ঢাকা, ২৫ জুন ২০২২, শনিবার, ১১ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৪ জিলক্বদ ১৪৪৩ হিঃ

শরীর ও মন

সিফিলিস: কারণ ও প্রতিকার

ডা. এসএম বখতিয়ার কামাল
১৬ জুন ২০২২, বৃহস্পতিবার

সিফিলিস একটি মারাত্মক যৌন ব্যাধি। সাধারণত এটি শরীরে ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ এবং সহবাসের মাধ্যমেই বেশি হয়ে থাকে। এই ব্যাকটেরিয়ার নাম ট্রিপোনেমা প্যালিডাম। যে গর্ভবতী মায়েরা এই ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের শিকার হয় তাদের ক্ষেত্রে গর্ভজাত শিশু অস্বাভাবিক হতে পারে বা শিশু জন্মের পরই মারাও যেতে পারে।

যেভাবে ছড়ায় 

অনিরাপদ যৌন মিলন বা সংক্রমিত ব্যক্তির সঙ্গে সহবাসের ফলে এই রোগ ছড়ায়। ভ্যাজাইনাল, অ্যানাল বা ওরাল সেক্সের মাধ্যমে এই ব্যাকটেরিয়া শরীরে প্রবেশ করে। শুধু মাত্র সহবাসই এই রোগের জন্য দায়ী তা কিন্তু নয়। রক্তদানের সময় একই সুঁচ ব্যবহার করলে এই ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ হতে পারে। কিন্তু একই শৌচালয় ব্যবহার করলে বা জামা বদল করলে এই ব্যাকটেরিয়া ছড়ায় না। কারণ সিফিলিস রোগের ব্যাকটেরিয়া মানবদেহের বাইরে বেশিক্ষণ বেঁচে থাকতে পারে না।

লক্ষণ

এই রোগের তিনটি আলাদা পর্যায় রয়েছে৷ রোগের পর্যায় বা ধাপ অনুযায়ী উপসর্গ পরিলক্ষিত হয়। এই রোগের প্রথম ধাপকে প্রাইমারি সিফিলিস বলা হয়।

বিজ্ঞাপন
এটিতে যৌনাঙ্গ বা মুখের আশেপাশে যন্ত্রণাহীন কালশিটে দাগ পড়তে দেখা যায়। এই দাগগুলো ২ থেকে ৬ সপ্তাহের মধ্যে আবার মিলিয়ে যায়।
দ্বিতীয় ধাপটি হলো সেকেন্ডারি সিফিলিস। এই পর্যায়ের লক্ষণ আবার আলাদা হয় যেমন, ত্বকে ফুসকুড়ি, গলা ব্যথা। এগুলো কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই সেরে যায়। এরপর এটি সুপ্ত অবস্থায় চলে যায় এবং এটি কয়েক বছর ধরে থাকে।তৃতীয় পর্যায়ে এটিকে টেরটিয়ারি সিফিলিস বলা হয়ে থাকে। এটি হলো সবচেয়ে মারাত্মক পর্যায়। প্রতি তিনজন সিফিলিস আক্রান্ত রোগী যারা এর চিকিৎসা করেন না তাদের ক্ষেত্রে এই টেরটিয়ারি সিফিলিস দেখা যায়। এটি মস্তিষ্ক, চোখ ও শরীরকে  মারাত্মকভাবে ক্ষতি করতে পারে। 

প্রতিকার
অবহেলা না করে হাসপাতালে বা ক্লিনিকে যেতে হবে এবং চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। প্রাথমিক সিফিলিস চিকিৎসার মাধ্যমে ভালো হয়ে যায়। তবে তা যদি কোনোভাবে মারাত্মক আকার ধারণ করে তবে এ থেকে বিভিন্ন সমস্যা হতে পারে। প্রথমধাপে অ্যান্টিবায়োটিক বা পেনিসিলিন ইনজেকশনের মাধ্যমে এটিকে সুস্থ করা হয়। বিনা চিকিৎসায় এটির কারণে মারাত্মক সমস্যা হতে পারে। এছাড়া বেশির ভাগ ক্ষেত্রে এই রোগ থেকে এইআইভি সংক্রমণ হতে পারে। তাই এই রোগ থেকে মুক্ত থাকতে গুরুত্বপূর্ণ উপায় হলো অরক্ষিত যৌন মিলন এড়িয়ে চলা এবং সুরক্ষিত যৌন পদ্ধতি গ্রহণ করা আর সিফিলিস রোগ সম্পর্কে সচেতন থাকা।

লেখক: সহকারী অধ্যাপক (সাবেক), ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (চর্ম, যৌন ও অ্যালার্জি রোগ বিভাগ)
চেম্বার: কামাল হেয়ার অ্যান্ড স্কিন সেন্টার, বিটিআই সেন্টার গ্রান্ড (২য় তলা), ফার্মগেট, গ্রীন রোড, ঢাকা।
প্রয়োজনে-০১৭১১৪৪০৫৫৮

শরীর ও মন থেকে আরও পড়ুন

শরীর ও মন থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com