ঢাকা, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, শুক্রবার, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৯ শাওয়াল ১৪৪৫ হিঃ

প্রথম পাতা

কেন কমছে হজযাত্রী

লুৎফর রহমান ও মো. আল-আমিন
১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বুধবার
mzamin

এবার হজের জন্য নিবন্ধনের সময় চার দফা বাড়িয়েছে সরকার। কিন্তু কোটার এক তৃতীয়াংশ ফাঁকাই রয়ে গেছে। এবার সরকারিভাবে ৪ হাজার ২৬০ জন এবং বেসরকারিভাবে ৭৮ হাজার ৮৯৫ জন হজে যেতে নিবন্ধন করেছেন। ২০২৪ সালে বাংলাদেশ থেকে ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জনের হজে যাওয়ার কোটা বরাদ্দ রয়েছে। দফায় দফায় সময় বাড়িয়েও কোনো কোটা পূরণ হচ্ছে না। এ নিয়ে হজ এজেন্সি, হজযাত্রী ও সরকারি কর্তৃপক্ষের নানা মত রয়েছে। তবে খরচ বেড়ে যাওয়াকেই যাত্রী কমার বড় কারণ বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। তারা বলছেন, অনেক দেশের চেয়ে বাংলাদেশে হজের খরচ বেশি। খরচ বাড়ায় ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও অনেকে হজে যেতে পারছেন না। ধর্ম মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ডলারের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাওয়ার কারণে খরচ বেড়েছে।

বিজ্ঞাপন
পাশাপাশি সৌদি আরবে হজের আনুষঙ্গিক খরচ অনেক বেড়ে গেছে। এসব বিবেচনায় নিয়ে হজ প্যাকেজের খরচ নির্ধারণ করতে হচ্ছে। হজ প্যাকেজের একটি বড় অংশ যায় বিমান ভাড়ায়। সংশ্লিষ্ট অনেকে বলছেন, নির্ধারিত বিমান ভাড়া অনেক বেশি নেয়া হয়। সাধারণ যাত্রীদের চেয়ে হজ যাত্রীদের বিমান ভাড়া বেশি নেয়া কোনো ভাবেই যৌক্তিক নয়। 

এবারের হজ নিবন্ধন শুরু হয় গত ১৫ই নভেম্বর। যা ১০ই ডিসেম্বর শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু প্রত্যাশিত সাড়া না মেলায় সময় বাড়ানো হয় ৩১শে ডিসেম্বর পর্যন্ত। পরে সেই সময় আরও দুই দফায় বাড়ানো হয়। বিশেষ বিবেচনায় চতুর্থ দফায় সময় দেয়া হয় ৬ই ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

প্রতি বছরের মতো এবারো সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজের দুটি প্যাকেজ ঘোষণা করা হয়। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় সাধারণ প্যাকেজে খরচ হবে ৫ লাখ ৭৮ হাজার ৮৪০ টাকা। আর বিশেষ প্যাকেজে ৯ লাখ ৩৬ হাজার ৩২০ টাকা। 

বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় সাধারণ প্যাকেজে ৫ লাখ ৮৯ হাজার ৮০০ টাকা এবং বিশেষ প্যাকেজে ৬ লাখ ৯৯ হাজার ৩০০ টাকা খরচ নির্ধারণ করা হয়েছে। যদিও আগের বছরের চেয়ে ব্যয় কিছুটা কমিয়ে নতুন প্যাকেজ ঘোষণা করা হয়েছিল। আগের বছরও বেশি ব্যয়ের কারণে হজের কোটা পূরণ হয়নি। গত বছর কোটার চেয়ে ৬ হাজারের বেশি কম যাত্রী হজে গিয়েছিলেন। 

২০২২ সালে সরকারিভাবে হজে যেতে প্যাকেজ ধরা হয়েছিল পাঁচ লাখ ২৭ হাজার ৩৪০ টাকা। ওই বছরে হজের খরচ দেড় লাখ থেকে প্রায় দুই লাখ ২১ হাজার পর্যন্ত বেড়েছিল। ২০২০ সালে এই প্যাকেজের মূল্য ধার্য করা হয়েছিল জনপ্রতি তিন লাখ ৬১ হাজার ৮০০ টাকা।

