ঢাকা, ২৫ জুন ২০২২, শনিবার, ১১ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৪ জিলক্বদ ১৪৪৩ হিঃ

শিক্ষাঙ্গন

নতুন শিক্ষাক্রমে ধর্ম শিক্ষার বিষয়ে এনসিটিবি’র ব্যাখ্যা

স্টাফ রিপোর্টার

(১ দিন আগে) ২৪ জুন ২০২২, শুক্রবার, ১০:৩১ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ২:০৯ অপরাহ্ন

নতুন শিক্ষাক্রমে ধর্ম শিক্ষাকে বাদ দেয়া হয়েছে বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারিত তথ্য সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট বলে জানিয়েছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)। নতুন শিক্ষাক্রমে চারটি ধর্মের আলাদা চারটি পাঠ্যপুস্তক রাখা হয়েছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার এনসিটিবি চেয়ারম্যান প্রফেসর মো. ফরহাদুল ইসলাম সাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এনসিটিবি বা সরকারের ধর্ম শিক্ষা বাদ দেয়ার কোনো সুযোগ বা পরিকল্পনা নেই। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের শিক্ষা নিয়ে বিভ্রান্তি জাতির জন্য কল্যাণকর নয়। আমরা শিক্ষাক্রম নিয়ে বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়ানো থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানাচ্ছি।

আরও বলা হয়েছে, শিক্ষাক্রমে দশম শ্রেণি পর্যন্ত ১০টি বিষয় বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। সেগুলো হলো বাংলা, ইংরেজি, গণিত, বিজ্ঞান, ডিজিটাল প্রযুক্তি, স্বাস্থ্য সুরক্ষা, ইতিহাস ও সামাজিক বিজ্ঞান, ধর্মশিক্ষা, জীবন ও জীবিকা এবং শিল্প ও সংস্কৃতি।

ধর্মশিক্ষা বিষয়ে পৃথক চারটি পাঠ্যপুস্তক রাখা হয়েছে। হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের জন্য হিন্দুধর্ম শিক্ষা, বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের বৌদ্ধধর্ম শিক্ষা, খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বীদের জন্য খ্রিষ্ট ধর্ম শিক্ষা এবং ইসলাম ধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থীদের জন্য ইসলাম শিক্ষা নামে পাঠ্যপুস্তক রয়েছে। ইসলাম শিক্ষা স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি ও ইসলাম শিক্ষা বিষয়ের শিক্ষকেরা প্রণয়ন করেছেন।

শিক্ষাক্রমে ধর্মশিক্ষাকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে ধর্মীয় আচার, আচরণ ও মূল্যবোধ চর্চায় গুরুত্ব দেয়া হয়েছে বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।
 

বিজ্ঞাপন

পাঠকের মতামত

আল্লাহ কে ভয় করুন। যিনি আমাদের সবাইকে সৃষ্টি করেছেন। মুসলিম হয়ে ইসলাম কে নিয়ে এবং ইসলাম শিক্ষা নিয়ে এরকম প্রহসন, তুচ্ছ, তাচ্ছিল্য করবেন না। আগের মত ইসলাম শিক্ষার বই কে পূর্নাঙ্গ রূপ দিন। মানুষের সাথে ফাজলামো করছেন,কিন্তু আল্লাহর সাথে ফাজলামো করার ফল কি হতে পারে, আপনি, আপনার পরিবার, ববংশধর রা ও আল্লাহর গজবে পড়বেন। বাংলা বই থেকে হিন্দু দেব-দেবীর কাহিনী বাদ দিন, ৯৫%মুসলমানদের দেশের বইয়ে কবি ফররুখ আহমদ, নজরুলের কবিতা সহ লুতফুর রহমানের মহত জীবন এই সব প্রবন্ধ যুক্ত করুন। মনে রাখবেন, দেশ প্রেমিক ভাল মানুষকে সবাই স্মরণ করে, কিন্তু মীর জাফরকে সবাই অভিশাপ দেয়।

Abdur Rahman
২৪ জুন ২০২২, শুক্রবার, ৯:৪৩ পূর্বাহ্ন

" হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের জন্য হিন্দুধর্ম শিক্ষা, বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের বৌদ্ধধর্ম শিক্ষা, খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বীদের জন্য খ্রিষ্ট ধর্ম শিক্ষা এবং ইসলাম ধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থীদের জন্য ইসলাম শিক্ষা নামে পাঠ্যপুস্তক রয়েছে।" সব ধর্মাবলম্বীদের বইয়ের নামের পরে ধর্ম শব্দটি আছে তাহলে ইসলাম ধর্মের বইয়ে নাম কেন শুধু "ইসলাম শিক্ষা" রাখা হইল?? তাহলে কি সরকারের ধারনা ইসলাম কোন ধর্ম নয়? ইসলাম কেবলই একটা সাধারন বিষয় ??? সব চোরই নিজের অজান্তে ক্লু রেখে যায়, ঠিক তেমনি সব অনির্বাচিত দানব সরকারই তাদের নিজের অজান্তেই তাদের হীনসার্থের ক্লু রেখে যায়!!

নেছার আহমেদ
২৪ জুন ২০২২, শুক্রবার, ২:৫৭ পূর্বাহ্ন

There should not separate religion study for various religious children. Every child should study all religions to increase there knowledge. Not only these the child will study the tolerances of religious. It will decrease the religious envy.

Tofazzel Hossain
২৪ জুন ২০২২, শুক্রবার, ২:৪২ পূর্বাহ্ন

বাংলা বইয়ে শুধুমাত্র হিন্দু ধর্মের বিবরণ দেওয়া হয়েছে গল্প কবিতার মাধ্যমে কিন্তু ইসলাম ধর্মের কিছু নাই।

আবির
২৪ জুন ২০২২, শুক্রবার, ১:৩২ পূর্বাহ্ন

বাংলা ২০০ থেকে ১০০তে নামিয়ে,বাকী ১০০কোরআন ও হাদিসে নির্ধারন করা হোক। ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা ১০০,কোরআন ও হাদিস ১০০০।

Mahiuddin molla
২৪ জুন ২০২২, শুক্রবার, ১:১০ পূর্বাহ্ন

বাংলা ও ইংরেজির ২য় পত্র যেন না থাকে। জীবন ও জীবিকা বিষয়ে আরবি ভাষা যুক্ত করতে হবে।

শহিদ
২৩ জুন ২০২২, বৃহস্পতিবার, ১০:৩৫ অপরাহ্ন

শিক্ষাঙ্গন থেকে আরও পড়ুন

শিক্ষাঙ্গন থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com