ঢাকা, ২৩ মে ২০২৪, বৃহস্পতিবার, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিঃ

শরীর ও মন

মানবদেহের সবচেয়ে বড় অঙ্গ ত্বক ও এর ধরন

অধ্যাপক ডা. এসএম বখতিয়ার কামাল
৬ মে ২০২৪, সোমবার
mzamin

মানবদেহ পাতলা একটি স্তর দ্বারা আবৃত, যা ত্বক নামে পরিচিত। একটি অঙ্গ হিসেবে এটিরও গুরুত্বপূর্ণ কিছু কাজ  আছে। এই ত্বকের একাধিক স্তর রয়েছে এবং আমরা কেবল এর সবচেয়ে বাইরের অংশ দেখতে পাই।  শরীরের জন্য  এটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ এবং এটি প্রায় পুরো শরীর জুড়ে ছড়িয়ে রয়েছে। এটি আপনাকে যেমন বাইরে থেকে রক্ষা করে তেমনই এরসঙ্গে আপনাকে সংযুক্ত করে।

ত্বকের শ্রেণিবিভাগ বা স্তর
ত্বকের স্তর: ত্বকের তিনটি স্তর রয়েছে যথা, এপিডার্মিস, ডার্মিস ও হাইপোডার্মিস।
এপিডার্মিসে কোনো রক্তনালি থাকে না। গভীরতম স্তরের কোষগুলো পুরোপুরিভাবে আশপাশের কোষের অক্সিজেন দ্বারা ব্যাপনের মাধ্যমে পুষ্ট হয়। এপিডার্মিসের নিম্নোক্ত পাঁচটি উপস্তর আছে, যথা- স্ট্র্যাটাম কর্নিয়াম, স্ট্র্যাটাম লুসিডাম, স্ট্র্যাটাম গ্র্যানুলোসাম, স্ট্র্যাটাম স্পিনোসাম, স্ট্র্যাটাম বেসাল। ত্বকে এপিডার্মিসের নিচে যোগকলা সমৃদ্ধ স্তরটি হলো ডার্মিস, তার নিচে রয়েছে হাইপোডার্মিস।

ত্বক  দেখতে যেমন: আমাদের ত্বক বিভিন্ন রঙের হয়, যাকে স্কিনশেড বলা হয়ে থাকে। এই রং জিনবস্তুর ওপর নির্ধারিত হয়। এ ছাড়াও ত্বক আপনার শরীরের কোন অংশটি ঢেকে রাখছে তার ওপরও এটি নির্ভর।

বিজ্ঞাপন
অঙ্গভেদে ত্বকের রঙের বদল হয় পিগমেন্টেশনের জন্য। সাধারণত সূর্যের আলোর সংস্পর্শে অনাবৃত থাকা অংশে ত্বকের বর্ণ গাঢ় হয়। এটি ঘটে কারণ আপনার ত্বক আপনাকে রোদে পোড়া ও তার ক্ষতিকারক প্রভাব থেকে রক্ষা করতে মেলানিন সংশ্লেষ করে। আপনার ত্বকে তৈরি মেলানিনের পরিমাণও বংশগতভাবে নির্ধারিত এবং মানুষ ভেদে পরিবর্তিত হয়।

রোম: আপনার ত্বকে বিভিন্ন স্থান আলাদা ঘনত্বের রোম দিয়ে আচ্ছাদিত। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, আপনার মাথা চুল বা রোমে ভরা থাকে, আবার আপনার হাতের তালুতে কোনো রোম থাকে না। আপনি যদি আপনার পরিচিত অন্য ব্যক্তিদের সম্পর্কে চিন্তা করেন তবে আপনি লক্ষ্য করবেন যে, তাদের কারও কম এবং কারও শরীরে রোম বেশি। এটি লিঙ্গ, বয়স এবং বংশগতির (জিনবস্তু) ওপর যেমন নির্ভর করে তেমনি তাদের অনুকূল পরিস্থিতির ওপরও নির্ভর। মাথার চুল, ভ্রু এবং চোখের পাতায় আপনার জন্মের মুহূর্ত থেকে রোম উপস্থিত থাকে, যেখানে আপনার বগলের নিচে, দেহে এবং আরও অন্যান্য স্থানের রোমগুলো বয়ঃসন্ধির পরে বাড়তে শুরু করে। মুখের চুল তথা গোঁফ, দাড়ি নারীদের তুলনায় পুরুষদের মধ্যে বেশি থাকে। বয়স্ক ব্যক্তিদের মাঝে মাঝেই চুল পড়তে দেখা যায়।

