ঢাকা, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, শুক্রবার, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিঃ

অনলাইন

আনারকলির মারিজুয়ানা কাণ্ড তদন্তে প্রমাণিত- কবুল করলেন পররাষ্ট্র সচিব

কূটনৈতিক রিপোর্টার

(১ মাস আগে) ১৬ আগস্ট ২০২২, মঙ্গলবার, ৯:৩৯ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ১২:২৩ অপরাহ্ন

জাকার্তার বাসায় নিষিদ্ধ মাদক মারিজুয়ানা রাখা এবং সেবনের অভিযোগে আটক এবং পরবর্তীতে ইন্দোনেশিয়া থেকে ফিরিয়ে আনতে বাধ্য হওয়া কূটনীতিক কাজী আনারকলির বিরুদ্ধে প্রাথমিক তদন্ত শেষ হয়েছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন। 

মঙ্গলবার সচিব গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপে স্বীকার করেন যে, তার অধস্তন ওই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগ প্রাথমিক তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে। সচিব বলেন, তদন্তে আমরা তার বাসায় মারিজুয়ানা রাখা সংক্রান্ত তথ্য পেয়েছি। এক্ষেত্রে সরকারি কর্মচারী বিধিমালা অনুসরণ করেই আমরা তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবো। পরবর্তী প্রসিডিংয়ে হয়তো আরও গভীরে যেতে পারবো। হাতেনাতে মাদকসহ ধরা পড়ার ওই ঘটনা বাংলাদেশের আইনে ফোজদারি অপরাধ কিনা- এমন প্রশ্নে সচিব বলেন, না, না। এটা তো অন্য দেশের ঘটনা। এটা একেক দেশে একেক রকম। যদি তা যুক্তরাষ্ট্রে হতো তাহলে সেখানকার অর্ধেক রাজ্যেই এটা কোনো বিষয় ছিল না।

এটা যদি নেদারল্যান্ডসে হলেও কোনো বিষয় হতো না। তাই আমরা আপাতত অফিসিয়াল অ্যাক্টের অধীনেই তার বিষয়টি দেখছি। অভিযানের সময় আনারকলির বাসায় কোনো বিদেশির উপস্থিতি তদন্ত কমিটি নিশ্চিত হতে পারেনি জানিয়ে সচিব বলেন, তবে মারিজুয়ানা রাখার সত্যতা মিলেছে।

বিজ্ঞাপন
কিন্তু এটি পরিমাণে খুব বেশি না। ফলে বিক্রির জন্য নয় বরং সেবনের জন্যই তা রাখা হয়েছিল বলে ইঙ্গিত করেন তিনি। 

এক প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, যখন প্রপার ইনভেস্টিগেশন (বিস্তৃত তদন্ত) হবে তখন বিষয়গুলো আরও পরিষ্কার হবে। ইন্দোনেশিয়া সরকারের রিপোর্ট পেয়েছেন স্বীকার করে পররাষ্ট্র সচিব বলেন, সেখান থেকে আমরা এক ধরনের ইনফরমেশন পেয়েছি। তার ভিত্তিতেই তো আমরা তাকে ফিরিয়ে এনেছি। পরবর্তী বিস্তৃত তদন্তের জন্য ইনভেস্টিগেশন অফিসার জাকার্তা যেতে পারেন এমন আভাস দিয়ে সচিব বলেন, প্রয়োজন হলে আমাদের ইনভেস্টিগেশন অফিসার আবার ইন্দোনেশিয়া যাবেন। তিনি সেখানে গেলে হয়তো আরও ডিটেইলস বের করতে পারবেন। 
 

পাঠকের মতামত

মাদক সেবী ও বদমাইস দেশের এত বড় পদ পায় কি করে.....

মামুন
১৭ আগস্ট ২০২২, বুধবার, ১২:৪৯ পূর্বাহ্ন

Next posting as a Grand Ambassador Kingdom of Thailand because the only lonely Marijuana free country in this planet.

Mustafa Ahsan
১৬ আগস্ট ২০২২, মঙ্গলবার, ১:১৮ অপরাহ্ন

সেই যে শুরু। বিনা পাসপোর্টে লিবিয়া যাত্রা। সরকারী বদ্যানতায় নিরাপদে পরিবার পরিজন সহ বিদেশে। সেখান থেকে উল্লাস করা খুনিদের বিদেশে বিদেশে কমিশনার-হাইকমিশনার-রাস্ট্রদুত।

শামীম
১৬ আগস্ট ২০২২, মঙ্গলবার, ৯:৩৩ পূর্বাহ্ন

কবুল না করেও উপায় নেই, যেভাবে তথ্য প্রমান পাওয়া যাচ্ছে.... দেশের মান ইজ্জত সব গেল, দূর্বল ও নতজানু সরকার,গনবিচ্ছিন্ন রাষ্ট্রযন্ত্র এসব কান্ড ঘটার জন্য দায়ী।

Raju
১৬ আগস্ট ২০২২, মঙ্গলবার, ৯:১৪ পূর্বাহ্ন

When a government official is involved in drugs, whichever way may be, he/she is almost surely highly connected and will invoke all tools available to get exonerated. It will happen most likely in this particular case. We just hope that the investigator and the foreign secretary themselves don’t find themselves in hot water.

Ahmed
১৬ আগস্ট ২০২২, মঙ্গলবার, ৯:১০ পূর্বাহ্ন

apnara desher representative! ai desher brand ambassador!

wow
১৬ আগস্ট ২০২২, মঙ্গলবার, ৯:০৫ পূর্বাহ্ন

অনলাইন থেকে আরও পড়ুন

অনলাইন থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রায়শই মিলত ধর্ষণের হুমকি/ ‘গেট খুলে দেখি মেয়ে অর্ধ-উলঙ্গ এবং গলা কাটা’

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং স্কাইব্রীজ প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং লিমিটেড, ৭/এ/১ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status