ঢাকা, ২৫ জুন ২০২২, শনিবার, ১১ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৪ জিলক্বদ ১৪৪৩ হিঃ

দেশ বিদেশ

তারেক-জোবায়দার পক্ষে আইনজীবী লড়তে পারবে কিনা, জানা যাবে ২৬শে জুন

স্টাফ রিপোর্টার
২০ জুন ২০২২, সোমবার

বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার স্ত্রী জোবায়দা রহমানের পক্ষে আইনজীবী লড়তে পারবে কিনা তা জানা যাবে ২৬শে জুন। গতকাল বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজী  মো. ইজারুল হক আকন্দের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রায়ের জন্য এ দিন ধার্য করেন। আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন সিনিয়র আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী ও জয়নুল আবেদীন। দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরশীদ আলম  এবং রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নী জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন ও ডেপুর্টি অ্যাটর্নী জেনারেল আমিন উদ্দিন মানিক। তারেক রহমানের আইনজীবী এজে মোহাম্মদ আলী আদালতকে বলেন, এখনো মামলাটির অভিযোগ আমলে নেয়া হয়নি। জোবায়দা রহমানের ক্ষেত্রে আপিল বিভাগের রায় পুনঃবিবেচনার আবেদন করা হবে। অপরদিকে তারেক রহমান যখন রিট করেন তখন তিনি দেশেই ছিলেন। তারেক রহমান এ মামলায় জামিন পেয়েছেন, যা আপিল বিভাগ বহাল রেখেছেন। তাই এ মামলায় তাকে পলাতক বলা যাবে না। শুনানিতে দুদকের আইনজীবী আদালতকে বলেন, ৩টি মামলায় তারেক রহমান দণ্ডিত হয়েছেন।

বিজ্ঞাপন
তার সাজাপরোয়ানা এখনো ঝুলে আছে। যদি তিনি দণ্ডিত না হতেন, মামলাগুলোর বিচার শেষ না হতো তাহলে ভিন্ন কথা ছিল। তাই তারেক রহমান এ মামলায় পলাতক।  গত ১৩ই এপ্রিল একই মামলা বাতিল চেয়ে জোবায়দা রহমানের করা আবেদনের ওপর আপিল বিভাগ রায় দেন। রায়ে আপিল বিভাগ বলেন, জোবায়দা রহমান পলাতক। তাই তার পক্ষে আইনজীবী শুনানি করতে পারে না। এরইমধ্যে গত ২৯শে মে তারেক রহমানের পক্ষে আইনজীবী সময়ের আবেদন চাইতে পারে কিনা প্রশ্ন তোলেন দুদকের আইনজীবী। এরপর তারেক-জোবায়দা পলতাক কিনা, তাদের পক্ষে আইনজীবী লড়তে পারে কিনা- এসব বিষয়ে কয়েক দফা শুনানি হয়। শুনানি শেষে গতকাল এ বিষয়ে ২৬শে জুন রায়ের দিন দার্য করেন। ২০০৭ সালের ২৬শে সেপ্টেম্বর সম্পদের তথ্য গোপন ও জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে তারেক রহমান, জোবায়দা রহমান ও তার মা সৈয়দা ইকবাল মান্দ বানুর বিরুদ্ধে কাফরুল থানায় মামলাটি করে দুদক। পরের বছর ৩ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। হাইকোর্টের ওই আদেশে নিম্ন আদালতে দুর্নীতির মামলার বিচার কার্যক্রম চলতে বাধা নেই জানানো হয়েছিল। ২০০৮ সালের ২৬শে সেপ্টেম্বর দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) কাফরুল থানায় জ্ঞাত আয় বহিরর্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে লন্ডনে অবস্থানরত তারেক রহমান, তার স্ত্রী জোবাইদা এবং শাশুড়ি ইকবাল মান্দ বানুর বিরুদ্ধে মামলা করে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ২০০৯ সালের ৩১শে মার্চ ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে ৩ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দেন। জোবাইদার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২০০৯ সালের ৮ই এপ্রিল হাইকোর্ট তার বিরুদ্ধে মামলার কার্যক্রম স্থগিত করে এবং কেন তার বিরুদ্ধে মামলা বাতিল করা হবে না তা জানতে চেয়ে দুদককে রুল জারি করে। রুলের ওপর শুনানি শেষে, হাইকোর্ট ২০১৭ সালের ১২ই এপ্রিল আবেদন খারিজ করে, স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করে এবং জোবাইদা রহমানকে দুর্নীতির মামলায় ৮ সপ্তাহের মধ্যে সংশ্লিষ্ট নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করতে বলেন। বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণ না করে জোবাইদা রহমান হাইকোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে লিভ টু আপিল আবেদন করেন।

পাঠকের মতামত

একদিন এই স্বৈরাচার সরকারের পক্ষে কোনো আইনজীবিদের পাওয়া যাবে না।

আজাদ
২০ জুন ২০২২, সোমবার, ১:৩৭ পূর্বাহ্ন

দেশ বিদেশ থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

দেশ বিদেশ থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com