রন্ধ্র ও গ্রন্থি: ত্বক সিবাম নামক তেল উৎপাদনকারী গ্রন্থি দ্বারা আবৃত। সিবাম ত্বককে নরম করে এবং ফাটল থেকে রক্ষা করে। এটিকে জলরোধীও করে তোলে। স্নানের সময় খুব বেশি সাবান ব্যবহার করলে এই তেল ধুয়ে যায়। এর ফলস্বরূপ ত্বক রুক্ষ ও শুষ্ক হয়ে যাবে। তবে ময়েশ্চারাইজার হিসেবে বডি লোশন ব্যবহার করতে পারেন বা কম সাবান ব্যবহার করতে পারেন যেন আপনার ত্বক পর্যাপ্ত পরিমাণে সিবাম তৈরি করে। আপনার শরীরে ত্বকের বাইরের দিকে ঘামের গ্রন্থি রয়েছে। গরম লাগলে অথবা আপনি অত্যধিক শারীরিক ক্রিয়াকলাপ করলে তারা সক্রিয় হয়ে ওঠে। ঘাম আপনার ত্বকের উপরি তলে বাষ্পীভূত হবে। বিশেষ করে বয়ঃসন্ধির সময় কিশোর-কিশোরীদের মুখে পিম্পল এবং ব্ল্যাকহেডস দেখা যায়। ব্ল্যাকহেডস হলো ছিদ্রে আটকে থাকা কোষ যা খুব বেশি সিবাম তৈরি ও সঞ্চয় করে। ব্যাকটেরিয়া, জমে থাকা ছিদ্রের মধ্যে প্রবেশ করলে ব্রন হয়। শরীরকে ব্যাকটেরিয়া থেকে রক্ষা করার ফলস্বরূপ লালভাব এবং পুঁজভর্তি তরল তৈরি হয়।

কড়া: আপনার ত্বকও কিছু জায়গায় শক্ত এবং পুরু। আপনার পায়ের পাতার তলা এবং বিশেষ করে আপনার গোঁড়ালি যে শক্ত এবং মোটা তা সবাই অনুভব করতে পারে। এই সব জায়গার ত্বকে একটি হলুদ বা সাদা এবং শুষ্ক স্তর গঠন করে যাকে কড়া বা ক্যালাস বলে। চাপ এবং ঘর্ষণে আপনার ত্বকের প্রতিক্রিয়ায় এটি আরও শক্ত হয়ে ওঠে। আপনি আরও লক্ষ্য করবেন যে শক্ত চামড়ায় বাকি অংশের তুলনার চেয়ে কম সংবেদনশীলতা রয়েছে, এর ফলে অমসৃণ জায়গা দিয়ে খালি পায়ে চললে অতটা ব্যথা অনুভূত হয় না।
ত্বকের গভীরে: এখন পর্যন্ত, আমরা এমন জিনিসগুলো দেখেছি যা আপনি বাইরে থেকে দেখতে পেয়েছিলেন। কিন্তু ত্বকে তিনটি স্তর রয়েছে: এপিডার্মিস, ডার্মিস এবং সাবকিউটিস বা হাইপোডার্মিস। তাদের প্রত্যেকের ভিন্ন কলা এবং কোষের ধরন এবং বিভিন্ন কাজ রয়েছে। এখানে আমরা শুধুমাত্র এপিডার্মিসকে দেখবো, যার অন্যতম কাজ দেহকে প্রতিরক্ষা দেয়া।

এপিডার্মিস বা বহিস্তক: এপিডার্মিসের নিচের অংশটি ডার্মিস লাগোয়া। এটি সব সময় নতুন কোষ স্তর তৈরি করে। পুরানো কোষগুলো সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ডার্মিস থেকে আরও বাইরের দিকে দূরে সরে যায়। বাইরের এই কোষগুলো মারা যায় এবং শক্ত হয়ে যায়। এপিডার্মিসের উপরিতলে মৃত কোষগুলো সময়ের সঙ্গে সঙ্গে খসে যায়। এপিডার্মিসে, আপনি এমন কোষও থাকে যা মেলানিন তৈরি করে আপনাকে সূর্যরশ্মির প্রভাব থেকে রক্ষা করে।

লেখক: হেয়ার  ট্রান্সপ্লান্ট ও ডার্মাটোসার্জন। 
চেম্বার: কামাল হেয়ার অ্যান্ড স্কিন সেন্টার।
গ্রীন রোড, ফার্মগেট ঢাকা।
প্রয়োজনে- ০১৭১১-৪৪০৫৫৮

শরীর ও মন থেকে আরও পড়ুন

   

শরীর ও মন সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status