ঢাকা, ২৮ নভেম্বর ২০২২, সোমবার, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিঃ

কলকাতা কথকতা

জেলে পুজোর কদিন পার্থ-অনুব্রতরা কি খাবেন?

বিশেষ সংবাদদাতা, কলকাতা

(২ মাস আগে) ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, শনিবার, ১১:১৭ পূর্বাহ্ন

শুধু পার্থ চট্টোপাধ্যায় কিংবা অনুব্রত মন্ডলের মতো ভিভিআইপি  বন্দিদের জন্যে নয়, পশ্চিমবঙ্গের কারা দপ্তর সব বন্দিদের জন্যেই পুজোর কদিন ভালোমন্দ খাওয়ানোর ব্যবস্থা করেছে। জেলের বাইরে থাকলে এঁরা পরিবার-পরিজন নিয়ে ইটিং আউট করতেন কিংবা পুজোর কদিন বাড়িতেই হত এলাহী আয়োজন। সেই কথা মাথায় রেখেই কারা দপ্তর পুজোর চারদিনের মেনু সাজিয়েছে। বন্দিরাও এর দ্বারা বাড়ির কিছুটা স্বাদ পাবেন। আয়োজন কিন্তু নেহাত কম নয়। সপ্তমীর দিন সকালের ব্রেকফাস্ট থেকেই বদল। সপ্তমীর দিন ইনমেট দের চিরাচরিত লোপসির বদলে দেওয়া হবে ঘুগনি পাউরুটি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘুগনি বিক্রি করে আয়ের কথা বলেছেন বলে নয়, এমনিতেই বদল হচ্ছে ব্রেকফাস্ট মেনু। দুপুরের লাঞ্চে থাকছে ভাত, ডাল, ফুল অথবা বাঁধাকপির ডালনা, দই কাতলা আর মিষ্টি। রাতে খাওয়া অবশ্য সাদা মাটা, অন্যদিনের থেকে ভালো- ভাত ডাল আলু পটল আর আলু চিপস।

বিজ্ঞাপন
মহাষ্টমীর সকালে দেওয়া হচ্ছে পায়েস আর মুড়ি। দুপুরে পোলাও, আলুরদম, চাটনি আর পাঁপড়। রাতে ভাত ডাল সবজি। মহাষ্টমী বলে সব নিরামিষ। নবমীর দিন ভুড়িভোজ। সকালে ঘুগনি পাউরুটি। দুপুরে ভাত ডাল আর পাঁঠার মাংস। সঙ্গে চাটনি। রাতে ভাত ডাল সবজি। দশমীর সকালে কেক আর নাড়ু। দুপুরে ভাত ডাল মুরগির মাংস চাটনি। রাতে রু,ি ডিম তড়কা আর মিষ্টি। দশমীর পরে আবার পুরোনো মেনু। পুজোর কদিন একটু হোম  আওয়ে ফ্রম হোম এর স্বাদ দেওয়ার চেষ্টা। জেলে কদিন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও হবে। ইনমেট রাই অংশ নেবে। কে বলতে পারে এর মধ্যে থেকে একজন নাইজেল আকারা বের হবে না!         
 

কলকাতা কথকতা থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

কলকাতা কথকতা থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status