ঢাকা, ২২ মে ২০২৪, বুধবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৩ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিঃ

বিশ্বজমিন

নিউ ইয়র্ক টাইমসের নিবন্ধ

মোদি কেন ভারতের মুসলমানদের ‘অনুপ্রবেশকারী’ বলেছেন?

মানবজমিন ডিজিটাল
২৫ এপ্রিল ২০২৪, বৃহস্পতিবার
mzamin

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ক্ষমতা  ভারতের  মাটিতে  সুরক্ষিত। ‘হিন্দু-প্রথম’ দৃষ্টিভঙ্গির প্রতি গভীরভাবে নিবিষ্ট রয়েছেন মোদি।  সামপ্রতিক বছরগুলোতে ভারতের অর্থনৈতিক ও কূটনৈতিক উত্থান ঘটিয়ে বিশ্বব্যাপী রাষ্ট্রনায়কের ভূমিকায় নিজের ভূমিকা তুলে ধরেছেন তিনি। এটি করার মাধ্যমে, তার দলের  ধর্মীয় লাইনে ভারতের বৈচিত্র্যময় জনসংখ্যাকে মেরূকরণের পন্থা থেকে  নিজেকে দূরে সরিয়ে নিয়েছেন মোদি। কিন্তু তার নীরবতা নিরঙ্কুশ সমর্থন প্রদান করে চলেছে তার দলের সদস্যদেরই।  যারা  অ-হিন্দু সংখ্যালঘু গোষ্ঠীগুলোকে লক্ষ্যবস্তু করে চলেছে। তার দলের সদস্যরা নিয়মিতভাবে ঘৃণামূলক এবং বর্ণবিদ্বেষী  ভাষা ব্যবহার করে চলেছে ভারতের ২০০ মিলিয়ন মুসলমানদের বিরুদ্ধে, এমনকি সংসদেও।   

গত রোববার রাজস্থানের একটি সভায় গিয়ে মোদি বলেন,  সরকারে থাকাকালীন কংগ্রেস  বলেছিল দেশের সম্পদের উপর মুসলিমদের অধিকার সকলের আগে। অর্থাৎ দেশের সম্পদ বণ্টন করা হবে তাদের মধ্যে, যাদের পরিবারে বেশি সন্তান রয়েছে। অনুপ্রবেশকারীদের হাতে তুলে দেয়া হবে দেশের সম্পদ।

বিজ্ঞাপন
কংগ্রেসের ইশতেহারেই বলা হয়েছে, মা-বোনদের সোনার গয়নার হিসাব করে সেই সম্পদ বিতরণ করা হবে। মনমোহন সিংয়ের সরকার তো বলেই দিয়েছে, দেশের সম্পদে অধিকার মুসলিমদেরই। আপনাদের মঙ্গলসূত্রটাও বাদ দেবে না। বিশ্লেষকরা বলছেন, এই ধরনের বিভাজনমূলক ধর্মীয় মতাদর্শের প্রতিফলনমূলক অভিব্যক্তি  তার রাজনীতিতে  শুরু থেকেই ইন্ধন জুগিয়েছে।

দেশের নজরদারি সংস্থাগুলো মূলত তার ভারতীয় জনতা পার্টি বা বিজেপি’র ইচ্ছার প্রতি আকৃষ্ট হয়েছে। বিদেশে, অংশীদাররা ক্রমবর্ধমানভাবে মোদি ভারতে যা করছেন তার প্রতি অন্ধ দৃষ্টি নিক্ষেপ করছে; কারণ তারা ভারতকে  চীনের ‘গণতান্ত্রিক কাউন্টারওয়েট’ হিসেবে গ্রহণ করেছে। ‘মোদি বিশ্বের সবচেয়ে দক্ষ এবং অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদদের একজন, তাই হয়তো মোদি এই দায়মুক্তি প্রদর্শনের চেষ্টা করছেন’ বলেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইনস্টিটিউট অফ পিস-এর দক্ষিণ এশিয়া প্রোগ্রামের সিনিয়র উপদেষ্টা ড্যানিয়েল মার্কি।  

