ঢাকা, ১৩ জুন ২০২৪, বৃহস্পতিবার, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৬ জিলহজ্জ ১৪৪৫ হিঃ

রকমারি

কোন দেশের হাতে কত সোনা জমা আছে?

মানবজমিন ডিজিটাল

(৪ মাস আগে) ১৮ জানুয়ারি ২০২৪, বৃহস্পতিবার, ৫:১২ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ১২:০১ পূর্বাহ্ন

mzamin

সোনার রিজার্ভ একটি দেশের অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা নিশ্চিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। একটি নির্ভরযোগ্য ভাণ্ডার হিসেবে কাজ করে, বিশেষ করে আর্থিক অনিশ্চয়তার সময়ে। এই সোনা দেশের মুদ্রার দর নিয়ন্ত্রণেও ভূমিকা পালন করে। কারণ সোনার মূল্যে স্থায়িত্ব অন্য সম্পদের তুলনায় অনেকটাই বেশি বলে মনে করা হয়। অনেক দেশ গোল্ড রিজার্ভ নিয়ে ভাবিত না হলেও, বিশ্বের উন্নত বিভিন্ন দেশ এ ব্যাপারে সজাগ। কোন দেশের হাতে কী পরিমাণ সোনা জমা করে রাখা আছে, তার একটি তালিকা সম্প্রতি প্রকাশ করেছে ফোর্বস। 

১৯৭০-এর দশকে আনুষ্ঠানিকভাবে পরিত্যক্ত হওয়া সত্ত্বেও, অনেক দেশ এখনও সোনার মজুদ বজায় রাখে এবং এখন ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তার কারণে এই রিজার্ভের চাহিদা বাড়ছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলি আবারও প্রাথমিক নিরাপদ আশ্রয়স্থল হিসেবে সোনাকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে। স্বর্ণের মজুদ একটি দেশের ঋণযোগ্যতা এবং সামগ্রিক অর্থনৈতিক অবস্থানকে প্রভাবিত করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে, এমনকি আধুনিক অর্থনৈতিক ল্যান্ডস্কেপ পরিবর্তন হলেও। এখানে সবচেয়ে বেশি সোনার মজুদ সহ শীর্ষ ১০ টি দেশের একটি তালিকা দেয়া হলো -

ফোর্বস অনুসারে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বিশ্বের সর্বোচ্চ ৮১,৩৩৬.৪৬ টন সোনা মজুদ রয়েছে।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩,৩৫২.৬৫ টন সোনার  মজুদ রয়েছে জার্মানির।

ইতালিতে ২,৪৫১.৮৪ টন স্বর্ণের তৃতীয় সর্বোচ্চ মজুদ রয়েছে।

ফ্রান্সের সোনার মজুদ রয়েছে ২,৪৩৬.৮৮ টন।

২,৩৩২.৭৪ টন সোনার মজুদ নিয়ে রাশিয়া পঞ্চম স্থানে রয়েছে।

উচ্চ মধ্যম আয়ের দেশ চীনের কাছে সর্বোচ্চ ২,১৯১.৫৩ টন সোনার মজুদ রয়েছে।

সুইজারল্যান্ডে ১০৪০.০০টন সোনার মজুদ রয়েছে।

জাপানের সোনার মজুদ রয়েছে ৮৪৫.৯৭ ।

৮০০.৭৮ টন সংরক্ষিত সোনা নিয়ে ভারত তালিকায় নবম স্থানে রয়েছে।

নেদারল্যান্ডের কাছে ৬১২.৪৫টন সোনার মজুদ রয়েছে।

মার্কিন ডলারের সাথে সোনার দাম ওঠানামা করে। যখন ডলারের মূল্য হ্রাস পায়, তখন সোনার মূল্য বৃদ্ধি পায়।

বিজ্ঞাপন
বাজারের অস্থিরতার সময় কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলিকে তাদের রিজার্ভ রক্ষা করতে দেয়। স্বর্ণের মজুদ আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও অর্থায়নেও ভূমিকা পালন করে। কিছু দেশ বাণিজ্য ভারসাম্যহীনতা নিষ্পত্তি করতে বা ঋণের জন্য জামানত হিসাবে সোনা নিয়োগ করে। 

স্বর্ণের রিজার্ভের অস্তিত্ব একটি দেশের ঋণযোগ্যতা বাড়াতে পারে এবং বৈশ্বিক অর্থনৈতিক ব্যবস্থায় তার অবস্থানকে প্রভাবিত করতে পারে। স্বর্ণ সংকটের সময় হেজ হিসেবে কাজ করে। মুদ্রাস্ফীতি এবং মুদ্রার অবমূল্যায়নের বিরুদ্ধে সুরক্ষা প্রদান করে অর্থনৈতিক মন্দা বা ভূ-রাজনৈতিক অনিশ্চয়তার মধ্যে এর মূল্য প্রায়শই বৃদ্ধি পায়।

সূত্র : এনডিটিভি

পাঠকের মতামত

যখন ডলারের মূল্য হ্রাস পায়, তখন সোনার মূল্য বৃদ্ধি পায়?

Wahid Mia
২৫ জানুয়ারি ২০২৪, বৃহস্পতিবার, ৮:২৫ অপরাহ্ন

রকমারি থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

রকমারি সর্বাধিক পঠিত

মা-বাবার বিরুদ্ধে মামলা/ 'অনুমতি না নিয়েই কেন জন্ম দিয়েছ?'

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status