কোন দেশে কতো খরচ: 
গত বছরের ১৬ই নভেম্বর পাকিস্তানের হজ পলিসি ঘোষণা করে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়। আগের বছরের তুলনায় এক লাখ রুপি কমিয়ে ১০ লাখ ৭৫ হাজার রুপি খরচ নির্ধারণ করা হয়েছে দেশটির নাগরিকদের জন্য। ডলারের বিনিময়মূল্যের হিসাবে বাংলাদেশি মুদ্রায় যা সোয়া চার লাখ টাকার মতো। 
ভারতের সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীন হজ কমিটি অব ইন্ডিয়া প্রতি বছর হজ পলিসি ঘোষণা করে।

সংস্থাটির দেয়া তথ্য অনুযায়ী এ বছর তারা সর্বনিম্ন যে প্যাকেজ নির্ধারণ করেছে রাজ্য ভেদে সেটি তিন থেকে চার লাখ রুপি। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা চার থেকে সাড়ে পাঁচ লাখের মধ্যে।
গত বছর ইন্দোনেশিয়া থেকে একজন মুসলমানকে হজে যেতে হলে খরচ করতে হয়েছে তিন হাজার ৩০০ ডলার বা তিন লাখ ৪৭ হাজার ৩৪৭ টাকা। আগের বছরের তুলনায় এই খরচ বেড়েছিল প্রায় ৭০ শতাংশ। দেশটির সরকারি ‘হজ ফান্ড ম্যানেজমেন্ট এজেন্সি’ তহবিল থেকে হজ যাত্রীদের খরচে ভর্তুকি দেয়া হয়ে থাকে। 

মালয়েশিয়ায় যেসব পরিবারের মাসিক আয় ৯৬ হাজার টাকার কম, সেইসব পরিবারের সদস্যদের জন্য গত বছর সরকারিভাবে হজের খরচ ধরা হয়েছিল দুই লাখ ১৮ হাজার ৭৫৪ টাকা। মাসিক আয় এর বেশি হলে দিতে হয় দুই লাখ ৫৮ হাজার ৬০০ টাকা। তবে, বেসরকারি হজ প্যাকেজগুলো বাংলাদেশি টাকায় ৯ লাখ টাকা থেকে শুরু হয়।

বাংলাদেশ থেকে যাওয়া হজ যাত্রীদের খরচ বাড়ার পেছনে ডলারের মূল্য বৃদ্ধিকে বড় কারণ হিসেবে দেখছেন ধর্মমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান। 

তিনি বলেছেন, ডলারের মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় রিয়ালের মূল্য অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে, তাই সরকারের ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও হজের ব্যয় কমানো সম্ভব হয়নি। মন্ত্রী বলেন, সৌদি আরবে মক্কা ও মদিনায় অনেক এলাকায় বাড়ি ও হোটেল ভেঙে ফেলায় বাড়ি ভাড়া ব্যয় এ বছর অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। বৈশ্বিক নানা কারণে ডলারের মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় রিয়ালের মূল্য অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। এ ছাড়া, মিনায়-আরাফায় তাঁবু ভাড়াসহ মোয়াল্লেম ফি বৃদ্ধি পেয়েছে। এসব কারণে হজের ব্যয় আর কমানো সম্ভব হয়নি।
যদিও হজ এজেন্সিগুলো বলছে, হজ প্যাকেজের অতি উচ্চমূল্যের কারণে হজ গমনেচ্ছুদের অনেকের বাজেটে কুলাচ্ছে না। বর্তমানে দেশে অর্থনৈতিক সংকট চলছে। সংসার চালাতে সাধারণ মানুষের হিমশিম অবস্থা। হজের জন্য যারা অল্প অল্প করে দীর্ঘদিন টাকা জমান তাদেরও বাজেটে টানাটানি। ফলে অনেকে হজে যেতে পারছেন না। তাদের অনেকেই হজের পরিবর্তে অল্প টাকায় ওমরাহের দিকে ঝুঁকছেন। এ ছাড়া প্যাকেজের বাইরে আগের তুলনায় অনেক বেশি খরচ হচ্ছে। রিয়ালের তুলনায় টাকার মান আগের চেয়ে কমার কারণে প্যাকেজের বাইরের খরচ বেড়েছে। আগে ৪০০ রিয়াল দিয়ে কোরবানি দেয়া গেলেও এখন ৮০০ রিয়াল প্রয়োজন হচ্ছে।   