প্রধানমন্ত্রী মোদি আন্তর্জাতিক সম্মানের লক্ষ্যে আধুনিক ভারতের নির্মাতা হিসেবে নিজেকে ফোকাস করছেন। তবে তিনি এমন এক উত্তরাধিকারও রেখে যেতে চান যে, বৃটিশ ঔপনিবেশিক শাসনের পরে ধর্মনিরপেক্ষ প্রজাতন্ত্র হিসেবে দেশটির প্রতিষ্ঠাতা নেতাদের থেকে স্বতন্ত্রভাবে আলাদা। বিজেপি’র  রাজনৈতিক শাখায় যোগদানের আগে মোদি রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ বা আরএসএস-এর একজন  সৈনিক হিসেবে এক দশকেরও বেশি সময় কাটিয়েছেন। ভারতকে একটি হিন্দু রাষ্ট্র বানানোর লক্ষ্যে ১৯২৫ সালে এই ডানপন্থি সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। যখন স্বাধীন ভারত  বিভাজনে সম্মত হয়েছিল এবং  মুসলমানদের জন্য একটি পৃথক রাষ্ট্র পাকিস্তান তৈরি করেছিল তখন আরএসএস এটিকে বিশ্বাসঘাতকতা হিসেবে দেখেছিল।  তখনই ধর্মনিরপেক্ষতা এবং সমস্ত নাগরিককে সমান অধিকারের চিন্তাধারা ধাক্কা খায়। ক্ষোভের শিকার হন মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী। 

এক দশক ধরে জাতীয় ক্ষমতায় থাকাকালীন  মোদি হিন্দু-ভাবধারাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সফল হয়েছেন। তিনি মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রাজ্য জম্মু ও কাশ্মীরের আধা-স্বায়ত্তশাসন বাতিল করেন। তিনি একটি নাগরিকত্ব আইন প্রণয়ন করেছিলেন যা ব্যাপকভাবে মুসলমানবিরোধী হিসেবে দেখা হয়।  তিনি হিন্দু ও মুসলমানদের মধ্যে দীর্ঘ বিতর্কিত একটি প্লটে হিন্দু দেবতা রামের একটি বিশাল মন্দির নির্মাণে সাহায্য করেছেন। সেই জমিতে দাঁড়িয়ে থাকা মসজিদটি ১৯৯২ সালে হিংসার কবলে পড়ে। হিন্দু গোষ্ঠীগুলোর দাবি এখানে আগে মন্দির ছিল। রাম মন্দির নির্মাণের এজেন্ডাকে সামনে রেখেই ক্ষমতায় এসেছিলেন মোদি। আরও গভীরভাবে বলতে গেলে,  মোদি দেখিয়েছেন যে একটি হিন্দু রাষ্ট্রের বৃহত্তর লক্ষ্যগুলো মূলত ভারতের সংবিধানের সীমানার মধ্যেই অর্জন করা যেতে পারে- সাম্য রক্ষার উদ্দেশ্যে প্রতিষ্ঠানগুলোকে কো-অপ্ট করার মাধ্যমে।

