ঢাকা, ২৫ জুন ২০২২, শনিবার, ১১ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৪ জিলক্বদ ১৪৪৩ হিঃ

কলকাতা কথকতা

যৌনকর্মীদের আইনি স্বীকৃতি ভারতের সুপ্রিম কোর্টের, সোনাগাছিতে বাঁধভাঙ্গা উল্লাস

বিশেষ সংবাদদাতা, কলকাতা

(৪ সপ্তাহ আগে) ২৭ মে ২০২২, শুক্রবার, ৯:৪০ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ১০:১৫ পূর্বাহ্ন

যৌন ব্যবসা অন্য যে কোনও পেশার মতোই সম্মানীয় ও সমতুল। স্বেচ্ছায় প্রাপ্তবয়স্ক কোনও নারী যদি যৌনতাকে মূলধন করে ব্যবসা করেন, তাঁকে পুলিশি নির্যাতন করা যাবে না। ভারতের সুপ্রিম কোর্টের এই ঐতিহাসিক রায়ে খুশির হিল্লোল বয়ে গেছে দেশের নয় লক্ষ যৌন কর্মীর মধ্যে। এশিয়ার বৃহত্তম যৌনপল্লি, কলকাতার সোনাগাছি তে যৌন কর্মীরা মিষ্টি বিতরণ করেছেন। যৌন কর্মীদের সংগঠন দুর্বার মহিলা সামন্বয় সমিতি বলেছে, তাদের দীর্ঘদিনের লড়াই জয়যুক্ত হল। সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি এল নাগেশ্বর রাও, বি আর গাভাই ও এ এস বোপান্না নিয়ে গঠিত একটি বেঞ্চ এই স্বীকৃতি দিয়ে বলেছে, ভারতীয় সংবিধান এর ২১ নম্বর ধারা অনুযায়ী নির্দিষ্ট পেশার মাধ্যমে উপার্জন করে বেঁচে থাকার অধিকার সবার আছে। যৌন কর্মীরা এর ব্যাতিক্রম হতে পারেন না। 

আদেশে বিশেষ বেঞ্চ সব রাজ্য ও কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলের পুলিশকে জানিয়ে দিয়েছে, যখন তখন যৌন কর্মীদের আর নির্যাতন করা যাবে না। তাদের সন্তানদের পাচারের শিকার বলে মায়ের থেকে আলাদা করা যাবে না। কোনও প্রাপ্তবয়স্ক যৌন কর্মী যদি যৌনতাকে মূলধন করে ব্যবসা করেন তাহলে তাঁকে হেনস্থা করা যাবে না। বিচারপতিদের এই রায় প্রকাশ্যে আসতেই ভারত জুড়ে যৌন কর্মীদের মধ্যে উৎসাহের জোয়ার দেখা যায়।

বিজ্ঞাপন
সোনাগাছির যৌন কর্মীরা বলেন, এতদিন পর নিজেদের অধিকার ফিরে পেলাম। সুপ্রিম কোর্টের বেঞ্চ অবশ্য ২৭ জুলাই কেন্দ্রীয় সরকারকে এই বিষয়ে তাদের বক্তব্য জানাতে বলেছে। 

পাঠকের মতামত

কয়েকদিন আগে খবরে এসে ছিল মামলার তদবীর করতে এক বাদীনি কে পুলিশের শরীর মালিশ করে দিতে হয়েছিল। ভেবে দেখেন তাহলে কেন যৌনকরমীদের কে পুলিশের যন্ত্রনা থেকে বাঁচতে শেষ পর্যন্ত আইনই পাশ করতে হল। কি একটা অবস্থা।

Siddq
২৭ মে ২০২২, শুক্রবার, ১:৩৩ পূর্বাহ্ন

কলকাতা কথকতা থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

কলকাতা কথকতা থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com