ঢাকা, ১৩ জুলাই ২০২৪, শনিবার, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৬ মহরম ১৪৪৬ হিঃ

কলকাতা কথকতা

কলকাতায় ইলিশের হালচাল

বিশেষ সংবাদদাতা, কলকাতা

(৯ মাস আগে) ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩, বুধবার, ৯:৫৯ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ১২:১১ পূর্বাহ্ন

mzamin

গত তিনদিনে বাংলাদেশ থেকে ১৭৪ টন ৭০০ কেজি ইলিশ ঢুকেছে বেনাপোল-পেট্রাপোল সীমান্ত দিয়ে। কিন্তু তা সত্ত্বেও কলকাতার বাজারে দীঘার ইলিশ হারিয়ে দিচ্ছে পদ্মার ইলিশকে। কারণটা অবশ্য দামের তারতম্য। পদ্মার চকচকে জলের রুপালি শস্যর দাম যেখানে কেজি প্রতি ১৫০০ থেকে ১৮০০ রুপি, সেখানে এক কেজি দীঘা কিংবা ডায়মন্ড হারবারের ইলিশের দর কমবেশি হাজার রুপি। মধ্যবিত্ত বাঙালি তাই দীঘার ইলিশের দিকেই ঝুঁকছেন।

বাংলাদেশ থেকে পদ্মার ইলিশ এনে যারা মোটা মুনাফার আশা করেছিলেন তাদের মাথায় হাত। বাংলাদেশ থেকে পাইকারি রেটে ৮২০ রুপি কেজি দরে ইলিশ কিনে তাতে যদি দেড় হাজার কিংবা ১৮০০ রুপি দাম না ফেলা যায় তাহলে লাভ থাকে না। 

তাই, বাংলাদেশের ইলিশ নিয়ে উদ্দীপনা একটু কম। প্রথম দিকে বাংলাদেশের ইলিশ গত বৃহস্পতিবার এসে পৌঁছানো মাত্র যে উৎসাহ-উদ্দীপনার জোয়ার দেখা গিয়েছিল তা অনেকটাই যেন স্তিমিত। পেট্রাপোল সীমান্তে ভারতের ক্লিয়ারিং এজেন্ট স্টাফ ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক কার্তিক চক্রবর্তীর কথায়- পূজার মুখে বাংলাদেশ ইলিশের কদর বাড়বে। তখন দীঘা-ডায়ামন্ড হারবারের ইলিশে টান পড়বে। মানুষ ঝুঁকবে বাংলাদেশের ইলিশের দিকে।

বিজ্ঞাপন
কারণ, অষ্টমী নবমীতে সর্ষে ইলিশ, ইলিশ ভাপা, ইলিশ বিরিয়ানি, ইলিশ পাতুরি ছাড়া পূজার ভোজ জমেই না। বেনাপোল সীমান্তের ফিশারিজ কেরেন্টাইন অফিসার মাহাবুব উর রহমান এর বক্তব্যও তাই। তার ধারণা পদ্মা-মেঘনার ইলিশের চাহিদা বাড়বে ক্রমশ। বাংলাদেশের ক্রেতারা একটু বিমর্ষ। ভারতে রপ্তানি শুরু হওয়ার পর ইলিশের দাম স্থানীয় বাজারে চারশো থেকে পাঁচশো টাকা কেজি বেড়েছে।

কলকাতা কথকতা থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

কলকাতা কথকতা সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status