তার দলের কর্মকর্তারা  যেকোনো  অভিযোগ খণ্ডন করতে প্রস্তুত। তারা বলেন, মোদি  কীভাবে কারও প্রতি বৈষম্য করতে পারেন?  কারণ সমস্ত ভারতীয় নাগরিক তার সরকারের উন্নয়নমূলক কার্যক্রম মারফত সমানভাবে উপকৃত হয় যেমন- শৌচাগার, মাথার উপর ছাদ, মাসিক রেশন। বিশ্লেষকরা বলছেন, এই যুক্তিটি দেখায় যে, কীভাবে  মোদি গণতান্ত্রিক শক্তিকে ভারসাম্যের মধ্যে রেখে, একজন শক্তিশালী উদার ব্যক্তি হয়ে উঠেছেন। ভারতের বুকে একটি দ্বিতীয় শ্রেণি আছে তা স্পষ্ট করার জন্য তিনি বাস্তবে নাগরিকত্বকে পুনরায় সংজ্ঞায়িত করেছেন। মোদির অধীনে কর্মকর্তারা,  প্রকাশ্যে প্রার্থনাকে রাজনীতির  সঙ্গে মিশিয়ে দেন, তারা ভারতের ধর্মনিরপেক্ষ চরিত্রকে  লঙ্ঘন করে অন্যান্য ধর্মের প্রকাশ্য অভিব্যক্তির উপর ক্র্যাক ডাউন করেন। 
যদিও বিজেপি’র  মুখপাত্র টম ভাদাক্কান বলেছেন, মুসলিমদের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্যের ভুল ব্যাখ্যা করা হয়েছে। ব্যক্তিগতভাবে, নয়াদিল্লিতে পশ্চিমা কূটনীতিকরা গণতান্ত্রিক মিত্র হিসেবে, সংখ্যালঘুদের টার্গেট করা থেকে শুরু করে বিরোধী এবং ভিন্নমতের বিরুদ্ধে তার দমন-পীড়ন সংক্রান্ত মোদির কিছু পদক্ষেপ নিয়ে তাদের অস্বস্তি যথাসম্ভব  আড়াল করার চেষ্টা করেন।  তারা স্বীকার করেন যে মোদি বৈশ্বিক ব্যবস্থায় বর্তমান সময়কে বিশেষভাবে কাজে লাগাচ্ছেন।  ওয়াশিংটন-ভিত্তিক বিশ্লেষক মার্কি বলেছেন, মার্কিন সরকার চীনের অর্থনৈতিক ও ভূ-রাজনৈতিক প্রতিকূল হিসেবে ভারতকে কাজে লাগানোর জন্য তার জাতীয় স্বার্থের বাইরে গিয়ে বিভিন্ন কারণে প্রকাশ্যে উদ্বেগ প্রকাশ করা থেকে বিরত থেকেছে। 

ডানিয়েল মার্কির মতে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র অংশীদার দেশগুলোর আচরণ পরিবর্তনে তার জনসাধারণের সমালোচনার ক্রমবর্ধমান সীমা উপলব্ধি করে। এটি সমপ্রতি বারবার উদাহরণ দ্বারা প্রদর্শিত হয়েছিল যেখানে ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু প্রেসিডেন্টের দাবি উপেক্ষা করেছিলেন যে, ইসরাইলি সামরিক বাহিনী গাজা যুদ্ধের মধ্যে তার আচরণ পরিবর্তন করেছে। মার্কি যোগ করেছেন,  মোদির সমালোচনা, মার্কিন রাজনীতিবিদদের জন্যও পাল্টা আঘাত হানতে পারে যারা ভারতীয় প্রবাসী গোষ্ঠীর সঙ্গে সম্পৃক্ত  হতে চায় না।  কিন্তু  মোদি অনাক্রম্য নাও থাকতে পারেন; কারণ তিনি যৌথ অস্ত্র তৈরি, উচ্চ প্রযুক্তি হস্তান্তর এবং বুদ্ধিমত্তা ভাগ করে নেয়ার মতো ক্ষেত্রে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ অংশীদারিত্ব অনুসরণ করছেন।

মার্কি মনে করেন, মোদির অভ্যন্তরীণ রাজনীতি নিয়ে ওয়াশিংটনের ক্রমবর্ধমান অস্বস্তি ভারতের সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সম্ভাব্য সহযোগিতার সীমাকে ধীরে ধীরে কমিয়ে দিচ্ছে। প্রশ্ন হলো ওয়াশিংটন ভারতকে কতোটা বিশ্বাস করতে ইচ্ছুক। ভারতকে কি সব ক্ষেত্রেই  মিত্র হিসেবে বিবেচনা করা হবে, নাকি ভিয়েতনাম বা সৌদি আরবের মতো অংশীদার হিসেবে বিবেচনা করা হবে?
 

পাঠকের মতামত

আফ্রিকার জংগলের থেকে পালিয়ে,

ওমর
২৫ এপ্রিল ২০২৪, বৃহস্পতিবার, ১০:৩২ অপরাহ্ন

বিশ্বজমিন থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

বিশ্বজমিন সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status