ঢাকা, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, মঙ্গলবার, ১০ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৩ শাওয়াল ১৪৪৫ হিঃ

শিক্ষাঙ্গন

রমজানের প্রথম দিনে সংঘর্ষে জড়ালো বাকৃবি ছাত্রলীগ

বাকৃবি প্রতিনিধি

(১ মাস আগে) ১২ মার্চ ২০২৪, মঙ্গলবার, ৮:৪৮ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ৩:২৭ অপরাহ্ন

mzamin

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) ছাত্রী হলের সীমানা দখলকে কেন্দ্র করে শাখা ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। রমজানের প্রথম দিন মঙ্গলবার (১২ মার্চ) বিকাল সাড়ে তিনটা থেকে ইফতারের সময় পর্যন্ত দফায় দফায় সংঘর্ষ চলে। প্রশাসনের সর্বাত্মক চেষ্টা সত্ত্বেও দীর্ঘ সময় ধরে চলে ওই সংঘর্ষ। এক পর্যায়ে বিভিন্ন হল থেকে স্ট্যাম্প, ব্যাট, সাইকেলের চেইন, লাঠিসোঠা এবং দেশীয় অস্ত্র হাতে ঘটনাস্থলে জড়ো হতে দেখা যায় তাদের।

এ ঘটনায় ৮ জন আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন বাকৃবি হেলথ কেয়ারের ডেপুটি চিফ মেডিকেল অফিসার ডা. মো. সাদিকুল ইসলাম খান। তিনি আরও জানান, এর মধ্যে একজনের মাথায় সেলাই দেওয়া হয়েছে, একজনের সোল্ডার জয়েন্টে এক্সরে করতে শহরে পাঠানো হয়েছে। আর বাকি সবাইকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

জানা যায়, বিকাল সাড়ে ৩ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বেগম রোকেয়া হলের ভিতরে ঘটনার সূত্রপাত হয়। পরে তা হলের সামনে বড় আকার ধারণ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রসাশনিক ভবনের সামনে এবং পরবর্তীতে আব্দুল জব্বার মোড়ে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিশ্বস্ত সূত্র থেকে জানা যায়,  বিশ্ববিদ্যালয়ের বেগম রোকেয়া হল ছাত্রলীগ এবং শেখ রোজী জামাল হল ছাত্রলীগ যথাক্রমে বাকৃবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতির অনুসারী। বেশ কিছুদিন ধরেই দুই হলের সীমানা নির্ধারণ নিয়ে ভেতরে ভেতরে ঝামেলা চলছিলো। মঙ্গলবার সীমানা নিয়ে সমস্যার সমাধানের জন্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রবিষয়ক উপদেষ্টার সাথে দুই হলের প্রভোস্ট,  ছাত্রী নের্তৃবৃন্দ এবং ছাত্রলীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ একটি আলোচনা সভা হয়। এর মধ্যেই হলের সীমানায় ইফতারের দোকান বসানোকে কেন্দ্র করে ওই দুই হলের ছাত্রী নের্তৃবৃন্দের মধ্যে কথা-কাটাকাটি শুরু হয়।

বিজ্ঞাপন
যা এক পর্যায়ে হাতাহাতিতে রূপ নেয। পরে সেখানে শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক উপস্থিত হলেও কথা-কাটাকাটি চলতে থাকে। এক পর্যায়ে এই ইস্যুকে কেন্দ্র করে সাধারণ সম্পাদক গ্রুপের এক নেতা সভাপতি গ্রুপের একজনকে মারধর করে ছাত্রী হলের ভিতরেই। পরে তাদের হলের বাইরে বের করে আনা হয়। এসময় উত্তেজনা চরম আকার ধারণ করে। পরে হল থেকে ছাত্ররা এসে সাধারণ সম্পাদক গ্রুপের আরেকজনকে ধরে মারধর করে৷ তখন দুই গ্রুপেরই বিভিন্ন হল থেকে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা এসে ভিড় জমায় রোকেয়া হলের সামনে। হাতাহাতি -মারামারি, লাঠি-সোঠা নিয়ে দৌড়াদৌড়ি করতে থাকে দুই গ্রুপের সদস্যরা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডি সর্বাত্মক চেষ্টা করতে থাকে। এক পর্যায়ে পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত করে রোকেয়া হলের সামনে থেকে দুই গ্রুপের সদস্যদের সরিয়ে নেওয়া হয়।

