ঢাকা, ৩০ জুন ২০২২, বৃহস্পতিবার, ১৬ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৯ জিলক্বদ ১৪৪৩ হিঃ

শরীর ও মন

প্রসূতি মায়ের ত্বকের যত্ন

অধ্যাপক (ডা.) মোহাম্মদ আবদুল হাই
১৯ জুন ২০২২, রবিবার

যারা সদ্য মা হয়েছেন, তাদের আনন্দ অনুভূতি সম্পূর্ণ অন্যরকম। জন্মের পরপরই পরিবারের এই নতুন সদস্যকে নিয়ে মায়েরা মহাব্যস্ত হয়ে পড়েন। নিজের যত্ন নিতে তারা ভুলেই যান! কিন্তু এ সময়ে নবজাতকের সঙ্গে সঙ্গে প্রয়োজন সদ্য মায়েরও বিশেষ পরিচর্যা। অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় মায়েদের প্রোজেস্টেরন হরমোনের ক্ষরণ অনেকটাই বেড়ে যায়। কমতে থাকে ইস্ট্রোজেনের মাত্রা। এই কারণে চুল পড়ার সমস্যা বাড়ে। অনেক মহিলার এই সময়ে মুখে ব্রণ, দাগ-ছোপও হয়। মূলত হরমোনের তারতম্যের কারণে এমন সমস্যা দেখা যায়। সন্তানের জন্মের পরও এই সমস্যা পিছু ছাড়ে না। বেশির ভাগ মায়েরই এ সময় ওজন বেড়ে যায়।

বিজ্ঞাপন
নানা কারণে অনেকের শরীরে পানি জমে। এতে চেহারার মধ্যে এক ধরনের বয়সের ছাপ পড়ে। তল পেটের চামড়া কুঁচকে যায়। তাই ফিট হতে গেলে নিতে হবে বাড়তি পরিচর্যা। বাচ্চাকে সামলে নিজের জন্য কিছুটা সময় বরাদ্দ রাখতেই হবে। 

হবু মায়েদের ত্বকের পরিচর্যা 

১) প্রথমত ত্বকের নিবিড় যত্ন নিতে হবে। প্রতিদিন সঠিকভাবে ক্লিনজার দিয়ে শরীর ধুতে হবে। অবশ্যই ভালো মানের একটি ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে। তলপেট এবং পায়ে অলিভ অয়েল ম্যাসাজ করলে অনেক উপকার পাওয়া যায়। মুখের ত্বকে ভিটামিন সি’যুক্ত সিরাম ব্যবহার করলে দাগ অনেকটাই কমে যায়।  

২) প্রচুর পরিমাণে পানি খেতে হবে। জল খেলে শরীর যেমন সুস্থ থাকবে তেমনই ত্বকের নানা সমস্যার সমাধানও হবে। শিশুকে স্তন্যদুগ্ধ পান করানোর সময় শরীরে জলের ঘাটতি হয়। তাই ত্বকে ব্রণ, ফুসকুড়ির আনাগোনাও বাড়ে।

 ৩) প্রেগন্যান্সির সময় শরীরে অনেক স্ট্রেস পড়ে। তাই এ সময়ে প্রয়োজন বাড়তি খাবার-দাবার। পুষ্টিকর খাওয়া হলে শরীর যথেষ্ট পরিমাণ অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট পাবে। তাতে চুলের গোড়া শক্ত হবে, চুল পড়ার সমস্যা দূর হবে। 

৪) এই সময়ে ঘুমের অভাব হয়। পর্যাপ্ত ঘুম না হলে তার প্রভাব শরীরের পাশাপাশি ত্বকের উপরেও পড়ে। চোখের তলায় কালো কালি জমে। চেষ্টা করুন শিশু যেই সময় ঘুমাচ্ছে আপনিও সেই সময়টুকু ঘুমিয়ে নিতে পারেন। এই সময়ে খুব বেশি ভারী শরীরচর্চা করা উচিত নয়। তবে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে মাস তিনেক পর থেকে ব্যয়াম অবশ্যই শুরু করতে হবে। 

৫) অনেকেরই এ সময়ে চুল পড়ার সমস্যা দেখা যায়। হরমোনের তারতম্যের কারণে এ সময়ের চুল পড়ার সমস্যা অনেকেরই থাকে। পরবর্তী ছয় মাসের ভেতরে চুলগুলো এমনিতেই আবার গজায়। তবুও চুল অতিরিক্ত পড়লে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া উচিত। 

৬) মুখসহ শরীরের বিভিন্ন জায়গায় এ সময়ে কালো ছোপ পড়ে। ভিটামিন সি’যুক্ত কোনো ক্রিম ব্যবহারে বেশ উপকার মেলে। 

লেখক: (চর্ম, যৌন ও অ্যালার্জি রোগ বিশেষজ্ঞ), জালালাবাদ রাগীব রাবেয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, সিলেট।  চেম্বার: ২২, স্টেডিয়াম মার্কেট, সিলেট। ফোন-০১৭১২২৯১৮৮৭

শরীর ও মন থেকে আরও পড়ুন

শরীর ও মন থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com