হজ এজেন্সি আল নুর এয়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা মাহবুব আলম বলেন, মানুষ অর্থনৈতিক সংকটে ভুগছে। এখন আয়ের চেয়ে ব্যয় বেশি। এজন্য অনেক সাধারণ মানুষ হজে যেতে পারছেন না। গত বছর আমাদের এজেন্সি থেকে ৩০০ জনের বেশি হজ যাত্রী পাঠিয়েছিলাম। কিন্তু এবার ২৬৬ জন যাত্রী নিবন্ধন করেছেন। তিনি বলেন, সৌদি সরকারের নিয়ম অনুযায়ী চলতি মৌসুমে এজেন্সিকে সর্বনিম্ন ২৫০ জন হজ যাত্রী পাঠাতেই হবে। আমরা একা ২৫০ যাত্রীর কোটা পূরণ করতে পারিনি। এজন্য অন্য এজেন্সির সঙ্গে যুক্ত হতে হয়েছে। তিনি বলেন, হজ যাত্রী কমে যাওয়ায় আমরাও সমস্যায় পড়েছি। এমন ক্রাইসিস আগে কখনো হয়নি। এ বছর অনেকে টাকা ফেরত নিয়ে গেছেন বলেও জানান তিনি। 
নূর-ই-মক্কা মদিনা হজ সার্ভিসের কর্মকর্তা ওমর ফারুক বলেন, হজ নিবন্ধনের সময়সীমা কয়েক দফা বৃদ্ধির পরও এবার ৩৫ শতাংশ কোটা পূরণ হয়নি। এর পেছনে অনেকগুলো কারণ আছে। হজের খরচ বেড়েছে, সেই সঙ্গে মানুষের অর্থনৈতিক অবস্থাও ভালো না। অনেকে আমাদের কাছে এসে বলেছে, ভাই ব্যবসা বাণিজ্যের অবস্থা ভালো না। যদি সম্ভব হয় আগামী বছর যাবো। তিনি বলেন, গত বছর আমরা ১৭২ জন হজ যাত্রী পাঠিয়েছিলাম। কিন্তু চলতি বছর ১১২ জন হজ যাত্রীকে পাঠাবো। ২৫০ যাত্রীর কোটা পূরণ করতে আরেক এজেন্সির সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করছি। 

আরেক হজ এজেন্সি আবাবিল হজ গ্রুপের ম্যানেজার জামাল উদ্দিন মানবজমিনকে বলেন, আর্থিক সমস্যার কারণে অনেকে হজে যেতে পারছে না। অনেকে দর কষাকষি করে। 

এ ছাড়া রিয়ালের তুলনায় টাকার মান কমে যাওয়ায় প্যাকেজের বাইরের খরচ বেড়েছে। বর্তমানে এক হাজার রিয়াল সমান ৩৩ হাজার টাকা। আগে এক হাজার রিয়াল সমান বাংলাদেশি মুদ্রার মূল্য ছিল ২২ হাজার টাকা। এই বাড়তি খরচ হজ যাত্রীদের ঘাড়ে পড়েছে। হজ প্যাকেজের বাইরে অন্তত ১ লাখ টাকা খরচ করতে হয় বলেও জানান তিনি।     

আল-নাসের এভিয়েশন সার্ভিসেস এর চেয়ারম্যান ড. আব্দুল্লাহ্‌ আল-নাসের বলেন, আমাদের দেশের হাজি ৯০ শতাংশ আসে ব্রোকারের মাধ্যমে। মসজিদের মাওলানা, হাফেজ, ইমাম সাহেবদের মাধ্যমে। তারা হজ যাত্রীদের ওমরা করতে আগ্রহী করে তুলছেন। তারা বুঝিয়েছেন যে, হজ করতে অনেক খরচ, দেড় লাখ টাকায় ওমরা করে আসেন। এভাবে তারা প্রায় আড়াই থেকে ৩ লাখ মানুষকে ওমরা করিয়েছেন। এজন্য এবার কোটা পূরণ হয়নি। এ ছাড়া অর্থনৈতিক সংকটও হজ যাত্রী কমার একটি কারণ। তবে হজের নামে ওমরা করার প্রবণতা বাড়ার কারণে হজ যাত্রী বেশি কমছে। তিনি বলেন, চলতি মৌসুমে কয়েকটি এজেন্সি যৌথভাবে ২৬৪টি জনকে হজে পাঠাচ্ছি। কারণ, এবার প্রতিটি এজেন্সিকে কমপক্ষে ২৫০ জন হজ যাত্রী পাঠানোর নিয়ম করা হয়েছে। কোটা পূরণ করতে যৌথভাবে পাঠানো হচ্ছে। 

