ঢাকা, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, শুক্রবার, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৯ শাওয়াল ১৪৪৫ হিঃ

শরীর ও মন

চিনি খাওয়ার সাথে কার্ডিওভাসকুলার রোগের যোগসূত্র খুঁজে পেলেন গবেষকরা

মানবজমিন ডিজিটাল

(১ বছর আগে) ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, রবিবার, ৪:০৫ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ৯:৪৪ পূর্বাহ্ন

mzamin

আপনি কি চিনি খেতে খুব ভালোবাসেন ? তাহলে আপনার জন্য দুঃসংবাদ নিয়ে এসেছে সাম্প্রতিক একটি গবেষণা।  প্রচুর পরিমাণে শর্করা খেলে তা আপনার শরীরের জন্য ক্ষতিকারক হতে পারে, এমনকি এটি কার্ডিওভাসকুলার রোগ হওয়ার ঝুঁকিও  বাড়িয়ে তুলতে পারে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অনুসারে, প্যাকেটজাতীয়  খাবার বানানোর সময়, খাদ্যের কোষীয় কাঠামো ভেঙে দিতে খাদ্য প্রক্রিয়াকরণের সময়  চিনি বা শর্করা জাতীয় উপাদান ব্যবহার করা হয় । যার মধ্যে রয়েছে -সিরাপ, মধু, ফলের জুস,  পিউরিস, পেস্ট এবং অনুরূপ পণ্য।  

বিএমসি মেডিসিন জার্নালে  প্রকাশিত নতুন গবেষণা অনুসারে,  কার্বোহাইড্রেট গ্রহণ এবং কার্ডিওভাসকুলার রোগের মধ্যে লিঙ্কগুলি কার্বোহাইড্রেট খাওয়ার পরিমাণের পরিবর্তে তার মানের উপর নির্ভর করে । সর্বশেষ গবেষণার লেখকরা ইউকে বায়োব্যাঙ্কে অংশগ্রহণকারী ১ লক্ষ ১০ হাজার  জনেরও বেশি লোকের খাদ্য এবং স্বাস্থ্যের ডেটা মূল্যায়ন করেছেন। পাশাপাশি ২০০৬ থেকে ২০১০ সালের মধ্যে যুক্তরাজ্যভিত্তিক ৫ লক্ষ ৩ হাজার প্রাপ্ত বয়স্কদের ডেটা সংগ্রহ করা হয় । নতুন গবেষণায় অন্তর্ভুক্ত ব্যক্তিরা দুই থেকে পাঁচটি ২৪-ঘন্টা অনলাইন খাদ্যতালিকাগত মূল্যায়নে অংশ নিয়েছিলেন, প্রতি ২৪ ঘন্টা সময়ের মধ্যে তাদের খাদ্য এবং পানীয় গ্রহণের বিষয়ে জানাতে একাধিকবার লগিং করতে হতো।

নয় বছরেরও বেশি ফলোআপের পর, গবেষকরা দেখেছেন- কার্বোহাইড্রেট গ্রহণের মোট পরিমাণের ওপর  কার্ডিওভাসকুলার রোগ সম্পর্কিত নয়। কিন্তু যখন তারা বিশ্লেষণ করেন যে কীভাবে শর্করা খাওয়ার ধরন এবং উৎসের উপর নির্ভর করে ফলাফলগুলি ভিন্ন হয়, তখন তারা দেখতে পান যে উচ্চমাত্রার  চিনি গ্রহণ কার্ডিওভাসকুলার রোগের উচ্চ ঝুঁকি বাড়ায়। কিছু অংশগ্রহণকারী যত বেশি শর্করা গ্রহণ করেছেন  তাদের কার্ডিওভাসকুলার রোগ, হৃদরোগ এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি তত বেশি ছিল।

বিজ্ঞাপন
ইউএস ন্যাশনাল হার্ট, লাং অ্যান্ড ব্লাড ইনস্টিটিউটের মতে,  সমস্ত হৃদরোগই কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজ,  এটি হার্টের সাথে সংযুক্ত  রক্তনালীগুলিকে প্রভাবিত করে। স্ট্রোক, জন্মগত হার্টের ত্রুটি এবং পেরিফেরাল ধমনী রোগ সবই একপ্রকার কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজ। শর্করার  বেশি গ্রহণ   ট্রাইগ্লিসারাইডের উচ্চ ঘনত্বের সাথেও সম্পৃক্ত। এটি চর্বিযুক্ত খাবার, মাখন, তেল থেকে আসে। হেলথ মিডিয়া ইনোভেশনের পরিচালক এবং স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটি স্কুল অফ মেডিসিনের পেডিয়াট্রিক্সের ক্লিনিকাল সহকারী অধ্যাপক ডাঃ মায়া অ্যাডাম বলেছেন -''উচ্চ ট্রাইগ্লিসারাইড মাত্রা প্রতি ডেসিলিটারে ১৫০  মিলিগ্রামের বেশি হলে  হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়াতে পারে। এই অধ্যয়নটি স্বাস্থ্যের ওপর কার্বোহাইড্রেটের প্রভাব সম্পর্কে জানতে  অনেক প্রয়োজনীয় তথ্য প্রদান করে। গবেষণার মূল বিষয়বস্তু হলো সমস্ত কার্বোহাইড্রেট সমানভাবে  তৈরি করা হয় না। ''

কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটি আরভিং মেডিক্যালের কার্ডিওলজি বিভাগের চিকিৎসা বিজ্ঞানের সহকারী অধ্যাপক ব্রুক আগারওয়াল বলেন -"অতিরিক্ত চিনি খাওয়া শরীরে প্রদাহ বাড়াতে পারে এবং এটি হৃদপিণ্ড ও রক্তনালীর উপর চাপ সৃষ্টি করতে পারে, যার ফলে রক্তচাপ বেড়ে যেতে পারে। শর্করা প্রায়শই প্রক্রিয়াজাত খাবারে পাওয়া যায়, যার পুষ্টিগুণ কম থাকে এবং এটি অতিরিক্ত পরিমাণে খেলে  শরীরে অতিরিক্ত ক্যালোরি বাড়তে পারে, যার ফলে   স্থূলতা, হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ে। "

কার্ডিওভাসকুলার রোগের ঝুঁকি কমাতে প্রক্রিয়াজাত  খাবারের বদলে  গবেষকরা শর্করামুক্ত প্রাকৃতিক ফল এবং শাকসবজি খাবার  পরামর্শ দিচ্ছেন। অ্যাডাম যোগ করেছেন, "পুরো খাবারের কার্বোহাইড্রেটগুলি সরল শর্করাতে ভেঙে যেতে বেশি সময় নেয় এবং তাদের একটি অংশ হলো ফাইবার যাকে একেবারে ভেঙে ফেলা যায় না। ''এর মানে হলো যে, প্রক্রিয়াজাত নয় এমন  শস্য রক্তে শর্করার স্পাইক সৃষ্টি করে না । রক্তে শর্করার স্পাইকগুলি ইনসুলিন স্পাইককে ট্রিগার করে, যা আমাদের রক্তের গ্লুকোজকে অস্থিতিশীল করতে পারে এবং দীর্ঘমেয়াদে স্বাস্থ্য সমস্যার কারণ হতে পারে। পাশাপাশি পুরো  কার্বোহাইড্রেটের ফাইবার একটি "অভ্যন্তরীণ স্ক্রাবার" হিসাবে কাজ করে যখন এটি পাচনতন্ত্রের মধ্য দিয়ে যায়। সাধারণভাবে বলতে গেলে, সুস্থ থাকার জন্য আমাদের ডায়েটে এই 'ভাল কার্বোহাইড্রেট' এর একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ প্রয়োজন। এফডিএ অনুসারে, মোট ফাইবার গ্রহণের পরিমাণ দৈনিক কমপক্ষে ২৫ গ্রাম হওয়া উচিত।

জর্জ ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটির জরুরী বিভাগের চিকিৎসক এবং জনস্বাস্থ্যের অধ্যাপক ডঃ লিয়ানা ওয়েন সিএনএন -কে  বলেছেন - ''সচেতনতা হল আপনার বিনামূল্যে শর্করা  গ্রহণ কমানোর প্রথম পদক্ষেপ, তাই খাবার কেনাকাটা করার সময় পুষ্টির পরিমাপগুলি  দেখুন। অনেক সময়, লোকেরা ক্যালোরি বিহীন  বা চর্বিযুক্ত খাবার গ্রহণ না করার বিষয়ে চিন্তা করে, কিন্তু তারা চিনি থেকে সম্ভাব্য বিপদ সম্পর্কে সচেতন নাও হতে পারে।  যখন আমরা প্যাকেটজাত খাবার কিনি এমনকি যেগুলোকে আমরা রুটি,  স্বাদযুক্ত দই বা মশলাদারের খাবারের মতো মিষ্টি বলে মনে করি না - এই খাবারগুলিতেও  সাধারণত প্রচুর পরিমাণে চিনি থাকে।   গবেষকরা পরামর্শ দিচ্ছেন যে - চিনিযুক্ত পানীয় কমিয়ে  ফলের টুকরো দিয়ে মিষ্টি করা পানীয় পান করুন। ডেজার্টের জন্য কেক, কুকিজ বা আইসক্রিমের পরিবর্তে তাজা বা হিমায়িত ফল টেবিলে  রাখুন। উচ্চতর ফাইবারযুক্ত খাবারগুলি আপনাকে আরও বেশিদিন সক্ষম থাকতে সাহায্য করতে পারে। 

অ্যাডাম বলেন, বাড়িতে রান্না করা এবং বেক করা খাবার আপনার খাদ্যতালিকায় চিনি কমানোর অন্যতম সেরা উপায়। আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশন  জানিয়েছে,  শর্করা প্রতিদিন ৬% এর কম ক্যালোরি তৈরি করে। পাশাপাশি গবেষকদের পরামর্শ শুধুমাত্র কম চিনি খেলেই ভালো থাকা  যায় না, সেইসঙ্গে প্রয়োজন পর্যাপ্ত ঘুম। প্রতি রাতে অন্তত সাত থেকে আট ঘণ্টা ভালো ঘুম হলে আপনি এবং আপনার শরীর দুটোই ফিট থাকবে।

সূত্র : সিএনএন

শরীর ও মন থেকে আরও পড়ুন

   

শরীর ও মন সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status