ঢাকা, ২৫ জুন ২০২২, শনিবার, ১১ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৪ জিলক্বদ ১৪৪৩ হিঃ

কলকাতা কথকতা

ট্রেনাররা কোথায় ছিলেন?

ছেলেকে লেকের জলে কার্যত তলিয়ে যেতে দেখেন সোনালি

বিশেষ সংবাদদাতা, কলকাতা

(১ মাস আগে) ২৩ মে ২০২২, সোমবার, ৯:৪৯ পূর্বাহ্ন

রোইং করতে গিয়ে শনিবার বিকেলে লেকের জলে তলিয়ে যাওয়া পুষণ সাধুখাঁর মা সোনালি কার্যত ছেলেকে তলিয়ে যেতে দেখেন। উল্টোডাঙা ট্রাফিক গার্ড এর অতিরিক্ত ওসি পীযুষ সাধুখাঁর। স্ত্রী তাঁদের ঝিল রোড এর বাসভবন থেকে লেক ক্লাব এ এসেছিলেম রেগেটা অনুশীলন দেখবেন বলে। ঝড় ওঠার আগেই তিনি হাঁটতে বেরিয়েছিলেন। কালবৈশাখীর তান্ডব শুরু হতেই ক্লাব এ ফিরে আসেন। তখনই দেখেন পুষণদের নৌকো উল্টে যাচ্ছে। লেক ক্লাব এর অফিসিয়ালরা তাঁকে আস্বস্ত করেন, উদ্ধার করে আনা হবে পুষণকে। উদ্ধার হয়ও। কিন্তু, তা পুষণ এর প্রাণহীন দেহ। নিস্পন্দ কান্নায় ভেঙে পড়ছেন সোনালি।

বিজ্ঞাপন
পুষণ এর বাবা পীযুষ ছেলের মরদেহ সনাক্ত করেন মর্গে। সঙ্গী পুলিশ অফিসাররাই বাকি কাজ করেছে। জলে ডুবে মৃত আর এক রোআর সৌরদীপ এর দাদা সৌভিক প্রশ্ন তুলেছে, ঝড় উঠতেই ট্রেনাররা কেন জল ছেড়ে উঠে গেলেন? ভাইকে আর ফিরে পাবেনা জেনে সৌভিক আর বিষয়টা নিয়ে নাড়াচাড়া চায়না। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী পুষণ-সৌরদীপ টিম এর রোআর সাউথ পয়েন্টের ১৩ বছরের ক্লাস এইট এর ছাত্র দেবাংশ জানায়, ঝড়ে তাদের বোট উল্টে যায়। তাদের হাত পা অসাড় হয়ে গিয়েছিলো। সাঁতার কাটারা মত অবস্থা ছিলোনা। অন্য একটি বোট তাকে তুলে না নিলে কি হত ভাবতেই শিউরে উঠছে দেবাংশ। সাঁতার কাটতে পারেনি বলেই পুষণ আর সৌরদীপ তলিয়ে গেছে বলে তার অনুমান। পুষণ তাকে বলেছিলো, এবার সোনাটা জিততেই হবে। সোনা অধরাই থেকে গেল। পুষণ আজ অমৃতলোকের বাসিন্দা।

কলকাতা কথকতা থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

কলকাতা কথকতা থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com