ঢাকা, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১৬ শাবান ১৪৪৫ হিঃ

শিক্ষাঙ্গন

বেরোবিতে গবেষণা বেড়েছে পাঁচ গুণ

বেরোবি প্রতিনিধি

(১ বছর আগে) ২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, বৃহস্পতিবার, ১১:৫০ পূর্বাহ্ন

mzamin

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) শিক্ষক শিক্ষার্থীদের গবেষণা পত্র উত্তরোত্তর সমৃদ্ধ হচ্ছে। গত কয়েক বছরে গবেষণা বেড়েছে পাঁচ গুণেরও বেশি। প্রতি বছরের গবেষণা নিবন্ধের সংখ্যা পর্যালোচনা করে এমন চিত্র দেখা গেছে। 
গবেষণা খাতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সার্বিক ও আর্থিক সহযোগিতার কারণে গবেষণায় আগ্রহী হচ্ছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বলে মনে করছেন গবেষকরা। তবে গবেষণা খাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বরাদ্দ আরো বেশি প্রয়োজন বলে জানান তারা।
জার্নাল, বুক রিভিউ এবং কনফারেন্স পেপার সম্পর্কিত সাইটেশনের উপাত্ত নিয়ে কাজ করা স্কোপাসের তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, এখন পর্যন্ত স্কোপাস ইনডেক্সে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের প্রকাশিত মোট গবেষণা পত্রের সংখ্যা ৫৩২টি।। এর মধ্যে ২০১৭ সালে ২৯টি, ২০১৮ সালে ২৯টি, ২০১৯ সালে ৪৯টি, ২০২০ সালে ৭৫টি, ২০২১ সালে ১৪৪টি এবং সর্বশেষ ২০২২ সালে ১৫৭টি গবেষণা পত্র প্রকাশিত হয়।
বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মধ্যে ২১৫টি গবেষণা পত্র প্রকাশ করে তালিকার শীর্ষে অবস্থান করছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. আবু রেজা মোঃ তৌফিকুল ইসলাম। অপরদিকে ৩৩টি গবেষণা পত্র প্রকাশ করে তালিকার দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছেন পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোঃ কামরুজ্জামান।
তৃতীয় অবস্থানে থাকা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষার্থী রুকাইয়া ইসলামের প্রকাশিত গবেষণার সংখ্যা ২৯টি। ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. মোঃ ফেরদৌস রহমান ২৬টি গবেষণা পত্র প্রকাশ করে তালিকার চতুর্থ অবস্থানে আছেন। এছাড়া পঞ্চম অবস্থানে থাকা পরিসংখ্যান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক  ড. মোঃ শাহ্জামানের প্রকাশিত গবেষণা পত্র ২৩টি। ষষ্ঠ অবস্থানে থাকা ফাইনান্স এন্ড ব্যাংকিং বিভাগের  বিভাগীয় প্রধান ড. মোঃ নুর আলম সিদ্দিক। তার প্রকাশিত গবেষণা পত্র ১৯টি।

বিজ্ঞাপন
৭ম অবস্থানে থাকা পরিসংখ্যান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোঃ সিদ্দিকুর রহমান তার প্রকাশিত গবেষণা পত্র ১১টি।
গত বছরের ১০ অক্টোবর আমেরিকার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও বিখ্যাত জার্নাল এলসেভিয়ার বিজ্ঞানীদের প্রকাশনা, এইচ-ইনডেক্স, সাইটেশন ও অন্যান্য সূচক বিশ্লেষণ করে একটি তালিকা প্রস্তুত কর। এ তালিকায় বিশ্বসেরা ২ শতাংশ বিজ্ঞান গবেষকের তালিকায় বাংলাদেশের ১৪২ শিক্ষকের মধ্যে স্থান পেয়েছেন বেরোবি দুই শিক্ষক। তারা হলেন- জীব ও ভূ-বিজ্ঞান অনুষদের ডিন সহযোগী অধ্যাপক ড. আবু রেজা মো. তৌফিকুল ইসলাম ও পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. কামরুজ্জামান। বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে তাদের অবস্থান যথাক্রমে ৪০তম ও ৮৯তম এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তাদের অবস্থান যথাক্রমে ৭০৮ ও ৫৭১৩তম।

এছাড়া সম্প্রতি উচ্চশিক্ষায় গবেষণা সহযোগিতা প্রকল্প ‘জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ফেলোশিপ’ (এনএসটি) পেয়েছেন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪০ শিক্ষার্থী। তাদেরকে গবেষণার জন্য ৫৪ হাজার টাকা দেওয়া হয়।
দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও গবেষক ড. আবু রেজা মোঃ তৌফিকুল ইসলাম বলেন, গুণগত গবেষণার মাধ্যমে গবেষকের গবেষণা পত্র প্রকাশিত হয়। ভালো লাগার জায়গা হল গবেষণায় গুটি গুটি পায়ে এগিয়ে চলছে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের র্যাংকিং বাড়ানোর জন্য গবেষণার কোন বিকল্প নেই। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা উপকৃত হবে আশা রাখি।
পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান সহযোগী অধ্যাপক গবেষক ড. কামরুজ্জামান বলেন, বর্তমান যুগে তাল মেলানোর জন্য আমাদের শিক্ষার্থীরা দেশে ও দেশের বাইরে ছড়িয়ে পড়ে সুনাম অর্জন করতে পারে এই দৃষ্টিকোণ থেকে আমি আমার শিক্ষার্থীদের গবেষণায় উৎসাহ উদ্দীপনা জোগাই।
বেরোবি গবেষণা সম্প্রসারণ দপ্তরের পরিচালক ড. তানজিউল ইসলাম বলেন, আমাদের শিক্ষকরা গবেষণায় অনেক এগিয়ে। সেই সাথে শিক্ষার্থীদেরও গবেষণায় আগ্রহ বেড়েছে। বাজেট বাড়ানো উচিত। তবে, গবেষনায় বাজেট বরাদ্দ ইউজিসি কর্তৃক প্রদান করা হয়।

সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হাসিবুর রশীদ বলেন, এই বিশ্ববিদ্যালয়কে সেশনজট মুক্ত করার পাশাপাশি গবেষণায় বেশ গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। মান সম্মত শিক্ষা ও গবেষণায় এই বিশ্ববিদ্যালয়কে অনন্য প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। আগামী অর্থবছর থেকে গবেষণা খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হবে।
 

শিক্ষাঙ্গন থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

শিক্ষাঙ্গন সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2023
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status