু দেখতে এসেছিলেন মিরপুর ১০ থেকে মো. আমির। তিনি বলেন, গরু দেখতে ও দাম জানতে এসেছি। গরুর দাম আগের বারের মতোই বেশি। একই কথা বলেন, আফনান নামে আরেক ক্রেতা। তিনি বলেন, আমার বাজেট দেড় লাখ টাকা। কিন্তু এই টাকায় যে গরু তা পছন্দ হচ্ছে না। আজ ফিরে যাচ্ছি। আশা করি শেষ দিনে দাম কমবে।
এক লাখ ৭৫ হাজার টাকায় গরু কেনেন মো. নাজমুল শেখ। তিনি বলেন, গরুর দাম আগের ঈদের মতোই বেশি। আরেকটা গরু কিনবো ঈদের আগে। হাটে আদর নামে একটি গরু বিক্রি হয় ৩ লাখ ২৫ হাজার টাকায়। বেশ সতর্ক ব্যবসায়ীরা। তারা বেশ সময় নিয়ে গুনে নিলেন টাকা। একই টাকা গুনে আবার আরেকজন ব্যবসায়ী ফের পরখ করায় ব্যস্ত। গরু বিক্রেতা বলেন, এখনো মানুষ অধিকাংশই দেখছেন। দাম ভালোই পাইছি। 

বাজার ঘুরে দেখা যায়, ছোট গরুর চাহিদা বেশি। তবে ছোট গরু অনেক কম। অধিকাংশ মানুষ চাইছেন ৭০ থেকে ৮০ হাজার টাকায় গরু কিনতে। কিন্তু বাজারে কম মূল্যের গরুর দাম চাওয়া হচ্ছে এক থেকে দেড় লাখ টাকা। ছোট গরুগুলো বিক্রি হচ্ছে ৮০ হাজার থেকে এক লাখ টাকায়। বাজারে অনেক গরু আছে যেগুলোর মূল্য দেড় থেকে দুই লাখ টাকা। 

ছাগলের বাজারে গরুর থেকে ক্রেতা কম। এই বাজারেও দাম নিয়ে অসন্তুষ্টি দেখা মেলে। ছাগলের ক্রেতা কম হলেও বিক্রি বেশি। তবে এই বাজারে মানুষ খুঁজছেন একটু বড় ছাগল। বাজারে অধিকাংশ ছাগল মাঝারি আকারের। দাম চাওয়া হচ্ছে ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা। যেগুলো বিক্রি হচ্ছে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকায়। আর ছোট ছোট ছাগলের দাম পড়ছে ১২ থেকে ১৫ হাজার টাকা। ছোট ছাগল বাজারে একেবারেই কম। সাগর ইসলাম বলেন, প্রতিবছর বাবা-মায়ের সঙ্গে ঈদ করি। বাবা-মা দেশে না থাকায় গরুর ঝামেলায় যাবো না। ছাগল কিনবো একটা।

হাটে অনেকেই তুলছেন ছবি, করছেন ভিডিও। আর ১২ থেকে ২০ লাখ টাকা করে চাওয়া হচ্ছে বেশ কয়েকটি গরুর। এগুলোর নাম যোদ্ধা, ডোরা, রক্ত, সাকিব খান, কালাবাহাদুর, সাহসী ইত্যাদি। বাজারে বেশ কয়েকটি বিশালদেহী মহিষও উঠেছে। এগুলোর দাম চাওয়া হচ্ছে ৮ থেকে ১০ লাখ টাকা। মরুর প্রাণী উটও শোভা বাড়াচ্ছে বাজারে। বড় পশুর বিক্রি একেবারেই কম। বিক্রেতারা আশাবাদী ঈদের আগেই বিক্রি হবে।

পাঠকের মতামত

যতই ছোট বা বড় গরু ক্রয় করেন না কেন,,,, গরুর কিন্তু বয়সে ২ বছর থেকে ১ দিনের ছোট হলেও কুরবানি আদায় হবে না,,,

শরিফ
১৫ জুন ২০২৪, শনিবার, ৭:৫৩ পূর্বাহ্ন

প্রথম পাতা থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

প্রথম পাতা সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status