কিছুক্ষণ পরে আবার প্রশাসনিক ভবনের সামনে এসে ইট পাটকেল ছুড়াছুড়ি শুরু করে দুই গ্রুপ। এসময় সভাপতির গ্রুপের সদস্যরা আব্দুল জব্বার মোড়ে অবস্থান নেয় এবং একটি উত্তেজনাকর পরিস্থিতির তৈরি হয়। এই পর্যায়ে প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যরা চলে গেলে পরিস্থিতি আরও খারাপের দিকে যেতে থাকে। একপর্যায়ে স্ট্যাম্প, ব্যাট, সাইকেলের চেইন, লাঠিসোঠা এবং দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয় । ইফতারের আগ পর্যন্ত দুই গ্রুপের মধ্যে দফায় দফায় চলতে থাকে ইটপাটকেল নিক্ষেপ। তবে ইফতারের পরে আর কোনো উত্তেজনাকর পরিস্থিতি তৈরি হয়নি।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ময়মনসিংহের কোতোয়ালী থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে আসলেও কোনো প্রকার ব্যবস্থা না নিয়েই পরে ফিরে  যায়। পুলিশ ও প্রক্টরিয়াল বডি ফিরে যাওয়ার পর পরিস্থিতি আবার বেশি খারাপের দিকে যায়।
এ বিষয়ে কোতোয়ালী থানার ওসি মোহাম্মদ মাইন উদ্দিন জানান, আমরা ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। কোনো ব্যবস্থা গ্রহণের মতো পরিবেশ তখনো ছিলো না।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. মো আজহারুল ইসলাম বলেন, ছাত্রীদের দুই হলের সীমানা সমাধানের চেষ্টা করছিলাম। এর মধ্যে ছাত্রলীগের কয়েকজনের মধ্যে দ্বন্দ্ব শুরু হয়। আমরা হলের ভিতর থেকে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করছিলাম। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের সব হলের ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মারামারিতে জড়িয়ে পড়ে। আমরা কোতোয়ালি থানা পুলিশের সহায়তায় সমস্যা সমাধানে কাজ করছি।

জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়ে তিনি বলেন, আমি তো একা আইন তৈরি করি না। এই মুহুর্তে তদন্ত কমিটি হবে কি না বলতে পারছি না।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়  শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি খন্দকার তায়েফুর রহমান রিয়াদ বলেন, একটি হল যখন তৈরি করা হয় তখন তার নির্দিষ্ট নকশা থাকে। না থাকলেও সেটি নির্ধারণ করবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। প্রশাসন ব্যর্থ হওয়ায় সেটি আমরা সমাধানের চেষ্টা করি। কিন্তু নিজেদের ভুল বুঝাবুঝির কারণে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা সংঘর্ষে ছড়িয়ে পড়ে। পরে অনেক চেষ্টার পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

এবিষয়ে শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মেহেদী হাসান বলেন, নেতা-কর্মীদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির কারণে একটি উত্তেজনাকর পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিলো। এখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

সংঘর্ষের বিষয়ে বাকৃবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. এমদাদুল হক চৌধুরী বলেন, ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনাটি শুনেছি। বিষয়টি প্রক্টর এবং ছাত্রবিষয়ক উপদেষ্টার সাথে কথা বলে নিয়মানুযায়ী পরবর্তীতে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পাঠকের মতামত

জয় বাংলা।

parvez
১৩ মার্চ ২০২৪, বুধবার, ৮:৪৮ পূর্বাহ্ন

সাধারণ ছাত্ররা সরকারের? ইফতার মাহফিল নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে গণ ইফতার কর্মসূচী সফল করেছে অত্যন্ত চমৎকারভাবে। আর ছাত্রলীগের যা কাজ, যা চরিত্র, তার স্বাক্ষর রেখেছে এই সংঘর্ষের ঘটনার মধ্য দিয়ে। এরা কি আসলেই ছাত্র!

Asham ahad
১২ মার্চ ২০২৪, মঙ্গলবার, ৯:৪২ অপরাহ্ন

ছাত্রলীগ এখন একটা সন্তাসী সংগঠন এদের নিষিদ্ধ করা উচিত,ওরা রমজান মাসে ও সন্ত্রাসী কার্যক্রম করে, শয়তান যা না করে এরা তার দায়িত্ব পালন করেন

MD jafor
১২ মার্চ ২০২৪, মঙ্গলবার, ৯:৩১ অপরাহ্ন

শিক্ষাঙ্গন থেকে আরও পড়ুন

   

শিক্ষাঙ্গন সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status