ঢাকা, ২৫ মে ২০২৪, শনিবার, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৬ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিঃ

কলকাতা কথকতা

পারভেজের সঙ্গে মোলাকাতের সেই দিনটি

কর্নেল সৌমিত্র রায়, কলকাতা থেকে

(১ বছর আগে) ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, রবিবার, ১:৫৭ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ২:০৪ অপরাহ্ন

mzamin

পারভেজ মোশাররফ আর নেই-  এই খবরটা মাত্র কিছুক্ষণ আগে পেয়েছি। এর আগেও পারভেজের মৃত্যুসংবাদ কয়েকবার ছড়িয়েছিল।  কিন্তু প্রতিবারই তা মিথ্যা বলে প্রতিপন্ন হয়েছে। এবারও সেইরকম কিছু হলে আমি খুশি হতাম। কিন্তু, এবার আর তেমন কিছু হওয়া সম্ভব নয়। তার পরিবার ঘোষণা করেছে তার মৃত্যুসংবাদ। ৭৯ বছর বয়সে চলে গেল পারভেজ।  কিন্তু, আমার কাছে পারভেজ সেই উন্নত শির পাক অফিসার যাকে আমি কখনও ভুলবো না। পারভেজও যে ভোলেনি তার প্রমাণ তো ওর বইতে লিখে গেছে আমাকে উল্লেখ করে। হ্যাঁ, পারভেজকে আমি যুদ্ধে হারিয়েছিলাম ৬৫ সালে ভারত - পাক যুদ্ধে।

বিজ্ঞাপন
মনে আছে, সেটা ছিল শিয়ালকোট সেক্টর।

আমি ভারতীয় বাহিনী নিয়ে অমৃতসরের মধ্যে দিয়ে পাকিস্তানের ভিতরে ২০ কিলোমিটার ঢুকে গেছি।  পাক বাহিনীও তৈরি। শুনলাম, পাক বাহিনীর নেতৃত্ব দিচ্ছে পারভেজ মোশাররফ নামের এক তরুণ অফিসার।  ফিয়ার্স ব্যাটল হলো দুই বাহিনীর মধ্যে। পাক বাহিনী আমার ভারতীয় তরুণ তুর্কিদের কাছে হার মানলো।  মনে আছে, একটা রেলওয়ে প্লাটফর্মের ওপরে তুমুল যুদ্ধ হয়েছিল। 

রাতে আমাদের ক্যাম্পে এসেছিলো পারভেজ।  আমার সঙ্গে করমর্দন করে চলে গেল। চোখ কোঁচকাবেন না। এটা আর্মির রেওয়াজ। পরাজিত পক্ষ হাত মিলিয়ে যায় জয়ী পক্ষের সঙ্গে। সেদিনের সেই উষ্ণ হাতের স্পর্শ আজও ভুলতে পারিনি। পরে পারভেজ পাকিস্তানের রাষ্ট্রপ্রধান হয়। কিন্তু ও বোধহয় কখনও ভোলেনি শিয়ালকোটের সেই যুদ্ধের কথা। সব যুদ্ধই একদিন থেমে যায়। যেমন থেমে গেল পারভেজের জীবন যুদ্ধ।  তবু তাকে মনে থাকবে তরুণ এক পাক অফিসার হিসেবেই।  যে মনে করতো যুদ্ধের বাইরের জীবনে মৈত্রী শেষ কথা বলে।

কলকাতা কথকতা থেকে আরও পড়ুন

   

কলকাতা কথকতা সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status