ঢাকা, ৩০ জুন ২০২২, বৃহস্পতিবার, ১৬ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৯ জিলক্বদ ১৪৪৩ হিঃ

অনলাইন

রুশ খাদ্য ও সার আমদানিতে সমস্যা হলে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করুন: যুক্তরাষ্ট্র

(৬ দিন আগে) ২৩ জুন ২০২২, বৃহস্পতিবার, ১২:৩৪ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ৫:১৬ অপরাহ্ন

রুশ খাদ্য ও সার আমদানিতে কোনো সমস্যা হলে দেশগুলোর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কাছে সাহায্য চাওয়া উচিত। বুধবার একজন ঊর্ধ্বতন মার্কিন কর্মকর্তা বলেছেন, এই ধরনের পণ্য ইউক্রেনে মস্কোর যুদ্ধের জন্য মার্কিন নিষেধাজ্ঞার অধীন নয়। মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্ট ব্যুরো অফ ইকোনমিক অ্যান্ড বিজনেস অ্যাফেয়ার্সের সহকারী সেক্রেটারি রামিন টোলুই সাংবাদিকদের বলেছেন, রাশিয়াকে তার শস্য ও সার রপ্তানি থেকে কিছুতেই বিরত করা যাচ্ছে না। সেই সঙ্গে পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞাগুলি মেনে চলার বিষয়ে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে একাধিক দেশের মধ্যে। ২৪ ফেব্রুয়ারি রাশিয়া প্রতিবেশী দেশ ইউক্রেন আক্রমণ করার পর থেকে ওয়াশিংটন মস্কোর উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। রাশিয়ার খাদ্য ও শস্য রপ্তানি সহজতর করা জাতিসংঘ এবং তুর্কি কর্মকর্তাদের মস্কোর সাথে একটি প্যাকেজ চুক্তির অংশ, যা ওডেসার কৃষ্ণ সাগর বন্দর থেকে ইউক্রেনের শস্যের চালানের অনুমতি দেয়। মঙ্গলবার তুর্কি প্রেসিডেন্সির একটি সূত্র জানিয়েছে যে, রাশিয়া, ইউক্রেন, তুরস্ক এবং জাতিসংঘের কর্মকর্তাদের মধ্যে একটি বৈঠক সম্ভবত আগামী সপ্তাহে ইস্তাম্বুলে অনুষ্ঠিত হবে। টোলুই জাতিসংঘের প্রচেষ্টা সম্পর্কে বলেছেন, 'আমরা এই প্রচেষ্টাকে সম্পূর্ণরূপে সমর্থন করি। পুতিনের আক্রমণের পর আমরা ইউক্রেনে খাদ্য নিরাপত্তার অভাব প্রশমিত করার জন্য জাতিসংঘের প্রতিনিধিদল এবং ইউক্রেন সরকারের সাথে ঘনিষ্ঠ সমন্বয় অব্যাহত রাখব।''রাশিয়ার যুদ্ধ বিশ্বব্যাপী খাদ্য সংকট সৃষ্টি করেছে। রাশিয়া এবং ইউক্রেন বিশ্বব্যাপী গম সরবরাহের প্রায় এক তৃতীয়াংশের জন্য দায়ী, অন্যদিকে রাশিয়াও একটি প্রধান সার রপ্তানিকারক দেশ এবং ইউক্রেন ভুট্টা এবং সূর্যমুখী তেলের রপ্তানিকারক।

বিজ্ঞাপন
উল্টে মস্কো খাদ্য সংকটের দায় অস্বীকার করে পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞা এবং ইউক্রেনকে তার কৃষ্ণ সাগর বন্দর খননের জন্য দায়ী করেছে। মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্ট ব্যুরো অফ ইকোনমিক অ্যান্ড বিজনেস অ্যাফেয়ার্সের সহকারী সেক্রেটারি আরো বলেছেন, 'মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র চায় না যে দেশগুলি রাশিয়ান খাদ্য, সার কেনার ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতিবন্ধকতার মুখে পড়ুক। " তিনি দেশগুলিকে বার্তা দিয়েছেন যে তারা সমস্যায় পড়লে মার্কিন ট্রেজারি বিভাগ বা স্থানীয় মার্কিন দূতাবাসগুলির সাথে যেন যোগাযোগ করে ।

সূত্র : রয়টার্স

অনলাইন থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

অনলাইন থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com