হজ এজেন্সি এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (হাব) সভাপতি এম শাহাদাত হোসাইন তসলিম বলেন, এ বছর জাতীয় নির্বাচনের সময় হজের নিবন্ধন কার্যক্রম ছিল। নির্বাচনকালীন সময়ে অনেকে নিবন্ধন করেনি। এ ছাড়া প্রতি বছর ফেব্রুয়ারিতে হজের নিবন্ধন কার্যক্রম পরিচালিত হয়। কিন্তু এ বছর আগেই শুরু হয়েছে। মানুষের প্রস্তুতি সেভাবে ছিল না। এজন্য হজ যাত্রী কমেছে। তিনি আরও বলেন, করোনার পর অনেকে ওমরা হজ করে ফেলেছেন। মানুষ এখন ওমরায় অভ্যস্ত হয়ে গিয়েছে। হজ যাত্রী কমার এটাও একটি কারণ।

পাঠকের মতামত

যাদের উপর হজ্জ ফরজ হয়েছে তারা টাকার চিন্তা কেন করবেন। কারণ যেমন নামাজ ফরজ করা হয়েছে ওয়াক্ত হলে আমাকে আপনাকে সকল মুসলিম ভাই-বোনদেরকে নামাজ সময় মত আদায় করতে হবে তদ্রুপ যেহেতু আর্থিকভাবে হজ্জ ফরজ হয়েছে তাই আপনি কেন টাকার চিন্তা করছেন। দয়া করে টাকার চিন্তা পরিহার করুন। সময়মত হজ্জ করে আসুন। আমাদের দেশের সরকার তথা বিমান ভাড়া এবং এজেন্সিগুলোর পেট ভরতে আরও টাকার প্রয়োজন তাই ওদেরকে টাকা দিয়ে দিন।

md. rafiqul Islam
২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ১১:১৬ অপরাহ্ন

ডলারের দাম বৃদ্ধি, রিয়ালের দাম বৃদ্ধি, মক্কা মদিনা কাছাকাছি বাড়ী ভাঙ্গার প্রভাব সব দেশের হজ যাত্রীদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য । অন্য দেশ যদি কম টাকায় পারে বাংলাদেশ কেন পারবে না ? বাংলাদেশের প্রতিটি ক্ষেত্রে অতি মূল্যায়ন পরিলক্ষিত । এমনকি উন্নয়ন প্রকল্প ব্যয় মূল্যায়নের ক্ষেত্রেও । কোথায় ও গলদ আছে ।

Kazi
২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, শনিবার, ৩:০৬ পূর্বাহ্ন

বিমান আয় করে শুধু হজ যাত্রী বহন করে ,এ ছাড়া বিমানের আয়ের কোনো পথ নাই এবং অব্যবস্থাপনার ঘাটতি নাই!

যদু
১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বুধবার, ৩:১৮ অপরাহ্ন

হজ্জ্বের কথা শুনলেই কিছু লোকের নীতিবাক্য শুরু হয়ে যায়, বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয়ের জন্য । আসল চুরির জায়গা তারা চোখে দেখেনা । এরা হয় নিজেরা লুটেরা, নাহয় লুটেরাদের সহযোগী । বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের কথা আসলে তাদের মাথায় প্রথমে মসজিদের এসি বন্ধ করে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের চিন্তা আসে । যারা মসজিদে নিয়মিত যায় তারা ঠিকই জানে মসজিদের এমনকি অতি অভিজাত এলাকার মসজিদেও সারাদিনে কত মিনিট এসি চালানো হয় ।

N Islam
১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বুধবার, ৯:৪৯ পূর্বাহ্ন

হজ্বের টাকা খাচ্ছে সরকার আর বাংলাদেশ বিমান, আর কিছু ভাগ পাচ্ছে সৌদি এয়ার লাইন্স

সালমান
১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বুধবার, ৮:৩২ পূর্বাহ্ন

