ঢাকা, ২৫ মে ২০২৪, শনিবার, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৬ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিঃ

শিক্ষাঙ্গন

নড়বড়ে রাবির শৃঙ্খলা কমিটি, কমছে না অপরাধ

রাবি প্রতিনিধি

(১ বছর আগে) ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, শনিবার, ১০:৩৩ পূর্বাহ্ন

mzamin

প্রতি বছর অন্তত দুইবার শৃঙ্খলা কমিটি বসার কথা থাকলেও গেল ১০ বছরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে এ কমিটির কোনো সভা হয়নি। ফলে বিভিন্ন ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে কোনো ধরনের ব্যবস্থা নেয়নি এ কমিটি। সর্বশেষ শৃঙ্খলা কমিটির সভা হয় ২০১৩ সালে। তারপর থেকে বন্ধ গুরুত্বপূর্ণ এ কমিটি। এতে প্রতিনিয়তই অপরাধ প্রবনতা প্রবল আকার ধারণ করছে বলে দাবি শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের। 

বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মানুযায়ী, শিক্ষার্থীরা কোনো অপরাধে জড়ালে কিংবা কোনো ঘটনা ঘটলে সেসব ঘটনা খতিয়ে দেখার জন্য একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। সেই কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন যায় শৃঙ্খলাবিষয়ক কমিটিতে। প্রতিবেদনের ওপর ভিত্তি করে ব্যবস্থা নেয় কমিটি। বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, পদাধিকারবলে শৃঙ্খলা কমিটিতে সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন উপাচার্য এবং সদস্যসচিবের দায়িত্বে থাকেন প্রক্টর। সদস্য হিসেবে থাকেন উপ-উপাচার্য, অনুষদের ডিন ও ছাত্র উপদেষ্টা।

সর্বশেষ ১২ ফেব্রুয়ারি, বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ সোহরাওয়ার্দী হলে এক সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থীকে শিবির ট্যাগ দিয়ে হলকক্ষে আটকে রেখে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে অত্র হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাঈম ইসলাম ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. সোলাইমানের বিরুদ্ধে। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী কৃষ্ণ রায় বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী।

বিজ্ঞাপন
এঘটনায় জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর ও হল প্রাধ্যক্ষ বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন তিনি। এর পরিপ্রেক্ষিতে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে হল প্রশাসন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলোতে ছাত্রলীগের দৌরাত্ম্য, সিট বাণিজ্য, চাঁদাবাজি, শিক্ষার্থী নির্যাতনের মতো ঘটনা প্রতিনিয়ত ঘটলেও বেশির ভাগ ক্ষেত্রে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। যেকোনো ঘটনা ঘটলে অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়, কিন্তু সেই কমিটির প্রতিবেদন শৃঙ্খলা কমিটিতে যায় না। কোনো কোনো ক্ষেত্রে প্রতিবেদন পর্যন্ত হয় না। আর কিছু ঘটনায় ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীকে ভয় দেখিয়ে অথবা সমঝোতার মাধ্যমে সমাধান করার চেষ্টা করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর দপ্তর সূত্রে জানা যায়, হলগুলোতে ছাত্রলীগের চাঁদাবাজি, শিক্ষার্থী নির্যাতন, ভয়ভীতি প্রদর্শন ও সিট-বাণিজ্যের ঘটনায় ২০২১ ও ২০২২ সালে অন্তত ৪২টি লিখিত অভিযোগ জমা পড়ে। এ ছাড়া ২০২৩ সালে আরও দুটি অভিযোগ জমা হয়। এর মধ্যে ১৫টি ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করেছে প্রশাসন। তার মধ্যে মাত্র ৬টি তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়া হয়েছে। তবে শৃঙ্খলা কমিটির সভা না হওয়ায় কোনো ঘটনায় ছাত্রলীগের কাউকে শাস্তির আওতায় আনতে পারেনি প্রশাসন। দুই একটি ঘটনার বিচার হলেও সেটি ছিলো লোক দেখানো মাত্র।

এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা মনে করছেন, এসব ঘটনায় শাস্তি না হওয়ায় আবাসিক হলগুলোতে ছাত্রলীগের দৌরাত্ম্য হতাশাজনকভাবে বাড়ছে। 

বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন খান বলেন, 'প্রশাসনের নমনীয়তার কারণে এমন ঘটনা বারবার ঘটছে, নির্যাতনকারীরা বেপরোয়া হচ্ছে। প্রশাসন যদি ব্যবস্থা নিতে না পারে তাহলে এমন পদে না থাকাই ভালো। অভিযোগের পর অভিযোগ জমা হচ্ছে কিন্তু সেগুলো আলোর মুখ দেখছে না, যা খুবই দুঃখজনক।
দীর্ঘদিন কেন শৃঙ্খলা কমিটির সভা হয়নি এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ও শৃঙ্খলা কমিটির সদস্যসচিব অধ্যাপক ড. আসাদুল হক বলেন, 'এত দিন কেন হয়নি সেটি আমি বলতে পারব না। বেশি দিন হয়নি আমি প্রক্টর পদে দায়িত্ব পেয়েছি। চলতি মাসের ২০ তারিখে শৃঙ্খলা কমিটির মিটিং আহ্বান করা হয়েছে। আশা করছি মিটিং হলে কেউ কেউ সাজা পাবে।”

শিক্ষাঙ্গন থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

শিক্ষাঙ্গন সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status