বাংলাদেশে হজ্বের খরচ ১২-১৫লাখ করলেও কামলাদের পেট ভরবে না। ডলারের কোন ইস্যু না।

Pipilika
১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বুধবার, ১:৪৯ পূর্বাহ্ন

ভোক্তার ব্যয় করার ক্ষমতা যখন সংকুচিত হয় তখন অর্থনৈতিক সংকট অনিবার্য, হজ্জ নিবন্ধনের চিত্রে আমাদের আর্থিক দূর্দশা প্রতিফলিত হয়েছে।

ইতরস্য ইতর
১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বুধবার, ১:১৪ পূর্বাহ্ন

যাদের আর্থিক অবস্থা খুবই খারাপ, তারা হজ না করে ওমরা করতে পারছে এটাই তাদের সান্তনা

Md Hasib Ahsan
১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, বুধবার, ১২:১০ পূর্বাহ্ন

ধর্ম মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ডলারের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাওয়ার কারণে খরচ বেড়েছে। আরে আওয়ামী চাপাবাজের দল, ডলারের দাম মালয়শিয়াতে বাড়ে নাই?

হজ্জ
১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ১১:৪৭ অপরাহ্ন

Since Bangladesh is under acute shortage of foreign currency, the less number of pilgrims go for Hajj, the more the save of foreign reserve. Anyone has performed Hajj or Omra once, he shouldn't be allowed hajj or omra anymore.

Zia
১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ১১:২৩ অপরাহ্ন

তৃতীয় এমনকি চতুর্থ বিমান সংস্থাকে হজ্জ্ব ফ্লাইটে আনা দরকার। অন্যথায় বিমান আর সৌদি এয়ারলাইন্স মিলে সিন্ডিকেট করে হজ্জ্ব যাত্রীদের খরচ অনেক বাড়াচ্ছে। বিমান অন্য রুটগুলাতে যা লস করে তার পুরাটাই হজ্জ্বযাত্রীদের কাছ থেকে উসুল করার চেষ্টা করছে - এরকমই হজ্জ্ব সংশ্লিষ্ট অনেকেই মনে করেন I

Parvez
১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ৯:৫৪ অপরাহ্ন

Biman Bangladesh monopoly makes unusual plain fair is the major cause , its a julum but every year is happening same thing.

ct sayeed
১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ৯:৪২ অপরাহ্ন

এটা সত্যিই একটি ভাল খবর. হজ পালন সীমিত করা উচিত। এতে আমাদের কষ্টার্জিত বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হবে।

Humayun Kabir
১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ৮:৩৭ অপরাহ্ন

হজ্জব্রত পালনের জন্য হাজীদের মক্কায়/মদীনায় অবস্থান দীর্ঘ না করে হজ্জের দিনগুলিসহ মোট সাত দিনের মধ্যে শেষ করার প্রক্রিয়া উদ্ভাবন করা গেলে খরচ কমবে। বৈদেশিক মুদ্রাও সাশ্রয় হবে- হজ্জব্রত পালনকারীদর সংখ্যাও বাড়বে। হজ্জ প্যাকেজে সরকারীভাবে বিমান ও বাড়ী ভাড়ার বাইরে অন্যান্য খরচ ব্যক্তির উপর ছেড়ে দেয়া হলেও খরচ কমবে।

মোহাম্মদ হারুন আল রশ
১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ৮:৩০ অপরাহ্ন

আজ ১৩/০২/২৪ যদি আপনি বাংলাদেশ বিমানে ঢাকা থেকে রিয়াদ যান ভাড়া পড়বে ৬৮ হাজার ৮ শত ১৩ টাকা। আবার আজ যদি কলিকাতা থেকে ইন্ডিয়ান এয়ার লাইনে রিয়াদ যান ভাড়া পড়বে ২৬ হাজার ৭৪৬ বাংলাদেশী টাকা। হজের রিটান দুই লক্ষ টাকার কাছাকাছি। সৌদি এবং বাংলাদেশ বিমান ছাড়া কেউ বাংলাদেশ থেকে হাজী বহন করতে পারবেন না।

লবিব
১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ৩:৩৭ অপরাহ্ন

মালয়েশিয়া থেকে ২.৬০ লাখ টাকা মাত্র যেখানে মালয়েশিয়া থেকে সৌদির দূরত্বও বেশী!!

monjur hasan
১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ১২:০৫ অপরাহ্ন

প্রথম পাতা থেকে আরও পড়ুন

   

প্রথম পাতা সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status